যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তাঁর গা-জ্বলা কথাবার্তার জন্য প্রচুর সমালোচিত– তাঁর দেশে ও দেশের বাইরে। উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক অস্ত্র ইস্যুর মতো জটিল এবং বৈশ্বিকভাবে উদ্বেগজনক বিষয়েও ট্রাম্পকে এ ধরনের কথা বলতে দেখা যায়। উত্তর কোরিয়ার স্বৈরশাসক কিম জং ঊনকে ‘রকেটম্যান’ বলে হাস্যরস করেছেন ট্রাম্প। তাঁর কট্টর বিরোধিতাকারীরা তাঁর এমন ধারার কথাবার্তা ‘বালখিল্যতা’ বলে আখ্যায়িত করে থাকেন। এমনকি উত্তর কোরিয়াকে আলোচনার টেবিলে না পাওয়ার জন্য তারা দায়ী করেন মার্কিন প্রেসিডেন্টেরএসব আচরণকে। পূর্ব এশিয়ার ভূরাজনীতি বিশেষজ্ঞদের একটি অংশেরও ধারণা এটাই যে, ট্রাম্পের বেপরোয়া কথাবার্তা কোরীয় উপদ্বীপের সমস্যাটি আরও জটিল করছে এবং এ অঞ্চলে উত্তেজনা বাড়িয়ে সেটি সমাধানের অযোগ্য করে তুলেছে।

উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে ট্রাম্পের এহেন আচরণের সমালোচনা হয়। তাঁর ফাইভ নেশনস-এশিয়া সফরের আগে সেদেশের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে মার্কিন প্রেসিডেন্টকে একজন ‘যুদ্ধপাগল’ বলে আখ্যায়িত করা হয়েছে। তার মানে, ট্রাম্পের কট্টর সমালোচক ও উত্তর কোরীয় প্রশাসনের দৃষ্টিভঙ্গি একই রেখায় বিরাজমান।

এখানে দুটি প্রশ্ন আনা যায়। প্রথমত, মার্কিন প্রেসিডেন্টের লাগামহীন কথাবার্তা কি উত্তর কোরিয়ার প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতির অংশ? আরও স্পষ্ট করে বললে, তাঁর এমন দৃষ্টিভঙ্গি কি কোনোভাবে দেশটির পররাষ্ট্রনীতিতে প্রতিফলিত হয়?

সেটির উত্তর হবে, না। উত্তর কোরিয়ার প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতিতে প্রেসিডেন্টের কথাবার্তার প্রতিফলন হয় না। যদি তা-ই হত, তাহলে এতদিনে এই অঞ্চলে সরাসরি যুদ্ধ লেগে যেত। হয়তো উত্তর কোরিয়া এতদিনে আরেকটি হিরোশিমা হয়ে উঠত।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতি নির্ধারিত হয়ে থাকে মেধাবী পেশাধারী কূটনৈতিক, সামরিক কৌশল প্রণয়নকারী এবং নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞদের দ্বারা। উত্তর কোরিয়ার প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতিতে মাঠের প্রদাহী কথাবার্তার প্রভাব সামান্যতমও নয়। দেশটির অফিসিয়াল পলিসি এবং সেটির বাস্তবায়ন প্রেসিডেন্টের কথাবার্তার চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

তাহলে এসব কথার কি কোনো মূল্য নেই? তিনি কি কেবল এসব বলার জন্যই বলে থাকেন?

অবশ্যই এসব কথার নির্দিষ্ট মূল্য আছে। ট্রাম্প তাঁর কথার মাধ্যমে যে বার্তা দেন সেটি প্রতিপক্ষকে মনস্তাত্ত্বিকভাবে ঘায়েল করে। একই সঙ্গে দেশটির পররাষ্ট্রনীতি সম্পর্কে একটি অস্পষ্ট বার্তাও পাওয়া যায়। তবে তাঁর এসব বক্তব্য আসলে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রনীতির অংশ নয়।

যেমন ধরুন, জাপানে নেমেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট বললেন যে, উত্তর কোরিয়ার প্রতি ‘কৌশলগত ধৈর্য’ এখন শেষের দিকে। উত্তর কোরিয়ার প্রতি কূটনৈতিক পদক্ষেপের পাশাপাশি যে সামরিক পদক্ষেপও বিবেচনায় রয়েছে, সেটি বিশ্বকে আবারও জানিয়ে দিলেন তিনি। দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় পরিষদে বক্তব্য দেওয়ার সময় কিম জং ঊনের উদ্দেশে তিনি বলেন,

Do not underestimate us. Do not try us.

