বিয়াল্লিশটি বছর ধরে শহীদ পরিবারগুলো আপনজনদের নির্মম হত্যাকাণ্ডের বিচার চেয়ে ঘুরছেন পথে পথে। এ আশা শুধু ক্ষীণ ছিল এতকাল, এ কথা বললে কম বলা হবে। যাদের পঁচাত্তর-পরবর্তী কালো দিনগুলোর কথা মনে নেই তাদের কাছে শুধু আমার পরিচয় দিয়ে আমার বাবার হত্যাকাণ্ডের ঘটনা বলি। এরপর নিজের বিবেক দিয়ে আপনারা নিজেই বিচার করে নেবেন পঁচাত্তর-পরবর্তী সামরিক শাসন অথবা গণতন্ত্রের চাদরে ঢাকা সামরিক শাসনকাল কেমন ছিল।

আমার বাবা শহীদ ডা. আবদুল আলীম চৌধুরী ছিলেন একজন শীর্ষস্থানীয় চক্ষু চিকিৎসক। একই সঙ্গে রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে তাঁর ছিল সচ্ছন্দ বিচরণ। তিনি ভাষাসৈনিকও ছিলেন। তিনি ১৯৫২ সালে ছাত্র ইউনিয়নের সহ-সভাপতি ছিলেন। ভাষা আন্দোলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পাশাপাশি ঢাকা মেডিকেল কলেজের ছাত্রদের ভূমিকা ছিল নেতৃস্থানীয়। তিনি তখন ভাষা আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন।

ছাত্রাবস্থাতেই তিনি ’যাত্রিক’ ও ’খাপছাড়া’ নামে দুটি সাহিত্য পত্রিকা প্রকাশ করতেন। প্রগতিশীল বাম রাজনৈতিক দীক্ষা নেন জীবনের শুরুতেই। জমিদারপুত্র হয়েও শোষিত, নিপীড়িত, বঞ্চিত মানুষের জন্য তিনি সারাজীবন সংগ্রাম করে গেছেন।

বাবাকে চেনার আমার সুযোগ হয়নি। খন্দকার ইলিয়াসের বইয়ের সূত্রে জেনেছি যে, ষাটের দশকে বিলেত থেকে ফেরত আসার পর বাবার চেম্বারটি হয়ে ওঠে আওয়ামী লীগ ও বামপন্থী রাজনীতিবিদদের গোপন মিটিংএর জায়গা। খন্দকার ইলিয়াস বাবাকে বলেছেন, ‘নেপথ্যের মানুষ’। ১৯৭১এ অনেকে দেশ ছেড়ে চলে যাচ্ছেন, তখন বাবাকে বলা হয়েছিল চলে যেতে। তিনি রাজি হননি। বলেছিলেন, ‘দেশের ভিতর অনেক কাজ, সবাই দেশ ছেড়ে চলে গেলে এই কাজগুলো কে করবে?’

মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসা ও অস্ত্রোপচার, ওষুধ সংগ্রহ বিতরণের মতো চিকিৎসা-সংক্রান্ত কাজ ছাড়াও মুক্তিযুদ্ধের অনেক গোপন কাজের সঙ্গে তিনি সংযুক্ত ছিলেন বলেও আমরা জেনেছি।

একটি ঘটনা বিধৃত করলে বোঝা যাবে আমার বাবা কেমন মানুষ ছিলেন। তখন ১৯৭২ সাল। আমার ছোট মামা বাসা থেকে বের হয়ে দেখেন এক রিক্সাওয়ালা তার রিক্সা নিয়ে বাসার গেটে বসে আছেন। মামা তাকে চলে যেতে বললেন; বললেন, এখন রিক্সা লাগবে না। মামা দেখলেন, রিক্সাওয়ালা অঝোর ধারায় কাঁদছেন। তিনি বললেন, “আমি তো ভাড়ার জন্য আসি নাই। আমি এসেছি স্যারের বাড়িটা দেখতে। রাজাকাররা আমার মতো ১০০টা লোক মেরে স্যারের মতো ১টা লোককে বাঁচিয়ে রাখত!”

