বাঙালি জাতির সবচেয়ে বড় অর্জন একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ। মুক্তিযুদ্ধ সবসময়ই আমাদের প্রেরণার উৎস। কারণ মুক্তিযুদ্ধ না হলে আমরা একটা স্বাধীন দেশ পেতাম না। পেতাম না আত্মমর্যাদা নিয়ে বাঁচার অধিকার। বিভিন্ন সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও বাংলাদেশ আজ বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে। উন্নয়নের মহাসড়ক ধরে এগিয়ে চলছে। বিশ্বের অনেক দেশের তুলনায় আমাদের প্রিয় মাতৃভূমি আজ গৌরবের আসনে সমাসীন। এটা মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদেরই অবদান।

কিন্তু এই দেশকে যারা মনেপ্রাণে মেনে নিতে পারিনি, তারা আজও নানা ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে দেশের অগ্রযাত্রাকে পিছিয়ে দিতে চায়। এদের মধ্যে রয়েছে জামায়াতে ইসলামী নামক দলটি। সবচেয়ে দু:খজনক হচ্ছে, এই্ দলটির সবচেয়ে বড় পৃষ্ঠপোষক ও রক্ষাকর্তা হিসেবে এগিয়ে এসেছে দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপি।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পাকিস্তানি সেনাবাহিনী যখন এই দেশের নিরস্ত্র মানুষের ওপর ভারী অস্ত্র নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে, তখন আক্রান্ত দেশবাসীর পক্ষে না দাঁড়িয়ে আক্রমণকারীর পাশে দাঁড়ায় জামায়াত। সেসময় রেডিওতে দেয়া এক ভাষণে পূর্ব পাকিস্তান জামায়াতের আমির গোলাম আযম পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর পাশে থাকার উদাত্ত  আহ্বান জানান। এরপর ধর্মভিত্তিক বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাদেরকে নিয়ে গোলাম আযম প্রধান সামরিক আইন প্রশাসক টিক্কা খানের সঙ্গে পরামর্শ করেন। বুদ্ধি দেন বাঙালি নিধনের। আর জামায়াতের নেতা-কর্মীদের নিয়ে গঠন করা হয় রাজাকার বাহিনী। এই দলের ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্র সংঘ গড়ে তোলে খুনি বাহিনী আলবদর, যারা জড়িত ছিল বুদ্ধিজীবী হত্যায়।

পাকিস্তানি বাহিনীকে সহযোগিতার দায়ে মুক্তিযুদ্ধের পর নিষিদ্ধ করা হয় জামায়াতকে। পরে জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসে তাদেরকে রাজনীতি করার সুযোগ করে দেন। পাকিস্তানি পাসপোর্টে দেশে আসার সুযোগ পান গোলাম আযম, ভিসার মেয়াদ শেষ হলেও তিনি দেশ ছাড়েননি। পরে খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর তিনি নাগরিকত্বও পান।

১৯৯১ সালের জাতীয় নির্বাচনে জামায়াত ও বিএনপি আসনভিত্তিক সমঝোতা গড়ে তোলে। আর ১৯৯৯ সালে জোটবদ্ধ হয় দুই দল। ২০০১ সালে এই জোট ক্ষমতায় আসার পর আলবদর বাহিনীর দুই নেতা মতিউর রহমান নিজামী এবং আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ হন মন্ত্রী।

জামায়াত একটি অভিশপ্ত দল। যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে এই দলের অনেক নেতা অভিযুক্ত। জঙ্গিবাদই দলটির আদর্শ। অথচ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান সম্প্রতি বলেছেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানের পক্ষে অস্ত্র ধরা জামায়াতে ইসলামীতেও মুক্তিযোদ্ধা আছে!

এবার চট্টগ্রাম-৬ আসনে মনোনয়ন পেয়েছেন ফাঁসি হওয়া সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ভাই গিয়াসউদ্দিন কাদের চৌধুরী। জয়পুরহাট-১ আসনে মনোনয়ন পেয়েছেন আরেক মানবতাবিরোধী অপরাধী আবদুল আলীমের ছেলে ফয়সাল আলীম। আরেক দণ্ডিত জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর ছেলে শামীম সাঈদীকে পিরোজপুর-১ আসনে ছাড় দিয়েছে বিএনপি। শুধু তাই নয়, নির্বাচন কমিশন কর্তৃক নিবন্ধন বাতিল হওয়া মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অস্ত্র ধরা জামায়াতে ইসলামীকে এবার ধানের শীষ প্রতীক দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি।

বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম খান যে মন্তব্য করেছেন, এর মধ্য দিয়ে তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের অপমান করেছেন। মুক্তিযুদ্ধকেও খাটো করেছেন। একটি যুদ্ধাপরাধী দলের পক্ষে এমন মন্তব্য বিবেক-বিবেচনাহীন নির্লজ্জ দালালি ছাড়া কিছু নয়!