বাংলায় অনুবাদ করলে এর অর্থ দাঁড়ায়, আমাদেরকে ছোট করে দেখ না, আমাদেরকে পরীক্ষা কর না। তিনি জাতীয় পরিষদের বক্তব্যে বলেন,

“আমরা কোরীয় উপদ্বীপে বিশ্বের তিনটি বড় এয়ারক্রাফট স্থাপন করেছি। সেই তিনটি এয়ারক্রাফট এফ-৩৫ এবং এফ-১৮ জঙ্গি বিমান দ্বারা পরিপূর্ণ। এমনকি আমরা কয়েকটি পারমাণবিক সাবমেরিন কোরীয় উপদ্বীপে রেখেছি।”

 

Kim Jong Un - 222
উত্তর কোরিয়ার স্বৈরশাসক কিম জং ঊনকে ‘রকেটম্যান’ বলে হাস্যরস করেছেন ট্রাম্প

 

এশিয়া সফরে ডোনাল্ড ট্রাম্পের কথিত প্রদাহী কথাবার্তায় কিম জং ঊন কিছুটা স্নায়ুচাপে পড়েছেন। আগে মার্কিন প্রেসিডেন্টের প্রতিটি টুইটারের জবাব দিলেও কিম জং ঊন এখন সেটি করছেন না। আগের মতো হুমকিও দিচ্ছেন না। যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনী বলছে, তারা আপাতত উত্তর কোরিয়ার মধ্যে উত্তেজক বা প্ররোচক কোনো আচরণ দেখছে না। তবে তারা যদি তেমন আচরণ করে, সেটার জবাব দেওয়া জন্য আগে থেকেই সামরিক প্রস্তুতি রাখা হয়েছে।

দ্বিতীয়ত, উত্তর কোরিয়ার নেতৃত্ব বুঝতে পেরেছেন যে, ট্রাম্প প্রশাসন বারাক ওবামা প্রশাসনের মতো নীরব থাকবে না। ফলে মার্কিন প্রেসিডেন্টের প্রদাহী কথাবার্তা যে একেবারেই অর্থহীন ও উদ্দেশ্যহীন, সে সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া মানেই হচ্ছে বাস্তবতাবিবর্জিত একটি অবস্থান গ্রহণ।

তবে এখানে কয়েকটি প্রশ্ন রয়েছে। প্রেসিডেন্টের বক্তব্য কি কেবলই প্রদাহী? তাঁর বক্তব্যে হুমকি-ধমকির বাইরে আলাপ-আলোচনার কোনো উপাদান কি নেই? নেই কি আলোচনার কোনো ইঙ্গিত? ট্রাম্প কি সামরিক শক্তি প্রয়োগের বাইরে রাজনৈতিক সমাধানের বিষয়ে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন?

প্রশ্নগুলির উত্তর হল, ‘না’। এখনও ট্রাম্প প্রশাসন রাজনৈতিক সমাধানের কথাই বলছেন।

দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় পরিষদে মার্কিন প্রেসিডেন্টের বক্তব্যে সেটি স্পষ্ট ছিল। কিম জং ঊনকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন,

“আপনি যে অস্ত্র বানাচ্ছেন সেটি আপনাকে নিরাপদ রাখবে না। আমরাই বরং আপনাকে ভালো ভবিষ্যৎ দিতে পারব। তবে পিয়ংইয়ংকে অবশ্যই সম্পূর্ণ রূপে ডিনিউক্লিয়ারাইজেশন করতে হবে।”