এমন মানুষ ছিলেন আমার বাবা! আমি গর্বিত তাঁর মেয়ে বলে।

বাবার হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সরাসরি জড়িত ছিল কুখ্যাত রাজাকার, তথাকথিত ‘মওলানা’ মান্নান। সে আমার বাবার আশ্রিত ছিল। আশ্রয়দাতার সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করতে তার বিবেকে বাধেনি। ১৮ ডিসেম্বর যখন সে মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে বন্দি হয়, তখন সে নিজ মুখে স্বীকার করেছিল যে, তার আলবদর ছাত্ররা ডা. আলীম চৌধুরীকে ধরে নিয়ে গেছে।

এই খুনি পরবর্তীতে ‘ইনকিলাব’ পত্রিকার মালিক হয়। পঁচাত্তরের পটপরিবর্তনের পর খুনি মান্নান জিয়ার শাসনামলে প্রতিমন্ত্রী ও এরশাদের সময় পূর্ণমন্ত্রী হয়। আমার বাবার রক্তে ভেজা ঐ পতাকা পতপত করে ওড়ে ঐ খুনির গাড়িতে। বলুন আমাকে, এ লজ্জা কার? আপনাদের বিবেকের কাছে জিজ্ঞেস করুন, এই কি প্রাপ্য ছিল এক শহীদের, শহীদসন্তানের অথবা ঐ পবিত্র পতাকার? জাতীয় পতাকার এহেন অপমান করার অধিকার কোনো শাসকের আছে কি?

শুধু সামরিক শাসক জিয়া-এরশাদ নয়, পরবর্তীতে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত নেত্রী খালেদা জিয়াও তুলে দিয়েছিলেন রাজাকার নিজামী, রাজাকার মুজাহিদ, রাজাকার সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর গাড়িতে এদেশের পতাকা। গাড়িতে বসে সে হায়েনারা যে অট্টহাসি হেসেছে তা কি আপনারা শুনতে পান? রাজনৈতিক স্বার্থে কানে তালা দেওয়া নেতারা হয়তো পান না, কিন্তু যারা তাদের সমর্থক-কর্মী তাদের জিজ্ঞেস করি, ব্যক্তি বা দলের উর্ধ্বে নিশ্চয়ই আপনার কাছে দেশ প্রিয়, তাহলে আপনাদের হৃদয়ে এ আঘাত কেন বাজে না? পতাকার অবমাননায় আপনাদের অপমান হয় না?

এ কথাগুলো বললেই প্রধান বিরোধী দলের সমর্থকরা বলবেন, সরকারি দলেও রাজাকার আছে, ঘরেও রাজাকার আছে। তাদের বলি, আওয়ামী লীগ-বিএনপি কারও অধিকার নেই শহীদের রক্তের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করার। এক দল করছে বলে অন্য দলও করবে তার কোনো যুক্তি নেই। আওয়ামী লীগে যে রাজাকাররা আছে বলছেন, তারা কি নিজামীর মতো শীর্ষস্থানীয় আলবদরের সংগঠক? মুজাহিদ বা সাকা চৌধুরীর মতো নিজ হাতে খুন করার অপরাধে অপরাধী? মানবতাবিরোধী অপরাধের সংজ্ঞার মধ্যে হত্যা, ধর্ষণ, লুট, অগ্নিসংযোগ ও জানমালের ক্ষতির কথা বলা হয়েছে– তারা কি তা করেছে? সে ৫টি অপরাধ অনুযায়ী তারা কি মানবতাবিরোধী অপরাধে অপরাধী?

যদি হয় তবে আপনাদের আহ্বান জানাই আন্তর্জাতিক আদালতে তাদের বিরুদ্ধে মামলা করুন, অপরাধ প্রমাণ হোক, অবশ্যই তাদেরও শাস্তি হতে হবে। আর যদি তা না হয়, শুধু শুধু জল ঘোলা করবেন না। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিয়ে ‘কিন্তু’ ‘তবে’ যথেষ্ট করেছেন। আর নয়।

 

High court - 999
যুদ্ধাপরাধীদের বিচার নিয়ে ‘কিন্তু’ ‘তবে’ যথেষ্ট করেছেন, আর নয়

 