জামায়াতের মতে গণতন্ত্র হলো কুফরি মতবাদ। আর মুক্তিযুদ্ধ তো তারা স্বীকারই করে না। তারা বলে ওটা ছিল ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ। মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি এর থেকে বড় অপমান আর কিছু হতে পারে না। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ৬৮ বছর পর নাৎসি যুদ্ধাপরাধীদের মধ্যে যারা এখনো বেঁচে আছে, তাদের বিচার করার লক্ষ্যে ওদেরকে ধরিয়ে দেওয়ার জন্য সম্প্রতি জার্মানি একটা গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে, যার নাম দিয়েছে, ‘অপারেশন লাস্ট চান্স’ ।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এই নাৎসি যুদ্ধাপরাধীরা যে অপরাধ করেছে তা সব কালের সীমা ভেদ করে এখনও দগদগে। তাই মানবতার কল্যাণের জন্য তাদের বিচার অপরিহার্য। আর বাংলাদেশে মাত্র ৪৭ বছর পর যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রসঙ্গে জামায়াত-বিএনপি যা বলছে, তাকে বাঙালি জাতির দুর্ভাগ্য ছাড়া আর কী বলা যায়?

যুদ্ধাপরাধের জন্য গঠিত বিচারিক আদালত রায়ে উল্লেখ করেছে, জামায়াতে ইসলামী যে একটা সন্ত্রাসী সংগঠন তা সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে। এ সংগঠনের সদস্যদের রাষ্ট্রীয় কোনও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে না রাখার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে আদালত। এহেন জামায়াতকে নিয়ে বিএনপি আগামীতে ক্ষমতায় যাবার জন্য গাঁটছড়া বেঁধেছে। এখন আবার এই স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির মধ্যে মুক্তিযোদ্ধা খুঁজে পাওয়ার চেষ্টায় মগ্ন হয়েছে! স্বার্থের জন্য, ক্ষমতার জন্য নজরুল ইসলাম খানরা আর কত বিবেকভর্তা উপহার দেবেন? জামায়াতের মহিমাকীর্ত্তন করবেন?

কেউ ভোলেনি ১৯৭১ সালে জামায়াতের ভূমিকা এবং পঁচাত্তরের পর থেকে আজ পর্যন্ত জামায়াতকে পুনর্বাসিত করতে বিএনপির আমরণ চেষ্টার কথা। সুতরাং মুখে শেখ ফরিদ বগলে ইট, এমন ভাব প্রকাশের জন্য দু-একজন পদস্খলিত মুক্তিযোদ্ধাকে জামায়াতের সঙ্গে একই মঞ্চে বসিয়ে মানুষকে আর বিভ্রান্ত করা যাবে না।

নজরুল ইসলাম খানরা কী করে অস্বীকার করবেন যে, ১৯৭৫-এর পর জামায়াতকে ফিরিয়ে সেই রাজনীতিকে বৈধতা দেয় বিএনপি? সাম্প্রদায়িক রাজনীতির সঙ্গে আওয়ামী লীগের আপস খুবই দৃশ্যমান৷ তবে বিএনপি জামায়াতকে না ফেরালে গল্পটা নিশ্চয়ই অন্যরকম হতো৷

দলের নামে ‘ইসলামী’ শব্দটি থাকলেও ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় জামায়াতে ইসলামী কী কী অপকর্ম করেছিল তা তো সবাই জানেন৷ অসংখ্য মুক্তিযোদ্ধা, শহীদ পরিবার আর ধর্ষিতা নারীর স্মৃতিতে সেসব আছে, ইতিহাসের পাতায়ও তা লেখা আছে৷ তারপরও বিএনপি নেতা নজরুল ইসলাম খান এমন মন্তব্য করেন কীভাবে-সেটাই বিস্ময়ের!

