Feature Img

shafik-rehman2111111111121111আমেরিকার প্রভাবশালী ম্যাগাজিন টাইম, ১৯২৭ থেকে প্রতি বছরের শেষে কোনো ব্যক্তি (পুরুষ, নারী অথবা একাধিক পুরুষ-নারী) এবং কোনো আইডিয়া বা চিন্তাধারাকে Man of the Year (ম্যান অফ দি ইয়ার) রূপে নির্বাচিত করে আসছে। পরবর্তী সময়ে টাইম, ম্যান শব্দটির বদলে Person of the year (পার্সন অফ দি ইয়ার) নির্বাচিত করে আসছে।
টাইম সম্পাদকম-লীর মতে যে ব্যক্তি অথবা যে চিন্তাধারা বিদায়ী বছরের ঘটনাবলীকে সবচেয়ে বেশি ভালো অথবা মন্দভাবে প্রভাবিত করেছেন তাকেই তারা ম্যান অথবা পার্সন অফ দি ইয়ার নির্বাচিত করেন। টাইম বলেছে, এই নির্বাচনের মূল ভিত্তি হলো বিদায়ী বছরের সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাবলী।
টাইম ম্যাগাজিনে পার্সন অফ দি ইয়ার কে নির্বাচিত তা নিয়ে নভেম্বর থেকে বিশ্ব জুড়ে চলতে থাকে প্রচুর জল্পনা কল্পনা। ১৯২৭ থেকে তাদের নির্বাচিত ম্যান অথবা পার্সন অফ দি ইয়ারের লিস্ট পড়লে অনেক ইন্টারেস্টিং ফ্যাক্টস জানা যায়। যেমন :
আমেরিকান পাইলট চার্লস লিন্ডবার্গ ১৯২৭-তে এই সম্মানটির প্রথম প্রাপক ছিলেন। এখন পর্যন্ত তিনিই এই সম্মানের সর্বকনিষ্ঠ প্রাপক। ম্যান অফ দি ইয়ার নির্বাচিত হবার সময়ে তার বয়স ছিল পচিশ।

ইংল্যান্ডের রাজা অষ্টম এডওয়ার্ড যে তালাকপ্রাপ্তা নারী মিসেস ওয়ারফিল্ড সিমসনকে বিয়ে করার জন্য সিংহাসন ছেড়ে দেন তিনি ছিলেন ১৯৩৬-এ এই সম্মানের প্রথম নারী প্রাপক।

১৯২৮-এ নাৎসি জার্মানির নেতা এডলফ হিটলার এই সম্মান পেয়েছিলেন। তখন টাইম এ জন্য সমালোচিত হয়। সমালোচকরা প্রশ্ন করেছিল কেন হিটলারকে সম্মানিত করা হলো? টাইমের উত্তর ছিল, বর্ণবাদী ও যুদ্ধবাজ হলেও হিটলার সেই বছরে বিশ্ব ঘটনাবলীর ওপর সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলেছিলেন। তাই তাকে নির্বাচিত করা হয়েছে।
১৯৮২-তে কমপিউটার ছিল এই সম্মানের প্রাপক। সেই প্রথম কোনো বস্তু এই সম্মানের প্রাপক হয়।

অনেকেই দুইবার এই সম্মানের প্রাপক হলেও আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ফ্র্যাংকলিন ডিলানো রুজভেল্ট একমাত্র ব্যক্তি যিনি সম্মানটি তিনবার পেয়েছিলেন (১৯৩২, ১৯৩৪ ও ১৯৪১)।

কয়েকটি বছরে একাধিক ব্যক্তি এই সম্মানের প্রাপক হন। যেমন, আমেরিকান ফাইটিং ম্যান (১৯৫০), দি হাংগেরিয়ান ফৃডম ফাইটার (১৯৫৬), ইউএস সায়েন্টিস্টস (১৯৬০), টোয়েন্টি-ফাইভ অ্যান্ড আন্ডার (১৯৬৬), দি মিডল আমেরিকানের (১৯৬৮) এবং আমেরিকান উইমেন (১৯৭৫)।

২০১১-র পার্সন অফ দি ইয়ার মনোনীত হয়েছে দি প্রটেস্টার (The Protester)। আরব বিশ্বে স্বৈরশাসকদের থেকে শুরু করে গৃসের রাজধানী এথেন্সে গৃক অর্থনৈতিক দুরবস্থার বিরুদ্ধে এবং নিউ ইয়র্কে ওয়াল স্টৃটে ব্যাংকার্সদের থেকে শুরু করে মস্কোতে প্রধানমন্ত্রী পুটিন ও তার সাজানো নির্বাচনের বিরুদ্ধে আন্দোলনকারীসহ সারা বিশ্ব জুড়ে ২০১১-তে যারা প্রতিবাদ জানিয়েছে তাদের এই সম্মান দিয়েছে টাইম
প্রসঙ্গত বলা যেতে পারে, এখন পর্যন্ত এই সম্মান কোনো বাংলাদেশি পায় নি। তবে জীবিত বাংলাদেশিদের মধ্যে খালেদা জিয়াকে নিয়ে কভার স্টোরি করেছিল টাইম ২০০৬-এ। শেখ হাসিনাকে নিয়ে কোনো কভার স্টোরি টাইম করেনি। নোবেল প্রাইজ প্রাপ্তির লক্ষ্যে শেখ হাসিনার পক্ষে যেমন লবিইং চলেছে, টাইমের কভার স্টোরি তাকে নিয়ে করার জন্য তেমন কোনো লবিইং চলছে কিনা সেটা জানা যায়নি।

বাংলাদেশে ২০১১-র জন্য এই ধরনের একটি সম্মান প্রাপক কে বা কারা হতে পারেন? কীভাবে আপনি ২০১১-কে চিহ্নিত করবেন?
২০১১ ছিল কিসের বছর?
আওয়ামী সরকার কর্তৃক অর্থনৈতিক মিসম্যানেজমেন্টের বছর?
আওয়ামী সরকার কর্তৃক দলীয় স্বার্থ সিদ্ধিতে বিচার বিভাগকে ব্যবহারের বছর?
বিরোধী দলগুলোর রোড মার্চসহ বিভিন্ন প্রতিবাদের বছর?
অথবা
বাংলাদেশে ইনডিয়ান আধিপত্য মজবুত করার বছর?

