আয়শা ঘর-পালানো মেয়ে। ঘর-পালানো বললে ভুল হবে, দেশ-পালানো মেয়ে। সে জানে দেশে ফিরলে মৃত্যু তার অবধারিত। তালেবান বাহিনীর অন্যতম লক্ষ্য সে। সময়মতো দেশ ছেড়ে পালাতে না পারলে তার মাথার খুলিও উড়িয়ে দেওয়া হত, যেমনটি চেষ্টা করা হয়েছিল মালালার ক্ষেত্রে। মালালা পাকিস্তানি; আয়শাও তাই। সে পাকিস্তান ও আফগানিস্তানে নারীশিক্ষা নিয়ে কাজ করেছে। মালালার বাবা তাকে প্রাণপণে আগলে রেখেছিলেন। আর আয়শার ওপর মৃত্যু-পরোয়ানা জারি করেছে তার বাবা নিজেই। এ আবার কেমন বাবা! নিজের সন্তানকে হত্যা করতে চায়!

আয়শার বাবা একজন তালেবান যোদ্ধা। তার চেয়েও ভয়ানক একটি পরিচয় রয়েছে লোকটির। সে একজন পাকসেনা যাকে ১৯৭১ সালে অন্য অনেক সেনার সঙ্গে বাংলাদেশে পাঠানো হয়েছিল। বাংলাদেশের ত্রিশ লক্ষ শহীদের হত্যার সঙ্গে– দুই লক্ষাধিক বীরাঙ্গনার অত্যাচারিত শরীর, কান্না, রক্ত, আর্তনাদ, চিৎকার ও হাহাকারের গা-শিরশিরে অভিজ্ঞতার সঙ্গে আয়শার বাবাও জড়িত। সে সময় পাকসেনাদের যারাই বাংলাদেশে ছিল, কেউ ওই হত্যা-ধ্বংস-অত্যাচারের জন্য দায়ী না হয়ে যায় না।

আয়শার বাবা কখনও এ নিয়ে আয়শাকে কিছু বলেনি। কিন্তু পরিবারের সঙ্গে তার বাবার আচরণের কাহিনিগুলো শুনে যে কেউ বলে দিতে পারবে এই পাকসেনাটি বাংলাদেশ কী কৃতকর্ম সাধন করেছিল। আয়শার সামনে প্রতিদিন বেত্রাঘাত করা হত তার মাকে। তার ওপর পশুর মতো নানা অত্যাচার করার পর বিভিন্ন বিকৃত কায়দায় শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করতে বাধ্য করা হত তাকে। আয়শাকেও ছোটবেলাতেই শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতিত হতে হয়েছিল তার বাবার হাতে। অথচ অর্থকষ্ট ছিল না তাদের। তার বাবার পোস্টিং ছিল দেশের বাইরে। তাদের জীবন হতে পারত অনেক সুন্দর– অনেক আনন্দের।

তা হয়নি। হওয়া সম্ভবও নয়। পাকিস্তানি জেনারেলরা সেনাদের প্রশিক্ষণ দিয়েছিল কীভাবে বাঙালি জাতিকে ধংস করতে হবে তার জন্য, কিন্তু এর সুদূরপ্রসারী পরিণাম নিয়ে নিশ্চয়ই ভাবেনি তারা। এই হত্যা, ধ্বংস– এই উন্মাদনা– তাদের নিজের দেশ, সমাজ, পরিবারের ওপর কীভাবে বুমেরাং হয়ে ফিরে যাবে তা ভাবেনি তারা। তাই তো বাঙালির রক্ত দেখে হো হো করে যারা হাসত তারা হত্যা করেছে অনেক অনেক পাকিস্তানিকেও। যাদের কেউ কেউ এখন নিজের হাতে নিজ সন্তানের রক্ত ঝরাবার প্রতীক্ষায়!

দেশে, দেশের বাইরে যেখানেই গেছে নিজেদের হিংস্রতার প্রমাণ দিয়ে এসেছে এই পাকিস্তানি বাহিনীর একাংশ। বাংলাদেশে এত নারীধর্ষণের পর দেশে ফিরে গিয়ে তারা থেমে থাকেনি। ধর্ষণ করেছে স্বজাতির, প্রতিবেশির, এমনকি নিজেদের পরিবারের নারীদেরও। যোগ দিয়েছে বিভিন্ন বিদেশি বাহিনীর সঙ্গে– তালেবানদের সঙ্গে।

বাংলাদেশের বীরাঙ্গনা মায়েদের সঙ্গে কথা বলার পর, অত্যাচারের ভয়াবহতা সম্পর্কে জানার পর আমি ছিলাম কিছু পাকিস্তানি সৈনিকের সন্ধানে যারা ১৯৭১ সালে বাংলাদেশে ছিল। কিন্তু বিলেতে বসে কোথায় পাব তাদের! ঘটনাচক্রে পরিচয় হল আয়শার সঙ্গে। তার কাছ থেকেই জানতে পারলাম পাকসেনাদের জীবনযাপন আর বিনোদনের নানান রসদপাতি সম্পর্কে। আর জানতে পারলাম সেই ভয়াবহ তথ্য! বাংলাদেশ যুদ্ধশেষে প্রত্যাবর্তিত সৈন্যদের পদোন্নতি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু যুদ্ধে তো তারা হেরে গিয়েছিল। তাহলে পদোন্নতি, বিদেশযাত্রা কীসের জন্য?