জেনারেল জিয়াউর রহমান একজন মুক্তিযোদ্ধা হয়ে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতাবিরোধীদের বাংলাদেশের রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।

তিনি ১৯৭৭ সালের ১ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ ন্যাশন্যাল পার্টি (বিএনপি) গঠন করেন। সে সময় তার দলে মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা ও আওয়ামী লীগের পক্ষের খুব বেশি সংখ্যক লোক যোগ দেননি। প্রত্যক্ষভাবে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতবিরোধী নেতা, মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতাবিরোধী কিছু বাম ঘরানার রাজনীতিবিদ, পাকিস্তানপন্থি কিছু সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তা দলটির নেতৃত্বে আসেন। দলটির উপরে কিছুসংখ্যক মুক্তিযোদ্ধাকে দুধের সরের মতো ভেসে থাকতে দেখা যায়। অন্যদিকে দলটির অভ্যন্তরে বিলীন হয়ে যায় মুসলিম লীগ, নেজামে ইসলাম, জামায়াতে ইসলামীসহ পাকিস্তান শাসনামলের ধর্মভিত্তিক ও আওয়ামী লীগবিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর লাখ লাখ নেতা-কর্মী-সমর্থক। ফলে পুনরুজ্জীবন লাভ করলেও ধর্মভিত্তিক দলগুলো এবং আওয়ামী লীগবিরোধী জাসদসহ সব দল নেতা-কর্মী-সমর্থক হারিয়ে কাগুজে দল হয়ে যায় এবং অল্প সময়ের মধ্যে বিএনপি ফুলেফেঁপে ওঠে। যেভাবেই বলা হোক না কেন, বিএনপি কখনোই মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার পক্ষের শক্তির রাজনৈতিক দল ছিল না। দলটিতে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা বিরোধীদের পৃষ্ঠপোষক-প্রেমিক কিছু সংখ্যক উদ্দেশ্যবাদী মুক্তিযোদ্ধা ছিল মাত্র। দলটির কর্মকাণ্ড তারই সাক্ষ্য বহন করে।

একদা বিএনপি নেতা এবং বর্তমানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা কর্নেল অলি আহমেদ তার ‘আমার সংগ্রাম আমার রাজনীতি’ নামক বইতে একাত্তরের রাজাকার এবং যুদ্ধাপরাধীদের বিরুদ্ধে তীব্র ধিক্কার জানিয়ে বলেছিলেন, “একবার যে বেঈমানি করে বা দালালী করে সে সারাজীবনই বেঈমানি ও দালালী করতে অভ্যস্ত হয়ে যায়।”

আরেকটি সাক্ষাৎকারে তিনি জাতি, ধর্ম ও দলমত নির্বিশেষে ঐক্যের মাধ্যমে যুদ্ধাপরাধী খুনিদের বিচারের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘‘অন্যথায় সময় ও সুযোগ পেলে তারা এ দেশের দেশপ্রেমিক জনতার ওপর গোখরো সাপের মতো বিষাক্ত ছোবল মারতে পারে।” [পৃ. ২৮৪]

যে রাজাকারদের নিয়ে কর্নেল অলি এক সময় উল্লিখিত সতর্কবাণী উচ্চারণ করেছিলেন, সেই রাজাকারের সমর্থনেই আজ কর্নেল অলির জোটের নেতা নজরুল ইসলাম খান মাঠে নেমেছেন। কিন্তু জনাব খান, ইতিহাসকে অস্বীকার করবেন কীভাবে? ইতিহাস যে জামায়াত এবং বিএনপিকে সমানভাবে কলঙ্কিত করে রেখেছে!

পরিশেষে নজরুল ইসলাম খানকে সবিনয়ে বলি, বিএনপির রাজনীতি করতে গিয়ে আর কত বিবেককে নিলামে তুলবেন? আর কত নিচে নামবেন? সামান্য একটু পদ-পদবি-ক্ষমতার জন্য রাজাকার-আলবদরদের পায়ের নিচে নিজেকে সমর্পণ করবেন? দোহাই আপনার, এভাবে নিজেকে অপমান করবেন না। স্বাধীনতা বিরোধী জামায়াতীদের কাছে আপনি আপনার সত্তাকে বন্ধক দিচ্ছেন দিন, দয়া করে একাত্তরের শহীদ এবং মুক্তিযুদ্ধকে অপমান করবেন না।

চিররঞ্জন সরকারকলামিস্ট।

২৪ Responses -- “জামায়াতেও মুক্তিযোদ্ধা আছে!”

  1. সৈয়দ আলি

    ব্যবসা ও সিনাজুরি করার জন্য মুক্তিযুদ্ধকে ব্যবহার করা হয়। মুক্তির জন্য যে একটি প্রাণপন যুদ্ধ হয়েছিলো, তা কেউই জানে না।

    Reply
  2. সুধাংশু হালদার

    কওমী জননী শেখ হাসিনার মতে, হেফাজতে ইসলামেও অসাম্প্রদায়িক লোক আছে। এইটা তো লেখক মেনে নিয়েছেন।

    Reply
  3. M Fasih Uddin Mahtab

    যতদুর জানি-সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর এলাকা থেকে জামায়াতের সাংসদ গাজী নজরুল ইসলাম ছিলেন। তিনি মুক্তিযোদ্ধা। ভাবতে অবাক লাগে এই মুক্তিযোদ্ধা কীভাবে যুদ্ধাপরাধীদের দলে যোগ দিলেন!

