আগের লেখায় বলেছিলাম আমাদের দেশে কিছু মানুষ আছে যারা হিন্দু ধর্মাবললম্বীদের তাদের আড়ালে খুব খারাপ ভাষায় ডাকে। উদাহরণ হিসেবে দুটি শব্দ বলেছিলাম– ‘ডান্ডি’ আর ‘মালু’। এখানে ‘মালু’ কথাটি হল ‘মালাউন’এর সংক্ষিপ্ত রূপ। এখন দেখা যাচ্ছে আড়ালে ডাকার ব্যাপারটি ভুল বলেছিলাম। নভেম্বরের তিন তারিখ ভোরের কাগজে নিচের খবরটি পড়লাম:

গত মঙ্গলবার রাতে নাসিরনগরের ডাকবাংলোতে স্থানীয় সংখ্যালঘু নেতাদের উদ্দেশ্য করে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হক বলেন, “মালাউনের বাচ্চারা বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি করছে। আর এ ঘটনা ফুলিয়ে-ফাঁপিয়ে প্রচার করে অতিরঞ্জিত করেছে সাংবাদিকরা। অথচ ঘটনা কিছুই নয়।”

প্রথমে আমি নিজের চোখের ওপর বিশ্বাস রাখতে পারছিলাম না। সব সময় জেনে এসেছি অন্য ধর্মের মানুষদের অপমান করার জন্য বিশেষ শব্দ ব্যবহার করা ভীষণ খারাপ কাজ। এতটাই খারাপ যে, খারাপ মানুষেরাও সেটি গোপনে করে, তাদের আড়ালে করে। কিন্তু এখন দেখছি মন্ত্রী হলে এত বাছবিচার না করলেও চলে। সরকারের উঁচু পদে থাকলে এ ধরনের শব্দ প্রকাশ্যে ব্যবহার করার পরও চাকরি টিকিয়ে রাখা যায়!

জানতাম এটি একটি গালি (শব্দটির পুনরাবৃত্তি করতে ঘেন্না হচ্ছে)। কিন্তু কখনও ভেবে দেখিনি আসলে কথাটি কোথা থেকে এসেছে। তারপর কিছু বন্ধুবান্ধবের কাছ থেকে জানলাম এটি নাকি আরবি ভাষা থেকে আসা। এই কথাটির অর্থ হল, ‘অভিশপ্ত’!

ব্যাপারটি জানার পর ঝাঁ করে আমার কাছে সব কিছু পরিষ্কার হয়ে গেল। আসলে তো মাননীয় মন্ত্রী ভুল কিছু বলেননি! ওনার মতো মানুষের মন্ত্রী হতে পারা এবং এ রকম কথা বলার পর চাকরি টিকিয়ে রাখতে পারো আমাদের মতো যারা সাধারণ নাগরিক তাদের জন্য কি অভিশাপ নয়?

আরেকটু গোঁড়া থেকে চিন্তা করে দেখি। ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের উপর হামলা তো আমাদের দেশে আজকে প্রথম হচ্ছে না। অনেক আগে থেকেই হচ্ছে। এই হামলা ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের উপর হয়েছে। নিধার্মিক ও বাউলদের উপর হয়েছে। এমনকি সংখ্যাগরিষ্ঠ নাগরিকের ধর্ম ইসলামের যে বিভিন্ন বিকল্প ধারা রয়েছে তারাও হামলা থেকে বাদ যায়নি।

এই যে এতবার হামলা হল তা থেকে আমরা কী শিক্ষা নিয়েছি? আমাদের রাজনৈতিক দলগুলো বা সরকারই-বা কী শিক্ষা নিয়েছে? ধর্মীয় বিদ্বেষপ্রসূত সন্ত্রাসের জন্য কোনো আলাদা আইন হয়েছে? শত্রুতা করে ব্যক্তিগত শত্রুর বাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া আর পুরো একটি সম্প্রদায়কে আতংকিত করার জন্য তাদের একজনের বাড়ি পুড়িয়ে দেওয়ার মধ্যে আকাশ-পাতাল ব্যবধান রয়েছে। দ্বিতীয় আরও অনেক ভয়ংকর অপরাধ। আমাদের আইনি কাঠামো কি এই দু ধরনের অপরাধের গুরুত্বের মধ্যে যে পার্থক্য সেটি ধরতে পারে?

