বাংলা ভাষায় বানান জটিলতা নিয়ে ত্যক্ত বিরক্ত কেউ কেউ বানান ‘সংস্কার’এর কথা বলে থাকেন। তাদের যুক্তি হলো, বাংলায় বিভিন্ন শব্দের ‘বিচিত্র’ বানান মনে রাখাটা বিরাট এক ঝক্কির ব্যাপার। হ্রস্ব ই-কার, দীর্ঘ ঈ-কার, হ্রস্ব উ-কার, দীর্ঘ ঊ-কার, স, ষ, শ, জ, য, ন, ণ এসব প্রতীক ও বর্ণের ব্যবহারে ভাষা লিখতে গেলে বেশির ভাগ মানুষ ভজঘট পাকিয়ে ফেলে। শুদ্ধ বানানে বাংলা লেখা সম্ভব হয় না।

প্রতীক আর বর্ণের এ বৈচিত্র্য এবং শব্দের বানানে তার ব্যবহার প্রথম প্রথম ভাষা লিখতে আসা যে কোনো শিক্ষার্থীর কাছেই জটিল মনে হতে পারে। তারা বানানও ভুল করতে পারে। তবে ক্রমাগত ব্যবহার ও চর্চার মধ্য দিয়ে তা একসময় আত্মস্থ হয়ে যায়। এরপর আর মনেই থাকে না এ প্রতীক ও প্রায় সমোচ্চারিত বর্ণগুলো আলাদা কোনো সমস্যার সৃষ্টি করছে।

সমোচ্চারিত বর্ণ প্রায় প্রতিটি ভাষাতেই আছে। পৃথিবীতে সবচেয়ে চালু ভাষা ইংরেজিতেও রয়েছে। `C’, `Q’ এবং `K’ বর্ণ তিনটি বাংলায় ক-এর মতো উচ্চারিত হয়। `C’ অনেক সময় বাংলা স-এর কাজ করে থাকে। ‘G’ গ-ও হয়, আবার কোনো সময় জ-ও হয়। আবার একটা শব্দ ‘সাইকোলজি’ লিখতে প্রথমে ‘P’ লাগানো হয়, নিউমোনিয়ার ক্ষেত্রেও সে ‘P’। সুতরাং বর্ণজটিলতা কিংবা বিপাক সব ভাষাতেই লেগে আছে। সবচেয়ে প্রচলিত আন্তর্জাতিক ভাষা ইংরেজিতে মনে হয় সবচেয়ে বেশি। প্রথম প্রথম তো আপনি বুঝে কুলিয়ে উঠতে পারবেন না, ‘U’ বর্ণটার উচ্চারণ কখন ’আ’, কখন ‘উ’ আর কখন ‘ইউ’ হয়? নিয়মিত শিখন এবং চর্চার মধ্য দিয়েই সেটা আপনার কাছে ধীরে ধীরে পরিচিত হয়ে ওঠে। এমন পরিচিত যে, শব্দ শুনলেই আপনার বোধই বলে দেবে শুরুতে আ ধন্যাত্মক একটা শব্দ ‘ইউ’ নাকি ‘এ’ দিয়ে লিখতে হবে। অন্যান্য বহুল প্রচারিত ভাষাও নিশ্চয় এর ব্যতিক্রম নয়। বাংলা বানান যাদের কাছে জটিল কিংবা ভজঘট পাকানো মনে হয়, তারা ক্রমচর্চা ও অনুশীলনের মধ্য দিয়ে তা কাটিয়ে উঠতে পারবেন।

বানানে ত্যক্ত বিরক্তরা দেখি অবলীলায় সংস্কারের কথা তুলে বসেন। অতীতে বানান সংস্কারের কিছু অত্যুৎসাহী চেষ্টা করা হয়েছিল মনে আছে। একবার এক পত্রিকায় (নাম মনে নেই, আর পত্রিকাটিও অকালে পটল তুলেছিল) দেখেছিলাম, ঈ-কার ছাড়া লিখতে। যেমন নদি, বির, ধির, তির— এসব। আরেক বার দেশের একজন প্রথিতযশা সম্পাদক নিজের পত্রিকায় ঋ-কার বিপ্লব ঘটিয়েছিলেন। ‘ক্রিকেট’কে ‘কৃকেট’, ‘প্রিয়’কে ‘পৃয়’, ‘ফ্রি’কে ‘ফৃ’ লিখতে শুরু করেছিলেন। ব্যাপারটা একটা উপদ্রবের মতো শুরু হয়েছিল। ভাগ্যিস, সম্পাদক পরে পত্রিকাটা ছেড়ে বেঁচেছিলেন। পত্রিকা আছে, পত্রিকা অফিসটাও আছে, কেবল নিজের উদ্ভট বিপ্লবীপনা নিয়ে নিজেই আউট হয়ে গেছেন। বাংলা বানান ছোটখাট হলেও একটা টর্নেডোর মধ্য দিয়ে গিয়েছিল তখন। ভাল সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও দাঁড়াতে পারেনি পত্রিকাটা। ওটার পতনের মূলে সম্পাদকের অনেক আহাম্মুকির মধ্যে বানানবিষয়ক আহাম্মুকিরও একটা ভূমিকা ছিল হয়তো। মোট কথা, পাঠক, শিক্ষিত/স্বল্পশিক্ষিত কেউই তার পণ্ডিতমন্যতাকে পাত্তা দেয়নি।

