ইংরেজ আমল থেকেই বাংলার বিপ্লবীরা কাজ করে গেছেন দেশ স্বাধীনের লক্ষ্যে। শেষ পর্যন্ত অনেক রক্ত ঝরে ১৯৪৭ সালে যখন বেনিয়া ইংরেজরা বিদায় নিল তখন আসলে আমরা যেটা পেলাম সেটা ছিল সোনার পাথরবাটি। পরিণাম দূরদর্শী নেতারা আগেই অনুমান করেছিলেন। গরম তেল থেকে উত্তপ্ত আগুনে ঝাঁপ দেওয়ার অভিজ্ঞতা পেতে আমাদের বেশিদিন অপেক্ষা করতে হয়নি।

পাকিস্তান ১৯৪৭ সালে রাজনৈতিক স্বাধীনতা পেলেও এর উভয় অংশের গণমানুষের স্বাধীনতা অধরা থেকে অধরাতর থেকে গেছে। বছরের পর বছর চলে গেছে কিন্তু একটা সংবিধান তৈরি করতে পারেনি। বাংলার মানুষ আরও অবহেলিত হতে থাকল। পুরো পাকিস্তানের অর্থনীতির বুনিয়াদ দাঁড়িয়েছিল বাংলার পাটের উপর, কিন্তু উন্নয়ন কার্যক্রম সব হতে থাকল পশ্চিম পাকিস্থান অংশে। এবং শেষ পর্যন্ত ’৫২-এর ভাষা আন্দোলন, ’৫৪-এর নির্বাচন, ’৫৮-তে আইয়ুবের মার্শাল ল, ’৬৬-তে ছয় দফা, ’৬৯-এর আন্দোলনে আইয়ুবের পতন, ’৭০-এর নির্বাচন পেরিয়ে বাংলার মানুষের পছন্দের রাজনৈতিক দল যখন সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে পুরো পাকিস্তানের শাসনভার নেওয়ার দাবিদার হল তখনই পশ্চিম পাকিস্তানের শাসক সামরিক জান্তারা গড়িমসি শুরু করল।

বাংলার গণমানুষের হৃদয়ের নেতা শেখ মুজিবুর রহমান সেই ’৭১-এর উত্তাল দিনগুলোতে অসম্ভব রাজনৈতিক মুনশিয়ানার সঙ্গে ধাপে ধাপে পা ফেলছিলেন। তিনি যে ধৈর্য্য ও প্রজ্ঞার সম্মিলন দেখিয়েছিলেন সেটা ছিল অভুতপূর্ব। তারই ধারাবাহিকতায় ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ এবং পরবর্তীতে ২৫ মার্চ রাতে ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে পাকিস্তানি মিলিটারি তাঁকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারের আগে তিনি বিভিন্ন স্থানে টেলিগ্রাফ বার্তা পাঠিয়ে স্বাধীনতার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়ে যান।

 

02 BDContemporary-Events-Docs-1971

 

আমাদের আজকের আলোচনা এই টেলিগ্রাফ বার্তার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে। এই বার্তা বঙ্গবন্ধু নিজে লিখে কাউকে আগেই দিয়ে গিয়েছিলেন কি না, কিংবা গ্রেপ্তারের আগে টেলিফোনে কাউকে মুখে ডিকটেশন দিয়েছিলেন কি না, দিলে কাকে কাকে দিয়েছিলেন এবং তাঁদের কী নির্দেশ দিয়েছিলেন কিংবা কোথায় কাদের সেই বার্তা পাঠাতে বলেছিলেন– এ ধরনের নানা প্রশ্নের সঠিক উত্তর এখনও পুরোপুরি স্পষ্ট নয়।

আমরা বিভিন্ন মাধ্যম থেকে স্বাধীনতা ঘোষণার টেলিগ্রাফ বার্তাটির কয়েকটি প্রতিলিপি পেয়েছি–