    Reply
    • সুধাংশু হালদার

      যখন তিনি দেখলেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্ভুদ্ধ আওয়ামীলীগের নেতারাও স্বাধীন দেশে দুর্নীতি-খুন-গুম-ধর্ষণ করেন। তখন তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

      Reply
  4. মাসুদ

    সৈয়দ আলি, আপনার অ্যাপ্রোচটাই খারাপ। আর আপনার একমাত্র চেষ্টা হলো, আওয়ামী লীগের পিণ্ডি চটকানো।

    Reply
    • সৈয়দ আলি

      মাসুদ, প্রতিবার মিথ্যা বলবেন, একই এ্যাপ্রোচ দেখবেন। অতএব, মিথ্যা বলিবেন না।

      Reply
    • সৈয়দ আলি

      পিন্ডি চটকাইনা, সত্য ইতিহাস বলি। ইতিহাসতো গিলে ফেলছেন। পরবর্তী প্রজন্মকে মিথ্যা ইতিহাসের শিকার বানাচ্ছেন। তাজউদ্দিন আহমদের নামই ভুলিয়ে দিচ্ছেন। কতো কেচ্ছা আমদানী করছেন। যা ১৯৭২ থেকে ২০০৮ পর্যন্ত শুনিনি তা’ গেলানোর চেষ্ঠা চলছে – বলধা গার্ডেন, ইপিআরের কমিউনিকেশন সেন্টারে যুবরাজ, খুলনা বেতার কেন্দ্র – কতো কতো গুল গল্প।

      Reply
  5. আরিফ

    “১৯৯১ সালের জাতীয় নির্বাচনে জামায়াত ও বিএনপি আসনভিত্তিক সমঝোতা গড়ে তোলে। আর ১৯৯৯ সালে জোটবদ্ধ হয় দুই দল। ২০০১ সালে এই জোট ক্ষমতায় আসার পর আলবদর বাহিনীর দুই নেতা মতিউর রহমান নিজামী এবং আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ হন মন্ত্রী।”
    — এত বড় গলা থাকলে ৯৬ তে কে জেন গোলাম আজমের পায়ে হাত দিয়ে সালাম করে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আন্দোলনে নামে সেটাও বলুক। ৯১ থেকে ৯৬ বাদ দিয়ে সরাসরি ৯৯ তে চলে যাওয়া কি জোচ্চুরির লক্ষন নয়?

    Reply
    • সৈয়দ আলি

      @আরিফ, লেন ঠ্যালা। এখন প্রমান করেন যে কাদম্বিনী জীবিত ছিলো। যে কেউ ১৯৯৬ সালের পত্র-পত্রিকা পড়লে জানবে ফোন করে গো আজমকে সুললিত সুরে চাচা বলে সম্বোধন, তার প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থীকে দোয়া আনতে পাঠানো, জামাতের সাথে রাজনৈতিক শয্যায় গমন- সব ইতিহাসে লেখা আছে। এই হচ্ছে আওয়ামী খাসলৎ, নিজের বিষ্ঠার গন্ধ পায় না!

      Reply
  6. Bongo Raj

    মুখে বাঙ্গালী অন্তরে “গুজরাটি, পাঞ্জাবী, মারাঠী বা বাংলার বাইরের অন্য কোন জাতির” ধারনা নিয়ে যারা জন্ম থেকেই বাংলাদেশের সাথে প্রতারণা করে এসেছে/করছে, এরা সবাই আজ বিএনপি নামক এ নোংরা পতাকা তলে জড়ো হয়েছে। এরা এই দেশের খায়, পরে, গায়ের মাংশ গড়ে এই দেশের আলো বাতাস আর মাটি দিয়ে কিন্তু মনে প্রানে তাকিয়ে থাকে পাকিদের পা চাটার জন্য।

    এদেরকে চেনার সহজ উপায় হলো, এরা প্রতিনিয়তই তাদের পূর্বপুরুষরা কোন এলাকা থেকে এই বঙ্গতে এসেছে তার খোঁজ করে। এদেরকে নির্ভুলভাবে পরিচিত করতে হলে “নোংরা নিমক হারাম” শব্দটা সব চাইতে প্রযোজ্য।