আমাদের প্রশাসনে যেসব কর্মকর্তা ধর্মনিরপেক্ষতায় বিশ্বাস করেন না তাদের আলাদাভাবে চেনার এবং ঝুঁকিপূর্ণ দায়িত্বে না দেওয়ার মতো সতর্কতা কি নেওয়া হয়? ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলোতে পুলিশের নিয়োগ দেওয়ার সময় তারা ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের নিরাপত্তা দেওয়ার তাগিদ অনুভব করেন কি না সেটি জানার কোনো ব্যবস্থা আছে কি? যদি সে রকম কোনো ঘটনা ঘটে আর অপরাধীদের যদি তারা আইনের কাছে সোপর্দ না করেন তাহলে তার প্রতিকারের কোনো স্থায়ী ব্যবস্থা আছে কি?

যদি এসব না থাকে তাহলে এ রকম হামলার ঘটনা বার বার ঘটাই স্বাভাবিক। যদি এসব না থাকে তাহলে আমাদের এই সমাজ এমন একটি সমাজ যেটি সবাইকে সমান মর্যাদা দেয় না। এটি কি অভিশপ্ত সমাজের চিহ্ন নয়? যদি তাই হয় তাহলে ‘মালাউন’ কথাটি বলে মন্ত্রী কি ভীষণ অপরাধ করেছেন? তিনি তো সত্যি কথাই বলেছেন! তিনি কেবল ছোট্ট একটি ভুল করেছেন। এখানে কেবল হিন্দু ধর্মাবলম্বীরাই মালাউন নন। এখানে আমরা সবাই মালাউন, আমরা সবাই অভিশপ্ত।

যে সমাজে একজন আদিবাসী তার নিরাপত্তা পান না, সেই সমাজে সেই আদিবাসী মালাউন, কারণ তিনি অভিশপ্ত। যে সমাজে একজন ভিন্ন ধর্মাবলম্বী নিরাপত্তা পান না, সেখানে সেই ভিন্ন ধর্মাবলম্বী মালাউন, কারণ তিনি অভিশপ্ত। নিধার্মিক যেখানে নিরাপত্তা পান না, সেখানে তিনি মালাউন, কারণ তিনি অভিশপ্ত। যে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ সমাজে একজন আহমদিয়া বা শিয়া মুসলিম নিরাপদ নন, সেই সমাজে সেই বিকল্প ধারার মুসলমান একজন মালাউন, কারণ তিনি অভিশপ্ত।

যার ধর্মপরিচয় বা বিশ্বাস থাকা বা না-থাকা তার প্রাপ্য নিরাপত্তার পরিমাপ ঠিক করে দেয়, সেই তো সমাজের সবচেয়ে অভিশপ্ত সদস্য। তার চেয়ে বড় মালাউন আর কে আছে? সে হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, নাস্তিক, অজ্ঞেয়বাদী, নিধার্মিক, শিয়া বা আহমদিয়া যা-ই হোক না কেন, তার মূল পরিচয় অভিশপ্ত। তার মূল পরিচয় হল সংখ্যাগরিষ্ঠের হাতে নিপীড়িত হওয়াই তার নিয়তি। তার মূল পরিচয়, সে মালাউন।

আমার হিসাবে এই বাংলাদেশের খুব অল্প কিছু মানুষ এক ধর্মের শ্রেষ্ঠত্বভিত্তিক রাজনীতিতে বিশ্বাস করে। তার সঙ্গে আর অল্প কিছু রাজনীতিবিদ আছে যারা এই মানুষদের প্রশ্রয়দেয়। এই গুটিকয়েক মানুষ বাদ দিলে আমরা বাকি ষোল কোটি মানুষের সবাই মালাউন!

বিশেষ দ্রষ্টব্য, এই লেখা শেষ করতে করতে খবর পেলাম নাসিরনগরে আবারও হামলা হয়েছে। কমপক্ষে পাঁচটি বাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এই পৃৃথিবীতে আর কতদিন মালাউন হয়ে থাকতে হবে কে জানে!