একই সঙ্গে ডোনাল্ড ট্রাম্প উত্তর কোরিয়ার উপর জোরপূর্বক শ্রম, ক্ষুধা, যৌন ও রাজনৈতিক নির্যাতন ও হত্যার অভিযোগ আনেন। তিনি উত্তর কোরিয়াকে একটি ‘দোজখ’ বলে আখ্যায়িত করেন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট দুই কোরিয়ার পার্থক্য বুঝাতে আর্মিটাইজ রেখা বেছে নেন। এই রেখা শান্তি ও যুদ্ধ, সুন্দর ও দুরাচার, আইনের শাসন ও বর্বর শাসন, আশা ও হতাশার বিভক্তকারী বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এ অবস্থায় উত্তর কোরিয়া বিষয়ে সামরিক শক্তিপ্রয়োগের বিষযটি ট্রাম্প প্রশাসন তালিকার শীর্ষে রেখেছে ভাবা ঠিক হবে না। অধিকন্ত, ডোনাল্ড ট্রাম্প ও মুন জে ইনের আলোচনার মূল বিষয় ছিল কীভাবে উত্তর কোরিয়াকে আলোচনার টেবিলে নিয়ে আসা যায়। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য যে, উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক কর্মসূচি সমস্যার সমাধানে দক্ষিণ কোরীয় সরকারের গৃহীত কর্মসূচি ট্রাম্প প্রশাসন মেনে নিয়েছেন।

উপরের বিশ্লেষণগুলোর মূল উদ্দেশ্য হল এটি পরিষ্কার করা যে, ট্রাম্প প্রশাসন ও মুন জে ইন প্রশাসন এখনও সামরিক শক্তি প্রয়োগের বিষয়টি করণীয় তালিকার প্রথমে নেননি। ট্রাম্প চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে দেখা করে উত্তর কোরিয়াকে আলোচনার টেবিলে নিয়ে আসার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, চীন যদি চায় তবেই এই সমস্যার সমাধান করা যাবে।

তাই এটি নিশ্চিত করে বলা যায় যে, উত্তর কোরিয়া যদি যুক্তরাষ্ট্র ও দেশটির মিত্রশক্তি দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপানের উপর কোনো ধরনের হামলা পরিচালনা না করে, তবে বিষয়টি কূটনৈতিক সমাধানের দিকে যাবে। আর যদি বেপরোয়া কিম জং ঊন হামলা করে বসেন, তবে উত্তর কোরিয়াকে হিরোশিমা কিংবা নাগাসাকির মতো চরম মূল্য দিতে হবে।

যাহোক, চীন সফরের সময় মার্কিন প্রেসিডেন্ট চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংকে উত্তর কোরিয়ার বিষয়ে আরও কিছু করার আহ্বান জানান। জবাবে প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং উভয় পক্ষকে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে গৃহীত পদক্ষেপগুলো মেনে চলার আহ্বান করেন। চীনের এই অবস্থান এখন পর্যন্ত কৌশলী।

তবে এটি ক্রমশ স্পষ্ট হচ্ছে যে, চীনও চাচ্ছে উত্তর কোরিয়া যেন পারমাণবিক অস্ত্রের এজেন্ডাসহ আলোচনার টেবিলে অংশগ্রহণ করে। কারণ কোরীয় উপদ্বীপ এলাকায় যদি আমেরিকার উপস্থিতি দীর্ঘমেয়াদী হয়, সেটি এই অঞ্চলে চীনবিরোধী দেশগুলোকে নানাভাবে উৎসাহ দিয়ে যাবে। বড় ধরনের সামরিক জোট গঠনও হয়ে যেতে পারে। আর যদি উত্তর কোরিয়ায় হামলা করার মতো বাস্তবতা এসে পড়ে এবং সেদেশের শাসনক্ষমতার পরিবর্তন ঘটে সেটিও চীনের জন্য সুখকর হবে না। আমেরিকার নেতৃত্বে সামরিক জোট উত্তর কোরিয়ার স্থায়ীভাবে আবাস গাড়তে পারে।

অধিকন্তু, পিয়ংইয়ংএর ক্ষমতার পরিবর্তন চীনের অভ্যন্তরীন সমস্যার আগুনে ঘি ঢালবে। চীন ইতোমধ্যে কূটনৈতিক চ্যানেলে উত্তর কোরিয়াকে আলোচনার টেবিলে নিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছিল। উত্তর কোরিয়া তাতে আগ্রহ দেখায়নি। উত্তর কোরিয়া পারমাণবিক ইস্যু নিয়ে কোনো ধরনের কাঠামোগত আলোচনায় যেতে চাচ্ছে না। তবে অন্য বিষয়ে আলোচনার প্রয়োজনীয়তা কিম জং ঊন কখনও নাকচ করেননি।