ইনডিয়ান আধিপত্য মজবুত করার বছর
জানি না টাইম সম্পাদকম-লী কি রায় দিতেন। তবে আমার বিশ্বাস বাংলাদেশের অধিকাংশ সচেতন মানুষ রায় দেবেন ২০১১ ছিল ইনডিয়ান আধিপত্য মজবুত করার বছর।

কারণ, আওয়ামী সরকারের বিদায় ঘটলে নতুন সরকার হয়তো ভালো ইকনমিক ম্যানেজমেন্ট দিতে পারবে। আওয়ামী সরকারের বিদায় ঘটলে নতুন সরকার হয়তো বিচার বিভাগকে সৎ ও সুস্থ করতে পারবে ও সেই উদ্দেশ্যে সংবিধান সংশোধন করতে পারবে।

কিন্তু ২০১১-তে বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত ইনডিয়ার ট্রানজিট সুবিধা এবং ইনডিয়াতে ঘোষিত টিপাইমুখ বাধ প্রকল্পের নেতিবাচক প্রভাব থেকে সহজে বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম মুক্ত হতে পারবে না।

আওয়ামী লীগের নেতারা বলছেন দেশ বিক্রি হয় নি, দেশ বিক্রি করা যায় না। তারা ঠিকই বলছেন, আসলে, দেশ বিনা মূল্যে দেয়া হয়েছে এবং এভাবে দেশ যে দেয়া যায় তার প্রমাণ বহন করছে ২০১১-তে ঘটে যাওয়া নিচের ঘটনাগুলো।

ট্রানজিট নিয়ে মিথ্যাচার
এক. আশুগঞ্জ পর্যন্ত জলপথে ইনডিয়ান মালামাল আগেই আসছিল। জানুয়ারি ২০১০-এ নতুন দিল্লিতে শেখ হাসিনা যে ৫০ দফা চুক্তি করে এসেছিলেন তার ভিত্তিতে ২০১১-তে শুরু হয় আশুগঞ্জ থেকে আখাউড়া পর্যন্ত স্থলপথে ইনডিয়াকে ট্রানজিট সুবিধা দান। সেপ্টেম্বর ২০১১-র প্রথম সপ্তাহে ইনডিয়ান প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিংয়ের ঢাকা সফর পর্যন্ত আওয়ামী মন্ত্রী ও নেতারা উচু স্বরে দাবি করে আসছিলেন বাংলাদেশ কোনো ট্রানজিট ফ্যাসিলিটি ইনডিয়াকে দেয়নি। তারা এটাও বলছিলেন তিস্তার পানি পেলে তার বিনিময়ে ট্রানজিট দেয়া হবে। এই প্রস্তাবের প্রচারকবৃন্দ মিথ্যাবাদী প্রমাণিত হয়েছেন। বস্তুত মনমোহন সিং আসার আগেই স্থল ট্রানজিট ফ্যাসিলিটি দেয়া হয়ে গিয়েছিল। আমি নিজে সেপ্টেম্বর মাসে আশুগঞ্জ-আখাউড়া গিয়ে এই ভয়াবহ সত্যটা উপলব্ধি করি এবং দৈনিক নয়া দিগন্তে এ বিষয়ে একটি সুদীর্ঘ রিপোর্ট করি নেড়িকুকুরের মাধ্যমে। থ্যাংক ইউ নেড়িকুকুর।

আমি ছবিসহ পাঠকদের জানাতে পারি আশুগঞ্জ থেকে আখাউড়া স্থলপথে অন্তত:পক্ষে ষোলটি কালভার্টের পাশে বালি ও সিমেন্টের বস্তা ফেলে পানি প্রবাহ বন্ধ করা হয়েছে এবং সেখান দিয়ে ১৩০ চাকা বিশিষ্ট ইনডিয়ান আর্টিকুলেটেড ট্রাক অতিকায় সাইজের কার্গো নিয়ে গিয়েছে ত্রিপুরায় নির্মিতব্য পালাটানা বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য। ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও আখাউড়াতে তিতাস নদীর দু’টি অংশে একইভাবে ট্রাক চলাচল করলেও এক পর্যায়ে তিতাস প্রতিরোধ করে। ইনডিয়ান ট্রাকের সম্মুখ অংশ তিতাসে ডুবে যাওয়ার উপক্রম হয়। তখন ইনডিয়ানরা প্রায় ৬০-টি অতিকায় কার্গো বাংলাদেশে রেখে দিতে বাধ্য হয়। ট্রানজিট সাময়িকভাবে বন্ধ হয়। এই কার্গো ইনডিয়াকে অবশ্যই নিতে হবে ত্রিপুরাতে। নইলে ওই বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ সম্ভব হবে না। ধারণা করা হচ্ছে এই শীতে যখন তিতাস ক্ষীণস্রোতা হয়ে যাবে তখন এসব কার্গো নিয়ে যাওয়া হবে।

কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, এই ট্রানজিট সুবিধা দেয়ার ফলে এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ কী পেয়েছে? উত্তর, কিছুই না। নট এ সিংগল ডলার।
সিপিডি-র ইকনমিস্ট রেহমান সোবহান বলেছিলেন, ট্রানজিট দিলে বাংলাদেশ সিংগাপুর হয়ে যাবে (২১.০১.২০০৯)। তার কথা মিথ্যা প্রমাণিত হচ্ছে।
কিন্তু রেহমান সোবহান লজ্জিত নন। অনুতপ্ত নন।

বরং আজ (৩০.১২.২০১১) সকালে সিপিডি, প্রথম আলো, দি ডেইলি স্টার আইন সালিশ কেন্দ্র আয়োজিত বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৪০তম বার্ষিকী উপলক্ষে রেহমান সোবহান ইংরেজিতে যে দীর্ঘ (প্রায় ৭,০০০ শব্দ বিশিষ্ট) কি-নোট ভাষণ দিয়েছেন তাতে তিনি নিজেকে অতি অল্প কথা ও অস্পষ্টতার আড়ালে রেখেছেন। তিনি মাত্র ১২০টি শব্দে ইনডিয়া-বাংলাদেশ বিষয়ে তার বক্তব্য রেখেছেন :
India is not only one of our major trading partners but is also an upper riparian to Bangladesh as the source of 58 of our principal rivers. Given Bangladesh’s Indian-centric geography, our increasing economic links and the extraordinary economic opportunities becoming available to Bangladesh now that India has, after all these years, finally provided us with duty free access for our exports, we need to develop a strategic vision for defining our relations with India. This relationship is too important to be kept hostage to the shifting sands of our party politics. Designing such a strategy demands a process of public consultation and would eventually need to be backed by all political parties so that India-Bangladesh relations are addressed as a national rather than a party issue.
(ইনডিয়া শুধু যে আমাদের প্রধান ট্রেডিং পার্টনারদের অন্যতম, তা নয়। বাংলাদেশে প্রবাহিত ৫৮ নদীর পানির উৎস মুখেও তাদের অবস্থান। বাংলাদেশের ভূগোল ইনডিয়া কেন্দ্রিক। ইনডিয়ার সঙ্গে আমাদের অর্থনৈতিক সংযোগ বাড়ছে। এখন আরো সুযোগ বাংলাদেশের বাড়ছে। কারণ, এত বছর পরে ইনডিয়া আমাদের রফতানিকে বিনা শুল্কের সুবিধা দিয়েছে। তাই আমাদের প্রয়োজন, ইনডিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক সংজ্ঞায়িত করার জন্য একটি স্ট্র্যাটেজিক ভিশন বা সুদূরপ্রসারী কৌশলী পরিকল্পনা। পরিবর্তনশীল দলীয় রাজনীতিতে এই দুই দেশের সম্পর্ক সীমাবদ্ধ করলে চলবে না। এই দুই দেশের পারস্পরিক সম্পর্ক ডিজাইন করতে হলে পাবলিকের সঙ্গে আলোচনা করতে হবে এবং পরিশেষে সকল রাজনৈতিক দলের সমর্থন পেতে হবে। ইনডিয়া-বাংলাদেশ সম্পর্ককে দলীয় ইসুর ভিত্তিতে নয়, একটি রাজনৈতিক ইসু রূপে বিবেচনা করতে হবে।)