মনে রাখবেন, আওয়ামী লীগকে ঘায়েল করতে গিয়ে লাথি মারছেন যুদ্ধাপরাধীদের বিচার-প্রক্রিয়ায়। লাথি মারছেন শহীদ পরিবারগুলোর বুকে। দুই দলের এই ফুটবল খেলায় বল যেন আমাদের এই পিতৃহত্যার বিচার চাওয়ার ইস্যুটা। একে অন্যকে ঘায়েল করতে লাথি মারছেন আমাদের। মাঝখানে দর্শকের সারিতে বসে তালি দিচ্ছে জামাতসহ সকল মুক্তিযুদ্ধবিরোধী শক্তি।

যারা আওয়ামী লীগের ঘরে রাজাকার রয়েছে, এই যুক্তিতে বিচার-প্রক্রিয়া বারবার প্রশ্নবিদ্ধ করছেন, তাদের জ্ঞাতার্থে জানাই, এই সেদিন মাত্র আখাউড়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোবারকের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে মামলা দায়ের করা হয়েছে। উল্লেখ্য যে, মোবারক ১৯৭১এ জামাতের রোকন থাকাকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছে বলে অভিযুক্ত। সুতরাং কোনো যুদ্ধাপরাধী রং বদলে আওয়ামী লীগের সঙ্গে মিশে গেলেও যে সে তার একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের সম্মুখীন হওয়া থেকে রেহাই পেয়ে যাবে, এই যুক্তি ধোপে টিকে না।

যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের ক্ষেত্রে যে প্রসঙ্গটি নিয়ে সবচেয়ে বেশি প্রশ্ন তোলা হয় তা হল, যুদ্ধাপরাধীদের মানবাধিকারের বিষয়টি, বিশেষত আমাদের বিদেশি বন্ধুদের প্রায়শই এ প্রসঙ্গে বিচলিত থাকতে দেখা যায়। যারা এই প্রশ্নটি করেন, তাদের আমি পাল্টা প্রশ্ন করতে চাই।

আপনাদের অন্তরে যুদ্ধাপরাধীদের মানবাধিকার নিয়ে এত যে মায়া, তার কিছুটা অংশ কেন আমাদের জন্য নেই? একাত্তরের যে সকল ঘটনার জন্য এ বিচার, সেই বিচারের বাদী কে আর বিবাদী কে? কার মানবতাবিরোধী অপরাধের শিকার ছিল কে?

আমরা সকল শহীদ পরিবার, বীরাঙ্গনা ও ক্ষতিগ্রস্ত সকল পরিবার ছিলাম এই রাজাকার আলবদরদের মানবতাবিরোধী অপরাধের শিকার। বিচার পাওয়া আমাদের মানবাধিকার। মনে রাখবেন Justice Delayed is Justice Denied– আমরা শুধু যে বিচার পাইনি তা নয়, বিচার-প্রক্রিয়া বিলম্বিত হল বিয়াল্লিশ বছর, তা-ও একটি অবিচার।

যুদ্ধাপরাধীদের মানবাধিকারের বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্যই এই ট্রাইব্যুনালে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা দেওয়া হচ্ছে বলে আইনজ্ঞরা মনে করেন। বিদেশি বন্ধুদের বলছি, খেয়াল করে দেখুন, একটি ‘ফেয়ার ট্রায়াল’এর প্রশ্ন তুলে আপনারা শহীদ পরিবারগুলোর প্রতি ‘আন-ফেয়ার’ হচ্ছেন কি না। দেশে যারা বলছেন বিচার মানবেন যদি বিচার-প্রক্রিয়া ‘স্বচ্ছ’ হয়, তাদের স্পষ্ট করে বলতে অনুরোধ জানাই, স্বচ্ছ বলতে আপনারা কী বোঝাচ্ছেন, বিচার-প্রক্রিয়ায় কী কী পরিবর্তন আনলে একে আপনাদের কাছে স্বচ্ছ মনে হবে?