১. ১৯৭২ সালের ১৮ জানুয়ারি সিডনি এইচ শ্যনবার্গকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে বঙ্গবন্ধু বলছেন: “১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ তারিখ রাত সাড়ে দশটার দিকে তিনি চট্টগ্রামে একটি গুপ্ত হেডকোয়ার্টারে ফোন করে স্বাধীনতার বার্তা পাঠিয়েছিলেন যেটা পরবর্তীতে গোপন ট্রান্সমিটার দ্বারা প্রচারিত হয়েছিল।”

এ ছাড়া ওই রিপোর্টে বলা হচ্ছে, রাত ১২টা থেকে একটার মধ্যে পশ্চিম পাকিস্তানি সৈন্যরা তাঁর বাড়ির উপর গুলিবর্ষণ শুরু করে। তিনি ড্রেসিং রুম থেকে বাইরে বের হয়ে আসেন এবং তাদের মুখোমুখি দাঁড়ান। পাকিস্তানি সৈন্যদের গুলি বন্ধ করতে বলেন এবং জিজ্ঞাসা করেন, কেন তারা গুলি করছে? যদি তারা তাঁকে গুলি করতে চায় সেটা করুক; কেন তারা অন্য মানুষ এবং বাচ্চাদের উপর গুলি করছে?

একজন মেজর পেছন থেকে গর্জন করে ওঠে গুলি বন্ধ করতে বলেন এবং তিনি বঙ্গবন্ধুকে জানান, তাঁকে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে।

আমরা জানার চেষ্টা করছিলাম ঠিক কয়টার সময় বঙ্গবন্ধুকে গ্রেপ্তার করা হয়। বঙ্গবন্ধুকে গ্রেপ্তার করতে আসা একজন অফিসার ছিলেন ব্রিগেডিয়ার জেড এ খান। তার লিখিত ‘The Way It Was’ বইয়ে গ্রেপ্তারের সময় উল্লেখ নেই।

 

03 BB-SpeaksExtPubDiv-MOFA-1972

 

দৈনিক বাংলা,  ৮ম বর্ষ, ১২৯শ সংখ্যা, রোববার, ১২ই চৈত্র ১৩৭৮, ২৬ মার্চ ১৯৭২ তারিখে বেগম মুজিবের সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়। সেখানে বেগম মুজিব বলছেন: “রাত প্রায় সাড়ে ১২টার দিকে ওরা গুলি ছুড়তে ছুড়তে উপরে উঠে এল।”

এরপর আমরা পাকিস্তানি ‘Dawn’ পত্রিকার ২৮ মার্চ, ১৯৭১ রবিবার সংখ্যাটি হাতে পাই। সেদিন “Army in full control in East Pakistan, Skeikh Mujib arrested from his house” শিরোনামে “A Government handout in Karachi”-এর বরাত দিয়ে বলা হচ্ছে রাত ১.৩০টার সময় বঙ্গবন্ধুকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল।

এ ছাড়া এই ঘৃণ্য ঘটনার একজন মূল পরিকল্পনাকারী রাও ফরমান আলী তার ‘How Pakistan Got Divided’ নামক বইতেও শেখ মুজিবকে রাত ১.৩০টার সময় গ্রেপ্তারের কথা উল্লেখ করেছেন।

২. ইপিআরের শহীদ সুবেদার মেজর শওকত আলীর কন্যা ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর সেলিনা পারভিনের সাক্ষাৎকারে পাওয়া যায়– ২৫ মার্চ ১৯৭১ তারিখ রাতে সুবেদার মেজর শওকত আলী পিলখানাতে অবস্থান করছিলেন। তাঁর পরিবার রাজশাহীতে অবস্থান করছিলেন। তিনি ছিলেন সিগন্যাল কোরে বাঙালিদের মধ্যে সিনিয়র। আজিমপুর গেইটে প্রহরারত সৈনিকের মারফত রাত ১০টার কিছু পরে তাঁর কাছে মেসেজ পৌঁছে যায়। তাঁর সঙ্গে সে রাতে আরও দু-একজন ছিলেন। রাত সোয়া ১২টা বা তার কাছাকাছি কিছু সময় পরেই অয়্যারলেস মেসেজ ট্রান্সমিটাররত অবস্থায় তিনি পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে ধরা পড়েন।