ওমর শেহাবইউনিভার্সিটি অব মেরিল্যান্ডের ভিজিটিং অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর এবং ইন্টারন্যাশনাল ক্রাইমস স্ট্র্যাটেজি ফোরামের (আইসিএসএফ) সদস্য

৭০ Responses -- “আমরা ষোল কোটি ‘মালাউন’”

  1. Arifulislam Likhon

    আচ্ছা কয়েকটা প্রশ্ন
    ১। যারা মিয়ানমারে মুসলমানদের নির্মমভাবে হত্য করছে তারা নরপিচাশ?
    ২। যারা ভারতে মুসলামনদের নানা অজুহাতে নাজেহাল করছে তারা জাহান্নামের কিঁট?
    তাইলে যারা নাসিরনগরে হিন্দুদের নির্যাতন করছে তারা বুঝি সাচ্ছা ঈমানদার?

    Reply
  2. হকতুল এবাদ

    জনার ওমর শেহাব সাহেব,
    আপনার নামটা অবশ্য মুসলিম কিন্ত আপনি ইসলামের পন্ডিত নন। আপনি কোরআন ও হাদীস জানেন কিনা আমার জানা নাই। তবে মসলমানের ছেলে হলে কোরআন ও হাদীস না জানা আপরাধ। “আমরা ষোল কোটি মালাউন’” এই মন্তব্য আপনি করেছেন, এই মন্তব্য করার অধিকার আপনাকে দিয়েছে। আপনি একা মালাউন । যারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে এর জন্য তারাই দায়ী। আমরা কেন মালাউন হতে যাব। আপনি আমাদের ধর্ম বিশ্বাসের উপর আঘাত করেছেন। যা ক্ষমার অযোগ্য। কোরআন ও হাদীস এর বিধান অনুসারে একমাত্র ইসলাম ধর্ম অন্য ধর্মাবলম্বীদেরকে পরির্পূণ নিরাপত্তা দেয়। এটা আল্লাহ ও রসুল (সঃ) এর বিধান।

    Reply
  3. সঠিক বাঙালি

    আপনি মালাউন হয়ে যান। অসুবিধা নাই। ষোল কোটি মানুষ মালাউন হতে যাবে কেন?

    Reply
  4. এস এম মোশাহিদ

    আচ্ছা ভাই! মুসলিমদের ঈমান বিশ্বাষ নিয়ে তামাসা করেন যারা তারা যে কাজটা ভাল করেন না এ কথাটা কি একবার ও বলা যায় না?দ্বিতীয়ত যে ধর্মের মানুষের নামে এ অবমাননার কথাটা প্রচার হয়েছে ধরে যদি নেই সে ছেলেটা গয়ার তুলসী পাতা; তার পরে ও সে ধর্মের নেতারা কি একটি বারের জন্য বলতে পারেন না যে, অন্য ধর্মের প্রতি এমন বনো মানুষী আক্রমন আমরা সমর্থন করিনা? এমন কথা কি কোন হিন্দু বৌদ্ব নেতাদের মূখে শুনা গেছে?

    Reply
  5. Palash kumar das

    লেখককে ধন্যবাদ, অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা। আপনাদের সারগর্ভ লেখাগুলো পড়েপড়ে আমরা নিজেদেরকে ফিরে পাবার চেষ্টা করছি।
    মালাউন, মালু, ডান্ডি ইত্যাদি দুর্বোধ্য শব্দ ব্যবহার না করে খাঁটি বাংলা ভাষা ব্যবহার করলে সনাতন ধর্মীয়রা তত অপমানবোধ করতো না। তাতে একজাতির একদেশ তত্ত্বটাও ভালো প্রচার পেত।
    আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি
    জননী জন্মভূমি স্বর্গ হতেও গড়িয়ান—