মিরপুরের বধ্যভূমি কিংবা ঠাকুরগাঁওয়ের লালদীঘি বাঙালির লাশে ভরপুর করে দেওয়ার জন্য! নাকি লক্ষ লক্ষ মা-বোনকে দিনের পর দিন চুলের সঙ্গে বেঁধে সিলিংএ ঝুলিয়ে তাদের যৌনদ্বার ক্ষত-বিক্ষত করার জন্য, কিংবা গর্ভবতী নারীর পেট ফেড়ে তাকে নরক-যন্ত্রণা দেওয়ার জন্যে! বীরাঙ্গনা রাজুবালার সামনে তার দুধের শিশুকে কুয়ায় ছুঁড়ে ফেলে হত্যা করা হয়। আরেক সন্তানকে গাছের সঙ্গে আছড়ে ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন করে হত্যা করে রাজুবালাকে ধর্ষণ করা হয়। এইসব নৃশংস খুনি, ধবংস্মাত্নক ঘটনার রচনাকারীদের তবে পুরস্কার মিলেছিল!

অর্থ, সম্পদ, প্রভাব, প্রতিপত্তি, পদোন্নতি নিয়ে সেই সৈনিকরা আকারে-প্রকারে বিরাট থেকে বিরাটতর হতে হতে এমনসব পিশাচে পরিণত হয়েছে যাদের কাছ থেকে তাদের নিজের কন্যাদেরও রেহাই মিলেনি। আয়শার কাছ থেকে তার বাবার পদোন্নতির কথা শোনার পর খুব অসহায় বোধ করছিলাম। আমার শুধুই মনে পড়ছিল বীরাঙ্গনা মমতাজ, আমেনা, মালেকা, হাজেরা, রমা চৌধুরীদের কথা।

আয়শার বাবার মতো সৈনিকরা যখন বাথটাবে কুসুম কুসুম গরম পানিতে শুয়ে স্পার মোহনীয় সুগন্ধে নিজের তেলচর্বিময় কুতকুতে শরীরে আরও আয়েশ দেওয়ায় ব্যস্ত ছিল, তখন এই সেনাদের দ্বারা ভয়াবহ গণধর্ষণের শিকার আমাদের বীরাঙ্গনা মা মমতাজ বেগম জঠরে অত্যাচারিত, গলিত সন্তানের মৃত্যুর ভার নিয়ে অসহ্য যন্ত্রণায় ছটফট করছিলেন। ২০১৪ সালের অক্টোবরে তিনি মারা যান। সারাজীবনে তাঁকে ত্রিশটির বেশি অপারেশন করাতে হয়েছে। অত্যাচারের বীভৎসতায় তাঁর পায়ুপথ ও যোনিপথ এমনভাবে ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছিল যে, আজীবন এই মা কখনও স্বাভাবিকভাবে মলত্যাগ করতে পারেননি। ২০১৪ সালে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে গেলাম যখন তখন তিনি খুবই অসুস্থ। তাঁর প্রদাহভরা রক্তাক্ত কোলন দেখে থরথর কাঁপছিলাম। এ ছিল আমার কিছু মুহূর্ত তাঁর সঙ্গে থাকার প্রতিক্রিয়া। এই বীরাঙ্গনা মা দীর্ঘ তেতাল্লিশ বছর এই রক্তাক্ত কোলন, ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন মলদ্বার আর মানুষের ঘৃণা, অপবাদ, অবহেলা নিয়ে– বিচার ও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতির আশা নিয়ে বেঁচেছিলেন।

যুদ্ধ ও নারী নিয়ে কাজ করতে গিয়ে পরিচিত হয়েছি বিভিন্ন দেশের, বিভিন্ন ধর্মের, বিভিন্ন জাতির যুদ্ধাহত নারী ও তাদের সন্তানদের সঙ্গে। একটি কেয়ার হোমে পরিচয় হয়েছিল এক ইহুদি নারীর সঙ্গে। তাঁর নাম সিলভিয়া। বয়স প্রায় একশর কাছাকাছি। তাঁর গল্প শুনেছিলাম। তিনি পোল্যান্ডয়ে নাজি বাহিনীর হাতে বন্দি ছিলেন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়। অন্ধকার ঘরে বন্দি করা রাখা হয়েছিল তাঁকে। পালা করে সৈনিকরা আসত– অত্যাচার করে চলে যেত। সন-তারিখ তাঁর মনে নেই– মনে নেই কত দিন নিপীড়নের শিকার হযেছেন তিনি।

সিলভিয়া জানিয়েছিলেন, ছাড়া পাবার পর পোল্যান্ডবাসী তাদের মতো নিপীড়িত নারীদের গ্রহণ তো করেইনি বরং দেশদ্রোহী উপাধি দেওয়া হয়েছিল তাদের। কেননা তাঁরা শত্রুদের মনোরঞ্জনে ব্যবহৃত হয়েছেন! সিলভিয়া অনেক কষ্টে পালিয়ে ইংল্যান্ডে চলে যান পরে। আর কখনও ফিরেননি নিজের দেশে।