একটি কথা স্পষ্ট করে বলতে চাই, এই ট্রাইব্যুনালে একাত্তরের অপরাধীদের বিচার-প্রক্রিয়া কারও কারও কাছে রাজনৈতিক ইস্যু, কারও কারও কাছে একটি বিচারিক প্রক্রিয়া, কারও কাছে শুধুই খবর। কিন্তু লক্ষ লক্ষ শহীদ পরিবারের কাছে এই বিচার তাদের অন্তর থেকে উৎসারিত প্রাণের দাবি। মায়ের চেয়ে মাসির দরদ বেশি, দয়া করে এ ভাব কেউ দেখাবেন না।

স্বজন-হত্যার বিচার সুষ্ঠু হোক এবং কখনও যেন কেউ এ বিচারকার্য প্রশ্নবিদ্ধ করতে না পারে, তা একজন শহীদ পরিবারের সদস্যের চেয়ে আন্তরিকভাবে আর কেউ চাইছেন তা বিশ্বাসযোগ্য নয়। আপনাদের নিশ্চিত করতে চাই, শহীদ পরিবারগুলো সতর্ক সজাগ দৃষ্টি নিয়ে এ বিচারকার্য পর্যবেক্ষণ করছে। সেই সঙ্গে আপনাদেরকেও আহ্বান জানাচ্ছি, আমাদের সহযোগিতা করুন। ভুল-ক্রটি আছে মনে করলে তা সংশোধনে সহযোগিতা করুন। কিন্তু শুধু বিরোধিতার খাতিরে বিরোধিতা করবেন না। এতে আমার আপনার কারও লাভ নেই, লাভ শুধুই অপরাধীর।

আমরা সাধারণ মানুষ বিএনপির অধঃপতন দেখতে চাই না। কারণ, তাহলে জামাত বা অতি ডানপন্থী দল উঠে আসবে প্রধান বিরোধী দলের স্থানে। বিরোধী দলের সমর্থকদের বলি, শুধু আওয়ামী লীগের দিকে সন্দেহের দৃষ্টি দিয়ে না দেখে, নিজের ঘরের দিকে তাকান যত্ন নিয়ে। জামাত সুকৌশলে বিএনপির মধ্যপন্থী গণতান্ত্রিক দলের ইমেজটি ধ্বংস করে দিচ্ছে না তো? খেয়াল করুন বিএনপির মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের মানসিকতার নেতাকর্মীরা দূরে সরে যাচ্ছে না তো?

নিন্দুকেরা বলে, বিএনপি এখন জামাতের ‘বি’ টিম হয়ে যাচ্ছে। মাঠ গরম করছে শিবিরকর্মী, ছাত্রদলের নেতা-কর্মী খুঁজে পাওয়া যায় না। আমরা এটা চাই না। এটা বাংলাদেশের ভবিষ্যতের জন্য মঙ্গলজনক হতে পারে না।

আমরা এমন বাংলাদেশ চাই যেখানে সরকারি দল, বিরোধী দল, জনতা সবাই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি হবে। তাদের রাজনৈতিক মত ও পথ ভিন্ন হতেই পারে, হওয়াই সুস্থ রাজনীতির লক্ষণ, কিন্তু মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ব্যাপারে সকল দল থাকবে একমত। সকল দল চাইবে একটি মুক্তিযুদ্ধের আদর্শে গড়া বাংলাদেশ– যার স্বপ্ন নিয়েই আমাদের স্বজনরা দিয়েছিলেন আত্মাহুতি এবং যে বাংলাদেশের স্বপ্নই শোককে শক্তিতে পরিণত করে আমাদের মতো শহীদ-স্বজনদের জীবনযুদ্ধে টিকে থাকার অনুপ্রেরণা যোগায়।

ডা. নুজহাত চৌধুরীসহযোগী অধ্যাপক (চক্ষু), বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়

Responses -- “বিবেক জাগ্রত করুন”

  1. শহিদুল হক

    লেখাটি আমার খুব ভালো লেগেছে। আমিও বলতে চাই অপরাধীদের শুধু ধর্মীয় দৃষ্টিতে দেখলে হবে না। যদি ধর্মীয় দৃষ্টিতে দেখেন তাহলে একদিন দেখবেন আপনার মা-বোন-মেয়েকে কোনো অপরাধী ধর্ষণের পর হত্যা করে পালিয়ে গেল। একদিন দেখলেন সেই অপরাধী অনেক বড় একজন ধার্মিক। তার মতো বুজুর্গ লোক দেশে হয়তো হাতেগোনা দু-একজন পাওয়া যেতে পারে। তখন আপনি কী বলবেন বা কী করবেন? আপনি কি ওই বুজুর্গ লোকের কাছে গিয়ে নতুন করে ইসলাম গ্রহণ করতে যাবেন, নাকি কীভাবে মা-বোনেদের পর্দায় চলাফেরা করতে হবে তা শিখাবেন?