    Reply
  6. মাজহারুল ইসলাম

    আচ্ছা কয়েকটা প্রশ্ন
    ১। যারা মিয়ানমারে মুসলমানদের নির্মমভাবে হত্য করছে তারা নরপিচাশ?
    ২। যারা ভারতে মুসলামনদের নানা অজুহাতে নাজেহাল করছে তারা জাহান্নামের কিঁট?
    তাইলে যারা নাসিরনগরে হিন্দুদের নির্যাতন করছে তারা বুঝি সাচ্ছা ঈমানদার????? সবকিছু নিজের মত করে ছোট্ট করে চিন্তা করে নিজের মনকে ছোট না করে আসুন সবাই “সবার অাগে মানুষ হই”।

    Reply
  7. রায়হান

    ইসলাম কখনো অন্য ধর্মকে আঘাত করতে শেখায়নি, আইডিওলজিতেও এটি নেই ৷ তবে সবসময় অন্যায়ের প্রতিবাদ করার কথা বলেছে ইনসাফ কায়েমের জন্য ৷ দোষীকে সাব্যস্ত করে শাস্তির আওতায় আনা রাষ্ট্রের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিদের কর্তব্য ৷ তারা যখন এই কাজে অবহেলা করে তখন পরিস্থিতি খারাপের দিকে মোড় নেয় ৷ তাই কর্তাব্যক্তিরা যত সচেতনভাবে তাদের দায়িত্ব পালন করবে সমস্যাগুলো তত দ্রুতই সমাধান হবে ৷

    Reply
  8. মুহাম্মাদ কামরুজ্জামান

    আমাদের দেশের ধর্মভীরু, ইমানদার মুসলিমদের কে যখন দালাল সাংবাদিক ও স্বঘোষিত নাস্তিকরা “মৌলবাদী” বলে প্রকাশ্য গালাগালি করে তখন, আপনারা কোথায় থাকেন? তখন ১৬ কোটি “মৌলবাদী” হয়না কেন? আশা করি উত্তর পাবো…
    দেশে সব অবমাননার বিচার আছে, কিন্তু আল্লাহ, রাসুল (সাঃ), ইসলাম এবং আল-কোরআন অবমাননার বিচার নাই বলেই এমন হওয়াটা স্বাভাবিক!

    Reply
    • বাঙাল

      আমাদের দেশের ধর্মভীরু মুসলমানরা “মৌলবাদি” নয় বা তাদের এই নাম কেউ চিহ্নিত করে না। বরাং তাদের ধর্মের প্রতি আগাধ ভালবাসা ও ইসলামের আসল রূপ শান্তির মহিমার আদর্শ ধারনের জন্য তারা বিশ্বের সব ধর্মের মানুষের কাছে প্রসংশিত। আপনার দৃষ্টিতে যাদের “দালাল সাংবাদিক ও স্বঘোষিত নাস্তিক” বলছেন তারাও এই দেশের সাধারন ধর্মভীরু মানুষদের শ্রদ্ধা করে। শুধু আপনার মত কিছু মানুষ যারা ধর্ম নিয়ে ব্যাবসা করেন, তাদের মৌলবাদি হিসাবে চিহ্নিত করা হয়। একাত্তরে এই মৌলবাদিরাই ধর্মের নামে ৩০ লক্ষ মানুষকে হত্যা করেছিলেন, ৪ লক্ষ নারিকে ধর্ষন।

      Reply
      • মুহাম্মাদ কামরুজ্জামান

        হা হা হা… হাসালেন। আল্লাহ তায়ালা বলেন- আমার নিকট একমাত্র মনোনীত ধর্ম, জীবনবিধান বা সংবিধান হল ইসলাম! (সুরা আল-ইমরান) কুরআনের এই আয়াত টি আপনি মানেন কি? এই একটি মাত্র আয়াত যারাই মানবে এবং আয়াত অনুযায়ী আল্লহর বিধান প্রতিষ্ঠা করার জন্য যারাই চেষ্টা করবে তাঁরাই প্রকৃত মুসলিম। বাকীরা হল তাগুত, ধর্ম ব্যাবসায়ী, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ব্যাবসায়ী, নাস্তিক, দালাল ইত্যাদি! আপনি কোন দলে?
        আর একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের কথা যদি বলেন তাহলে আমি বলবো, যারা প্রকৃত মুসলিম তাঁরা সবসময় অন্যয়ের প্রতিবাদ করে এবং মাজলুম নির্যাতিত মানুষের পক্ষে থাকে। যারা এর বিরোধিতা করেছিল এবং যারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনার নামে ৪৫ বছর পরও এটা নিয়ে ব্যাবসা করছে তাঁরাই বাংলাদেশের ১ নাম্বার শত্রু ।