রেহমান সোবহানের অসম্পূর্ণ তথ্য
লক্ষ্য করুন, রেহমান সোবহান ফৃ ট্রানজিট ফ্যাসিলিটি, তিস্তার পানি শেয়ার, ফারাক্কায় প্রতিশ্রুত পানি, টিপাইমুখে বাধের বিপদ সম্ভাবনা, এসব কিছুই বলেননি। তিনি ইনডিয়াতে বিনা শুল্কে বাংলাদেশের রফতানি সুবিধা দেয়ার কথা বলেছেন। তবে বাংলাদেশের কোন রফতানি সেটা তিনি বলেন নি। এ বিষয়ে পড়ুন সাপ্তাহিক বুধবার (১৪.০৯.১১)-এ এমএম মুসা-র রিপোর্টের প্রথম অংশ :

সম্প্রতি ভারতের প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং ঢাকা সফরে এসে ৪৬ ধরনের পণ্যকে বিনা শুল্কে ভারতে প্রবেশাধিকারের একটি সম্মতিপত্র স্বাক্ষর করেছেন। কিন্তু ভারতের পক্ষ থেকে বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য ঘাটতি কমাতে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন পদক্ষেপের আশ্বাস দেয়া হলেও রফতানিকারক সংগঠনের তরফ থেকে অভিযোগ পাওয়া গেছে, নির্ধারিত শুল্ক ছাড়াও ইনডিয়া বাংলাদেশী পণ্য সে দেশের বাজারে প্রবেশ ঠেকাতে বিভিন্ন ধরনের অনির্ধারিত শুল্ক আরোপ করে থাকে। ইনডিয়াতে সাধারণত বেসিক ডিউটি বা নির্ধারিত শুল্ক ৯ থেকে ১৫ শতাংশ। তবে এর সঙ্গে যোগ করা হয় ৫ থেকে ৭ ভাগ সম্পূরক শুল্ক, ১৫ থেকে ২০ ভাগ কাউন্টারভেলিং ডিউটি, ৯ থেকে ১৫ ভাগ স্পেশাল কাউন্টারভেলিং ডিউটি, ১ শতাংশ এডুকেশন ডিউটি এবং ১ শতাংশ অবকাঠামো শুল্ক। সাধারণত তৈরি পোশাক, পাটজাতপণ্য, জামদানি শাড়ি, ইলিশ, সুপারি, নিটওয়্যারসহ বাংলাদেশের প্রচলিত পণ্যের ওপর এসব শুল্ক আরোপ করে ইনডিয়া।

পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ সূত্রে জানা যায়, ইনডিয়া সরকার শতভাগ কটন গার্মেন্টস পণ্যের ওপর কাউন্টারভেলিং ডিউটি বাড়িয়েছে। আগে এ শুল্ক ৮ দশমিক ৪৬ শতাংশ আদায় হতো, এখন আদায় হচ্ছে ১১ দশমিক ৮ শতাংশ। কৃত্রিম সুতায় তৈরি পোশাকের ক্ষেত্রে আগে ১১ দশমিক ৮ শতাংশ শুল্ক নেয়া হতো, এখন তা বাড়িয়ে আদায় হচ্ছে সাড়ে ১৯ শতাংশ। জানা যায়, দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে শ্রী লঙ্কা, পাকিস্তান, ভুটান, মালদ্বীপ ও নেপালের বাজারে বাংলাদেশী পণ্য প্রবেশে অশুল্ক বাধা তেমন নেই। তবে ইনডিয়াতে রফতানির বেলায় রয়েছে হাজারো বাধা। এমনকি ব্যবসায়ীরা ইনডিয়াতে ভিসা পেতেও অনেক সময় সমস্যায় পড়ছেন। অভিযোগ রয়েছে, এক দিকে বাণিজ্য ঘাটতি কমিয়ে আনার আশ্বাস, আর অন্য দিকে পণ্য প্রবেশে বাধা– এ দ্বৈতনীতিই অনুসরণ করছে ইনডিয়া।

বাংলাদেশে ভারতের পণ্য রফতানিতে বিভিন্ন সুবিধা বিদ্যমান থাকায় প্রায় সব ক্ষেত্রেই ইনডিয়ান পণ্যের আধিপত্য বিরাজ করছে। চাল, ডাল, চিনি, পেয়াজ, কৃষি বীজ, আদা, রসুন, শিল্পের কাচামাল থেকে শুরু করে সব পণ্যই আসছে ইনডিয়া থেকে। উপায়ও তেমন নেই। তবে যত সহজে এসব পণ্য আমদানি হয়ে থাকে, বাংলাদেশ থেকে তত সহজে কোনো পণ্যই রফতানির কোনো সুযোগ নেই ইনডিয়াতে। এ ক্ষেত্রে দক্ষিণ এশীয় মুক্তবাণিজ্য চুক্তি বা সাফটাও কার্যকর কোনো ভূমিকা রাখতে পারছে না।