উত্তর কোরিয়াকে পারমাণবিক কর্মসূচির এজেন্ডাসহ আলোচনার টেবিলে বসানো চীন ভিন্ন অন্য কোনো দেশের পক্ষে সম্ভব নয়। দেশটির উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে লাভ হবে না। এ ধরনের নিষেধাজ্ঞা এখন হাস্যরসে পরিণত হয়েছে। কিছু নির্দিষ্ট ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে চীনের সঙ্গে সত্তর শতাংশ বাণিজ্য পরিচালনাকারী রাষ্ট্র উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে কিছুই করা যাবে না।

 

Xi Jinping - Donald Trump - 111
ট্রাম্প চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সঙ্গে দেখা করে উত্তর কোরিয়াকে আলোচনার টেবিলে নিয়ে আসার আহ্বান জানান

 

ট্রাম্পের সফরের আগেই জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে উত্তর কোরিয়ার উপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা অনুসরণ করে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রশাসন বহুমাত্রিক নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দিয়েছিল। কিন্তু প্রস্তাবিত ও অতীতে আরোপিত নিষেধাজ্ঞাগুলোর কার্যকারিতা প্রশ্নবিদ্ধ। এসবের মধ্যে একটি পদক্ষেপ ছিল উত্তর কোরিয়ার অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত উপরের স্তরের কজন ব্যক্তিকে কালো তালিকাভুক্ত করা। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের আরোপিত নিষেধাজ্ঞাতেও অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠানে জড়িত ব্যক্তিদের তালিকাভুক্ত করার বিষয়টি রয়েছে।

এর ফলে আবারও সেই প্রশ্ন ঘুরেফিরে আসছে। নিষেধাজ্ঞা দিয়ে উত্তর কোরিয়াকে কি আলোচনার টেবিলে নিয়ে যাওয়া যাবে? তবে এর সঙ্গে নতুন আরেকটি প্রশ্ন সংযোজিত হচ্ছে। সেটি হল, যদি ওরা না-ই যায়, তবে বিকল্প কোন পন্থায় তাদের আলোচনার টেবিলে নিতে হবে? নতুন প্রশ্ন উঠে আসার কারণ হচ্ছে এটাই যে, উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনা গত কয়েক দশক ধরে বহুবার হয়েছে। কোনো অগ্রগতি হয়নি। ফলে আলোচনার পদ্ধতি ও এজেন্ডা নিয়ে নতুন করে ভাবতে হবে বিশ্বনেতৃত্বকে।

কোনো ধরনের নিষেধাজ্ঞার মাধ্যমে উত্তর কোরিয়াকে আলোচনার টেবিলে নিয়ে আসা অতীতে সম্ভব হয়নি, ভবিষ্যতেও হবে না। দক্ষিণ কোরিয়ার কোনো অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার কোনো ব্যক্তির আর্থিক লেনদেন হয় না। ২০১০ সালে উত্তর কোরিয়ান টর্পেডোর আঘাতে দক্ষিণ কোরিয়ার একটি সামরিক নৌযান ডুবে গেলে ৪৬ জন সেনাসদস্য মারা যান। সে সময় দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ছিলেন লি মিয়ং বাক। তখন যে নিষেধাজ্ঞা উত্তর কোরিয়ার উপর আরোপিত হয়েছিল, সেটি ‘মে-২৪’ নিষেধাজ্ঞা নামে পরিচিত। সেই নিষেধাজ্ঞার মধ্যে উত্তর কোরিয়ার ব্যক্তি বিশেষের দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিষ্ঠানে লেনদেনের বিষয়টি ছিল। তাই নতুন নিষেধাজ্ঞা কার্যকরী ভূমিকা রাখবে বলে মনে হয় না।

উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে চীনের বাণিজ্য হয় সত্তর শতাংশের মতো। যদি চীন ইচ্ছে করে, কেবল তখনই উত্তর কোরিয়ার উপর কার্যকর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে পারে। এক্ষেত্রে একটি উদাহরণ দেওয়া যেতে পারে। ইরানের উপর কয়েক দশক ধরে নানা নিষেধাজ্ঞা ছিল। কিন্তু ভারতের সঙ্গে সীমান্ত থাকায় নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের বিনিময় ও ইরান থেকে ভারতের জাতীয় প্রয়োজনের বার শতাংশ জ্বালানির জোগানদান সেই নিষেধাজ্ঞা কার্যকরী না হওয়ার ক্ষেত্রে মূল ভূমিকা পালন করেছে।

ফলে কোন পন্থায় আলোচনা করলে উত্তর কোরিয়াকে টেবিলে পাওয়া যাবে, সেটি নিয়ে এখন কৌশল প্রণয়নকারীদের মাথাব্যথা শুরু হয়েছে। দশকের পর দশক ধরে চলে ব্যর্থ আলোচনার পদ্ধতি অনুসরণ না করে এখন এজেন্ডায় পরিবর্তন আনা জরুরি হয়ে পড়েছে। উত্তর কোরিয়ার উপর যত নিষেধাজ্ঞেই দেওয়া হোক না কেন, কিম জং উন পারমাণবিক কর্মসূচি থেকে সরে আসবেন না। উত্তর কোরিয়ার কাছে এখন এটি একমাত্র আত্মরক্ষার অস্ত্র। উত্তর কোরিয়া ভালো করেই হিসাব কষেছে। তাদের ধারণা, এই অঞ্চলে যুদ্ধ পরিচালনা করতে নানা বিষয় ভাবতে হবে। বিশেষ করে সামরিক ব্যয়ের চিন্তা করে যুক্তরাষ্ট্র সামরিক হামলা চালাবে না।

তবে উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক অস্ত্র কর্মসূচি কোরীয় উপদ্বীপে উত্তেজনার মূল কারণ নয়। এটি মূল সমস্যার বাই-প্রডাক্ট মাত্র। উত্তর ও দক্ষিণের মধ্যকার যুদ্ধপরিস্থিতি হল অনুঘটক। দেশ দুটির মধ্যে ১৯৫৩ সালে গৃহীত যুদ্ধবিরতি এখনও বলবৎ। আর্মিটাইজ চুক্তিটি কেবল দুটি দেশের মধ্যকার সামরিক দ্বন্দ্ব বন্ধ রেখেছে, নিরসন করতে পারেনি কিছুই। দুদেশের মধ্যকার যুদ্ধপরিস্থিতির স্থায়ী নিরসনের জন্য দরকার রাজনৈতিক সমাধান।

সেই সমাধান আসবে তখনই যখন দুই কোরিয়ার মধ্যে মৌলিক বিরোধের জায়গাগুলো চিহ্নিত করে মিটিয়ে ফেলা যাবে। আলোচনা করতে হলে আর্মিটাইজ চুক্তিতে ফিরে যেতে হবে। সেটি ভিত্তি ধরে অন্যান্য রাজনৈতিক সমাধানের ক্ষেত্রগুলো পরীক্ষা করে এগুনো সম্ভব।

বিজন সরকারভাষা গবেষক; রাজনৈতিক বিশ্লেষক।

Responses -- “লাগামহীন ট্রাম্প ও কোরীয় উপদ্বীপে মার্কিন নীতি”