  9. বাদল আহমেদ

    মুসলমানরা হিন্দুদের মালাউন ডাকে কিন্তু হিন্দুরা মুসলমানদের আড়ালে তাদের কোন নামে ডাকে? দেশের প্রতিটি নাগরিকের ই অধিকার সমান হওয়া উচিত। পাকীরা শিয়া মারছে, ভারতে মুসলমান মারা হচ্ছে, বার্মাতে মুসলমান মারা হচ্ছে। বাংলাদেশে হিন্দু নির্যাতন হচ্ছে, এটা খুবই খারাপ। আজকাল সরকারে আসতে ভোট লাগে না বলে ভোট ব্যাংক এর প্রয়োজন ও কমে গেছে।

    Reply
  10. jn shil

    ধন্যবাদ ওমর শেহাব। ধিক্কার ছায়েদুলকে। আমার নেত্রী কে ভাবতে হবে।তার পাশে আরও ছায়েদুল আছে কিনা?

    Reply
  11. মকবুল হুসাইন

    আপনি মালাউন হতে পারেন, কিন্তু ষোল কোটি মানুষকে মালাউন বলার অধিকার আপনার নেই।

    এই দেশে আইন আছে, আর আইন আছে বলে দেশের বিধর্মীরা যা করবে তা কি মেনে নিব? কখনও না। এই দেশের রাষ্ট্রীয় ধর্ম হচ্ছে ইসলাম। আর এই ইসলাম ধর্মের কোনো প্রকার অবমাননা করতে দিব না যতক্ষণ এই দেহে প্রাণ থাকবে।

    Reply
  12. Ratan

    ধন্যবাদ ওমর শেহাব,
    সত্যিকারের মালাউন প্রাণিসম্পদমন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হকের বক্তব্যের দারুণ প্রত্যুত্তরের জন্য। শুধু মুনা‌ফেক ও মুর্খরাই অ‌ন্য‌কে বা অন্য ধ‌র্মের মানুষ‌কে মালাউন বলেতে পা‌রে।

    Reply
  13. utpal kumar roy

    শুধু ক্ষমতা আঁকড়ে পড়ে থাকার জন্য আজ মৌল বাদীদের আশ্রয় নিয়েছেন ? যদি তাই হয় তবে জিন্নার সেই দ্বিজাতি তত্ত্ব ফিরিয়ে এনে বাংলা কে আবার দুই ভাগ করা হোক , সমগ্র সংখ্যা লঘুদের একটা নির্দিষ্ট এলাকা দেয়া হোক আর আপনারা সংখ্যা গুরুরা একটা এলাকায় বসবাস করুন কিন্তু এভাবে নীরব থেকে একটা সম্প্রদায়কে আপনি ধ্বংস করতে পারেন-না !!!!!!!!

    Reply
  14. আহমেদ রিফাত কবীর

    “মালাউন” শব্দটির অর্থ সৃষ্টিকর্তার সাহচর্য হতে বঞ্চিত অর্থে অভিশপ্ত। আশা করি সঠিক তথ্য প্রচার করবেন।

    Reply
  15. শুভবুদ্ধি

    প্রিয় ওমর শেহাব
    আপনার লেখাটি পড়লাম। অনেকেই প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। আপনার বলা ষোল কোটি মালাউন (রুপক অর্থে) আমরা অনেকেই ভুল ভাবে বুঝেছি ।আরও মজার কথা একজন লিখেছেন সেখানে কোনো একজন পবিত্র কাব শরীফের ছবি বিকৃত করেছেন তাই যা হয়েছে তা নিয়ে হৈ-চৈ করার কিছু নেই ।ধরে নিলাম (সত্য/ মিথ্যা যাচাই ছাড়াই) কোনো একজন এমন জঘন্য কাজটি করেছেন।তাই বলে হিন্দু সম্প্রদায়ের সবাই দায়ী, হাস্যকর যুক্তি ।যদি প্রমানিতও হয় এমন একটি কাজ কেউ একজন করেছেন, তাই বলে তাকে সহ সবাইকে পুড়িয়ে দিতে হবে?আসল কথা হচ্ছে ব্যাপরগুলো উন্মোচিত না হোক আর এই না হওয়ার সুবিধা ক্ষমতাবান ও সুবিধাবাদীদের। এভাবে মহাকাব্যে এপিসোড যুক্ত হতেই থাকবে।