    Reply
  7. সাইফুল ইসলাম

    আওয়ামীলীগে যদি চিন্হিত রাজাকার থাকতে পারে তাহলে জামায়াতে মুক্তিযোদ্ধা থাকতে অসুবিধা কি ? আর ভুলে যাচ্ছেন কেন দাদা এ জামায়াতের সাথে ৯৬ সালের নির্বাচনে জোট বেঁধেছিলেন! নিজের স্বার্থে আঘাত আসলে সৃম্তিশক্তি বড় দুর্বল হয়ে যায় দাদা!

    Reply
  8. সৈয়দ আলি

    জামাতে মুক্তিযোদ্ধা আছে বলে নজরুল ইসলাম খান মুক্তিযোদ্ধাদের অপমান করে থাকলে আপনার পিত্যতুল্য শাহরিয়ার কবীরও একই কথা বললে ঠিক হয়, চিররঞ্জন? (ভিডিওটি দেখুন)

    Reply
    • বাঙাল

      সৈয়দ আলি, নামের লোকটি সব সময়ই, যে কোন লেখককে ব্যাক্তিগত ভাবে আক্রমন করে লিখে, যদি সেই লেখাটি স্বাধীনতার শত্রু জামাতের বিরুদ্ধেও হয়। এই ক্ষেত্রে এডিটর সাহেবের সতর্কতা দাবি করছি। সৈয়দ আলি, শাহরিয়ার কবীর কোথায় দাবি করেছেন বা বলেছেন যে, একাত্তরের স্বাধিনতা বিরোধী জামাতের মধ্যে অনেক মুক্তিযোদ্ধা আছে? উনি কি আপনার মত বিকারগ্রস্থ যে, এই ধরনের কথা বলবেন? বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী প্রতিটি যোদ্ধা রাজনৈতিক ভাবে সচেতন ছিলেন বলেই, তারা মুক্তিযুদ্ধে যেতে পেরেছিল। তারা কখনই জামাত বা অন্য কোন রাজনৈতিক দলে যেতে পারে না, যারা দাবি করে তারা মিথ্যা বলে। কারণ একাত্তরে প্রতিটি মুত্তিযোদ্ধার কমন শত্রু ছিল পাকিস্থানি বাহিনী ও জামায়াতে ইসলাম। আমার নিজের পরিবারের বাবা-চাচা-মামা অর্থাৎ দাদা ও নানার দিকে ১৪ জন মুক্তিযোদ্ধা আছে, একজন খেতাব প্রাপ্ত। আমাদের পরিবারের জামাত তো দূরের কথা বিএনপিকেও সমর্থন করে না কোনওদিন, আদর্শগত কারণে। বিএনপিতে যে সব মুখ চেনা মুক্তিযোদ্ধাদের দেখা যায়, তাদের অধিকাংশ কোন না কোন ক্ষমতার লোভে গেছে। কিন্ত প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর এখনো যেসব জীবিত মুক্তিযোদ্ধারা আছেন, তারা এখনো তাদের রাজনৈতিক আদর্শে অটুট আছে। বিভ্রান্ত ছড়িয়ে লাভ নাই।

      Reply
      • সৈয়দ আলি

        বাঙাল, ফেসবুকে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়ে আছে যেখানে নজরুল ও শাহরিয়ার উভয়েই বলেছে যে জামাতে মুক্তিযোদ্ধা আছে (শাহরিয়ার বলেছে যে জামাত দু’হাজার দাবী করলেও আমাদের অনুসন্ধানে পাঁচশো পেয়েছি)। নিজের লুঙ্গির কাছাটা টাইট কি না দেখে অন্যের পেছনে লাগবেন।
        বিভাগীয় সম্পাদক, এই ব্যক্তি বাঙ্গাল একটি বহুল প্রচারিত বিষয় না জেনে আমাকে হেয় করছে।

      • সাইফুল ইসলাম

        সৈয়দ আলী
        বাঙাল বা বংগরাজ এরা সব সরকারী সাহায্য প্রাপ্ত এজেন্ট । এদের ইগনোর করেন ।

  9. oishi

    ১৯৯১ সালের জাতীয় নির্বাচনে জামায়াত ও বিএনপি আসনভিত্তিক সমঝোতা গড়ে তোলে।
    1996 সালে কার সাথে জাতীয় নির্বাচন আসন ভিতিক সমঝোতা গড়ে তোলে সেটা কেন বলছেন না,

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—