সব ভাষারই আপন আপন বৈশিষ্ট্য আছে, প্রকৃতি আছে। ভাষা কেউ তৈরি করেনি, ভাষা গড়ে উঠেছে  মানুষের বোধ আর চেতনার সাথে। মানুষ যত বুদ্ধিমান হয়েছে, ততই তার ভাষা সহজ থেকে জটিল হয়ে উঠেছে। মানুষের জটিল জীবন যাপন, বেঁচে থাকার প্রক্রিয়া, যুথবদ্ধতা, ভালবাসা, কামনা, স্পৃহা, আকাঙ্ক্ষার পরিসর যত বেড়েছে, ততই তার ভাষার গতিময়তা, নিবিড়তা, গভীরতা এবং জটিলতাও বেড়েছে। মনের গভীরতা, অভিজ্ঞতা যত বেড়েছে, ভাষাও তা ধারণ করার জন্যে ততটা জটিল হয়ে উঠেছে। তবে সে জটিলতা ভাষাকে ব্যাহত করে না, বরং তার ধারণক্ষমতা ও বিচিত্রতা স্পষ্ট করে তোলে। যে ভাষাভাষী মানুষের জ্ঞানের গভীরতা, বুদ্ধির ব্যাপ্তি কিংবা বোধের পরিপুষ্টি নেই, সে  ভাষাও কালক্রমে মৃত্যুবরণ করে। পৃথিবীতে সমৃদ্ধ জাতির ভাষা কখনো মরে না, মারা যায় অনুন্নত জনগোষ্ঠীর ভাষাই। সমৃদ্ধ জাতির ভাষা তার সর্বগ্রাসী  ক্ষুধা ও ধারণ ক্ষমতা নিয়ে যুগে যুগে বলীয়ান হয়ে ওঠে।

ভাষা যে সংস্কারের বিষয় নয়, সেটা সংস্কৃত কিংবা ল্যাটিন ভাষার দিকে তাকালেই বোঝা যায়। সংস্কৃত হলো একটি ঐতিহাসিক ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষা এবং হিন্দু ও বৌদ্ধধর্মের পবিত্র দেবভাষা। খ্রিস্টপূর্ব চতুর্থ শতাব্দীতে রচিত পাণিনির ব্যাকরণে এই প্রামাণ্যরূপটি প্রতিষ্ঠিত হয়। ইউরোপে লাতিন বা প্রাচীন গ্রিক ভাষার যে স্থান, বৃহত্তর ভারতের সংস্কৃতিতে সংস্কৃত ভাষার সেই স্থান। ভারতীয় উপমহাদেশ, বিশেষত ভারত ও নেপালের অধিকাংশ আধুনিক ভাষাই এই ভাষার দ্বারা প্রভাবিত।

সংস্কৃতের প্রাক-ধ্রূপদী রূপটি বৈদিক সংস্কৃত নামে পরিচিত। এই ভাষা ঋগ্বেদের ভাষা এবং সংস্কৃতের প্রাচীনতম রূপ। এর সর্বাপেক্ষা প্রাচীন নিদর্শনটি খ্রিস্টপূর্ব ১৫০০ অব্দ নাগাদ রচিত। এই কারণে ঋগ্বৈদিক সংস্কৃত হলো প্রাচীনতম ইন্দো-ইরানীয় ভাষাগুলোর অন্যতম এবং ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষাপরিবারের (ইংরেজি ও অধিকাংশ ইউরোপীয় ভাষা যে পরিবারের সদস্য) আদিতম সদস্য ভাষাগুলোর অন্যতম।