প্রফেসর সেলিনা পারভিনের ভাষ্যে: “সেই রাতে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা সুবেদার মেজর শওকত আলী যখন ট্রান্সমিট করছিলেন তখন তাঁর সঙ্গে ছিলেন সিগন্যালম্যান আব্দুল মোত্তালিব। আব্দুল মোত্তালিব সেই বিরল সৌভাগ্যবানদের একজন, যিনি সেই রাতে জনাব শওকত আলীর সঙ্গে গ্রেপ্তার হয়েও বেঁচে ফিরে আসতে পেরেছিলেন এবং এখনও জীবিত। তাঁর সাক্ষাৎকার আমি সেদিনই নিয়েছি। স্বাধীনতার ঘোষণা ট্রান্সমিশনে জনাব শওকত আলী ‘মোটোরোলা এসবিসি-৩’ সেট ব্যবহার করেন। এটি ইপিআর সিগন্যাল কোরে ব্ল্যাকসেট বলে জনপ্রিয়। সেটটিতে ভয়েস অপশন ও টিজি অপশন দুটোই রয়েছে।

 

????????????????????????????

 

“২৫ র্মাচ রাতে চট্টগ্রামে সিগন্যালম্যান আবুল খায়ের (বর্তমানে সুবেদার মেজর এবং মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে দুই বছর অতিরিক্ত চাকরির সময়সীমাপ্রাপ্ত বিধায় চট্টগ্রামে কর্মরত) ওয়ারলেসের সেট নিয়ে ডিউটিতে ছিলেন। ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার নির্দেশে তিনি তাঁর এসবিসি-৩ সেটে ভয়েস অপশন অফ করে রেখেছিলেন। রাত সাড়ে ১১টার কাছাকাছি তিনি তাঁর সেটে টিজি (টেলিগ্রাফিক) অপশনে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণাটি পান এবং মেসেজ আনকোড করে তৎকালীন কমান্ডার ক্যাপ্টেন রফিকুল ইসলামকে হস্তান্তর করেন। ক্যাপ্টেন রফিকুল ইসলাম মেসেজ প্রাপ্তিমাত্র তা চট্টগ্রামে সংশ্লিষ্ট সবাইকে প্রেরণের ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।”

(http://banglareporter.com/print_version.php?n_id=3004)

৩. ১৯৭১ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ সরকার দ্বারা প্রকাশিত ‘BANGLADESH Contemporary Events and Documents’ গ্রন্থে ১০৭ পৃষ্ঠায় চ্যাপ্টার ছয়ে “Bangladesh A New Sovereign State” শিরোনামে নিচের বার্তাটি প্রকাশ করে।

BROADCAST DECLARING INDEPENDENCE FROM
BANGLADESH RADIO ON 26TH MARCH, 1971

On the morning of March 26, the following announcement was broadcast by a radio station controlled by the Bangladesh Liberation army:
“To-day Bangladesh is a sovereign and independent state. On Thursday night West Pakistani armed forces suddenly attacked the police barracks at rajarbagh and the EPR Headquarters at Peelkhana in Dacca. Many innocent and unarmed people have been killed in Dacca city and other places of Bangladesh. Violent clashes between the East Pakistan Rifles and Police on the one hand and the armed forces of Pindi on the other, are going on. The Bengalis are fighting the enemy with great courage for an independ ent Bangladesh. Resist the treacherous enemy in every corner of Bangladesh. May God aid us in our fight for freedom.”

“Joy BANGLA”

 

06 Muktijuddhe-Habiganj-JelaSk-Fazle-Elahi

 

৪. ‘BANGABANDHU SPEAKS’ A collection of speeches and statement made by Sheikh Mujibur Rahman, নামের একটা গ্রন্থ The External Publicity Division Ministry of Foreign Affairs Government of Bangladesh কর্তৃক প্রকাশিত হয়। এটা ১৯৭২ সালের প্রথম দিকে প্রকাশিত। এই বইটার ২য় বিবৃতিতেই “Declaration of Independence” শিরোনামে নীচের বিবৃতিটি দেওয়া হয়েছে–

“THIS MAY BE MY LAST MESSAGE, FROM TODAY BANGLADESH IS INDEPENDENT. I CALL UPON THE PEOPLE OF BANGLADESH WHEREVER YOU MIGHT BE AND WITH WHATEVER YOU HAVE, TO RESIST THE ARMY OF PATION TO THE LAST. YOUR FIGHT MUST GO ON UNTIL THE LAST SOLDIER OF THE PAKISTAN OCCUPATION ARMY IS EXPELL ED FROM THE SOIL OF BANGLADESH AND FINAL VICTORY IS ACHIEVED.”