    আমার কথায় হয়তো অনেকেই বিরূপ মন্তব্য করতেই পারেন। কিন্তু একটা কথা মনে রাখবেন- সত্য চাপিয়ে রাখা যায় না। আজ আপনি হয়তো কোনো বিপদে পড়েননি বা আপনার কেউ হয়তো অপমৃত্যুর শিকার হয়নি। যদি কাল বা পরশু হয়? নেমে আসে যদি আপনার বা আপনার পরিবারের উপর কোনো দুর্ঘটনা! তখন কী করবেন তা এখনই ভেবে রাখুন।

    Reply
  2. Shoeb

    সব দলেই রাজাকার আছে, শুধু জামায়াতে ইসলামীতেই নেই- এটাই বাস্তব সত্য। মাওলানা মান্নান কোন দলের লোক ছিলেন?

    Reply
  3. Nazim Ahmed

    ড. নুজহাত চৌধুরী,

    আপনার বাবার একজন রোগী, একজন মুক্তিযোদ্ধা এবং দু সন্তানের পিতা হিসেবে আপনার বেদনা অনুভব করতে পারি। আমি নিশ্চিত ‘প্রক্রিয়া’ শুরু হয়ে গেছে। এটা শুধু সামান্য সময়ের ব্যাপার।

    Reply
  4. জহির

    চমৎকার লেখার জন্য ধন্যবাদ । ১৯৭১ সালের ঘাতকদের রক্ষার জন্য যত প্রচেষ্টা নেয়া হোক না কেন এবার তাদের রক্ষা নেই । বাংলাদেশের সংখ্যাগরিষ্ট মানুষ ‘মানবতাবিরোধী অপরাধের’ সাথে যুক্তদের বিচারের আওতায় এনে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা করতে ঐক্যবদ্ধ থাকবে ।

    Reply
  5. raju

    সকল শহীদ পরিবারের সঙ্গে সঙ্গে আমরা সবাই চাই যে, সব যুদ্ধাপরাধীর বিচার করে তাদের য্থায্থ শাস্তি দিয়ে জাতি কলঙ্কমুক্ত হোক। কিন্তু সে বিচার যেন কোনো রাজনৈতিক উদ্দেশে না হয়। সে সঙ্গে এটাও বিবেচনায় রাখতে হবে যে, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করতে গিয়ে নিরপরাধী কেউ যাতে শাস্তি না পায়।

    Reply
  6. হোসাইন রাকিব

    আপনার মতো দেশের অনেকেই বিএনপির কাছে সে প্রত্যাশা করে। কিন্তু এ আশা সম্ভবত পূরণ হওয়ার নয়, এবং দুঃখের বিষয়, ঠিক এ ব্যাপার ঘটছে বলেই আওয়ামী লীগ হয়তো খুশি। তাদের গত কয়েক দিনের কার্যকলাপ তাই প্রমাণ করে। বিএনপির এ চিরস্থায়ী রাজনৈতিক দেউলিয়াত্ব যে আওয়ামী লীগকে নির্বাচনের খেলায় অনেক এগিয়েই রাখে। এ রাজনৈতিক কৌশল-পরবর্তী নির্বাচনে কতটুকু সহায়ক হবে, তা সময়ই বলে দিবে। কিন্তু আমরা-আপনারা যারা বিচার চাই, তাদের আরও রাজনৈতিকভাবে স্পষ্ট বক্তব্য দিয়ে নিজেদের দাবির জানান দিতে হবে।