ইনডিয়া ২০৮৬টি পণ্য রফতানি করে বাংলাদেশে
সার্ক সদস্য দেশের মধ্যে বাংলাদেশের পণ্য রফতানি এবং আমদানি তালিকার শীর্ষে রয়েছে। বাংলাদেশের রফতানি উন্নয়ন ব্যুরো সূত্রে জানা গেছে, ইনডিয়া বাংলাদেশে প্রায় ২,০৮৬টি পণ্য রফতানি করতে পারলেও বাংলাদেশ কেবল ১৬৮ ধরনের পণ্য রফতানি করতে পারে ইনডিয়াতে। সাফটার অধীনে ভারত শিল্প সংরক্ষণের অজুহাত তুলে বাংলাদেশের প্রায় ৭৫০ পণ্য সে দেশে প্রবেশ নিষিদ্ধ করে রেখেছে। পরে এ তালিকা নামিয়ে ৪৫০ করার ঘোষণা দেয় ইনডিয়া। কিন্তু যেসব পণ্য প্রবেশে ছাড় দেয়ার কথা বলা হয়েছে, সেগুলোর ৯৮ শতাংশই উৎপাদন করে না বাংলাদেশ।

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. আকবর আলি খান বলেছেন, ইনডিয়া যে ৪৬ ধরনের পণ্যকে শুল্কমুক্ত প্রবেশের সম্মতি দিয়েছে এর কার্যকারিতা নির্ভর করছে অশুল্ক বাধা দূরীকরণের ওপর। আমাদের অতীত অভিজ্ঞতা ভালো নয়। বাংলাদেশের রফতানি বাড়বে, না কমবে তার সবই নির্ভর করছে ইনডিয়ার ওপর। যত দ্রুত ইনডিয়া তার প্রদত্ত প্রতিশ্রুতি পালন করবে, ততই বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের কাজে আসবে। যে সদিচ্ছা দেখিয়েছে সেটিও গুরুত্বপূর্ণ।

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অফ ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজের (বিআইডিএস) গবেষণা পরিচালক ড. জায়েদ বখত বলেন, ইনডিয়াতে রফতানি তালিকায় পণ্য বাড়লে তা অবশ্যই আমাদের জন্য ইতিবাচক হবে। কিন্তু ইনডিয়ার আমলাতন্ত্র আমদানির ব্যাপারে খুবই রক্ষণশীল।

ইনডিয়ান ক্যাপিটালিজমের গুনগ্রাহী
ইনডিয়ার সাম্প্রতিক ডিগবাজির পর রেহমান সোবহান বাধ্য হয়েছেন ইনডিয়া-বাংলাদেশ সম্পর্ক মাত্র ১২০টি শব্দে সীমিত রাখতে। তবে তাকে অনুরোধ করবো ইনডিয়াতে রফতানিকামী অন্তত তিনটি প্রতিষ্ঠান, রহিমআফরোজ, অটবি, কেয়া ও শরিফ মেলামাইনের সঙ্গে যোগাযোগ করে জেনে নিন বাস্তবতাটা কী।

রাশিয়ান সোশালিজমের সাবেক ভক্ত এবং বর্তমান ইনডিয়ান ক্যাপিটালিজমের গুণগ্রাহী রেহমান সোবহান তার ওই ভাষণে বলেছেন, ইনডিয়া এখন একটি গ্লোবাল ইকনমিক পাওয়ার রূপে আবির্ভূত হয়েছে। আমদানিকারকদের কাছে ইনডিয়ান বাজারের দাম এখন প্রায় ৩৫০ মিলিয়ন ডলার। ধারণা করা হচ্ছে আগামী বিশ বছরে, চায়না ও আমেরিকার পরই বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম ইকনমি হবে ইনডিয়া। অর্থনৈতিকভাবে সকল প্রধান শক্তিশালী দেশগুলো ইনডিয়ার পেছনে ছুটছে। আগামী ৫০ বছরের মধ্যে গ্লোবাল ইকনমিতে ইনডিয়া হবে একটি প্রধান খেলোয়াড়। তাই পূর্ব এশিয়ান প্রতিবেশীরা ইনডিয়ার মেজর পার্টনার হতে ইচ্ছুক।

তার এসব উক্তি সঠিক। কিন্তু এটাও সঠিক যে, ইনডিয়া মানে এখানে বুঝতে হবে ইনডিয়ার সুপ্রতিষ্ঠিত শিল্পপতি ও ব্যবসায়ীরা। তাদের বিশাল ক্যাপিটাল হবে বাংলাদেশের ক্যাপিটালিজমের সবচেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা। বাংলাদেশ নামে এই ভূখণ্ডে ১৯৪৭-এ স্থানীয় অধিবাসীদের মালিকানাধীন মাত্র দশ বারোটি ইনডাস্টৃয়াল ইউনিট ছিল (হরদেও গ্লাস ওয়ার্কস, কেরু ডিস্টিলারি, সাধনা ঔষধালয়, শক্তি ঔষধালয়, ঢাকেশ্বরী কটন মিলস, মোহিনী কটন মিলস, লক্ষ্মীনারায়ণ কটন মিলস ইত্যাদি। বাংলাদেশের প্রধান কৃষিজ সম্পদ পাট হওয়া সত্ত্বেও একটিও জুট মিল এই ভূখণ্ডে ছিল না। বাংলাদেশে (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে) প্রথম জুট মিল হয় ১৯৪৮-এ, নাম দৌলতপুর জুট মিলস।

এখন বাংলাদেশে যে গার্মেন্ট ও তার ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ শিল্প, অ্যাগ্রোফুড শিল্প, সিরামিকস-টাইলস শিল্প, শিপ ব্রেকিং শিপ বিলডিং প্রভৃতি শিল্পে অভ্যস্ত হচ্ছে তাদের ভবিষ্যৎ কি হবে? এসব শিল্প-ব্যবসার টপ ম্যানেজমেন্টে ভবিষ্যতে কোন দেশের মানুষ থাকবে? আর কোন দেশের মানুষ লোয়ার লেভেলে থাকবে? পশ্চিম বঙ্গের মার্জিনালাইজড বাঙালিদের (হিন্দু ও মুসলিম উভয়েই) দিকে তাকিয়ে দেখলেই উত্তরটা পেয়ে যাবেন।

ইনডিয়ান গার্মেন্ট শিল্পপতিরা আনুষ্ঠানিকভাবে ইতিমধ্যে তীব্র বিরোধিতা জানিয়েছেন ইনডিয়ান সরকারের কাছে। রেহমান সোবহান বলেননি পশ্চিম বঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি তিস্তার পানি বণ্টন নিয়ে যে বিশেষজ্ঞ নিয়োগ করেছেন তিনি বলেছেন শুধু বর্ষার মওসুমে তিস্তার পানি বাংলাদেশকে দেয়া যেতে পারে।

রেহমান সোবহান ও তার পৃষ্ঠপোষক সিপিডি-প্রথম আলো- স্টার- আইন সালিশ কেন্দ্র, এই চক্র যা-ই বলুন না কেন, বাংলাদেশের স্থায়ী সমস্যা হচ্ছে- আশুগঞ্জ-আখাউড়াতে পরিবেশ পরিবর্তিত ও বিপন্ন করা হয়েছে এবং ইনডিয়া যে চট্টগ্রাম ও মংলা বন্দরসহ আরো ট্রানজিট ফ্যাসিলিটি চেয়েছে সেই দিকে শেখ হাসিনার কৃতজ্ঞ সরকার এগিয়ে যাচ্ছে।

বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম কি পারবে এই নাগপাশ থেকে দেশকে মুক্ত করতে?
যে অশুভ চক্রটি দিনের পর দিন মিথ্যা প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে তাকে সমুচিত শিক্ষা দিতে পারবে কি নতুন প্রজন্ম?