সংস্কৃত সাহিত্যের ভাণ্ডার কাব্য ও নাটকের ঐতিহ্যশালী ধারাদুটি ছাড়াও বৈজ্ঞানিক, কারিগরি, দার্শনিক ও হিন্দু শাস্ত্রীয় রচনায় সমৃদ্ধ। হিন্দুদের ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানে সংস্কৃত হলো আনুষ্ঠানিক ভাষা। এই ধর্মে স্তোত্র ও মন্ত্র সবই সংস্কৃতে লিখিত। কয়েকটি ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠানে আজও কথ্য সংস্কৃতের ব্যবহার প্রচলিত রয়েছে এবং সংস্কৃত ভাষাকে পুনরুজ্জীবিত করার নানা প্রচেষ্টাও করা হয়ে থাকে।

কিন্তু আসল কথা হলো বৈজ্ঞানিক, কারিগরি, দার্শনিক ও হিন্দু শাস্ত্রীয় রচনায় সমৃদ্ধ  সংস্কৃত ভাষা পুনরুজ্জীবিত হয়নি। দেবভাষার পবিত্রতা রক্ষার নামে প্রচলিত ভাষার ওপর কাঁচি চালিয়ে সনাতনী পণ্ডিতরা যে ভাষাটার জন্ম দিয়েছিলেন, কালক্রমে সেটি কেবল পুঁথিপত্তরেই স্থান লাভ করেছে। লোকের মুখে আর ঠাঁই পায়নি। অথচ যেসব ভাষাকে ছেঁকে ছেনে সংস্কৃত তৈরি করা হয়েছিল, সে সব ভাষা ক্রমাগত প্রাকৃতিক পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে বর্তমান রূপে টিকে আছে গণভাষা হিসেবে।

ভাষাকে যদি ধরি বহমান ঝরনা হিসেবে, তাহলে তার স্বাভাবিক চলমানতায় বাধা হয়ে দাঁড়ানো ঠিক হবে না। সে উপলাকীর্ণ পথ পেরোবে নিজের স্বচ্ছন্দ ধারায়। এঁকে যাবে, বেঁকে যাবে তবু আপন শক্তিতে সে খুঁজে নেবে নদীর বুক, তারপর বিলীন হবে মহাসমুদ্রে। বাংলাভাষার ক্ষেত্রেও তাই।

তবু কিছু মানুষের অস্বস্তির শেষ নেই। নিজের ভাষাকে অপূর্ণ ভেবে তারা পরের ভাষাকে সামনে রেখে নিজের ভাষার গায়ে কাঁচি চালাতে চান, সংস্কার চান। আমার মনে হয়, বাংলা  ভাষার বানান ‘সংস্কার’ নয়, দরকার তাদের  ‘ধারণ’ সংস্কার।

তবে এটা ঠিক যে, পরিবর্তন অবশ্যম্ভাবী। পরিবর্তনের স্রোত ব্যাহত করা কারো পক্ষেই সম্ভব নয়। ঈশ্বরীয় কিংবা বঙ্কিমী বাংলায় এখন আর সাহিত্য লেখা হয় না। কপাল কুণ্ডলার সাথে দেবদাসের ভাষাগত পারম্পর্য  বিচার করতে গেলে অন্তর্পরিবর্তনটা সহজেই চোখে পড়বে। মনে হয় না, এই পরিবর্তনটা করা হয়েছে। করা হয়নি, সেটা ভাষার ক্রমপরিবর্তনধর্মিতার অলক্ষ্য সূত্রেই ঘটে গেছে। এক সময়ের ‘পূর্ব্ব’, ‘সূর্য্য’, ‘বর্ত্তমান’, ‘পর্য্যন্ত’, বাড়ী, গাড়ী, শাড়ী—এসব বানান তো এখন লেখা হয় না। নিজেদের অজান্তেই এসব শব্দের বানান পাল্টে গেছে। পরিবর্তনের জন্যে কাউকে উঠে পড়ে লাগতে হয়নি।

কথায় কথায় অন্য ভাষার উদাহরণ টানা হয়। এটা ঠিক নয়। অন্যের মা শিক্ষিত, সুন্দর আর বাকপটু বলে আমি আমার কালো, অসুন্দর ও ঠিক মতো কথা বলতে না পারা মাকে পাল্টে ফেলব নাকি? কিংবা পাল্টাতে না পারলেও তার সংস্কার করে তাকেও অন্যের মার মতো করে তোলার চেষ্টা শুরু করব নাকি? ধরলাম, তাই শুরু করলাম। তারপর ফলটা কী দাঁড়াবে? আমার কালো কুচ্ছিৎ অশিক্ষিত মা কি অন্যের মায়ের মতো স্মার্ট, সুদর্শন আর প্রিয়ভাষী হয়ে উঠবে এবং তাকে কি আমার জন্ম থেকে দেখে আসা মা মনে হবে?

