যখন লিখছি মন তখন বিক্ষিপ্ত। সারাদেশ শোকাভিভূত। ভাষা শহীদদের শোকের দিনটিকে ঢেকে দিয়েছে আরেক শোকের সংবাদ। হ্যাঁ, চকবাজারের শোকাবহ ঘটনাটির কথাই বলছি। যেখানে আগুনে পুড়ে মারা গিয়েছে ৬৭ জন। আহত হয়েছেন অনেকেই। যাদের অবস্থাও আশঙ্কাজনক।

টিভি চ্যানেলগুলোতে এখন শুধু পোড়া লাশের ছবি। কেউ লাশ দেখাচ্ছে, কেউ দেখাচ্ছে না। অনলাইন পত্রিকায় ঘুরছে পোড়া হাত, পোড়া পা আর পোড়া মুখের আবছা ছবিগুলো। বোন কাঁদছে মৃত ভাইয়ের জন্য। যে ভাই প্রতিরাতেই বাড়ি ফিরলেও সে রাতে বাড়ি ফিরেনি। মুঠোফোনে জানিয়েছিলেন রাস্তায় জ্যাম, একটু পরেই ফিরে আসবেন।

দিপুও ছিল সেখানে। চুড়িহাট্টা শাহী মসজিদ মার্কেটের নিচতলায় গামছাসহ বিভিন্ন জিনিসের দোকান ছিল তাদের। ভাতিজা আর ভাইকে রেখে আগুন লাগার ঠিক আগেই দোকান থেকে বেরিয়েছিলেন দিপু। নিজে বেঁচে গেলেও পুড়ে লাশ হয় ভাই আর আদরের ভাতিজা। তাদের সঙ্গে হওয়া শেষ কথাগুলো মনে করে হাঁউমাউ করে কাঁদে সে।

অন্ত:স্বত্তা স্ত্রী হাঁটতে পারবে না। তাই তাকে সুরক্ষার জন্য ঘরের ভেতরেই ছিলেন এক স্বামী। স্ত্রীসহ কয়লা হয়ে গিয়েছেন তিনিও। দুই অবুঝ শিশু তার আত্মীয়ের কোলে। তাদের বাবা-মা আর ফিরে আসবে না। নানা মানুষের দিকে অপলক তাকিয়ে আছে শিশু দুটি। হয়তো বাবা-মায়ের কণ্ঠস্বর শোনার অপেক্ষাতেই আছে তারা।

এক বন্ধু রাস্তার পাশের এক হোটেলে বসেই চা খাওয়ার জন্য ডেকেছেন তার বন্ধুকে। সে বন্ধু এসে তার ঝলসানো লাশ পেয়েছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া এক ছাত্র তার ভাইয়ের সঙ্গে পুড়ে কয়লা হয়ে গিয়েছেন। আগুনের তীব্রতা এতটাই ছিল যে, রিকশায় বসে থাকা অবস্থাতেই এক দম্পতি তার শিশুসন্তানসহ জীবন্ত দগ্ধ হয়ে মারা গিয়েছে। আর প্রথম যে ভবনে আগুন লাগে, সেই ওয়াহেদ মঞ্জিলের দোকানপাট ও গুদামে থাকা ক্রেতা-বিক্রেতাদের অধিকাংশই এমনভাবে পুড়েছে যে তা সনাক্ত করার উপায় নেই। এসবই গণমাধ্যমের খবর।
পুরনো ঢাকার চকবাজরের বাতাসে এখন পোড়া লাশের গন্ধ। প্রিয় মানুষ হারানোর বেদনায় কাঁদছে হাজারো মানুষ। তাদের সেই কান্না আমাদের হৃদয়কেও খামচে ধরেছে। মৃতমানুষের আর্তনাদ কি আমরা শুনতে পাই? কতই না কষ্ট হয়েছে এই মানুষগুলোর! ভাই ফেরেনি তার বোনের কাছে। অথচ তার ফেরার কথা ছিল। স্বামী-স্ত্রী তাদের অনাগত শিশুকে নিয়ে কতইনা স্বপ্ন দেখেছিলেন। সেই স্বপ্নগুলোও পুড়ে ছাই হয়েছে তাদের দেহের সঙ্গে। এসব মানুষের মৃত্যু আমাদের মাঝে রেখে গিয়েছে অসংখ্য প্রশ্ন। কেন পুড়ে মরল এতোগুলো মানুষ? আমরা কি চেয়েছিলাম এমন মৃত্যুকুপ নগরী? এই মৃত্যুর দায় আসলে কে নিবে?

