Feature Img

Monjurul-Haque-fগত কয়েক দিন যাবত দেশের মিডিয়ায় নাসিক বা নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন নিয়ে যেমন তোলপাড় দেখা গেল তেমনটি সাধারণত জাতীয় নির্বাচনে দেখা গেছে এর আগে। মিডিয়ার কল্যানে হোক আর সরকার এবং বিরোধীদলের মুখোমুখি অবস্থানের কারণে হোক সমগ্র দেশের হাজারো খবরকে দূরে সরিয়ে প্রধান আলোচ্য হয়ে উঠেছিল নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। হতে পারে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের পর এটিই বড় ইভেন্ট। আরো হতে পারে গত কয়েক মাস যাবত সরকারের বিভিন্ন বিতর্কিত সিদ্ধান্ত, দেশের সামগ্রিক অবস্থা, দ্রব্যমূল্যের উর্দ্ধগতি, মূল্যস্ফীতিসহ অনেক বিষয়-আশয় মিলিয়ে মনে করা হয়েছিল প্রধান বিরোধীদলের অংশগ্রহণ এবং তাদের বিজয় জাতীয় রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে। পর পর দুটি রোডমার্চ করার পর বিরোধীদলের মৃতপ্রায় ইমেজ পুনরুদ্ধারও এই নির্বাচনের আর একটি বিষয় ছিল। শেষ পর্যন্ত নির্বাচন হলো এবং তা বেশ শান্তিপূর্ণই হলো। যেমনটি সাধারণত এই জনপদে প্রায় দুর্লভ। নির্বাচনের ফলাফল এখানে মূখ্য আলোচ্য নয়। তবুও বলে নেয়া ভালো নির্বাচনে ডা: সেলিনা হায়াৎ আইভী বিপুল ভোটে বিজয়ী হয়েছেন। এবং সরকার সমর্থিত অর্থাৎ আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী শামীম ওসমান পরাজিত হয়েছেন। একেবারে শেষ মুহূর্তে বিএনপি প্রার্থী তৈমুর আলম খন্দকার নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। এর পরের সন্দেশগুলো বেশ গতানুগতিক হলেও চমকপ্রদ। যেমন বাংলাদেশের নির্বাচনী সংস্কৃতিতে এর আগে বিজয়ী প্রার্থীকে পরাজিত প্রার্থীর শুভেচ্ছা জানানোর রেওয়াজ ছিল না। ছিলো না পরাজয় মেনে নিয়ে বিজয়ীকে অভিনন্দন জানানোর প্রথাও। এবার সেটিই ঘটেছে। প্রথম দিন ‘ষড়যন্ত্র করে হারানো হয়েছে’ বললেও পরের দিনই শামীম ওসমান সংবাদ সম্মেলন ডেকে ডা: আইভীকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। এক নজরে দেখে নেয়া যাক নির্বাচন পরবর্তী সন্দেশগুলোঃ

ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী বলেছেন, তার এ জয় সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজদের বিরুদ্ধে। জনতার জয় হবেই হবে। কারণ জনতা কখনও ভুল সিদ্ধান্ত নেয় না। জনতা সত্য ও সুন্দরের পক্ষে রায় দিয়েছে। শত চেষ্টা এবং ষড়যন্ত্র করেও তার প্রাপ্য বিজয় ছিনিয়ে নেওয়া সম্ভব হয়নি। তিনি বলেন, তার জয় চাঁদাবাজ ও ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে। এ সময় তিনি বলেন, তিনি আওয়ামী লীগে ছিলেন, আছেন, থাকবেন।