    অবশেষে সুন্দর ও প্রাঞ্জল এ লেখার জন্য ধন্যবাদ।

    Reply
  7. সৈয়দ আলি

    ডা: নুজহাত চৌধুরী

    আপনার পিতা মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন শহীদ। শুধু তাই নন, তিনি মুক্তিযুদ্ধ শুরুর অনেক আগে থেকেই বাংলাদেশের মানুষের শ্রদ্ধার্হ ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ থেকে ফিরে তাঁর মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ডের বিবরণ পড়ে ক্রোধে অধীর হয়েও কিছু করতে পারিনি। শুধু এক ডা: আলীম চৌধুরী নন, আমাদের প্রিয় মেধাবী সন্তানদের পৈশাচিক হত্যাকাণ্ডের পুরো বিবরণ শুনে মনে অনেক ক্রোধ জেগেছিল। একই সঙ্গে আমরা এক অসহায়ত্ববোধে আক্রান্ত হয়েছিলাম। কারণ আমরা জানতাম, এসব নৃশংস হত্যাকাণ্ড কোন্‌ নরকের কীটেরা ঘটিয়েছে, এবং আমাদের একান্ত আকাঙ্ক্ষা ছিল চোখের বদলে চোখ, প্রাণের বদলে প্রাণ নেয়া। আপনি শিশু ছিলেন, তাই আপনার মনে নেই, কিন্তু আপনার মাতা শ্রদ্ধেয়া শ্যামলী চৌধুরী জানেন, খুনীদের রক্ষা করার জন্য এক দেয়াল তুলে দেওয়া হয়েছিল। শৃঙ্খলার নামে আমাদের ভারতীয় সেনাবাহিনীর অধীনস্থ করা হয়েছিল যাতে আমরা হাতিয়ার নিয়ে বেরিয়ে সে খুনীদের নিশ্চিহ্ন করতে না পারি। আমরা আজও জানি না, কেন তা করা হল, কার স্বার্থে!

    আজ একজন পিতা হিসেবে আমি জানি এক পিতৃহীন কন্যার হৃদয়ের শূন্যতা কী হতে পারে। তাই আপনার বেদনার প্রতি আমার গভীর আবেগ আছে। আমি অনুমান করি আন্তরিকতাশূন্য, দীর্ঘসু্ত্রের বিচারের ফলাফল কী হবে। তাই আজও জীবনের পড়ন্ত বেলায় আশা রাখি, আমাদের প্রিয় সন্তানদের হত্যার প্রতিশোধ আমরা নিতে পারব।

    আপনি কিছুটা ইতিহাস এড়িয়ে ১৯৭৫ এর সময়কাল থেকে আপনার পিতা ও অন্য শহীদদের বিচার না করার প্রসঙ্গ টেনে এনেছেন। কিন্তু ১৯৭২ থেকে ১৯৭৫-এ আপনার মাতাসহ অন্যান্য শহীদজায়ারা কার কার কাছে না ছুটে গেছেন! কত প্রবোধবাক্য তাঁরা শুনেছেন, কিন্তু একজন খুনীর নামেও সরকারি উদ্যোগে কোনো মামলা দায়ের হয়নি। যার ফলে আজ খুনীদের বিচার-প্রচেষ্টা জটিল ও দীর্ঘায়িত হয়ে উঠছে। আপনার আবেগের প্রতি আমার শ্রদ্ধা অটুট রেখে বলছি, ৭৫-এর আগে কেন একই খুনীদের বিরুদ্ধে আইনি প্রক্রিয়ার সূচনা হল না, সে প্রশ্নও করুন।

    আপনাকে আমার গভীর স্নেহাশীষ জানাই। একই সঙ্গে আপনার মাতাকে জানাই সশ্রদ্ধ সন্মান।

    Reply
  8. Dr. Abdul Moyeen

    যাদের বিবেক আছে তাদের এ লেখা নাড়া দিবে। অনুরোধ করব লেখাটি সব পত্রিকায় প্রকাশ করা হোক।

    Reply
  9. কান্টি টুটুল

    বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ একটি রাজনৈতিক দল। স্বাধীনতার তিন যুগ অতিবাহিত হওয়ার পর যুদ্ধাপরাধের ইস্যুটি যখন একটি রাজনৈতিক দলের নির্বাচনী এজেন্ডায় যুক্ত হয় তখন সে বিচারপ্রক্রিয়াকে রাজনৈতিক দলটির এজেন্ডা বাস্তবায়নের উদ্যোগ বলা যায়।

    বাংলাদেশে এখন তাই ঘটছে।

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—