আর সবচেয়ে বড় কথা হলো, মা তো মা-ই। মাকে কেন অন্যের মায়ের সমান্তরালে দাঁড় করিয়ে তার রূপ-গুণের বিচার করতে হবে? তথাকথিত সুবিধে-অসুবিধের নামে তার শরীরে ছুরি-কাঁচি চালাতে হবে!

ব্যাপারটা ভাবতেই কেমন লাগে। খুব একটা স্বস্তিকর নয় কিন্তু।

মাসুদ আনোয়ারসাংবাদিক ও লেখক, বর্তমানে দৈনিক সমকালের সহ সম্পাদক হিসবে কর্মরত আছেন।

১৩ Responses -- “বানান ‘সংস্কার’ নয়, দরকার ‘ধারণক্ষমতা’ সংস্কার”

  1. Imran Ashfaq

    লেখকের চিন্তা-ভাবনার গভীরতা ও তার তার প্রকাশভংগী অতুলনীয়। অধিকাংশ মন্তব্যগুলির সাথেও একমত। ডিজিটাল যুগের দোহাই দিয়ে যিনি এর বিরোধীতা করেছেন তার কথা অবশ্য ভিন্ন।

    Reply
    • সরকার জাবেদ ইকবাল

      ইমরান সাহেব, একটি কথা মনে রাখা দরকার – মুরগির ডিম থেকে ফুটে বাচ্চা বের হতে সময় লাগে ২১ দিন। তাকে জোর করে ১০ দিনে বের করে আনা যায় না। ভাষাও তেমনি। সে তার নিজস্ব নিয়মে এবং সময় নিয়ে পরিবর্তন হয়। তাকে জোর করে পরিবর্তন করা যায় না। ‘দুহিলঁ দুধু কি বেন্টে সামাই?’ – এই প্রবচনটি ‘দোহা দুধ কি বাঁটে প্রবেশ করে?’-তে পরিবর্তন হতে সময় লেগেছে প্রায় এক হাজার বছর। আশা করি বিষয়টি বোঝাতে পেরেছি। এক্ষেত্রে ডিজিটাল যুগের দোহাইকে পাত্তা দেবেন না।

      Reply
  2. জাওয়াদ করিম

    @Ashraful Islam,
    যাযাদির বিশেষ সংখ্যায় “পৃয়তমা” শিরোনামের লেখা ছাপা হয়েছিল। সেটা কি সম্পাদকের বানানরীতির বাইরে?

    Reply
  3. সরকার জাবেদ ইকবাল

    আমার মনের কথাগুলো বলার জন্য লেখককে অজস্র ধন্যবাদ। ভাষা বহমান নদীর মত। সে তার নিজস্ব গতিতে, আপন ছন্দে নিজের পথ বেছে নেবে এবং নিজস্ব রূপ পরিগ্রহ করবে – এটাই স্বাভাবিক। আপনার হয়তো জানা আছে – ‘যিম’ ‘যাম’ ‘যেমহ’ হয়ে আমরা ‘যেমন’ শব্দটি পেয়েছি। এই পরিবর্তনের প্রতিটি স্তরে সময় লেগেছে দুই থেকে আড়াইশ’ বছর। আর, সংস্কারবাদীরা এক তুড়ি মেরে মুহূর্তের মধ্যে সেই পরিবর্তন ঘটিয়ে ফেলতে চাচ্ছেন! কি আস্পর্ধা! এ যেন গরীবের বউ সবার ভাবী; যখন-তখন গায়ে হাত দেয়া যায়!