অন্য দিকে নিজ দল সমর্থিত মেয়র প্রার্থীর নিশ্চিত পরাজয় আঁচ করতে পেরে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী শামীম ওসমানকে ঠেকাতেই ‘মূলত’ শেষ মুহূর্তে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছে প্রধান বিরোধী দল বিএনপি। আওয়ামী লীগের সমর্থনবঞ্চিত মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভীর বিজয়ের পথ ‘সুগম’ করে দিতে এ ‘কৌশলী’ ভূমিকা গ্রহণ করে দলটির হাইকমান্ড। একই সঙ্গে দলীয় সরকারের অধীনে ‘সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়’ বলে দলের বর্তমান অবস্থানও ‘প্রমাণ’ করতে চায় বিএনপি। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া নির্বাচন কমিশন চাইলেও সেনাবাহিনী মোতায়েন করার সিদ্ধান্ত নিয়ে সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন করতে পারবে না– নাসিক নির্বাচনই তার প্রমাণ বলে দেখাতে চায় দলটি।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার ড. এটিএম শামসুল হুদা বলেছেন, সব আশঙ্কা পেছনে ফেলে প্রমাণিত হলো জনগণ চাইলে সুন্দর নির্বাচন সম্ভব। নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের বিষয়টি একটি রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত উল্লেখ করে ঐকমত্যের ভিত্তিতে তার সমাধান আশা করেন সিইসি। নারায়ণগঞ্জের ভোটাররা সব শঙ্কাকে পেছনে ফেলে নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। এ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হয়েছে জনগণ চাইলে তারা যে কোনো প্রতিবন্ধকতা ভেঙে দিতে পারে। একটি সুন্দর ও সুষ্ঠু নির্বাচন সম্পন্ন হওয়ায় সৃষ্টিকর্তাকে ধন্যবাদ জানান সিইসি। শেষ পর্যন্ত কোনো অঘটন ছাড়াই সম্পন্ন হয়েছে বহুল আলোচিত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচন।

এখানেই এই ভোটের অংক শেষ করা যেত। কিন্তু এটাই এই নির্বাচনের সারসংকলন নয়।

মহাজোট সরকার সংবিধানের সংশোধনী এনে ‘নিরপেক্ষ’ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করেছে। এটা নিয়ে সরকার এবং বিরোধীদলের অনেক কাদা ছোঁড়াছুড়িও হয়েছে। সরকারের তরফে বলা হয়েছে বিএনপির জন্য সবসময়ই আলোচনার দরজা খোলা ছিল, তারা আলোচনায় আসেনি, মতামতও জানায় নি। অন্য দিকে বিএনপি বলছে তাদের ডাকা হয়নি। সরকার একতরফাভাবে সংবিধান সংশোধন করেছে। নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকারে আসীন মহাজোট আইনত অনেক কিছুই করতে পারে। সেই থেকে বিএনপি বলে আসছে কোনো দলীয় সরকারের অধীনে তারা নির্বাচনে যাবে না। কোনো দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন সুষ্ঠু হতে পারে না। এমনকি তারা ‘যে কোনো মূল্যে’ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা পুনর্বহাল করেই আগামী জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেবে। তারই অংশ হিসেবে বিএনপি রোডমার্চ, এক দিনের হরতাল, দুদিনের হরতালসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে। সেই স্ট্রাটিজিক্যাল ফর্মূলার অংশ হিসেবে এই নাসিক নির্বাচন ছিল বিএনপির কাছে সরকারের তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থা বিলুপ্তির এ্যাসিড টেস্ট। কিন্তু কেন এই সন্দেহ? কেনই বা নির্বাচনে সেনা মোতায়েনের বাধ্যবাধকতা? এর উত্তর মিলবে অনেক পুরোনো হয়ে যাওয়া বিএনপি আমলে মাগুরার সেই কুখ্যাত নির্বাচনের মডেলের দিকে তাকালে। সেই কুখ্যাত মাগুরা নির্বাচনের দগদগে ঘা যতই শুকিয়ে যাক না কেন রাজনীতির ভেতর-বাইরে তার বিষবাষ্প এখনো সমানতালে বিষের উদগিরণ করে চলেছে।