তাঁর ওপর অত্যাচারের সঙ্গে মিলে যায় পাকিস্তানি সৈন্যদের দ্বারা বাঙালি নারীনির্যাতনের চিত্র। এত বছর পরও সেই বীভৎস স্মৃতির দাপটে ঘুমাতে পারতেন না সিলভিয়া। তাদের একজনের সামনে অত্যাচার করা হত অন্যজনকে। বেশিরভাগ নারীকেই বন্ধ্যা করে দেওয়া হয়েছিল। সিল্ভিয়া তাই কখনও মা হতে পারেননি। সারাজীবনে আর কখনও স্বপ্ন দেখতে পারেননি একটি সংসারের। পরিবারহারা দেশছাড়া এই মানুষটি আজীবন নিঃসঙ্গই রয়ে গেলেন।

সিলভিয়াদের মতো নারীদের ওপর নিপীড়ন চালানো সৈনিকরা নিশ্চয়ই দেশে-বিদেশ ঘুরে বেরিয়েছে দাপটের সঙ্গে। ভাবা যায়, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে পোলিশ ইহুদি নারীদেরকে ধর্ষণ করার জন্য একটি আইন পাশ করা হয়? আর সে আইনে নারীদেরকে নারী না বলে অবজেক্ট বা বস্তুর সঙ্গে তুলনা করে ভোগ করার জন্য সৈনিকদের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল।

যুদ্ধের সময় নারীদের অপহরণ করে আনা হত। তারপর বাধ্য করা হত সেনাদের সঙ্গে সহবাসে রাজি হতে। যারা রাজি হত না তাদের পাঠানো হত কনসেন্ট্রেশন ক্যাম্পে। সেখানে আবার তাদের ওপর চালানো হত নানা ধরনের অত্যাচার। খাবার এবং পানি দেওয়া বন্ধ থাকত প্রায়ই। কেউ কেউ এভাবেই মারা যেত। অনেকে অত্যাবার সহ্য না করতে পেরে ফিরে আসতেন। যারা কনসেনট্রেশন ক্যাম্প থেকে ফিরে আসতেন, তাদের প্রত্যেককে একেক রাতে বিশ জন সৈনিকের মনোরঞ্জন করতে হত। সপ্তাহের ছুটির প্রাক্কালে এই সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াত পঞ্চাশ থেকে আশি জনে! এমন ভয়াবহ অত্যাচারের ফলে অনেক নারী এভাবেই মারা যেতেন। যারা যৌনরোগে আক্রান্ত হতেন তাদেরকে মেরে ফেলা হত।

পোলিশ ইহুদি নারীদের ওপর নিপীড়ন চালানোর লাইসেন্স দেওয়া এই কালো আইনগুলো গোপনীয়তার নামে লুকিয়ে রাখা হয়েছে। এ নিয়ে পোলিশ ভাষাতেই বেশি লেখালেখি হয়েছে। ইংরেজিতে সেসব ডকুমেন্টের তেমন অনুবাদ হয়নি। আমার এক সহকর্মী ডকুমেন্টারি ছবি বানাতেন। তাঁর সহায়তায় আমি কিছু পড়তে পেরেছিলাম। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় নাজি বাহিনী এবং লাল বাহিনীর হাতে প্রায় দুই মিলিয়ন নারী গণধর্ষণের শিকার হন। তাদের বয়স আট থেকে আশি বছর। বাঙালি বীরাঙ্গনা নারীদের যেমন বেশেরভাগ ক্ষেত্রেই পরিবার গ্রহণ করেনি, ইহুদি নারীদেরও গ্রহণ করেনি তাদের পরিবার বা দেশবাসী। বেশিরভাগ নারীরই অবশ্য পরিবার ছিল না। হত্যা করা হয়েছিল পরিবারের অন্যদের।

যুদ্ধে সৈনিকরা কতটা বিকৃত হতে পারে তার আরেকটি উদাহরণ জাপান। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জাপান চীনের নানজিংয়ে ভয়াবহ ধ্বংসযজ্ঞ চালিয়েছে। জাপানি সৈন্যরা আশি হাজারের বেশি নারী ও শিশুকে ধর্ষণ করেছিল। গণধর্ষণের হাত থেকে রক্ষা পাননি তিন বছরের কন্যাশিশু থেকে শুরু করে নব্বই বছরের বৃদ্ধা পর্যন্ত।

জাপানিরা পৃথিবীর অন্যতম সভ্য ভদ্র জাতি হিসেবে পরিচিত হলেও তাদের ধর্ষণ-প্রক্রিয়া দেখলে আঁতকে উঠতে হয়। বেশিরভাগ নারীর যৌনাঙ্গ তারা তলোয়ার, বাঁশের কঞ্চি কিংবা বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে রক্তাক্ত করত। সাত বছরের মেয়েশিশুকে হাত-পা বেঁধে দিনের পর দিন ধর্ষণ করেছে প্রায় একশর বেশি সৈনিক যতদিন পর্যন্ত না শিশুটির মৃত্যু হয়। নারীর স্তন কেটে বা পেট কেটে সন্তান বের করে এক সৈনিক আরেক সৈনিকের দিকে ছুঁড়ে দিত। এভাবে ছুঁড়ে দেওয়া শিশুটের মৃত্যু অব্দি এটা চলত।

