১৫ আগস্ট ২০১৭। রাত ১২:০১ থেকে বিভিন্ন বাংলা টিভি চ্যানেলে ঘোরাঘুরি করতে থাকি। তখন বিটিভিতে চলছিল একটি আলোচনা অনুষ্ঠান, অজয় দাসগুপ্তর সঞ্চালনায়। দেশ টিভি, জিটিভি, একাত্তর টিভি, বাংলা ভিশন, নিউজ টোয়েন্টিফোর, চ্যানেল টোয়েন্টিফোর, চ্যানেল আই, এটিএনবাংলা, একুশে টিভি, এনটিভি ও আরটিভিতে দেখলাম আলোচনা অনুষ্ঠান। এছাড়া খবর চলছিল ইনডিপেনডেন্ট টিভি, ডিবিসি, এটিএন নিউজ, মাছরাঙা টিভি ও সময় টিভিতে। অন্যান্য অনুষ্ঠানগুলোর মধ্যে– বিজয় টিভিতে প্রামাণ্য অনুষ্ঠান ও বাংলা বাণিজ্যিক ছবি, দীপ্ত টিভিতে কৃষি অনুষ্ঠান, মোহনায় বাণিজ্যিক ছবি, এসএটিভিতে লেট এডিশন নামে আলোচনা অনুষ্ঠান ও ডেইলি সোপ, মাই টিভিতে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ, বৈশাখী টিভিতে বাণিজ্যিক ছবি, যমুনা টিভিতে বিজ্ঞাপন, এশিয়ান টিভিতে ফকির আলমগীরের গান, চ্যানেল নাইনে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ, বাংলা টিভিতে ছায়াছবি, গান বাংলায় পপ গানের অনুষ্ঠান চলছিল।

সে সময় একটি মনছোঁয়া অনুষ্ঠান দেখার অপেক্ষায় ছিলাম। যা অবশ্য পরবর্তীতে পেয়েছিলাম মাত্র দুতিনটি চ্যানেলে। আমরা (চ্যানেল পরিচালকেরা) হয়তো অনেকেই ভাবছি পনেরই আগস্ট একটি রাজনৈতিক ভাব নির্ধারণ করা শোকের দিন, কিছু আনুষ্ঠানিকতা করলেই হয়। আসলেই কি তাই?

ফিরে যেতে চাই ২০০৬-২০০৭এর সময়ে। আওয়ামী লীগ তখন ক্ষমতায় নেই। অথচ ১৫ আগস্ট রাত একটার পর টিভি চ্যানেলগুলোতে প্রচারিত হয়েছিল হৃদয়স্পর্শী সব অনুষ্ঠান। আমি তখন একটি চ্যানেলের অনুষ্ঠান প্রধান। সেখানে ৪০ মিনিটের একটি অনুষ্ঠান প্রচারের খেসারত আমাকে দিতে হয়েছিল। টিভি চ্যানেলটি আমি মুক্তিযাদ্ধাদের প্লার্টফর্ম করছি এই অপরাধে সেখান থেকে চলে আসতে হয়েছিল। আমার পদে এসেছিলেন একজন অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল। জানি না সেইসব কর্মকর্তারা এখন কোথায় আছেন।

আমি বিশ্বাস করি, মিডিয়া সবসময় নিরপেক্ষ থাকবে। একই সঙ্গে বিশ্বাস করি, মিডিয়া সব সময় দেশ, স্বাধীনতা ও বিজয়ের কথা বলবে– মুক্তিযাদ্ধাদের তুলে ধরবে– আমাদের শিল্প-সাহিত্য-ঐতিহ্যের আলোচনা করবে। আর এসব কথা বলার জন্য থাকতে হবে সৃজনশীল মন, প্রচুর পড়াশুনা আর কাজ করার যোগ্যতা। সবার সে যোগ্যতা থাকে না।

আমরা এখন সব কিছুতে বিনোদন খুঁজি। বাস্তবে সব অনুষ্ঠানই বিনোদনমূলক হতে পারে, তবে তাতে থাকা দরকার নতুন ভাবনা, নতুন বিষয় ও সুষ্ঠু পরিকল্পনা। কারও টকশো ভালো লাগতে পারে, কারও নাটক। কারও-বা গানের অথবা প্রামাণ্য অনুষ্ঠান। এখনকার টিভি চ্যানেলগুলোতে কোনো পরিকল্পনা বিভাগ নেই, অথবা প্রতি প্রান্তিকে নতুন নতুন অনুষ্ঠানের পরকল্পনা প্রযোজকরা করেন বলেও জানা নেই। দীর্ঘদিন ধরে একই অনুষ্ঠান চলছে গৎবাঁধা নিয়মে। এভাবেই যদি চলতে থাকে তবে আমরা (দর্শকেরা) কেন আকৃষ্ট হব বাংলাদেশের টিভি চ্যানেলগুলোর প্রতি?