    Reply
  16. Hasan

    যে হিন্দু ছেলেটি কাবা শরিফের উপর তাদের দেবতার ছবি দিয়ে পোষ্ট করেছে এর জন্য ওই ছেলের এমন শাস্তি হওয়া উচিত যাদেখে আর কেউ এমন করার সাহস না পায়। আর যারা ওই হিন্দু পল্লিতে ভাংচুর করেছে তারা এটা খারপ কাজ করেছে তাদেরও যথাযথ শাস্তি হওয়া দরকার। এই দুইটা কাজই খারাপ হয়েছে । এর জন্য সরকারের রাজনৈতিক আর দোষারপের বক্তব্য খুবই নিন্দনীয় । আর জনাব নিজেকে একজন মুসলমান হিসেবে চিন্তা করুন । আল্লাহর রাসুল কখনো বিধর্মীদের প্রতি অন্যায় অবিচার করেনি।

    Reply
    • Amanur

      আপনার কোমেনট টা আমার খুব ভালো লেগেছে . সোবার আগে আমার মুসলিম. আর মুসলিম ওননো ঢোরমো কে বৈদতা দিতে পারে না. তোবে ওননো কারো উপোর নিরজাতোন কোরতে পারে ন

      Reply
  17. হাসান

    আপনাদের এই চিন্তাধারা সকল ক্ষেত্রে থাকা উচিত।।। বাংলাদেশে এবং এই দেশের বাহিরে ঘটা সকল ঘটনার জন্য ও ঠিক এমন ভাবে মনে হয় লিখতে পারবেন না।।।

    Reply
  18. মুঽাম্মদ রিদুয়ান

    ভারতে মুসলমানদের অবস্থা নিয়ে লিখতে আপনাদের কষ্ট ঽয় বু ঝি ?

    Reply
  19. আকাশ

    আসলে মালাউন কারা তা ভেবে দেখা উচিত। মালাউন রা নিজের গায়ে চিমটি দেন

    Reply
  20. রাজিব

    আমাদের দেশে মুসলিমদের হত্যা করলেও আপনাদের গায় লাগে না। কিন্তু ‘মালু’ বলে গালি তথাকথিত অসাম্প্রদায়িকদের গায়ে লাগে।

    আর যে ব্যক্তি নিজেকে মালাউন ভাবে, ভাবতে পারে। ১৬ কোটি মুসলিমদের এ কথা বলার অধিকার তার নেই।

    Reply
  21. Fazlul Haq

    অভিযোগ, পাল্টা অভিযোগ, গালি বিনিময়, কাদা-ছোঁড়াছুড়ি, রাজনৈতিক দলাদলি কোনোটাই সমাধানের পথ দেখাবে না। একমাত্র ১৯৭২এর সংবিধান অনুসারে ঐক্যবদ্ধ সমাজ ও রাষ্ট্রব্যবস্থা স্থাপনই সমাধান। কারণ একমাত্র স্বাধীনতাবিরোধী ছাড়া ১৯৭২এর সংবিধান সকল ধর্মবর্ণ-জাতিগোষ্ঠী, সকল শ্রেণি-পেশার মানুষ, কৃষক-শ্রমিক সবার জন্য শান্তিপূর্ণ জীবনযাপনের বিধান দিয়েছে।

    Reply
  22. মামুনুর রশীদ

    আপনি একা মালাউন হতে পারতেন বা আপনার বাপ-দাদারা মালাউন হতে পারতেন, কিন্তু আমাদের মালাউন বললেন কেন?