জাপানি এক সৈনিকের সাক্ষাৎকার দেখেছি। সে বলছিল, “চাইনিজ নারীদেরকে আমরা আসলে শূকর ভাবতাম। কখনও কখনও ভাবতাম আস্তাকুঁড়ের নর্দমা।”

জাপানি সৈন্যরা এমনকি হাসপাতালে হামলা চালিয়ে ডাক্তার এবং নার্সদেরও ধর্ষণ করেছে। পরে জাপান সরকার চীনের কাছে ক্ষমা চেয়ে ক্ষতিপূরণ দিতেও রাজি হয়।

আফ্রিকার দেশগুলো যেমন রুয়ান্ডা, সুদান, কঙ্গোর মতো দেশগুলোতে জাতিগত দাঙ্গা বা গৃহযুদ্ধে ধর্ষণ করা হয়েছে নারীদের। তাদের ধর্ষণ-প্রক্রিয়া আরও ভয়াবহ। একই নারীকে প্রতিপক্ষরা বিভিন্নভাবে ধর্ষণ করেছে, বিক্রি করেছে– পরিবারের বাবা-ছেলে-মামা-চাচা সবই মিলে এক নারীকে গণধর্ষণ করেছে।

আমরা এখন পাশের দেশে দেখতে পারি রোহিঙ্গা নারীদের ওপর কী অকথ্য অত্যাচার চালানো হচ্ছে। কী শোচনীয় অবস্থায় জীবন যাপন করছেন আইসিস বাহিনীর হাতে বন্দি নারী ও শিশুরা। বাংলাদেশের বীরাঙ্গনাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা নিয়ে যখন খুব সোচ্চার ছিলাম তেমন একটি সময়ে একটি ইমেইল পেলাম। লেখা ছিল, “তেতাল্লিশ বছর আগের ঘটনা নিয়ে লাফালাফি না করে ক্ষমতা থাকলে সিরিয়া আর ইরাকের নারীদের ধর্ষণ বন্ধ করে দেখান।”

থমকে গিয়েছিলাম। কিছু কী করতে পারব? না তো। আইএস সৈনিকরাও ধর্ষণের সময় এই নারী ও শিশুদেরকে কোনো কিছুর সঙ্গে তুলনা করে থাকে। হয়তো শূকর বা বিধর্মী বা আরও নিচ কোনো প্রাণির সঙ্গে। এত ঘৃণা কোথা থেকে আসে, সেটা বুঝতে হলে বুঝতে হবে ধর্ষণ আসলে কী। সেক্সচুয়াল ভায়োলেন্সকে যুদ্ধে একটি অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করা হয় এবং একে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেওয়া হয়। দেশের এবং বিশ্বের প্রচলিত আইন তখন ভেঙ্গে ফেলা হয়। আইএস যেমন অমুসলিম নারীদের ধর্ষণ জায়েজ বলে ফতোয়া দিয়েছে। হাজরার কথা আমরা জানি। যে কিনা দীর্ঘ দুই বছর পর আইএসএর হাত থেকে পালাতে পেরেছিল। দু বছরে তাকে বাইশ বার বিক্রি করা হয়েছিল। এমনকি একবার এক প্যাকেট সিগারেটের বিনিময়েও তাকে বিক্রি করা হয়।

সেখানে কুমারীদের মূল্য বেশি। তাই ধর্ষণের পর পুনরায় বিক্রি করার আগে তাদের যৌনাঙ্গ সেলাই করে দেওয়া হত। হাজার হাজার নারী এই দুর্বিষহ অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, আমরা আর কজনের কথা জানি? যুদ্ধে আইনের প্রয়োগ ভেঙে পড়ে। এখন আইন প্রয়োজন এই আইন না ভাঙার জন্যে। এগিয়ে আসা উচিত পৃথিবীর সব মানবিক প্র্তিষ্ঠানগুলোর।

হাজরার মতো নারীদের জন্য কিছু করতে পারিনি। তবে বাংলাদেশের বীরাঙ্গনাদের অধিকার আদায়ের জন্যে যে আন্দোলন আমরা চালিয়েছিলাম তা সফল হয়েছে। আমাদের সঙ্গে ছিলেন বাংলাদেশ ও ইংল্যান্ডসহ পৃথিবীর হাজার হাজার বাংলাদেশির সমর্থন। দীর্ঘ চুয়াল্লিশ বছর পর আমাদের বীরাঙ্গনারা পেয়েছেন মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি ও রাষ্ট্রীয় ভাতা। বাংলাদেশ সরকারের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ। পৃথিবীতে আর কোনো দেশের যুদ্ধাহত নারীরা এই সম্মান ও স্বীকৃতি পাননি। সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এখন একটি মডেল।