সেদিন মাননীয় অর্থমন্ত্রী আবদুল মাল মুহিত অত্যন্ত ক্ষোভের সঙ্গে সাংবাদিকদের বলেছেন, “আপনারা বলেন, পৃথিবীর আর কোন দেশে এতগুলি টিভি চ্যানেল আছে? বলেন আমাকে। অল আর রাবিশ।”

মাননীয় অর্থমন্ত্রীর কথার কিছুটা প্রতিবাদ সেখানকার উপস্থিত সাংবাদিকরা করেছিলেন বলে শুনেছি। তিনি দীর্ঘসময় বিদেশে ছিলেন, তারপরও তিনি একথা কীভাবে বললেন বুঝতে পারিনি। বাংলাদেশে এখন ৪০টি চ্যানেল যে প্রফেশনালি চলছে না তার দায় কিন্তু চ্যানেল মালিকদের, প্রফেশনালদের নয়। কিছুটা দায় সরকারের বিভিন্ন সংস্থারও বটে।

আশেপাশের দু-চারটি দেশের দিকে তাকালে বুঝতে পারব আমাদের দেশে এখনও চ্যানেলের সংখ্যা খুব বেশি নয়। যেমন, ভারতে আছে প্রায় ১১০০ টিভি চ্যানেল, চীনে ৪০০০। বিপুল জনসংখ্যার এ দুটি দেশের কথা বাদ দিয়ে অন্য এশীয় দেশগুলোর হিসাব দেখি। নেপালর টিভি চ্যানেলের সংখ্যা ৪১ট, শ্রীলংকার ৪৫টি, পাকিস্তানের ১২৫টি এবং থাইল্যান্ডের ১২৮টি। ইউরোপ-আমেরিকার দিকে তাকালে আরও বিস্মিত হতে হবে। অথচ আমরা ৪০টি চ্যানেল চালাতেই ব্যর্থ হচ্ছি!

কেন হচ্ছি, সেটা একজন সাধারণ মানুষও বুঝতে পারবেন।

খ ম হারূনটেলিভিশন ব্যক্তিত্ব

Responses -- “আমাদের টিভি অনুষ্ঠান: যে ভাবনার শেষ নেই”

    • সরকার জাবেদ ইকবাল

      ৪০ নাকি ২৬ সেটি বড় কথা নয়; আসল কথা হলো আমাদের এতগুলো চ্যানেলের প্রয়োজন আছে কিনা। শিশু মনোবিজ্ঞানে একটি কথা আছে, – Too many toys spoil a child. শিশুকে একসঙ্গে অনেকগুলো খেলনা দেয়া হলে সে বিভ্রান্ত হয়ে যায় এবং কোন খেলনাই হাতে নেয় না। কিন্তু একটি খেলনা দেয়া হলে ওটা নিয়েই সে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। আমি বিভ্রান্ত, তাই বাংলাদেশী কোন চ্যানেলই দেখা হয় না বললেই চলে।

      Reply
  1. সরকার জাবেদ ইকবাল

    চ্যানেলের সংখ্যা দিয়ে টিভি-অনুষ্ঠানের কার্যকারিতা বা উচ্চমান দাবী করা যায় বলে আমার মনে হয় না। অনুষ্ঠান ভাল হলে ৪/৫টি চ্যানেলই যথেষ্ট। যখন শুধুমাত্র বিটিভি ছিল তখন সাপ্তাহিক নাটক দেখার জন্য অধীর আগ্রহে বসে থাকতাম। আর এখন চ্যানেলের সংখ্যা বেশি হয়ে যাওয়ায় কোন নাটকই দেখি না। শুধু খবর শোনার জন্য এটিএন নিউজ এবং চ্যানেল টোয়েন্টিফোর দেখি। তাছাড়া বিজ্ঞাপনের অত্যাচারের কারণে বাংলাদেশি কোন চ্যানেলই আমি দেখি না। জাতীয়তাবোধ দেখাতে গিয়ে বসে বসে বিজ্ঞাপন গিলবো এমন অধম আমি নই। কিছু ভুল বললাাম?

    Reply
  2. সৈয়দ আলি

    ‘বাংলাদেশে এখন ৪০টি চ্যানেল যে প্রফেশনালি চলছে না তার দায় কিন্তু চ্যানেল মালিকদের, প্রফেশনালদের নয়। কিছুটা দায় সরকারের বিভিন্ন সংস্থারও বটে।’ – সত্যকথন।

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—