  1. মাহবুবুল মান্নান

    মার্কিন এক শিক্ষক লেখক তাঁর এক বিশ্লেষণধর্মী নিবন্ধে লিখেছেন, ইউরোপ দুই-দুইটি মহাযুদ্ধে বিধ্বস্ত হওয়ার ফলে আমেরিকা বিনা চেষ্টায় মাঝখান থেকে সুপারপাওয়ার হয়েছে। পরাজিত হিটলারের সমরাস্ত্র নির্মাতাদের ধরে এনে তাদের সাহায্যে আমেরিকা অর্থশক্তিতে তার ওয়ার ইন্ডাস্ট্রি গড়ে তুলে সুপারপাওয়ার হয়েছে। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত আমেরিকা কোন যুদ্ধে জেতেনি।জাপানের সঙ্গে যুদ্ধে নাগাসাকি ও হিরোসিমা শহরে এটম বোমা ফেলে লক্ষ লক্ষ নিরীহ নর-নারী হত্যা করে। এ সময় জাপানের হাতে অনুরূপ মারণাস্ত্র থাকলে আমেরিকা এই বীরত্ব প্রকাশের সাহস দেখাতো না। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের পর আমেরিকা প্রথম যুদ্ধে লিপ্ত হয় কোরিয়ায়। আমেরিকা ও তার অনুগত দেশগুলোর হাজার হাজার সৈন্য চীন ও উত্তর কোরিয়ার লালফৌজের হাতে বন্দী হয়েছিল। কোরিয়ার যুদ্ধে এতো বিরাট সংখ্যক মার্কিন সৈন্য বন্দী হচ্ছিলো এবং মারা যাচ্ছিলো যে, আমেরিকার ঘরে ঘরে কান্নার রোল উঠেছিল এবং যুদ্ধ বন্ধ করার পক্ষে জনমত তীব্র হয়ে উঠেছিল। সম্মান বাঁচানোর জন্যে আমেরিকা ভারতের তখনকার প্রধানমন্ত্রী জওয়াহেরলাল নেহরুর শরণাপন্ন হয় এবং নেহরুর অনুরোধে চীন একটি শান্তি চুক্তি সম্পাদনের জন্য পানমুনজন নামক শহরে বৈঠকে বসতে রাজি হয়। বৈঠকে নেহরুর দূত রাজেশ্বর দায়ালের মধ্যস্থতায় চীন মার্কিন যুদ্ধবন্দীদের মুক্তি দিতে সম্মত হয় এবং সুপার পাওয়ার আমেরিকা নাক কাটা থেকে বেঁচে যায়।
    কোরিয়ার যুদ্ধে লজ্জাকর পরাজয় আমেরিকার চৈতন্যোদয় ঘটায়নি। তার হাতে তখন একতরফা এটম বোমা (রাশিয়া তখনো এই বোমা বানাতে পারেনি) এবং বিশ্বে সুপারপাওয়ার-স্টেটাস। কিছুদিনের মধ্যেই তার ভিয়েতনামে যুদ্ধ করার সাধ হলো। ভিয়েতনাম যুদ্ধেও আমেরিকা জয়ী হয়নি।
    ভিয়েতনাম যুদ্ধের শোচনীয় পরাজয় আমেরিকাকে কিছুকাল বিশ্বের দুর্বল দেশগুলোতে সামরিক হস্তক্ষেপ থেকে বিরত রেখেছিল।
    তারপরই আমেরিকার আবার বড় ধরনের যুদ্ধে জড়িত হওয়ার সাধ জাগে মধ্যপ্রাচ্যে। সাদ্দাম হোসেনকে উচ্ছেদ করার লক্ষ্যে মিথ্যা অজুহাতে যুদ্ধ। বারো বছর অর্থনৈতিক অবরোধ এবং জাতিসংঘ দ্বারা অস্ত্র তল্লাশি চালিয়েও সাদ্দাম হোসেনকে কাবু করতে না পেরে আমেরিকা দু’-দুটি গালফ যুদ্ধে লিপ্ত হয়। এই যুদ্ধে ইউরোপ এবং মধ্যপ্রাচ্যের মিত্র দেশগুলোকে সঙ্গে নিয়ে যুদ্ধ করেও আমেরিকা জয়ী হতে পারেনি। সাদ্দাম হোসেনকে হত্যা করা সম্ভব হয়েছে; কিন্তু যুদ্ধে আমেরিকার জয় হয়নি।