    নাসিরনগরের আসল ঘটনা হল, ওখানকার এক হিন্দু যুবক পবিত্র ক্বাবা শরীফের ছবি এডিট করে তাতে শিবের ছবি লাগিয়ে ফেবুতে প্রচার করেছে। আর এতে এলাকাবাসী ক্ষিপ্ত হয়ে এ রকম করেছে।

    Reply
    • Humaun kabir

      ইমরান এইচ সরকার বলেছেন, আওয়ামী লীগ উগ্র সাম্প্রদায়িক দল। গত ৭/৮বছরের তথ্যও যদি নেওয়া হয়, বিভিন্ন পত্রপত্রিকা-
      মিডিয়া খুলে, তাহলে দেখা যাবে, সংখ্যালঘুদের সঙ্গে যতগুলো ঘটনা ঘটেছে তার ৯০ শতাংশই ঘটিয়েছে সরকারঘনিষ্ঠরা!!!

      Reply
    • কোয়েল

      চিলে তাইলে আপনার কানেও ছোঁ মেরেছে ভাইসাব?? এসবই আগুন এই এ সমস্ত আপনাদের মত “বিরাট জ্ঞানি” ব্যক্তিদের কারণেই ঘটছে। দেখেন, দেখেন কানটা আছে কি না।

      Reply
    • palash

      ভাই মামুন, ধরে নিলাম আপনার কথা সত্যি। তবে মন্দিরসহ এতগুলো পরিবার কি দোষ করছে?
      মাথায় গোবর ছাড়া আর কিছু আছে?েএকই অপরাধে তোমাদের এরকম করলে কেমন লাগবে?

      Reply
      • মামুনুর রশীদ

        আমি আপনাকে বা আপনার ধর্মকে নিয়ে কিছু বলছি না, কারন পবিত্র ক্বোরআনে আছে এবং আমাদের নবি সাঃ বলেছেন যে ধর্ম নিয়ে কোন বারাবাড়ি না করা।

        আমি just লেখকের লেখার পতিক্রিয়া জানিয়েছি

    • Pappu

      হিন্দু যুবকটি করেছে তা প্রমান পর্যন্ত অপেক্ষা করা যেত না? রামুর ঘটনাও মিথ্যা ও পূর্বপরিকল্পিত বলে প্রমানিত হয়েছে। প্রায় সব সাম্প্রদায়িক ঘটনাই এভাবেই হচ্ছে।

      Reply
  23. kaji arif

    নিজেদের মালাউন বা অভিশপ্ত ঘোষণা দিয়ে কী অর্জন হচ্ছে তা বুঝতে পারছি না। বরং অভিশপ্ত তারাই যারা সাম্প্রদায়িক আচরণ করছে আর যারা তাদের রক্ষা করছে। প্রিয় দল ক্ষমতায়, তাই লেখক মন্ত্রীর পদত্যাগ আর সে অঞ্চলের লীগের নেতাদের ব্যপারে কিছু বললেন না।

    এসব আছে বলেই সাম্প্রদায়িকতাও আছে!

    Reply
  24. ওয়াহিদ হাসান

    আমি সোজা-সাপটাই বলছি, যা হয়েছে তা নিয়ে কাগজ না ছিঁড়ে আদালতে একটা মামলা করে দেখাতেন। কাগজে মাতলামি করে নিজের মা-বাবাকে মালাউন বললেন কেন?

    মত প্রকাশ করা মানে কাউকে গালি দেওয়া উচিত নয়। প্রতিবাদের ভাষা গালি হয় না।

    Reply
  25. খাইরুল ইসলাম

    একটা জিনিস বুঝি না, আপনাদের মালাউনদের প্রতি এত দরদ কেন? তাহলে কি আপনিও মালাউন?

    Reply
  26. imran

    অভ‌িশপ্ত কারা? যারা পরকা‌লে জাহান্নাম‌ি হ‌বে তারা। আরব‌ি শব্দের ব্যবহার করার একটা পদ্ধত‌ি আছে। সময়ের প্রেক্ষিতে ব্যবহার করা হয়। আপ‌নি ভালোভা‌বে জা‌নেন।

    Reply
  27. Zaber

    বাংলাদেশে হিন্দুদের মালাউন বলা হয়, আর পাশের দেশে মুসলমানদের। কেবল গরুর মাংস রাখার জন্যও সেখানে মুসলমানদের মেরে ফেলা হচ্ছে। যে কোনো কিছু খাওয়ার অধিকার মানুষের অন্যতম মৌলিক অধিকার। কোনো রাষ্ট্র তাকে বলে দিতে পারে ন সে কী খাবে আর কী খাবে না।

    সে দেশে যখন মুসলমানদের ওপর নিপীড়ন হচ্ছে, তথাকথিত বুদ্দিজীবীরা তখন কোথায় থাকেন? তারা কি অন্ধ না একচোখা!