আরেকটি উল্লেখযোগ্য তথ্য হল, পৃথিবীতে বাংলাদেশই একমাত্র দেশ যে দেশে যুদ্ধাহত নারীদের বীর উপাধি দিয়ে রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছিল। বাংলা ভাষায় বীরাঙ্গনা শব্দটি নিয়ে নানান সমালোচনা থাকলেও এ কথা মানতে হবে যে, বাংলাদেশই একমাত্র দেশ যেখানে যুদ্ধপরবর্তী সময়ে যুদ্ধাহত ধর্ষিতা নারীদের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি দেওয়া হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান ঘোষণা দিয়ে এই নারীদের দায়িত্ব নিয়েছিলেন। বীরাঙ্গনাদের চিকিৎসা ও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করেছিলেন।

আরেকটি কথা এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন। তা হল, ১৯৯২ সাল থেকে ১৯৯৮ সাল পর্যন্ত বসনিয়া ও রুয়ান্ডার নারীদের ওপর অকথ্য নিপীড়ন চালানোর পর বিশ্ব প্রথম সমন্বিতভাবে এই নারীদের জন্য কিছু করার কথা বিবেচনায় আনে। অথচ বাংলাদেশে ১৯৭২ সাল থেকেই নারীদের পুনর্বাসনের চেষ্টা করা হয়। দুঃখজনক হল, ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর সকল উদ্যোগ বন্ধ হয়ে যায়।

বাংলাদেশ প্রমাণ করেছে যে, দীর্ঘ তেতাল্লিশ বছর পরও যুদ্ধাহত নারীদের জন্য কিছু করা যায় যা পৃথিবীর অন্যান্য দেশের যুদ্ধাহত নারীদের আশার আলো দেখিয়েছে। অদূর ভবিষ্যতে হয়তো পৃথিবীর আরও অনেক দেশের যুদ্ধাহত নারীরা স্বীকৃতি ও অর্থনৈতিক অনুদান পাবেন। এখনও দাবি করি বাংলাদেশের কাছে পাকসেনাদের ক্ষমা চাইতে হবে। বিশ্বাস করি বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয়েছে। এখন দেশ ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিকভাবে এগুনোর সময়। সেই সঙ্গে আশা করি, সংগ্রহ করা হবে আমাদের বীর নারীদের জীবনসংগ্রামের তথ্য এবং গড়া হবে একটি আর্কাইভ। যেখানে লেখা হবে বাংলায় এবং ইংরেজিতে। বাংলাদেশের বীর নারীদের কথা ছড়িয়ে দেওয়া হবে দেশের নতুন প্রজন্মের কাছে এবং সেই সঙ্গে বিশ্বের কাছেও।

নারী সংগঠনগুলো বীর নারীদের প্রতি সম্মান দেখিয়ে ২০১৭ সালের নারী দিবসের প্রতিপাদ্য করার বিষয়ে ভাববেন এই অনুরোধ রাখছি। সেই সঙ্গে যুদ্ধে ধর্ষণকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার বন্ধের জন্য আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠনগুলোর কাছে আবেদন জানাবেন।

জয় হোক মানবতার।

শাহমিকা আগুনলেখক, সাংবাদিক ও পুষ্টিবিদ

১৯ Responses -- “বাংলাদেশ এখন একটি মডেল”

  1. Rana

    রোহিঙ্গাদের উপর অত্যাচার অবশ্যই নিন্দনীয়। এর আগে নিজের চার পাশেই দেখুন প্রতি বছর শুধু ধর্মের দোহাই দিয়ে কী পরিমান হিন্দু মেয়েদের উপর অত্যাচার করা হচ্ছে। যে কটি সংবাদ খবরের কাগজে ছেপেছে তা’ তেই তো গা শিউরে উঠার মত ! নিজেদের শুভ বুদ্ধির উদয় যতদিন না হবে ততদিন এর মাত্রা বাড়বে বই কমবে না। বর্বরতা সব জায়গাতেই সমপরিমানে নিন্দনীয় – সে ধর্ম নির্বিশেষে যেখানেই ঘটুক না কেন। তাই মন্তব্য করার আগে ভাবুন – মনুষ্যত্ব আগে না ধর্মের দোহাই আগে। নিজেকে পরিবর্তন করুন -চার পাশের প্রতিবেশীর প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করুন।ধর্ম , লিঙ্গ ভেদে মানুষকে বিচার করা বন্ধ করুন। ওটাই মানবতার ধর্ম। নিজে বড় হলে -সম্প্রদায় ও বড় হবে – জাতি ও বড় হবে। তখন ই শুধু আমাদের জন্ম সার্থক হবে। শুভ বুদ্ধির জয় হোক ! লেখক কে অনেক ধন্যবাদ।

    Reply
  2. শান্তা মারিয়া

    আগুন, অসাধারণ লিখেছ। অনেকদিন এত ভালো লেখা চোখে পড়েনি। যুদ্ধাহত সকল নারীর জন্যই একটি সাধারণ সংগঠন প্রয়োজন। যেখানে আমাদের মতো সাধারণ মানুষরাও যুদ্ধাহত নারীদের জন্য সেবামূলক কিছু কাজ করার সুযোগ পাবে। তোমাকে অভিনন্দন বীরাঙ্গনাদের নিয়ে কাজ করার জন্য।