নব্বইয়ের গণঅভ্যুত্থানের আগে তিন জোটের ঐকমত্যের ভিত্তিতে বাংলাদেশের রাজনীতি একেবারে আনকোরা বিষয় হিসেবে আমদানি হয়েছিল ‘নিরপেক্ষ নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার’। সেই রূপরেখায় অনেক দিকনির্দেশনাও ছিল। ৯০, ৯৬, ২০০১ এবং ২০০৮-এ সেই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনেই নির্বাচন হয়েছে। এতে করে মনে হতে পারে আসলেই বুঝি সেই নির্বাচনগুলো অবাধ, সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ হয়েছিল! পাঁচ পাঁচটি বছর ধরে ক্ষমতাসীন দল সরকার পরিচালনা করে এবং এই পরিচালনার বিরুদ্ধে নিয়মতান্ত্রিক প্রতিবাদ থাকলেও বিরোধীদলগুলো সরকারকে বাতিল করে না। সরকারের নেয়া সিদ্ধান্তসমূহের সমালোচনা করলেও বিরোধীদলসমূহ সরকারকে কালা,বোবা,অন্ধ এবং অথর্ব মনে করেনা। সেই বিরোধীদলগুলোই কেবল নির্বাচনের সময় এলেই সরকারকে আর বিশ্বাস করতে না পেরে সমাজের ইতি-উতি খুঁজে পেতে কিছু অবসরপ্রাপ্ত ‘নিরপেক্ষ’ মানুষ সৃষ্টি করে তাদেরই হাতে তিন মাস সময় দিয়ে নির্বাচন করায়। এবং উচ্চ শ্রেণীর বিভিন্ন পেশার মানুষগুলো রাতারাতি ‘দেবশিশু’ হয়ে ওঠেন। তাদের প্রধান থাকেন একজন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি। বাকি নয় জন থাকেন তার উপদেষ্টা। সেই দশ জন তিন মাস দেশ চালান তো বটেই দেশের ভাগ্যবিধাতা হয়ে রাজনৈতিক দলগুলোর ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করে দেন। তারপর শেক হ্যান্ড করে যার যার পেশায় ফিরে যান। এই অবিশ্বাসের বীজ থেকে অঙ্কুরিত অবিশ্বাস্য অভূতপূর্ব ব্যবস্থাও যে নিরপক্ষে আর নির্দলীয় ছিলনা তাও গত চার বারই প্রমান হয়েছে। যে দলই হেরেছে তারা কারচুপির অভিযোগ এনেছে। এটা ছিল এদেশের রাজনীতিতে ‘বড় খোকাদের পুতুল খেলা’। কার্যত যা ছিল জাতির ললাটে অবিশ্বাসের এক কলঙ্ক তিলক।

আর এক অবিশ্বাসের বীজ বোনা হয়েছিল এর সাথে। এই কেয়ার-টেকার সরকারের শুরু থেকেই এর প্রধান রক্তবাহী ধমণী হিসেবে বিরাজ করছিল সেনাবাহিনী। অলিখিতভাবেই সেনাবাহিনী তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অন্যতম অঙ্গ হয়ে বিরাজ করেছে। গত চার চারটি নির্বাচনেই পুলিশে আস্থা না রেখে সেনা মোতায়েন করতে হয়েছে। অবস্থাটা এমন দাঁড়িয়েছে যে পুলিশ, বিডিআর, আনসার, গ্রাম পুলিশ কারো উপর আস্থা রাখা যাবে না। তারা হয় দলীয়, নয়ত দুর্নীতিপরায়ন। এমন ঢাকঢোল পিটিয়ে আর কোনো দেশে একটি বিশেষ বাহিনী ছাড়া বাকি সকল বাহিনীকে অবিশ্বাস করা এবং তাদের উপর আস্থা না রাখার নজির আর কোথাও আছে বলে জানা নেই। ধরেই নেয়া হয় যে সেনা মোতায়েন না হলে ভোট কারচুপি হবে! সরকারের লেঠেলরা ভোটবাক্স ডাকাতি করবে! সরকারের অনুগত আমলা-কর্মচারিরা সরকারের হয়ে দালালি করবে! কেবল মাত্র সেনা মোতায়েন হলেই সব কিছু স্ফটিল জলের মত পরিষ্কার আর নিষ্কলঙ্ক হয়ে উঠবে।