[Message embodying Declaration of Independence sent
by Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahrnan to Chittagong shortly after midnight of 25th March, i.e. early hours of 26th March, 1971 for transmission throughout Bangladesh over the ex-EPR transmitter]

অর্থাৎ আমরা সরকারি মন্ত্রণালয় দ্বারা প্রকাশিত দুটো প্রকাশনাতে দুরকম বার্তার অস্তিত্ব পাই।

৫. পুলিশ হেডকোয়ার্টার, ঢাকা, বাংলাদেশ কর্তৃক মার্চ ২০০০ সালে প্রকাশিত ‘মুক্তিযুদ্ধে পুলিশের ভূমিকা’ নামক বইতে ৯০৩ নং পৃষ্ঠায় “PAKISTAN POST AND TELEGRAPHS DEPARTMENT”-এর প্যাডে বঙ্গবন্ধু দ্বারা প্রেরিত বার্তার কপি পাওয়া যায়, যেটি শুরু হয়েছে: “Pakistani armed forces suddenly attacked the police barracks at Rajarbagh and the EPR Headquarters at Peelkhana in Dacca…”

৬. জনকণ্ঠ  পত্রিকায় ৬ নভেম্বর ২০০০ সালে প্রকাশিত মুনতাসীর মামুনের একটি লেখায় পাওয়া যায় যে, পাবনার শাহজাদপুরের তৎকালীন ওসি আবদুল হামিদ ২৬ মার্চ সকাল ৮টায় একটি ওয়ারলেস মেসেজের কপি পান যেটি শুরু হয়েছে এভাবে:

“From Dacca

To
People’s of Bangladesh and all of the world.
Pakistan arms forces suddenly attacked E.P.R. of Peelkhana and Police forces at Rajarbag from 00 hours of 26th March killing laks of unarmed people…”

৭. ‘হবিগঞ্জে মুক্তিযুদ্ধ’ শিরোনামে বইতেও একই বার্তার ছবি পাওয়া যায়। ছবিটি ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করলে দেখা যায় সেটি আসলে “PAKISTAN POSTS AND TELEGRAPHS DEPARTMENT”-এর প্যাডে লিখিত বঙ্গবন্ধুর বার্তা। যদিও ছবিটির বাম দিকে “PAKISTAN POS” অংশটুকু কাটা রয়েছে তথাপি সেটা যে “PAKISTAN POSTS AND TELEGRAPHS DEPARTMENT”-এর প্যাড সেটি বুঝতে অসুবিধা হয় না। এই মেসেজটি এবং পাবনা শাহজাদপুরের ওসি আবদুল হামিদ যে টেলিগ্রাফিক বার্তাটি পেয়েছিলেন এই দুইটির ট্রান্সক্রিপ্ট হুবহু এক, কিন্তু হাতের লেখা ভিন্ন। দুটি বার্তাই “PAKISTAN POSTS AND TELEGRAPHS DEPARTMENT”-এর প্যাডে লিখিত।

 

07 Bangladesher-Swadhinota-Juddho-Dalil-Potro-Vol-III

 

কয়েকদিন আগে সোশ্যাল নেটওয়ার্কে একজন একটি বার্তার ইমেজ দিয়ে দাবি করেন যে, সেটি বঙ্গবন্ধুর স্বহস্তে লিখিত এবং স্বাক্ষরকৃত। কিন্তু সেই ইমেজটি এবং হবিগঞ্জে প্রাপ্ত টেলিগ্রাফের ইমেজ হবহু এক। শুধুমাত্র উপরে “PAKISTAN POSTS AND TELEGRAPHS DEPARTMENT” অংশটা কেটে দেওয়া হয়েছে। ফলে ‘বঙ্গবন্ধুর স্বহস্তে লিখিত এবং স্বাক্ষরকৃত’ এই দাবির পক্ষে শক্ত কোনো প্রমাণ আমরা এখনও পাইনি।