    Reply
  2. মাইন উদ্দিন

    উত্তরে উত্তর কোরিয়া থেকে শুরু করে দক্ষিণে মিয়ানমার।পৃথিবীর বুকে চীন যে বিশাল একটা কিছু এটা প্রমাণ করতে একটা বড়সড় যুদ্ধ বাধানো তাদের একান্ত প্রয়োজন।আর এক্ষেত্রে তার আশেপাশের দেশগুলো হতে পারে উপযুক্ত কোন রণক্ষেত্র।অথচ ১৯৭১ সালের আগ পর্যন্ত সারা পৃথিবী থেকে বিচ্ছিন্ন থাকা এই চীন আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সময় ভূরাজনৈতিক অবস্থানকে পুজি করে শুধু জাতিসংঘের সদস্যপদ নয় বাগিয়ে নেয় এর স্থায়ী পরিষদের সদস্যপদ।বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে এক ফোটা ঘাম না ঝরিয়ে সবচেয়ে লাভবান দেশ এই চীন।আর এক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় ভূমিকা পালন করে আমেরিকা।আজ এই চীনই প্রাচ্য আর প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে আমেরিকা ও তার মিত্রদের জন্য বড় হুমকি।ইউরোপ থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর রাশিয়াও আস্তে আস্তে চীনঘেষা হয়ে যাচ্ছে।অন্তত পূর্ব এশিয়া ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে রাশিয়ার নিজস্ব কোন স্বার্থ নেই,চীনের স্বার্থই তার স্বার্থ।এই অঞ্চলে ক্ষমতার ভারসাম্য রক্ষায় যা খুব বড় একটা হুমকি।এমতাবস্থায় রোহিঙ্গা ইস্যু আমেরিকার জন্য বড় একটি এসিড টেস্ট।এই ইস্যুতে আমেরিকা যদি ইন্ডিয়াকে তার পাশে না টানতে পারে তবে সেটা হবে তার জন্য বড় একটি কূটনৈতিক পরাজয় যা ধীরে ধীরে এশিয়ার বুকে মার্কিন প্রভাব কমিয়ে দিয়ে চীনের প্রভাব বৃদ্ধি করবে!

    Reply
  3. নোমান

    এতদিন আমেরিকা বিশ্বের নিরীহ জনগণকে নিয়ে খেলাধূলা করেছে। এখন সেই খেলায় ভাগ বসিয়েছে চায়না। চীনের মদদেই উত্তর কোরিয়া আজকে শক্তিশালী হাইড্রোজেন বোমার বিস্ফোরন ঘটিয়েছে যা জাপানের নাগাসাকিতে নিক্ষেপ করা বোমের চেয়ে ৫গুন বেশী শক্তিশালী। এই বিস্ফোরনে আশে-পাশের দেশসমূহে মৃদু ভুমিকম্প হয়েছে। উত্তর কোরিয়ার ৯০% বিজনিস হচ্ছে চায়নার সাথে। মজার ব্যাপার হচ্ছে চায়না এই বিস্ফোরনের জন্য নিন্দা জানিয়েছে!!!! নিরীহ জনগনকে এরা এত বোকা ভাবে!
    .
    রোহিংগা গণহত্যায় নিন্দা প্রস্তাবে চায়না ভেটো দিয়েছে। চায়না শক্তি বাড়ানোর অংশ হিসেবে বার্মা এবং পাকিস্থানকে বেছে নিয়েছে। রোহিংগা বাংলাদেশের জন্য বড় সমস্যা হয়ে দাঁড়াতে পারে। আমাদের দেশ একা এই সমস্যা সমাধান করতে পারবে না। কিন্তু জিওগ্রাফিক কারনে বাংলাদেশ এটির অংশ হয়ে গেছে। এজন্য অন্যান্য দেশের সাথে কলাবোরেশন করতে হবে, সাথে নিতে হবে। রোহিংগা ইস্যুকে ধামাচাপা দিতে বার্মা বাংলাদেশের সাথে যুদ্ধ বাধানোর চেষ্টা করবে। এভাবে তারা রোহিংগাদেরকে নিজ দেশে ফেরত যেতে বাধা দিবে। তাই যুদ্ধ নামক খেলার ফাঁদে পা দেয়া বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত বোকামী হবে।
    .
    বিশ্বের যত যুদ্ধ-বিগ্রহ মানুষরূপী শয়তানরা এসি রুমে বসে প্ল্যান করে। অনেক ক্যালকুলেশন করেই বোম মারে, মানুষ হত্যা করে। সবচেয়ে কষ্টকর বিষয় হচ্ছে নিরীহ নির্যাতিত মানুষরা জানেই না তাদের দোষ কি।