নাসিক নির্বাচন এই দুই অবিশ্বাসের ঘেরাটোপে বন্দী বিশ্বাসকে আবার জাগরুক করেছে। আমাদের বিদগ্ধ বিদ্বৎজনেরা বিভিন্ন টকশোতে বলে থাকেন; আমাদের একটি টি আর সেশন-এর মত নির্বাচন কমিশন নেই! অমন একটি শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন থাকলে আমাদের গণতন্ত্রের ভিত মজবুত হতো। অর্থাৎ আমাদের নির্বাচন কমিশনের উপরও রাজনীতিবিদ, সুশীল সমাজ বা সমাজের অপরাপর নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিবর্গের কোনো আস্থা নেই! নাসিক নির্বাচন সেই আস্থাহীনতার জগদ্দল পাথরেও আঘাত করে চূর্ণ করেছে। নির্বাচন কমিশন প্রমান করেছে তারা নিরপেক্ষ এবং নির্মোহ থেকে সেনা মোতায়েন ছাড়াও সুষ্ঠু নির্বাচন করতে সক্ষম। যদিও সেনা মোতায়েন নিয়ে সরকার-নির্বাচন কমিশনের টানাপোড়েন ছিল এবং এখনো আছে।

আওয়ামী লীগ আগামী নির্বাচনে কী করবে সেটি দূরের ভাবনা। এই সময়ের কথা হচ্ছে তারা এই নাসিক নির্বাচনে রাজনীতির ছোট ছোট ব’ড়ের চাল দিয়ে বিরোধীদলের আস্ফালন, হুঙ্কারের বাউন্সার, গুগলিগুলো ব্যাকরণসম্মত ভঙ্গিতেই মোকাবেলা করেছে। তারা প্রমাণ করেছে দলীয় সরকারের অধীনেও সুষ্ঠু নির্বাচন করা যায়। তারা দেখিয়ে দিয়েছে সেনা মোতায়েন না করেও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখা যায়। তারা প্রতিষ্ঠিত করেছে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ‘ফসিল’ নয়, নির্বাচিত দলীয় সরকারের ‘হৃষ্টপুষ্ট দেহই’ তুলনামূলক নিরপেক্ষতা দেখাতে পারে। এসব যদি আওয়ামী লীগের ‘চাল’ হয়, তাহলে বলতেই হবে তারা কিছু দুর্দান্ত চাল দিয়েছে। এসব যদি বিএনপি তথা প্রধান বিরোধীদলের ‘চুন খেয়ে মুখ পোড়ানো’ হয়, তাহলে বলতে হবে তারা তিনটি বিষয়েই অকৃতকার্য হয়েছে।

মনজুরুল হক : সাংবাদিক ও কলাম লেখক।

১২ Responses -- “নারায়ণগঞ্জের নির্বাচন তিনটি প্রশ্নের মীমাংসা করে দিয়েছে”

  1. মতিন সরকার

    ভাই মনে রাখবেন নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন বলে কিছু নেই যা আমাদের দেশের খোঁজা হয়। কারন নির্বাচন হবে নির্দিষ্ট নিয়মনীতির আওতায়, কোন নিরপেক্ষ কাঠ মোল্লার ব্যক্তিগত সততার মাধ্যমে নয়। খুঁজে দেখেন বিশ্বের কোন দেশেই নির্বাচন পরিচালনার জন্য কোন নিরপেক্ষ কিংবা কাঠ মোল্লা খোঁজা হয় না। শুধু আমাদের দেশে হয়। আর সেই কারনেই আমরা শুধু একটি নির্বাচন করার জন্য একটি নির্বাচিত সরকারকে একটি অনির্বাচিত সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করতে যুক্তি দেখাই। কিন্তু নির্বাচন কমিশনের অধীনেই দেশের সব নির্বাচনই হচ্ছে, তাহলে কেন সাধারণ নির্বাচন হতে পারবে না। বিবেককে প্রশ্ন করুন। দেশকে আর পিছানোর সময় নেই। দেশকে এখন এগিয়ে নেয়ার সময়।

    Reply
  2. সাফাউল হক

    নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে সুষ্ঠু উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নির্বাচন কমিশন সঠিকভাবে কাজ করলে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব।

