বঙ্গবন্ধু ও পাকিস্তানের রাজনীতিকে অর্থনীতির ধারায় ফেরানো

প্রকাশকাল |

বঙ্গবন্ধুর কাজ লক্ষ্য করলেও যেমন বোঝা যায় তেমনি তাঁর অসমাপ্ত আত্মজীবনীও মনোযোগের সঙ্গে পড়লে বোঝা যায়, তিনি নির্বাচনটিকে নিয়েছিলেন পূর্ববাংলার দরিদ্র মুসলিমের মুক্তির একটি উপায় হিসেবে। একজন প্রখর দৃষ্টি সম্পন্ন তরুণ হিসেবে তিনি তৎকালীন পূর্ব বাংলার দরিদ্র মুসলিমদের জীবনকে শুধু দেখেননি উপলব্দিও করেছিলেন তাদের কষ্ট।

  • Comment 8

যুুদ্ধাহতের ভাষ্য-৯৩: সব সিদ্ধান্ত কেন প্রধানমন্ত্রীকে দিতে হয়?

প্রকাশকাল |

“আমরা তো শিক্ষিত না। আমগো কথা কে শুনবো। এই সরকারকে ভালবাসি। কিন্তু সব সিদ্ধান্ত কেন প্রধানমন্ত্রীকে দিতে হয়? দায়দায়িত্ব তো অন্য মন্ত্রীদের বা সচিবদের আছে। তাহলে বাকীরা কি কাজ করেন? উনি এখনও সঠিক সিদ্ধান্ত দিচ্ছেন। কিন্তু এইভাবে চললে ভবিষ্যতে প্রধানমন্ত্রীকেও বির্তকিত করার সুযোগ তৈরি হবে।”

  • Comment 3

বঙ্গবন্ধুর নামও তখন মুখে আনা যেত না!

প্রকাশকাল |

শান্তিকমিটির নেতারা নিজের ছেলেমেয়েদের কিন্তু রাজাকার বানায় নাই! তারা তাদের এলাকার গরীব ছেলেদের বেশি রিক্রুট করতো। ট্রেনিং দিয়ে লোভ দেখিয়ে তাদের বলত– ‘লুটের মাল জায়েজ। সেটা তোমরা পাবা।’ ওরা ব্রিজ পাহারা দিত। ফলে গেরিলাদের সাথে রাজাকারদের যুদ্ধ হয়েছে বেশি। যদি শান্তিকমিটি, রাজাকার, আলবদর আর আলশামস না থাকতো তবে একাত্তরে পাকিস্তানি সেনারা এতো মানুষকে হত্যা করতে পারত না!’

  • Comment 18

‘এই দেশকে অপমানিত হতে দিও না’

প্রকাশকাল |

ওরা এসেই দারোয়ানকে ডাকে। সে বিহারী হলেও বাঙালিদের পক্ষে ছিল। পাকিস্তান আর্মিদের সে বলে, ‘এই হলে ভাল ছাত্ররা থাকে। তারা কেউ আন্দোলন করে না। ছুটির কারণে সবাই বাড়ি চলে গেছে। এখন কেউ নাই স্যার।’

  • Comment 4