    Reply
  4. নুরুজ্জামান

    অদূর ভবিষ্যতে ইন্ডিয়াকে পলিটিকালি সাইজ করার জন্য ইন্ডিয়ার পেটের ভেতর অবস্থিত বাংলাদেশ কে চীনের সেভাবে পাশে পাওয়ার সম্ভাবনা দিন দিন কমে যাচ্ছে তাহলে তার মেইন ভরসা অবশ্যই মায়ানমার। পশ্চিমে পাকিস্তান চীনের পকেটে। দক্ষিণ পূর্বে মায়ানমার এটমিক পাওয়ার এর মালিক মানে ইন্ডিয়ার তিন দিকে চীনা এবং তার ভাই ব্রাদার এর বেষ্টনী। ইন্ডিয়া যাবা কই? আচ্ছা ইন্ডিয়া জাহান্নামে যাক এইসবের কারণে সোনার বাংলার কি আসে যায়? ওকে। মায়ানমার এটমিক বোম্ব বানায়া অবশ্যই সরাসরি ওয়ার্ল্ড এর আপকামিং সুপার পাওয়ার ইন্ডিয়ার সাথে হম্বিতম্বি তে যাবে না। হম্বিতম্বি শুরুটা করবে ইন্ডিয়ার পেটের ভেতর থাকা বাংলাদেশের সাথে। যেটার সুস্পষ্ট ইংগিত সাম্প্রতিকতম সময়ের আকাশসীমা লংঘন। রোহিঙ্গা একটা ইস্যু মাত্র। যেটা মায়ানমার এর পুরোনো ইস্যু হলেও জিও পলিটিক্সে নতুন একটা ইস্যু। যেটাকে কাজে লাগিয়ে মায়ানমার চাইছে বাংলাদেশের সাথে মুখোমুখি একটা অবস্থানে যেতে।
    .
    ওদিকে মায়ানমার যদি পারমাণবিক অস্ত্র বানিয়েই ফেলে তবে মহান বন্ধু প্রতীম (!) রাষ্ট্র ইন্ডিয়া আমাদের সুরক্ষা দেয়ার নাম করে সমুদ্র বিষয়ক চুক্তি টা করেই ফেলবে। খেয়াল করলে দেখা যায় ইন্ডিয়ার সাথে গুরুত্বপূর্ণ এই একটা চুক্তিই বাকী আছে আর বাকী সব যেগুলা তাদের জন্য লাভজনক সেগুলা আমাদের সাথে করা হয়ে গেছে বলা যায়। ইভেন সামরিক চুক্তিও!
    একদিকে ভারত মাতার তাবেদারী আর অন্যদিকে অনলাইনে ভারত কে গালি দিয়ে দেশ উদ্ধার করতে করতে মায়ানমার যে আমাদের বুদ্ধিজীবী(!) দের মাথা থেকেই আউট হয়ে গিয়েছে সে খেয়াল কারোরই ছিল না। মায়ানমার এর মত কসাই রাষ্ট্রের সাথে ডোমিনেট করতে জিততে হলে চাই শক্তি এবং মেধা। শক্তি তে মায়ানমার এর সাথে টিকতে পারা তো দুরের কথা মেধার চর্চাটাই কি আছে আমাদের?
    .
    বি দ্রঃ উত্তর কোরিয়া কে সবাই আমেরিকার মাথা ব্যথার কারণ হিসেবে জানি সবাই অথচ সেই উত্তর কোরিয়াই এখন মায়ানমার কে পারমাণবিক অস্ত্র বানাতে সাহায্য করছে কিন্তু আমেরিকা চুপ হয়ে শুধু খেলা দেখে যাচ্ছে!! এটাই জিও পলিটিক্স এর ইন্টারেস্টিং দিক। কিন্তু এর কোপ টা যখন নিজের ঘাড়ে এসে পরে তখন বোঝা যায় এর ফ্যাটালিটি কতটা ভয়ংকর!!! জানিনা বেচে থাকলে আগামী ১০-১৫ বছরে কিসের সাক্ষী হতে যাচ্ছি!!!

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—