    Reply
  3. সান্তনা

    মর্মস্পর্শি লেখাটার জন্য আপনার প্রতি অশেষ শ্রদ্ধা জানাই। আমি সনাতন ধর্মানুলম্বী পরিবারের সন্তান। ১৯৭১ সালে আমার পরিবারের পুরুষ ও নারীদের প্রতি যে বিপর্যয় নেমে এসেছিল তার শুরু হয়েছিল দেশভাগের সময় থেকে। আমরা হিন্দুরা এদেশকে শুধু দিয়েই গেলাম। বিনিময়ে আমরা মানুষের কাছে কিছু তো চাইনি, চাইওনা। ঈশ্বর সব দেখেছেন, সব জানেন। বিচার ও প্রতিশোধের দায় ও ভার তার হাতেই ছেরে দিয়েছি। বর্তমানের পাকিস্তানের দিকে তাকালে আমাদের ঈশ্বরের কথাই মনে আসে। আমাদের চোখের জল তিনি দেখেছেন।

    Reply
    • Babu

      Only hindus were tortured by the Pak army in 1971? No Muslims? You have also taken the side of religion, not humanity. The maximum people who were tortured by the pak army in 1971 were Bengali muslims.

      Reply
  4. রাসেল মাহমুদ

    অসাধারন! এমনভাবে কেউ কখনো তুলে ধরেনি ধর্ষিত নারীদের দুঃখ-কষ্ট-যন্ত্রণার ইতিহাস! ধন্যবাদ আগুন। প্রতিটি যুদ্ধই মানব জাতির জন্য অভিশাপ! সেই অভিশাপ থেকে মুক্তি মিলুক। পৃথিবীর উপর শান্তি বর্ষিত হোক। মানুষের মধ্যে মানবতা জাগ্রত হোক। জয় হোক মানবতার।

    Reply
  5. Amin

    একটি খুব প্রাসঙ্গিক এবং মানবিক লেখা,নারীবাদী নয় কেবল,পাকিরা মানুষ নয় সেটা হোক একাত্তর কিংবা এখন,তবে আয়েশা-মালালাদের পথ আমাদের আশাবাদী করে বৈকি !

    Reply
  6. Fazlul Haq

    পরের দেশ ও জনপদ ভোগদখল করার জন্য যে বাহিনী তৈরী করা হয় সেসব সেনাদের জানোয়ার বানানোর কঠোর প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। ফলে তারা মনুষ্যত্ব হারিয়ে পশুত্ব প্রাপ্ত হয়। বিশ্বময় দখলদার বাহিনীর একই চিত্র। আত্মরক্ষা এবং নিজের দেশ ও স্বাধীনতা রক্ষার সেনা বাহিনীর চরিত্র ভিন্ন ও মানবিক। সুতরাং যুদ্ধের প্রশিক্ষণ হওয়া উচিৎ আত্মরক্ষা ও স্বাধীনতারক্ষার জন্য দখলদারিত্বের জন্য নয়। তাহলে হয়তো মানুষকে রাষ্ট্রীয়ভাবে পশু তৈরী করা বন্ধ করা যাবে।

    Reply
  7. হুমায়ুন কবির

    আমিও বলতে মায়ানমারের রোহিঙ্গাদের জন্য কাজ করুন, আন্তর্জাতিকভাবে জনমত গড়ে তুলুন।

    Reply
  8. ইন্দ্রজিত

    বি.দ্র. এটা কিছুদিন আগের ঘটনা একটা পত্রিকা থেকে কপি করা……
    পাকিস্তানের শাসকদের চরিত্র পাল্টায়নি। ওরা দীর্ঘ সময় বাঙালিদের ওপর নিপীড়ন চালিয়েছে। বেলুচিস্তানের মানুষের ওপর তাদের নিপীড়ন এখনো চলছে। স্বাধীনতার জন্য বাংলাদেশ সরকারের সমর্থন চান বালুচরা। কথাগুলো বললেন পাকিস্তানের বেলুচিস্তানের স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা মীর সুলেমান দাউদ জান আহমেদজাইয়ের (৫২)। তিনি ‘খান অব কালাত’ নামে সুপরিচিত।

    আজ বুধবার রাজধানীর একটি হোটেলে মীর সুলেমান দাউদ জান আহমেদজাই এবং বেলুচিস্তানের স্বাধীনতাকামী অপর নেতা মুনির মেঙ্গেলের সঙ্গে কথা হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর জেনোসাইড স্টাডিজের আমন্ত্রণে একটি সেমিনারে যোগ দিতে গতকাল মঙ্গলবার তাঁরা বাংলাদেশে এসেছেন। তাঁদের এই সফরের অন্যতম উদ্দেশ্য, বেলুচিস্তানের স্বাধীনতার লড়াইকে এ দেশের মানুষকে জানানো। সেই সঙ্গে বাংলাদেশ সরকারের সমর্থনও চান তাঁরা।

    বেলুচিস্তানের রাজন্যশাসিত এলাকা খানাতে অব কালাতের শাসক এই পরিবার। পাকিস্তানের সঙ্গে একীভূত হতে চায়নি কালাতের মানুষ। ১৯৪৮ সালের মার্চ মাসে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনী জোর করে কালাতকে একীভূত করে নেয় বলে জানান ‘খান অব কালাত’।