হঠাৎ প্লাবন আশংকা
এক. ইনডিয়ান সরকার একক সিদ্ধান্তে টিপাইমুখ বাধ নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছে। যেহেতু এই বাধটি উচু ভূমিতে অবস্থিত হবে সেহেতু ইনডিয়ার পূর্বাঞ্চলের কোনো আঞ্চলিক সহিংসতায় (যেটা বহু বছর ধরে চলছে) অথবা কোনো বড় ভূমিকম্প হলে সিলেটসহ বাংলাদেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল হঠাৎ প্লাবিত হয়ে যেতে পারে। ইনডিয়ান সরকারের এই সিদ্ধান্ত জানাজানির পরে আওয়ামী সরকারের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ইনডিয়া-বান্ধব দুই উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী ও ড. মশিউর রহমান ছুটে যান দিল্লিতে। তারা হয়তো চেষ্টা করেছিলেন ইনডিয়াকে নিরস্ত করতে। কিন্তু কোনো লাভ হয় নি।

দুই. বাংলাদেশ হাই কোর্টের অনুকূল রায়ে বছরের শেষ সপ্তাহে ঢাকায় ইনডিয়ান মুভি “জোর” রিলিজড হয়েছে। কিছু দৈনিক পত্রিকা রিপোর্ট করেছে ওই মুভি দেখতে বেশি দর্শক আসেনি। অনেকের ধারণা ইনডিয়ান মুভি ব্যবসায়ীরা একটা কৌশল করেছেন। তারা ইচ্ছা করেই এখানে প্রথমে একটা দুর্বল মুভি রিলিজ করেছেন। এই ধরনের মুভি সয়ে এলে পরে শোলে, দেবদাস, ডন, থৃ ইডিয়টস জাতীয় হিট মুভি বাংলাদেশে দেখানো হবে।

তিন. একই ধরনের ঘটনা ঘটছে গার্মেন্টস সেক্টরে। সেখানে অন্ততপক্ষে ৩৫টি বড় শিল্প ইনডিয়ান মালিকানায় চলছে।
চার. টেলিকম সেক্টরে ইনডিয়ান কম্পানি এয়ারটেল জোরেশোরে তাদের প্রথম বছর পূর্তি উদযাপন করেছে।
পাঁচ. স্কুলের পাঠ্যবই ছাপানো হচ্ছে ইনডিয়াতে।
ছয়. প্রতি মাসে (আট দিনে) প্রায় পৌনে তিন লাখ টাকা ক্ষতি দিয়েও বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী এক্সপ্রেস চালু রাখতে হয়েছে। ২৩৪ আসনের প্রতি টৃপে গড়ে ৬০ যাত্রী এই ট্রেনে চলাচল করছে।
সাত. সীমান্ত এলাকায় ইনডিয়ান বাহিনী বিএসএফ-এর গুলি চালনা বজায় থেকেছে। নৃশংসভাবে নিহত কিশোরী ফেলানির গুলিবিদ্ধ দেহ ঝুলে থেকেছে ইনডিয়ার দেয়া কাটাতারের দেয়ালে। আর গুলি চালানো হবে না এমন প্রতিশ্রুতি দেয়া সত্ত্বেও বছরের শেষ মাসে চারজন বাংলাদেশিকে হত্যা করেছে বিএসএফ।
আট. ইনডিয়ান গায়ক গায়িকাদের নিয়মিত আগমন এবং অস্পষ্টভাবে ডলার-রুপি নিয়ে প্রত্যাবর্তন অব্যাহত থেকেছে।
নয়. বাংলাদেশের নোবেল বিজয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের পরিবর্তে ইনডিয়ান নোবেল বিজয়ী ড. অমর্ত্য সেন পেয়েছেন রাষ্ট্রীয় এবং প্রাইভেট টিভি চ্যানেলের পৃষ্ঠপোষকতা।

সেনা বাহিনীতে ইন্টার অ্যাকশন
নয়. ইনডিয়া-বাংলাদেশের মধ্যে বড় ইন্টার অ্যাকশন হয়েছে সামরিক ক্ষেত্রে। নিচে পড়–ন কয়েকটি রিপোর্ট :

বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল মোহাম্মদ আব্দুল মুবীন, ইনডিয়াতে পাচ দিনের এক সরকারি সফর শেষে দেশে প্রত্যাবর্তন করেছেন। তিনি চিফ অফ স্টাফ কমিটির চেয়ারম্যান এডমিরাল নির্মল ভারমার আমন্ত্রণে ২৯ নভেম্বর প্রধান অতিথি হিসেবে ভারতের পুনেতে ন্যাশনাল ডিফেন্স একাডেমিতে (এনডিএ) পাসিং আউট প্যারেড পরিদর্শন ও অভিবাদন গ্রহণ করেন।

১৯৪৯ সালে প্রতিষ্ঠার পর এনডিএতে তৃতীয় বিদেশী অতিথি হিসেবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রধান এই প্যারেড পরিদর্শন করলেন। সকালে সেনাবাহিনী প্রধান আনুষ্ঠানিকভাবে সজ্জিত ঘোড়ার বাহনে চড়ে প্যারেড গ্রাউন্ডে পৌঁছলে এনডিএ-এর কমান্ড্যান্ট লেঃ জেনারেল যাতিন্দার সিং তাকে অভ্যর্থনা জানান। জেনারেল মুবীন প্রায় ১২০০ জন সুসজ্জিত ক্যাডেটের কন্টিনজেন্ট পরিদর্শন এবং বিজয়ীদের নেভাল চ্যাম্পিয়ন স্কোয়াড্রনকে চিফ অব স্টাফ ব্যানার প্রদান করেন।