উল্লেখ্য ‘স্বাধীনতা ঘোষণা’ ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টে (রিট ২৫৭৭/২০০৯) যে মামলা চলেছিল সেখানেও কেউ বঙ্গবন্ধুর স্বহস্তে লিখিত এবং স্বাক্ষরকৃত কোনো দলিল দাখিল করতে পারেননি।

বঙ্গবন্ধু ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে গ্রেপ্তার হওয়ার পূর্বেই ‘স্বাধীনতা ঘোষণা’-এর বার্তা যে কয়েকজনকে দিয়ে গিয়েছিলেন সারা দেশ ও পৃথিবীময় প্রচারের জন্য, সেটা নিঃসন্দেহে প্রমাণিত। কিন্তু তাঁর ‘স্বহস্তে লিখিত এবং স্বাক্ষরকৃত’ কোনো ডকুমেন্ট বা দলিলের অস্তিত্ত্ব আমরা পাইনি।

আমরা বিশ্বাস করি, বঙ্গবন্ধু সচেতনভাবেই স্বহস্তে লিখিত এবং স্বাক্ষরকৃত কোনো দলিল বা ডকুমেন্ট রাখেননি। আজীবন নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন ও সংগ্রামে বিশ্বাসী শেখ মুজিবের পূর্বাপর ঘটনা বিশ্লেষণ করলে কোনো ডকুমেন্ট না রাখাটাই তাঁর বৈশিষ্ট্যের সঙ্গে মিলে যায়। ঠিক যে কারণে ৭ মার্চ তিনি সরাসরি স্বাধীনতা ঘোষণা দেননি (আবার স্বাধীনতা ঘোষণার বাকিও রাখেননি), ঠিক একই কারণে ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে তিনি তাঁর নিজ হাতের লেখা ও স্বাক্ষরকৃত কোনো দলিল/ডকুমেন্ট রাখেননি।

বঙ্গবন্ধু আগে থেকেই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন যে, তিনি কোনো পরিস্থিতিতেই আত্মগোপন করবেন না। এ জন্যই তিনি সবাইকে নিরাপদ স্থানে সরে যেতে বলেছিলেন এবং নিজে হায়েনা পাকিস্তানিদের জন্য অপেক্ষা করছিলেন। এই যে নিজের স্বকণ্ঠে বা স্বহস্তে কোনো দলিল/ডকুমেন্ট না রাখা এবং নিজের বাসভবন থেকে কোথাও না যাওয়া– এ দুটি সিদ্ধান্ত একে অপরের পরিপূরক বলে মনে হয়। কেননা এ ধরনের দলিল আমাদের জন্য আরও আত্মঘাতী হতে পারত। আন্তর্জাতিকভাবে আমাদের স্বাধীনতার যুদ্ধকে বিচ্ছিন্নতাবাদী যুদ্ধ আখ্যা দিয়ে আমাদের স্বাধীনতার আকাঙ্ক্ষা আরও সুদূর পরাহত করা হত।

ফলে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী যখন বঙ্গবন্ধুকে গ্রেপ্তার করে তখন তারা কোনো বিচ্ছিন্নবাদী নেতাকে গ্রেপ্তার করেনি, বরং একটি দেশের সদ্যনির্বাচিত সরকার প্রধানকে গ্রেপ্তার করে।

তথ্য সহায়তা: মাহবুবুর রহমান জালাল (http://www.cbgr1971.org/), ইন্টারনেট ও বিভিন্ন বইপত্র।

বিদ্যুৎ দেফ্রিল্যান্স লেখক

Responses -- “বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণার টেলিগ্রাফিক বার্তা”

  1. জামিরুল ইসলাম

    শেখ মুজিব ২৫ শে মার্চ রাতে “সদ্যনির্বাচিত সরকার প্রধান” ছিলেন? কোথায় পান এসব তথ্য? কখন তাকে সরকারপ্রধান করা হলো? ইতিহাস গবেষণার নামে একটা কিছু বলে দিলেই হলো!