    ঐতিহ্যবাহী বালুচ টুপি, বুকপকেটে লাল-সবুজের বালুচ পতাকার অংশ আর কালো রঙের পাজামা-পাঞ্জাবি পরা খান অব কালাত এক ঘণ্টার বেশি সময় ধরে শোনালের বেলুচিস্তানের ইতিহাস, তাঁদের কৃষ্টি, সেখান চলা নিপীড়ন এবং স্বাধীনতার জন্য তাঁদের অদম্য লড়াইয়ের কথা। মীর সুলেমান দাউদ জান আহমেদজাই বললেন, বেলুচিস্তান ও বাংলাদেশ দুটিই ইংরেজি শব্দ ‘বি’ দিয়ে শুরু। বাংলাদেশের পতাকার সঙ্গে তাঁদের কাঙ্ক্ষিত পতাকার মধ্যেও মিল আছে। তিনি এও বললেন, ‘আরও মিল আছে, পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর হাতে দুই অঞ্চলের মানুষের নিপীড়িত হওয়ার ইতিহাসে। বাংলাদেশের মানুষের সৌভাগ্য যে তারা পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে লড়ে স্বাধীন হয়েছে। আমাদের স্বাধীনতার লড়াই আজও চলছে।’

    বেলুচিস্তান তথা কালাতের স্বাধীনতা হরণের ইতিহাস শোনান লন্ডনপ্রবাসী এই নেতা। তিনি বলেন, ১৯৪৭ সালের ৫ আগস্ট ‘খান অব কালাত’ মীর আহমেদ ইয়ার খান আহমেদজাই বালুচ স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। ১৯৪৮ সালের মার্চে সেই স্বাধীনতার অবসান হয় পাকিস্তানি বাহিনীর আগ্রাসনে। এরপর থেকেই সেখানে চলছে মুক্তিকামী মানুষের লড়াই। এখনও বেলুচিস্তানে প্রতিদিন অগ্নিসংযোগ, গুম, হত্যা, ধর্ষণ হয় জানিয়ে তিনি বলেন, ‘যেসব ভয়াবহ নিপীড়ন আপনাদের ওপর চলেছে, এখন তা আমাদের নিত্যদিনের সঙ্গী।’

    এ পর্যন্ত ২৫ হাজারের বেশি তরুণ বালুচ নিখোঁজ বলে অভিযোগ করেন খান অব কালাত। স্বাধীনতার পক্ষে কথা বলায় এসব তরুণ পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীর রোষানলে পড়েছে।

    ২০০৬ সালে বেলুচিস্তান ছেড়ে লন্ডনে চলে যান খান অব কালাত। কেন এই পলায়ন—জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি পালিয়ে আসিনি। আমি বালুচ জিরগা (সব গোষ্ঠী নেতাদের বৈঠক) আহ্বান করেছিলাম। আমি বেলুচিস্তানের মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়টি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে তোলার উদ্যোগ নিয়েছিলাম। এসব বিষয়ের জন্য সেখানে থাকা আমার পক্ষে অসম্ভব ছিল। এখন আমি মুক্তভাবে কাজ করতে পারছি।’

    বেলুচিস্তানে পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীর নিপীড়নের নানান বর্ণনা দেন মীর সুলেমান দাউদ জান আহমেদজাই। তিনি বলেন, পাকিস্তানে দুটি ‘জঙ্গিগোষ্ঠী’ আছে। একটি সরকারি স্বীকৃতি পাওয়া দেশটির সামরিক বাহিনী এবং তাদের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই। অন্যটি হাক্কানি নেটওয়ার্ক, লস্কর-ই-তাইয়েবার মতো উর্দিহীন জঙ্গিগোষ্ঠী। এক গোষ্ঠী আরেক গোষ্ঠীকে সহায়তা করে। ‘খান অব কালাত’ বলেন, বিশ্বে সন্ত্রাসবাদ ছড়িয়ে দিচ্ছে পাকিস্তান। ম্যানিলা থেকে ক্যালিফোর্নিয়া—যেখানেই সন্ত্রাস হোক, সেখানে পাকিস্তানের সহযোগিতা আছে।

    বেলুচিস্তানের মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়টি নিয়ে সরব হয়েছে ভারত। পাকিস্তান অভিযোগ করেছে, ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের চলমান আন্দোলন ঠেকাতেই বালুচদের সমর্থন দেয় ভারত। এ ব্যাপারে বালুচ এই নেতা বললেন, ‘আমি যখনই কোনো পাকিস্তানি সাংবাদিকের মুখোমুখি হই, শুরুতেই তাঁরা বলেন, কাশ্মীরে মুসলিমদের অবস্থা সম্পর্কে আপনার মন্তব্য কী? আমি তখন বলি, যখন আমার বাড়ি পুড়ছে, আমার মানুষ মারা যাচ্ছে, তখন আপনারা সে বিষয় নিয়ে উচ্চবাচ্য করেন না কেন?’