আমরা উন্নত দেশে পরিণত হচ্ছি। যদি তাই হয়, তবে কেন এতো লোক এভাবে পুড়ে মারা যাবে? কয়েকদিন আগে চট্টগ্রামেও মানুষ পুড়ে মরেছে। প্রশ্নগুলো মেয়ে পৃথা প্রণোদনার। বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের শিশুসাংবাদিক সে। তাই নানা বিষয় নিয়ে প্রশ্ন তার।

এটা তো দুর্ঘটনা, যা বলে কয়ে আসে না। পৃথা মুচকি আসে। তাহলে কি আমরা ভাগ্যকে দায়ী করব? প্রশ্ন শুনে আমি নিরব থাকি।
গণমাধ্যমে সংবাদ থেকে জানা যায়, সেখানে পিকআপে থাকা গ্যাস সিলিণ্ডার বিস্ফোরিত হওয়ার পর প্রথমে রাস্তায় থাকা যানবাহনে এবং পরে আশপাশের ভবনে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। রাস্তার পাশের হোটেলেও ছিল গ্যাস সিলিন্ডার। জায়গাটি পাইকারি পণ্যের বাজার হওয়ায় ওই ভবনগুলোর অধিকাংশ দোকানে প্লাস্টিক ও পারফিউমের গুদাম ছিল। দাহ্য পদার্থ থাকায় দ্রুত আগুন ছড়িয়ে ক্ষয়ক্ষতি বেশি হয়েছে বলে ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে।

যদি তাই হয়, তাহলে ওই গ্যাস সিলিন্ডারগুলো কোন কোম্পানির, সেগুলো কেন বিস্ফোরিত হলো? যদি বিস্ফোরণের ঝুঁকিই থাকে, তবে কেন সরকার এখন ঘরে ঘরে সিলিন্ডার ব্যবহারের নির্দেশ দিয়েছে। কোন সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হবে না, সেটির নিশ্চয়তা কি সরকার দিতে পারবে?

আরও বলা হলো, ওই ভবনে দাহ্য কেমিক্যাল ছিল, ছিল একটি বডি স্প্রের কারখানাও। যা আগুনকে আরও দাউ দাউ করে জ্বলতে সাহায্য করে। কারখানায় কতটুকু দাহ্য পদার্থ রাখা যায়, তার কি কোন সরকারি বিধিবিধান সেখানে মানা হয়েছিল? ওই বডি স্প্রে বা পারফিউমের কারখানাটির কি কোন অনুমোদন ছিল? নাকি এরা নকল পারফিউম তৈরি করতো? এসব হয়তো বেরিয়ে আসবে তদন্তে। হয়তো আসবে না। আরেকটি আলোচিত ঘটনায় চাপা পড়ে যাবে।

মেয়েকে আমি আশ্বস্ত করি। তদন্ত হলে সব বেরিয়ে আসবে। সরকারকে তো সময় দিতে হবে।

পৃথা দীর্ঘশ্বাস ফেলে। কয় বছর দিবে? নয় বছর আগেও পুরনো ঢাকার নিমতলিতে আগুন লেগেছিল। সে সময় কয়েক পরিবারের মেয়ের দায়িত্বও নিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু ওই ঘটনার তদন্ত করে কি কোন ব্যবস্থা সরকার নিয়েছিল?

২০১০ সালের ১৫ জুন তদন্ত কমিটি তাদের প্রতিবেদনে ১৭টি সুপারিশ করে। যার মধ্যে প্রধান ছিল পুরান ঢাকা থেকে রাসায়নিক কারখানা ও গুদামগুলো সরানো। এ বিষয়ে দক্ষিণের মেয়র গণমাধ্যমে বলছেন, তদন্ত রির্পোটের সাত বছর পর অর্থাৎ ২০১৭ সালের মার্চে উনি একবার অভিযান শুরু করলেও শিল্প মন্ত্রণালয় ও ব্যবসায়ীদের সংগঠনের অনুরোধে তা আর এগোয়নি। মেয়রের এই বক্তব্যকে যদি সত্য ধরে নিই তবে এই ঘটনার দায় তিনিও এড়াতে পারেন না। একইভাবে দায় বর্তায় ব্যবসায়ীদের সংগঠন ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের। সে সময় যদি সরকার পুরান ঢাকাসহ আবাসিক এলাকায় রাসায়নিক পদার্থের কোনও গুদাম বা দোকান না রাখত, কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে ভবন নির্মাণ ও অগ্নি নির্বাপনের ব্যবস্থা রাখা হতো, রাসায়নিক ও এসিড জাতীয় দাহ্য পদার্থের দোকান ও বিক্রির সনদ দেওয়ার ক্ষেত্রে আরও সর্তক থাকত- তাহলে হয়তো এতো প্রাণহানির ঘটনা ঘটত না।

ঢাকা দক্ষিণের মেয়র সাঈদ খোকন বলছেন, পুরান ঢাকা থেকে অবশ্যই রাসায়নিক ও দাহ্য পদার্থ রাখার সব কারাখানা তিনি এবার অবশ্যই সরিয়ে নিবেন। নয় বছর আগেও একই কথা আমরা শুনেছি। কিন্তু কিছুদিন পরেই সব মানুষ ভুলে যাবে। সে সুযোগে মেয়র, ব্যবসায়ী ও আমলাতন্ত্রের কার্যক্রমও গতিহীন হয়ে পড়বে- এমনটা আমরা বারবার দেখতে চাই না। পৃথার মতো এ প্রজন্মের ছেলে-মেয়েদের বিবেচনাবোধও প্রখর। তাই তারাও চায় যেকোন ভাল উদ্যোগের সফল বাস্তবায়ন সরকার করুক।

বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনা জানেন আপনজন হারানোর কষ্টটা কেমন? তাই তার প্রতি আমাদের আস্থাটাও বেশি। আমরা আর নিমতলী বা চকবাজারের মতো মর্মান্তিক ট্র্যাজেডি দেখতে চাই না। দুর্ঘটনা হয়তো ঘটবে। কিন্তু সরকারের নানা উদ্যোগের মাধ্যমে তা শুন্যের কোটায় নামিয়ে আনার চেষ্টা আর হতাহতের পরিমাণ কমিয়ে আনার মধ্যেই সরকারের প্রকৃত সফলতা নির্ভর করবে। তা না হলে সরকারের উদ্যোগগুলো সবার কাছে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েই থাকবে।

সালেক খোকনলেখক, গবেষক।

Responses -- “আমরা কি চেয়েছিলাম এমন মৃত্যুকূপ নগরী?”

  1. আসমা সুলতানা মিতা

    আমাদের আজ অনেক আগুন প্রয়োজন, যে আগুন আমাদের পুড়িয়ে শুদ্ধ করবে, করবে খাঁটি, ছাই করবে না। মৃত্যু হোক স্বাভাবিক, জন্ম যেমন।

    Reply
  2. আবু সালেহ

    সালেক সাহেব কেন এই দুর্ঘটনার সাথে পঁচাত্তর সালের পনেরই আগস্টকে কে টানলেন বুঝি নাই।

    Reply
    • সরকার জাবেদ ইকবাল

      সবকিছুতেই রাজনীতির গন্ধ খুঁজে বেড়ানো ঠিক নয়। এখানে ১৫ই আগস্টকে টেনে আনা হয়নি; টেনে আনা হয়েছে একজন মা-বাবা হারানো কন্যাকে, ভাই হারানো এক বোনকে, স্বজন হারানো এক নারীকে, যার নাম শেখ হাসিনা। যিনি স্বজন হারিয়েছেন তিনিই জানেন এই হারানোর ব্যথা কতটা গভীর। আমার ধারণা সালেব সাহেব সেই কথাটাই বোঝাতে চেয়েছেন। মনে রাখা ভাল, মারা গেছে সাধারণ মানুষ; কোন দলের কোন নেতা-কর্মী নয়! কাজেই, রাজনৈতিক হিংসার বশবর্তী হয়ে কেউ আগুন লাগিয়ে দিয়েছে এমনটি মনে করার কোন সুযোগ নেই।

      Reply
  3. সরকার জাবেদ ইকবাল

    সুপ্রিয় সালেক খোকন,

    আপনি আমার প্রিয় লেখক। আরও বেশি বেশি লিখুন। পৃথাদেরকে প্রেরণা যুগিয়ে যান। আধমরাদেরকে ঘা মেরে বাঁচিয়ে রাখতে ওরাই পারবে! জয় পৃথাদের জয়!

    Reply
  4. মো সোহাগ রানা

    স্যার
    চকবাজারের ঘটনায় সবকিছুর মধ্যেও কিন্তু আমরা একটা জিনিস সহজভাবে পার করে দিচ্ছি, আর সেটা হচ্ছে গ্যাস সিলিন্ডার। বিগত বছরের কয়েক মাস ধরে উল্লেখযোগ্য হারে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে মানুষ দিনের পর দিন মারা যাচ্ছে। অথচ এই বিষয় নিয়ে দু-তিন দিন কথা পেপার পত্রিকাতে উঠলেও স্থায়ীভাবে কোন সমাধান এখনো তৈরি হয়নি। কেন এর আমরা এটাকে বন্ধও করতে পারছি না, কারণ এর চাহিদা অনেক। কিন্তু এর সেফটি সম্পর্কে আমরা কয়জন জানি? সাধারণ মানুষ তো দূরের কথা, যারা এই সিলিন্ডার তৈরি করে, ব্যবসা করে, গাড়িতে যারা সরবরাহ করে, যারা খুচরা বিক্রয় করে তারাই বা কতখানি এর সেফটি সম্পর্কে জানে। কেন আমাদের প্রশাসন এত মানুষ মরার পরও এটা নিয়ে কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেন না। আর কত মানুষ এইভাবে মারা যাবে? সরকার যদি চায় তাহলে এগুলো ৩-৭ দিনের মধ্যে ঠিক করতে পারেন, যদি কোন রাজনৈতিক ফায়দা এর ভিতর না আসে।
    দয়া করে গ্যাস সিলিন্ডার নিয়ে একটি কলাম লেখেন, যাতে করে প্রশাসন-সরকার, ব্যবসায়ী, জনগণ সবাই এর সেফটি নিয়ে ভাবে এবং কার্যকরি পদক্ষেপ নেয়। এবং এর সাথে চকবাজারে আগুন লাগাতে যে গ্যাস সিলিন্ডারগুলো থেকে সুত্রপাত হয়েছে তাদের বিচার আমরা চাই।

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—