    আপনার লেখার সাথে প্রধানমন্ত্রির উক্তিটি শুনলে হাস্যকর মনে হয় না…………

    Reply
  3. remu zahirlu

    যেহেতু সেনাবাহিনী দেওয়ার দিন তারিখ ঠিক হওয়া সত্বেও সেনাবাহিনী দেওয়া হয়নি(ইসি সরকারের কাছে চিঠি দিয়েছে কেন সেনা মোতায়েন হয়নি) এতে স্পষ্ট বোঝা যায় ইসির হ্মমতা সরকারের হাতে। তাহলে আরও স্পষ্ট হয় যে জাতীয় নির্বাঃ কোনভাবে সুষ্ঠু হওয়ার সম্ভাবনা নেই। নির্বাঃ হলেই নিরপেহ্ম হবে না।

    Reply
  4. মাফিজুল ইসলাম

    শামীম ওসমান নির্বাচনের পরাজয় মেনে নিয়েছেন এই কারনে যে…কারচুপির অভিযোগ করলে তিনি নিজের দলের বিরুদ্ধেই করবেন…এবং নিজেরই বিপদ ডেকে আনবেন…উনি যে মন থেকে পরজয় মানেননি তার প্রমান হল আগের দিন ঠিকই অভিযোগ করেছেন…পরের দিন দলীয় চাপে পড়ে হোক আর নিজের শুভ বুদ্ধির কারনেই হোক…মেনে নেয়ার সুন্দর নাটক বানিয়েছেন…হায়রে রাজনীতি…!!!

    Reply
  5. ahm titu

    ভাগ্য ভাল যে মিঃ মনজুরুল বলেননি- নাসিক নির্বাচনে সব প্রশ্নের মীমাংসা হয়েছে। আসলে দলের প্রতি অন্ধ অনুগতরা সবকিছু নিজের দলের স্বার্থে বলেন এবং করেন। আবার কিছু কিছু ব্যক্তি আছে যারা নিজেদের নিরপেক্ষ বলে দাবী করেন কিন্তু তাদের বক্তৃতা বিবৃতিতে পার্টির কর্মী/সমর্থকরা ও লজ্জা পান।

    Reply
  6. মিল্লাদ

    জনাব মনজুরুল লিখেছেন, এসব যদি আওয়ামী লীগের ‘চাল’ হয়, তাহলে বলতেই হবে তারা কিছু দুর্দান্ত চাল দিয়েছে। বাস্তবতা হলো অন্য। সেনা মোতায়েন না হওয়াতে নির্বাচনের আগে সরকারী দলের নেতাদের মুখ যে কি পোড়া লাগছিলো তা মনে হয় ওনার চোখে পড়েনি। এ নিয়ে যে তারা অনেক বিচলিত ছিলেন তা বিভিন্ন পত্রিকাতে এসেছিলো। সত্যি কথা হলো নারায়ণগঞ্জের নির্বাচনএ একটি প্রশ্নের মীমাংসা হয়েছে আর তা হলো নির্বাচন কমিশন এত স্বাধীন ও শক্তিশালী নয় যে তারা একটি দলীয় সরকারের অধীনে জাতীয় নির্বাচন করতে পারবে।

    Reply
  7. Hasan zia

    ‌‌নির্বাচন কমিশন প্রমান করেছে তারা নিরপেক্ষ এবং নির্মোহ থেকে সেনা মোতায়েন ছাড়াও সুষ্ঠু নির্বাচন করতে সক্ষম।’ মোটেই ঠিক নয়। সরকারের ইচ্ছাতেই শান্তিপূর্ণ হয়েছে। নির্বাচন কমিশন যে ঠুটু জগন্নাথ তার প্রমাণ তাদের চাোয়ার পরো সরকার সেনাবাহিনী দেয় নি। এমনকি চিঠির উত্তর দেবার প্রয়োজন বোধ করেনি।

    Reply
  8. Faisal

    সেনা বাহিনী ছাড়া সুষ্ঠ নির্বাচনের পেছনে সবচেয় বড় কারণটিই হলো বি এন পির নির্বাচন বর্জন। কেননা শামীম ওসমান জঙগি হামলার আশংকা করে জি ডি করে কার্যত নির্বাচের দিন নিজে যা করতেন তার দোষটা বি এন পির ঘাড়ে চপানোর আগাম প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছিলেন বলেই আমাদের ধারণা। কিন্তু তাতে বাঁধ সেধেছেন তৈমুর আলম খন্দকার নিজেকে সরিয়ে নিয়ে।
    আর বহুদিনের পুরনো অভ্যাসটা ঝালাই করতে না পেরে এখন শামীম আবোল তাবোল বলছেন।