    দুনিয়ার যে কোনো জায়গায় মানুষের ওপর নিপীড়ন ইসলাম সমর্থন করে না। আমার মতে, এটা সত্যিকারের ইসলাম নয়।

    Reply
    • অনিচ্ছুক

      আপনি কি আপনার ভাইয়ের অপরাধের জন্য নিজে শাস্তি পেতে রাজি?

      যদি বলেন রাজি, তাহলে এ ধরনের ঘটনা পৃথিবীতে আর কখনও ঘটত না, যেখানে ভ্রাতৃত্ববোধ এতটাই প্রবল। আর যদি বলেন রাজি নন, তাহলে এ রকম মন্তব্য করার আগে আরেক বার ভাবা উচিত।

      Reply
    • মামুন

      ওমর শেহাবকে বলছি, মালাউন শব্দটি দিয়ে -আমরা ষোল কোটি ‘মালাউন’ শিরোনাম টি করা ঠিক হয়নি। মালাউন শব্দটি দ্বারা বুঝায় অভিশপ্ত। অতএব আপনি ১৫কোটি মানুষকে ইচ্ছামত হেডলাইন করতে পারেন না।

      Reply
  28. nazer alam

    ইমরান এইচ সরকার বলেছেন, আওয়ামী লীগ উগ্র সাম্প্রদায়িক দল। গত ৭/৮বছরের তথ্যও যদি নেওয়া হয়, বিভিন্ন পত্রপত্রিকা-মিডিয়া খুলে, তাহলে দেখা যাবে, সংখ্যালঘুদের সঙ্গে যতগুলো ঘটনা ঘটেছে তার ৯০ শতাংশই ঘটিয়েছে সরকারঘনিষ্ঠরা!!!

    Reply
    • Sajib

      কী বলব আর! হিন্দু বলি দিয়ে যে কদিন ক্ষমতায় থাকা যায় আর কী।

      আহা রে নোংরা রাজনীতি! হিন্দু বন্ধুরা জামায়াত-জামায়াত করে, আর আওয়ামী লীগ তাদের রক্ত নিয়ে খেল দেখাল। মানবতা কোথায় দাঁড়ায় তা-ই দেখার অপেক্ষায়।

      Reply
  29. অাহাদ খান

    শুধু মুনা‌ফেক ও মুর্খরাই অ‌ন্য‌কে বা অন্য ধ‌র্মের মানুষ‌কে মালাউন বলেতে পা‌রে।

    Reply
  30. সচেতন বাংগালী

    কেউ কি বলতে পারেন কেন এই মন্দিরগুলোতে হামলা চালানো হয়েছে???

    Reply
  31. সিম্পল গার্ল

    নাসিরনগর বা এ ধরনের ঘটনাগুলো বিচ্ছিন্ন কিছু নয়। এ ধরনের ঘটনা আওয়ামীরা আরও ঘটাবে। মিডিয়া কিছুদিন প্রচার করবে, নতুন কোনো ঘটনা এসব ভুলিয়ে দিবে। এরপর এই মিডিয়াই আবার তোষণে নেমে পড়বে!

    এভাবেই চলতে থাকবে…

    Reply
    • M. Rana

      হাউ ওয়্যারড! রাজাকারের চোখে পানি দেখছি!

      একেই কি বলে, ‘ভূতের মুখে রাম নাম’?

      Reply
  32. M. Rana

    ব্রাভো! ব্রাভো!! ব্রাভো!!!

    ধন্যবাদ ওমর শেহাব, সত্যিকারের মালাউন প্রাণিসম্পদমন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হকের বক্তব্যের দারুণ প্রত্যুত্তরের জন্য।

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—