এই সফরকালে সেনাবাহিনী প্রধান ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী এ কে এন্টনি, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা শিব শংকর মেনন এবং ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর প্রধানগণের সঙ্গে সাক্ষাত করেন। দিল্লিতে তিনি প্রয়াত বীরদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে ‘অমর জোয়ান জ্যোতি’তে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

ইনডিয়ান সেনাবাহিনী কর্তৃক তার সম্মানে এক চৌকস গার্ড অফ অনারও প্রদান করা হয়। এছাড়া সফরকালে তিনি আগ্রা, আওরঙ্গবাদ ও কলকাতার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সামরিক স্থাপনাও পরিদর্শন করেন। আইএসপিআর (জনকণ্ঠ ৯ ডিসেম্বর ২০১১)।

ইনডিয়ার সেনাপ্রধান জেনারেল বিজয় কুমার সিং গত বছরের জুনে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পাসিং আউট প্যারেডে সালাম গ্রহণের পর চলতি বছর একই ধরনের অনুষ্ঠানে যাচ্ছেন জেনারেল আব্দুল মুবীন।
এনডিএ কমান্ড্যান্ট লেফটেন্যান্ট জেনারেল জিতেন্দ্রর সিং সম্প্রতি পুনেতে সাংবাদিকদের বলেন, “বাংলাদেশ সেনাপ্রধানের এ সফর একাডেমির জন্য একটি ভালো ব্যাপার।”
কিছুদিন ধরে দ্বিপক্ষীয় সামরিক সম্পর্ক উন্নয়নের প্রচেষ্টা চালাচ্ছে ঢাকা ও নতুন দিল্লি।
আগামী বছর বাংলাদেশ ও ইনডিয়া যৌথ সামরিক মহড়ায়ও অংশ নিতে পারে।
বাংলাদেশে পাসিং আউট প্যারেডে ইনডিয়ান সেনাপ্রধানের সালাম গ্রহণের ঘটনাটিকে সে সময় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ‘রাজনৈতিক চাল’ হিসেবে অভিহিত করে এর নিন্দা জানিয়েছিল বিএনপি।
গত বছরের জুনে পাচ দিন ঢাকা সফর করে যাওয়া বিজয় কুমার ১৯৭১ সালে একজন নবীন অফিসার হিসেবে মিত্রবাহিনীর হয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণকারী ইনডিয়ান সেনাকর্মকর্তাদের মধ্যে কেবল তিনিই এখন চাকরিরত আছেন (বিডিনিউজ২৪ডটকম, ২৩ নভেম্বর ২০১১)।

রিটায়ার্ড লে. জেনারেল এইচ এস পানাগের নেতৃত্বে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর ২১ জন বীর যোদ্ধা বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে বাংলাদেশে এসেছেন। তাদের মধ্যে ১৯ জন এসেছেন সস্ত্রীক।
আইএসপিআর জানায়, আজ ষোলোই ডিসেম্বর বীর যোদ্ধারা সাভারে জাতীয় স্মৃতি সৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন এবং পরে জাতীয় প্যারেড স্কয়ারে আয়োজিত সম্মিলিত বাহিনীর কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে উপস্থিত হবেন। তারা বিজয় দিবস উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো: জিল্লুর রহমান কর্তৃক বঙ্গভবনে আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানেও যোগ দেবেন। এছাড়া বাংলাদেশে অবস্থানকালে ভারতীয় এই বীর যোদ্ধারা তিন বাহিনীর প্রধানদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হবেন (কালের কণ্ঠ ১৬ ডিসেম্বর ২০১১)।
দশ. ইনডিয়ান টিভি চ্যানেল বিশেষত জিটিভি-র সিরিয়াল নাটক (অগ্নিপরীক্ষা, কেয়া পাতার নৌকো, সুবর্ণলতা, রাশি, সাত পাকে বাধা) এবং এন্টারটেইনমেন্ট শো (ডান্স বাংলা ডান্স, দাদাগিরি) প্রভৃতি বাংলাদেশের দর্শকরা দেখেছে। কিন্তু ইনডিয়ান দর্শকরা বাংলাদেশের সফল ব্লকবাস্টার অনুষ্ঠান “ইত্যাদি” অথবা হানিফ সংকেত-এর লেখা দুটি ভালো নাটক, প্রিয়জন নিবাস, কর্মফলের মর্মকথা দেখার সুযোগ পায়নি। এখনো বাংলাদেশের সব অনুষ্ঠানই ইনডিয়াতে দুষ্প্রাপ্য।
এগার. ‘অচল’ ইনডিয়ান মোটর কার অ্যামবাসাডর প্রাণ পাচ্ছে বাংলাদেশে, এই শিরোনামে বার্তা ২৪.নেট পরিবেশিত (২৩.১২.২০১১) একটি খবর পড়ুন :
বাংলাদেশের গাড়ির বাজার দখলে এগিয়ে গেছে ভারতের সি কে বিড়লা হিন্দুস্তান মটরস। প্রতিষ্ঠানটি তাদের অ্যামবাসাডর গাড়ি সংযোজনে বাংলাদেশী প্রতিষ্ঠান ইন্ট্রাকো গ্রুপকে হিন্দুস্তান মটরসের সহযোগী করেছে। তারা ইতিমধ্যে সাভারে প্ল্যান্টও বসিয়েছে।

ভারতের বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড পত্রিকা “টেইক অ্যামবাসাডর ট্যাক্সি” শিরোনামে খবর ছেপেছে। বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড লিখেছে “সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ভারতে হিন্দুস্তান অ্যামবাসাডর গাড়ির বিক্রি আশঙ্কাজনক হারে কমে গেলেও সি কে বিড়লা গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান হিন্দুস্তান ব্র্যান্ডের গাড়ি নতুন জীবন পেতে যাচ্ছে। কারণ, বাংলাদেশের ট্যাক্সিক্যাব মার্কেটে ভাগ বসাতে অ্যামবাসাডর গাড়ি যাচ্ছে।”