    ১৯৬৯ ও ১৯৭০ সালে দুইবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে দেখার সুযোগ হয়েছিল বলে জানান খান অব কালাত। তিনি বললেন, ‘তখন সাত-আট বছর বয়স ছিল। কোন কথা হয়েছিল বলে মনে নেই। পরে এই মহান মানুষটির ছবি দেখে বিস্মিত হয়েছি, সেই মানুষটিকে দেখেছিলাম আমি।’

    বঙ্গবন্ধুর মতো বেলুচিস্তানের স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখেন কালাত। আর এই আশা আছে তাঁর বুকে, নিরাশ হন না তিনি।

    Reply
  9. জয়তু আপনাদের

    আজ যদি মিয়ানমারে মুসলমানদের হত্যা না করে অন্য কোন ধর্মের লোককে এমনভাবে নির্যাতন করা হত, তাহলে পশ্চিমা মোড়ল দেশসহ সারা বিশ্ব মিডিয়া এমনকি আমাদের দেশের দূর্গন্ধময় রাতকানা হলুদ মিডিয়াও মিয়ানমার ইস্যু নিয়ে বাজার গরম করে ফেলত ! মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী পুলিশদের গুলি খেয়ে পানিতে ভেসে আসা রোহিঙ্গা শিশুটির সম্পর্কে আমাদের মিডিয়ায় কোন নামগন্ধ পর্যন্ত নাই !
    তবে ব্যতিক্রম শুধু যুগান্তর ও কালের কন্ঠ ।

    Reply
  10. Ahmed Hasan

    আজ জাতিসংঘ কোথায় ? মানবাধিকার সংস্থা কোথায় ? নিরব কেন ? জবাব দিতে হবে । মুসলমান মারলে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয় না, যুদ্ধাপরাধ হয় না, অন্য জাতি ধর্মের লোক মারলে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়, যুদ্ধাপরাধ হয় অলিখিত এই নিয়মটা জাতিসংঘ এ বিল আকারে পাস করলেই হয়ে যায় । এত ধোঁকার দরকার কি ?

    Reply
  11. শান্তিতে নোবেল

    কোথায় আজ মানবাধিকার,মুসলমানদের জন্য কি মানবাধিকার বলতে কিছু নাই,কোথায় আজ কানা মিযান,কোথায় হিউম্যান রাইটস,কোথায় অন্যান্য মানবাধিকার সংস্থা,মায়ানমারের মুসলমানদের জন্য কোন কি মানবাধিকার নাই, আজ মিয়ানমারের আরকানের রহিঙ্গা মুসলমানদেরকে যে ভাবে বৌদ্ধ সন্ত্রাসীরা হত্যা করতেছে এগুলো কি তোমরা দেখনা,মুসলমানেরা একটি ঢিল চুড়লে তো তোমরা জঙ্গী বলে মুখে ফেনা তুলো, অংসাং সূচিকে নাকি শান্তিতে নোবেল দিছে এটা কি সেই শান্তি ?

    Reply
  12. ‘হাইব্রিড’ সৈনিক

    গণহত্যার জন্য প্রস্তুতি ও পরিকল্পনা থাকা আবশ্যক। এটা শুরু হয় মানুষের মন থেকে, আর এজন্যে দরকার ব্যাপক প্রচারাভিযান যাতে নির্দিষ্ট গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে ভয়াবহ কাজগুলো করা যায়। এক্ষেত্রে অপরাধ কিংবা হত্যাকারীদের নিঃশঙ্ক তো হতেই হবে, বরং তার উপরে বিশ্রী অপরাধগুলো চালিয়ে যাবার জন্য হতে হবে স্ব-প্রণোদিত অন্ধ সমর্থক। অনেক ক্ষেত্রেই, কোনো নির্দিষ্ট গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে আবহ তৈরির দায়িত্ব ছেড়ে দেয়া হয় অন্ধ বর্ণবাদী বুদ্ধিজীবীদের উপর, যারা আম-জনতাকে অসহিষ্ণুতার বিষাক্ত বড়ি বিক্রি করেন। রাজনৈতিক পৃষ্ঠপোষকতা ছাড়া সংখ্যাগরিষ্ঠ লোকের বিদ্বেষী মানসিকতাসম্পন্ন হওয়া কঠিন। গণহত্যা আর যেসব জায়গাতে ঘটেছে সেখান থেকে দীক্ষা নিয়ে আজকের সবচেয়ে বড় অপরাধের হোতারা – অর্থাৎ, মায়ানমার সরকার, স্থানীয় রাখাইন রাজনীতিক, বুদ্ধিজীবী ও বৌদ্ধ ভিক্ষুরা সাধারণ জনতার মস্তক ধোলাইকল্পে রোহিঙ্গা-সহ অ-বৌদ্ধদের বিরুদ্ধে অহর্নিশি বিকৃত ইতিহাস দিয়ে চালাচ্ছে প্রোপাগাণ্ডা ও প্রতারণা – উদ্দেশ্য হচ্ছে মায়ানমার ও আরাকানের মাটিকে ‘অন্য’ লোকদের থেকে দখলমুক্ত করে ‘পবিত্র’ করা।

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—