    Reply
  4. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন

    বাংলা ভাষার জটিলতা অহেতুক, এজন্য বাংলা শব্দকে ইংরেজি অক্ষর দিয়ে লিখলে এক সাথে দুটো ভাষা শিক্ষা হয়ে যাবে। বাংলা অক্ষরের জটিলতা শেখার মত বিশাল সময় এই ডিজিটাল যুগে কারো থাকে না।

    Reply
    • Md. Mahbubul Haque

      এই ভাষাটি আমাদের প্রাণের, এই বর্ণমালার জন্য আমাদের প্রাণ পর্যন্ত দিতে হয়েছে। এই ভাষা, বর্ণমালা হাজার বছরের পরিক্রমায় তার বর্তমান স্থানে এসে উপস্থিত হয়েছে, অনেক বর্ণ ব্যবহারের অভাবে ঝরে গেছে, বানান রীতি পরিবর্তন হয়েছে, উচ্চারণ ভঙ্গি পাল্টেছে। কিন্তু ভাষাটি বা বর্ণমালা এখনও বাংলা নামেই আছে। পাকিস্তান আমলে বাংলাকে আরবি হরফে লেখার হুকুম জারি হয়েছিল, টেকেনি। স্বাধীনতার পরও আপনার মত সহজসাধ্য করার অভিপ্রায়ে রোমান হরফে বাংলাকে লেখার প্রস্তাব করা হয়েছিল, হয়ে ওঠেনি। হয়ত আপনার কথায় ঠিক – “বাংলা অক্ষরের জটিলতা শেখার মত বিশাল সময় এই ডিজিটাল যুগে কারো থাকে না।”
      সময়ের আবর্তনে পরিবর্তন হোক, সংক্ষিপ্ত হোক, ৯(লি)-র মত কিছু অক্ষর বাদ যাক, একই ধরনের উচ্চারণের কারণেও কিছু কিছু অক্ষর একীভূত হোক, মেনে নিতে রাজী আছি। তবু বাংলাকে অন্য হরফে দেখতে পারবো না।
      শুদ্ধ হোক বানান-ভাষা, ঋদ্ধ হোক মাতৃভাষা।

      Reply
    • কাদের মাহমুদ

      তাহলে যে ইংরেজি ভাষা ‘ফোনেটিক’ বা বৈজ্ঞানিক নয়, সেই ভাষাটির জটিলতা দূর করার চেষ্টা করুন। ধ্বনিবিদ্যার বিচারে বাংলার মতো বৈজ্ঞানিক ভাষা ক‘টা আছে দয়া করে খোঁজ করে দেখুন। বাংলায় অধিকাংশ ধ্বনির বর্ণ আছে। ইংরেজি সহকারে অনেক ভাষায় তা নেই।
      আগে নিজের ভাষা শিখলে অন্য ভাষা সহজেই শেখা হয়। নিজ ভাষায় কাঁচা হলে অন্য ভাষাতেও পাকা হওয়া কঠিন ।

      Reply
  5. Md. Alamgir Hossen

    সম্পাদক সাহেবকে সমালোচনাটা কেমন যেন একপেশে বা ব্যক্তিগত অপছন্দের বহিঃপ্রকাশ বলে মনে হয়েছে। এ অংশটুকুর অতি বাতুলতা বাদ দিলে আপনার লেখাটি পেশাদারত্বের ও যুক্তির মাত্রাকে প্রতিষ্ঠিত করেছে।

    Reply
  6. দানিয়েল

    আর্য জাতির ভাষা হচ্ছে আর্য ভাষা। ধর্মগ্রন্থ বেদের ভাষা বলে একে বৈদিক আর্য ভাষাও বলা হয়। পাণিনি এর সংস্কার করেন বলেই এর নাম হয় সংস্কৃত। এ ভাষার নাম আগে সংস্কৃত ছিল না।

    Reply
  7. মাসুদ আনোয়ার

    ধন্যবাদ, কৃতজ্ঞতা।
    স্টাইলটা আমিও জানি।
    ‌প্রিয়’ শব্দটা এসে গেছে অসাবধানতায়।

    Reply
  8. Ashraful Islam

    মি মাসুদ সাহেব আপনি সম্পাদকের বানান সংস্কারের উদ্ধৃতি দিতে গিয়ে লিখেছেন ‘প্রিয়’কে ‘পৃয়’ লেখেন। উনার বানানরীতি ভালো করে জেনে লেখা উচিত ছিল। উনি বাংলা বানানের ক্ষেত্রে নিয়ম চালু করেননি। ইংরেজি বানান বাংলাকরণ না করে একটা স্টাইল চালু করেছিলেন। ব্রিটেন না লিখে বৃটেন, ক্রিকেট নয় কৃকেট লিখতেন। কখনো প্রিয় বাংলা শব্দ। তিনি প্রিয় লিখতেন। পৃয় লিখতেন না। সমালোচনা লেখার আগে ভালোভাবে জেনে লেখা উচিত নয় কি।

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—