রিপোর্টে জানানো হয়, রাজধানীর অদূরে সাভারে ইতিমধ্যে প্ল্যান্ট বসানোর কাজ শুরু হয়েছে। বলা হয়েছে, সেখানে উৎপাদনের পরিকল্পনা রয়েছে। ইন্ট্রাকো আশা করছে দুই বছরের মধ্যে এই প্ল্যান্ট থেকে সংযোজিত অ্যামবাসাডর রাজপথে নামতে পারবে। বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডকে হিন্দুস্তান মটরস’র এমডি মনোজ ঝা বলেন, “প্রাথমিকভাবে আমরা বাংলাদেশে কমপ্লিট অ্যামবাসাডর গাড়ি রফতানি করছি। “বাংলাদেশের ট্যাক্সিক্যাবের বিশাল বাজার রয়েছে। আমরা আশা করছি ওখানে আমাদের গাড়ি বিক্রি হবে।”
পত্রিকাটি লিখেছে, “ভারতে এক সময় গাড়িটি বেশ জনপ্রিয় ছিল। কিন্তু এটা এখন দেশটিতে অচল মাল হিসেবে গণ্য। অ্যামবাসাডর গাড়ির ইঞ্জিন থেকে কার্বন নিঃসরণের পরিমাণ অনেক বেশি।”

সূত্র জানায়, ইনডিয়ান গাড়ি এদেশের রিকন্ডিশন্ড গাড়ির বাজারও দখল করে নিচ্ছে। প্রশাসনের একটি অংশের সুবিধায় ইনডিয়ান এসব গাড়ি অবাধে প্রবেশ করছে দেশে। জাপান থেকে রিকন্ডিশন্ড গাড়ি আমদানি লোকসানের মুখে পড়েছে গাড়ি ব্যবসায়ীরা।

বাংলাদেশের পরিবেশবিদরা বলেছেন, পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর প্রমাণিত হওয়ার পরও সরকার ইনডিয়ান গাড়ি আমদানিতে উৎসাহ দেখাচ্ছে।
বার. চিকিৎসা খাতে সঙ্গত কারণে ইনডিয়ার অ্যাপোলো হসপিটাল রাজধানী ঢাকায় তার অগ্রণী অবস্থান বজায় রেখেছে। স্বদেশী ইউনাইটেড হসপিটাল ও স্কয়ার হসপিটাল অ্যাপোলোর পিছু ধাওয়া করেছে।

ওদের প্রশ্ন করুন
তাহলে এভাবেই ২০১১ তে বাংলাদেশে ইনডিয়ান আধিপত্য মজবুত হয়েছে।
কখনো অন্যায়ভাবে।
কখনো সঙ্গতভাবে।
ট্রানজিট, এয়ারলাইন্স ও রেলওয়ের মাধ্যমে ভৌগোলিকভাবে, ভিজিটিং আর্টিস্ট, মুভি ও মিডিয়ার মাধ্যমে সাংস্কৃতিকভাবে, হসপিটাল, কার ও টেলিকমিউনিকেশনের মাধ্যমে বাণিজ্যিকভাবে এবং ভিজিটিং সেনা সদস্যদের মাধ্যমে সামরিকভাবে, বাংলাদেশে ইনডিয়ান আধিপত্য মজবুত হয়েছে।
আর রাজনৈতিকভাবে?
এই প্রশ্নের উত্তর আপনিই পাওয়ার চেষ্টা করুন।
জিজ্ঞাসা করুন শেখ হাসিনার আওয়ামী সরকারের কোনো সদস্যকে।
প্রশ্ন করুন ইনডিয়ার কাছে তাদের দায়বদ্ধতার পরিমাণ কতো?
কবে শেষ হবে এই দায়বদ্ধতা?
এবং কিভাবে?
৩০.১২.২০১১
(বানান রীতি লেখকের নিজস্ব)

শফিক রেহমান: প্রবীণ সাংবাদিক ও জনপ্রিয় টিভি অনুষ্ঠান উপস্থাপক।

শফিক রেহমানসাংবাদিক, কলামিস্ট

১৯ Responses -- “ইনডিয়ান আধিপত্য মজবুত করার বছর”

  1. Mohammad Sahabuddin

    দারুন! অনেক ধন্যবাদ । অামাদের সকলের চোখ খুলে যাক, অন্তর খুলে যাক। দেশপ্রেম জাগ্রত হোক সবার———

    Reply
  2. altaf parvez

    আপনার বক্তব্যের সাথে দ্বিমত নেই। কিন্তু বাংলাদেশে ইনডিয়ার আধিপত্য মজবুত করার ক্ষেত্রে বাংলাদেশী জাতিয়তাবাদীরাও কি কম ভূমিকা রাখেনি। বিশেষ করে বাংলাদেশে ভারতীয় গাড়ির বাজার তৈরির ক্ষেত্রে সাইফুর রহমান সাহেবের ভূমিকা এক্ষেত্রে স্মরণযোগ্য। আমরা সেদিন কি তার বিরোধিতা করেছিলাম? বেগম খালেদা জিয়ার বিগত শাসনামলে আসাম, ত্রিপুরার অনেক স্বাধীনতা সংগ্রামীকে আটক করে কি ভারতীয় কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দেয়া হয়নি? আমরা কেউ তখনও প্রতিবাদ করিনি। টাটাকে যখন সস্তায় গ্যাস দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে নিয়ে আসা হয়েছিল তখনও আমরা প্রতিবাদ করিনি। আজকে ট্রানজিটসহ আধিপত্যবাদী কর্মকাণ্ড রুখতে বিরোধীদলের ভূমিকা কতটা প্রত্যাশামত হচ্ছে? আসলে বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি কেউই ইনডিয়াকে মোকাবেলা করতে আন্তরিক নয়। সুতরাং দেশের পক্ষে স্বাধীন অবস্থান নেয়ার জন্য আগে প্রয়োজন এই দুই দলের প্রতি মোহ ত্যাগ করা। সেটা করা গেলেই কেবল ইনডিয়াকে মোকাবেলা করার কাজে আমরা এক ধাপ এগোতে পারবো। শফিক রেহমানের দীর্ঘায়ু কামনা করছি। কর্মী হিসেবেও তার কাছে অনেক কিছু শিখেছি। কলামিস্ট হিসেবেও তিনি অতুলনীয়। কিন্তু রাজনৈতিক রণকৌশলের প্রশ্নে প্রিয় সম্পাদককে আরো গভীর ভাবনার জন্য অনুরোধ জানাই। জাতীয়তাবাদ মতবাদ হিসেবে আকর্ষণীয়। কিন্তু প্রকৃত জাতীয়তাবাদী হওয়া কঠিন।
    আলতাফ পারভেজ

    Reply
  3. মনির

    এসব বলে লাভ কী? পাছে ওই যুদ্ধাপরাধী খেতাবটা দিয়ে দেবে! আওয়ামী যা পাকা মাল। কাদের সিদ্দিকীকে ছাড়েনি।

    Reply
  4. Nure Alam Siddique

    লেখাটিতে লেখক অন্যদের অভিযুক্ত করেছেন অসম্পূর্ন তথ্য দেওয়ার জন্য। কিন্তু উনি নিজেও অসম্পূর্ণ তথ্য দিয়েছেন এবং একচোখা বিশ্লেষণ করেছেন।