    Reply
  9. বিপ্লব রহমান

    “নাসিক নির্বাচন সেই আস্থাহীনতার জগদ্দল পাথরেও আঘাত করে চূর্ণ করেছে। নির্বাচন কমিশন প্রমান করেছে তারা নিরপেক্ষ এবং নির্মোহ থেকে সেনা মোতায়েন ছাড়াও সুষ্ঠু নির্বাচন করতে সক্ষম। যদিও সেনা মোতায়েন নিয়ে সরকার-নির্বাচন কমিশনের টানাপোড়েন ছিল এবং এখনো আছে।”

    বটম পয়েন্টে এ ক ম ত। তবে নাসিকের নির্বাচনে আইভি জিতলেও শীতলক্ষ্যায় দুধ ও মধুর নহর বইবে না। আম-জনতা যে তিমিরে আছেন, সেই তিমিরেই থাকবেন। প্রশাসনিক সন্ত্রাস-দুর্নীতি অনেক কম হবে– এই যা আশা।

    লেখককে অনেক ধন্যবাদ। চলুক।

    Reply
  10. Saiful Islam Sekul

    আমরা মুখে গণতন্ত্রের বুলি আওরাই, আর গণতন্ত্রের প্রধান বিবেচ্য মানদণ্ড ‘নির্বাচন’ করতে গিয়ে নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার কিংবা নির্বাচন অনুষ্ঠানের সময় সেনাবাহিনী মোতায়নকে আবশ্যিক করে দেখি! এতো অনেকটা‌ ‘ডাবল স্ট্যান্ডার্ড মোরালিটি’। যদিও একথা বলতে দ্বিধা নেই যে বাংলাদেশে অতীতের নির্বাচন বিশেষ করে ১৯৯১,১৯৯৬ ও ২০০৯ সালের নির্বাচন ছাড়া বাকি নির্বাচনগুলো (দলীয় সরকার কিংবা তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলেই হোক না কেন)ছিল পক্ষপাতিত্ব, পেশিবহুল, ষড়যন্ত্র আর জবরদখলের নির্বাচন। কিন্তু তখনকার প্রেক্ষাপট আর বর্তমান প্রেক্ষাপট এক নয়।
    একথাটা অন্তত আমাদের বুঝা উচিৎ যে, বর্তমানে বাংলাদেশের নাগরিকদের মধ্যে রয়েছে যথেষ্ট সচেতন গণতান্ত্রিক মনোভাব, আমাদের মিডিয়া জগৎ আগের তুলনায় অনেক শক্তিশালী, বিভিন্ন গণতান্ত্রিক ও মানবাধিকার সংগঠনসমূহও বেশ সোচ্চার, আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষণও অনেকটা নিরপেক্ষ। আর এসকল কারণে যেন-তেন ভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠান, ভোট কেন্দ্র দখল, কারচুপি ইত্যাদি সংঘটিত করা প্রায় অসম্ভব ব্যাপার। তাঁরা প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছেন, যে দলীয় সরকারের সময়ও কিংবা সেনাবাহিনী ছাড়াও সুষ্টু নির্বাচন করা সম্ভব।

    Reply
  11. milon

    সাংবিধানিক একটি পদকে যেভাবে অপমান করা হলো তার ভাষা আমার জানা নেই। সেনাবাহিনী মোতায়েনের তারিখ ও সময় উল্লেখ করেও না নামানোতে বোঝা যায় তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যাতীত নির্বাচন কমিশন কিভাবে নির্বাচনী এলাকার আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি মোকাবেলা করবে আর এম.পি, মন্ত্রীদের কিভাবে প্রশাসনকে প্রভাবিত করা থেকে বিরত রাখবে তা আপনিসহ বিবেকবান মানুষের নিকট আমার প্রশ্ন থাকল?

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—