    Reply
  2. ফখরুল ইসলাম

    দুইটা ব্যপার জানা গেল। সরকারি মন্ত্রণালয় দ্বারা প্রকাশিত দুটো প্রকাশনাতে দুরকম বার্তা আবার স্বহস্তে লিখিত দুইটি বার্তাও পরে কেউ বানিয়ে প্রচার করেছে। ইতিহাস বিকৃতির আইন হলে এসব কাজ যারা করেছেন তাদের বিচার করা যেতে পারে। লেখক এই আলাপটা এড়াতে চাইলেন কেন বোঝা গেলোনা।

    Reply
  3. ABUL BASHAR Muktijudha.

    Truth prevails.This is called true history of Bangladesh Indepence declaration.No one, but only Bangobondhu Sheikh Mujib declared the Independence of Bangladesh.

    Reply
  4. M. H. Rinto

    খুব ভাল লাগল চুল ছেরা অভিযানেই কেবল এত সুন্দর তত্ত্ব বের হয়ে আশা সম্বভ ।
    ধন্যবাদ লেখককে ।

    Reply
  5. Shah Nawaz

    আপনার লেখা এই ঐতিহাসিক ঘটনা বলি পরে অত্যন্ত ভালো লাগছে। ভালো লাগছে এ জন্য যে আমিও উল্লিখিত ৬ নং অংশের (শাহজাদপুর ) ঘটনার একজন প্রত্যক্ষ সাক্ষী। ২৬ শে মার্চ সকাল থেকেই একটু শুন শান ভাব চোখে পরে। বাড়ি থেকে বেরিয়ে পরি, দারিয়াপুর বাজার থেকে মনিরামপুর যেতে তখন একটা শুখনো খাল পেরুতে হতো। খাল পার হবার মুহূর্তে (দারিয়াপুর প্রান্তে ) পোস্ট অফিসের একজন অল্প বয়সী সহকারি (পূর্বপরিচিত) আমার পথ আগলে দাড়ালেন। তার হাতে থাকা ১টা কাগজ আমাকে দেখালেন। একটা টেলিগ্রাম। আপনার লেখায় উল্লিখিত টেলিগ্রাম টি ই। ঘটনার আকস্মিকতায় চিন্তা এলো মেলো হয়ে গেল। উনি আমাকে জিজ্ঞাসা করলেন “প্রাপকের নাম নেই, এটা কাকে পৌছাবো”? আমি তাকে তৎক্ষণাৎ সেটি মনিরামপুর বাজারে তৎকালীন রাজনৈতিক নেতাদের কাছে পৌঁছাবার পরামর্শ দেই। তিনি টেলিগ্রামটি নিয়ে ফিরতি পথে ছুটলেন। শেষ পর্যন্ত কার হাতে তা দিয়েছিলেন তা আর আমার জানা হয় নাই। সময় টা সম্ভবত একটু হের ফের হয়েছে। সম্ভবত সকাল ৯টা থেকে ১০ টার মধ্যে কোনো এক সময়।

    Reply
  6. বাবলু রহমান (Bablu Rahman)

    সর্ব প্রথমে মতামত কলামে লেখক বিদ্যুৎ দে’কে জানা্চ্ছি অজস্র অভিনন্দন। ‘বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণার টেলিগ্রাফিক বার্তা’ শিরোনামে এতো চমৎকারভাবে একটি দুর্লভ বিষয়ের অনেক গুরুত্বপূর্ণ দলিলপত্র উপস্থাপন করেছেন তিনি। বলা বাহুল্য, এ বিষয়ে অনেক গ্রন্থ, গবেষণা গ্রন্থ রয়েছে বটে। কিন্তু কিছু মানুষ জ্ঞান পাপীদের মত অহেতুক এ বিষয়টি নিয়ে পানি ঘোলা করার মানসে বিতর্ক তৈরির অপচেষ্টা চালায়। যাদের যা কাজ, তারা তা করবে। তবে বিশুদ্ধ ইতিহাসের জন্য প্রকৃত সত্যটি তুলে ধরাও আমাদের নৈতিক দায়িত্ব।

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—