    Reply
  5. Rahman

    আপনি সব সময় সমস্যার কথা বলেন। কিন্তু সমাধানের উপায় কী বলেন না। এমতাবস্থায় বাংলাদেশের কী করা উচিত বলবেন কি? শুধু ভারত বিরোধীতাই লক্ষ্য হওয়া উচিত কি? ভারতের সাথে আমাদের সম্পর্ক কেমন হওয়া উচিত তা আপনার পরের লেখায় জানাবেন। বাংলাদেশ সব সময়ে ভারতের আনুকূল্য পাবে এমন আশা করা উচিত কি? ভারত বাংলাদেশের জন্য তাদের স্বার্থ জলান্জলী দিবেনা–এটা বাস্তব সত্য। শুধু ভারতের বিরোধীতা ছাড়া কি এদেশে রাজনীতি করা যায় না? এই উপমহাদেশে দাঁড়ি আর টিকির রাজনীতির অবসান চাই।

    Reply
  6. রেজা

    ভারতের বন্ধুত্বের ভয়াবহ আলিঙ্গনে কী অবস্থা হতে পারে তা নেপালের দিকে তাকালেই বোঝা যায়। এরপর আমাদের পালা……………..

    Reply
  7. তালহা মুসআব

    এই তথ্যগুলো খুব কম মানুষই এড়িয়ে যেতে পারবে। সেদিন খুব দূরে নয় যখন এদেশের মানুষ আবার ঘুরে দাঁড়াবে এবং নিজেদের অধিকার বুঝে নেবে।

    Reply
  8. mansoor

    কথার মাঝে যুক্তি আছে। আর কিছুদিন যাক, নেপালের জনগনের মতই এ দেশের মানুষের মনোভাব বদলাবে ভারতের বিরুদ্ধে।

    Reply
  9. kobir

    আমরা দিনে দিনে সুকৌশলে ভারতের কলোনি হতে যাচ্ছি। পাকিস্তান আমাদের থেকে ১৪০০ মাইল দূরে। ভৌগলিক কারণে পাকিস্তান আর কখনও আমাদের দিকে আসবে না। অথচ আমরা ভারতের সম্পূর্ণ পেটের মধ্যে। উপরন্তু আমাদের ভারত পন্থী নেতারা পাকিস্তান পাকিস্তান বলে চেঁচামেচি করে জনগনের দৃষ্টি অন্য দিকে ঘুরিয়ে অত্যন্ত সুকৌশলে ভারতের আধিপত্যকে আরো মজবুত করে দিচ্ছে। অন্ততপক্ষে কোনভাবেই আমাদের ভারতের উপর নির্ভরশীল হওয়া উচিত হবে না, তাহলে আমাদের কষ্টার্জিত স্বাধীনতার কোনো মূল্য থাকবে না ,আমরা আবার সেই পরাধীনতায়ই ফিরে যাব।

    Reply
  10. Gias Uddin Bhuiyan

    ইনডিয়ান আধিপত্য মজবুত করার বছর : এ সত্যটা আমরা সকলেই বুঝি কিন্তু তার বিপরীতে কোন মত বা অভিযোগ করি না বা রাখি না। কারণ আমাদের দেশের নাগরিক এখন ভাগ হয়ে গেছে দু’ভাগে এক: আওয়ামীলীগ দুই: বিএনপি। যারা আওয়ামীলীগ করেন তারাতো এমন কট্টর যে সরকারের খারাপ বলতে কিছু আছে তারা বিশ্বাস করতে রাজি নন। শেখ মুজিব ভাল লোক ছিলেন, তার উদ্দেশ্য হয়তো ভাল ছিল কিন্তু তার দোসররা এখন ক্ষমতায়, তারা যে উদ্দেশ্য নিয়ে ক্ষমতায় এসেছে এবং যেসব কমর্কান্ড দেশে চালাচ্ছে বিভিন্ন ক্ষেত্র উন্নয়নের নাম করে তাতে যে কারো বুঝার বাকী থাকে না। কিন্তু তাদের সমথর্করা তা বুঝতে রাজি না। নৌকা তাদের বাপ মা সব। আর বিএনপির সমথর্করা সাধারণত দু-টানা টাইপের তারা খারাপ দেখলে হয়তো কিছু কিছু ক্ষেত্রে জিজ্ঞাস্য মনোভাব নিয়ে এগোয় কিন্তু সে পযর্ন্ত সাপোটর্ পায় না। তাই যেদিন আমরা এই মনোভাব থেকে বেরিয় আসতে না পারবো ততদিন আমাদের দেশ তথা জনগণের শান্তি নাই, নিস্তার নাই ভারতীয় আগ্রাসন থেকে। কারণ বতর্মান সরকার যেভাবে ২০২১ সাল পযর্ন্ত ক্ষমতায় যাওয়ার ন্য আগ্রহী হয়ে উঠেছে এবং সেই লক্ষ নিয়ে বিভিন্ন আইন পরিবতর্ন করছে, প্রশাসন সাজাচ্ছে তা দেখলে মনে হয় তারা আগামী ক্ষমতার জন্য আবারও ইন্ডিয়ার সাথে যে কোন চুক্তি সম্পাদন করতে হলে যা কিছু করা দরকার তাই করবে, এতে জনগণ তাদের পাশে থাকুক আর নাই থাকুক। যেমন করে গেছেন তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিজেদের পিঠ বাঁচাতে গিয়ে আওয়ামীলীগকে ক্ষমতায় দিয়ে প্রাণে বেঁচেছেন, পরে দেশের কী হবে তারা তা চিন্তা করেন নাই।

    Reply
  11. Taskina Yeasmin

    তথ্য বহুল লেখা তৈরির জন্য অনেক ধন্যবাদ। তবে, আপনার সব যুক্তির সঙ্গে এক মত নই।
    তাসকিনা ইয়াসমিন

    Reply
    • Nezam

      লেখকের লেখার কোন কোন অংশের সাথে একমত নন, দয়া করে একটু জানাবেন? সহপাঠক হিসেবে মনে হয় এটা জানতে চাইতে পারি।

      Reply
  12. Mahady

    খুবই সুন্দর একটি লেখা। অত্যন্ত প্রানবন্ত এবং যথার্থ লিখেছেন। লেখককে ধন্যবাদ। কিন্তু আমাদের সংস্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ কি আদৌ বিষয়গুলো আন্তরিকতার সাথে ভেবে দেখবেন? নাকি অন্ধের মতো লেখককে গালমন্দ করে যাবেন?

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—