বাংলাদেশের একজন বুদ্ধিজীবী ফরহাদ মজহার তাঁর তথাকথিত ভাবান্দোলন ও জিহাদ-সমর্থনের জন্যে অনেকের কাছে পরমপূজ্য। তাঁর অনুসারী জনৈক পিনাকী ভট্টাচার্য একটি সামাজিক যোগাযোগ-মাধ্যমে দাবি করেছিলেন, তিনি নাকি সকল মৃত ও জীবিত বাঙালির মধ্যে শ্রেষ্ঠ মনীষা। আমি দুঃখিত, তা সত্ত্বেও আমি তাঁর সমালোচক।

প্রতিষ্ঠান ও প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তিত্বের বিরুদ্ধে সমালোচনা অধিকাংশ মানুষ মেনে নিতে পারেন না। কারণ, তাতে তাদের মধ্যে ‘কোগনিটিভ ডিসোন্যান্স’ বা বোধিক বৈরিতা তৈরি হয় বলে তাদের আবেগ আঘাতপ্রাপ্ত হয় এবং তাঁরা কষ্ট পান। আমি তাদের অনুভূতির প্রতি শ্রদ্ধা ঘোষণা করেই বলছি, ফরহাদ মজহারকে নির্বোধ প্রমাণ করা আমার বুদ্ধিবৃত্তির উদ্দেশ্য নয়, কিন্তু আমার বুদ্ধিবৃত্তিক অবস্থান যদি তাঁর অবস্থানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক হয়, তাঁর চিন্তার সওঙ্গ আমার সংঘর্ষ এড়াবার কোনো পথ নেই।

আমি মনে করি, বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্মের মধ্যে বোধিক পর্যায়ে আজ যে-বিভ্রান্তি বিরাজ করছে এবং যার কারণে অসীম সম্ভাবনাময় চৌকস তরুণেরা মর্য্যাদাপূর্ণ আত্মপরিচয় ও জীবনের তাৎপর্যের সন্ধানে আত্মহারা হয়ে মৃত্যু-খেলায় মেতে উঠেছে, তার পেছনে অবদান রয়েছে ফরহাদ মজহারের মতো বুদ্ধিজীবীদের, যাঁরা প্রথমে মার্ক্সবাদী আন্তর্জাতিকতাবাদ ও শ্রেণি-সংগ্রামের নামে বাঙালি-আত্মপরিচয়ের দার্শনিক ও রাজনৈতিক অবস্থানের বিরোধিতা শুরু করে শেষ পর্যন্ত ইসলামিক উম্মাহবাদ ও জিহাদের পক্ষে অবস্থান নিয়ে বাঙালি জাতিত্বের বিরুদ্ধে সংগ্রাম অব্যাহত রেখেছেন। ফলে, আমি আমার জাতির তরুণ প্রজন্মের অস্তিত্ব, তথা জাতির অস্তিত্বের স্বার্থে ঐসব বুদ্ধিবৃত্তির বিরুদ্ধে লড়ার নৈতিক অধিকার সংরক্ষণ করি।

‘ভাবান্দোলন’ বলতে কী বুঝায়, তা ফরহাদ মজহার কিংবা তাঁর ভাবশিষ্যদের কেউই স্পষ্ট করে সংজ্ঞায়িত করেননি। বিভিন্ন সময়ে জিজ্ঞেস করে উত্তর পাওয়া গিয়েছেঃ বইয়ে আছে, পড়ে নিন। যদিও তাঁরা বাঙালি আত্মপরিচয়ের বিরোধী, কিন্ত ‘ভাবান্দোলন’এর আগে ‘বাংলার’ যোগ করে তাঁরা ‘বাংলার ভাবান্দোলন’ নাম প্রচার করে থাকেন। শিষ্যদের কেউ কেউ ‘বাংলার ভাবান্দোলন’কে সর্বভারতীয় ভক্তিবাদের বিশিষ্ট রূপ বলে অস্বীকার করলেও, ভাবগুরু ফরহাদ মজহার স্বয়ং তা অস্বীকার করেননি। তাঁরা সকলেই ষোল শতকের গোড়ার দিকে বাঙালি হিন্দু-ধর্ম সংস্কারক নিমাই সন্যাসী বা চৈতন্যের ‘অচিন্ত্য ভেদাভেদ’ দর্শনকে মূল হিসেবে মানেন।

‘অচিন্ত্য’ মানে যা চিন্তা করা যায় না। আর, ‘ভেদাভেদ’ বলতে বুঝায় ভেদ ও অভেদ। নিমাই সন্যাসী অভিন্ন স্পিরিটের দ্বৈত প্রকাশ হিসেবে রাধা ও কৃষ্ণের দেহরূপকে প্রতীক হিসেবে প্রতিষ্ঠা করে চিন্তা ও বুদ্ধির উর্ধ্বে প্রেম তথা মানুষের আবেগের প্রতি আবেদন জানিয়ে বোধের ক্ষেত্রে সাম্য সৃষ্টির প্রয়াস পেয়েছেন। ফরহাদ মজহার তাঁর ভাববাদের চর্চায় রাধা-কৃষ্ণের ভাব-বন্দনার কথা গোপন করেন না, কিন্তু তা সত্ত্বেও একটি তীব্র মুসলিম আত্মপরিচয়বোধে জাগ্রত হয়ে তিনি সেখানে ইসলামের অবদান নিরূপণ করে লালন ফকিরের বাউলবাদে এসে স্বস্তি লাভ করেন।

 

Radha-Krisna - 111
ফরহাদ মজহার তাঁর ভাববাদের চর্চায় রাধা-কৃষ্ণের ভাব-বন্দনার কথা গোপন করেন না

 

ফরহাদ মজহার যদিও নিজেকে শ্রুতিমধুর ‘রাষ্ট্রচিন্তক’ হিসেবে পরিচয় দেন, কিন্তু ভাবান্দোলনের ভিত্তিতে কী রাষ্ট্র গঠন করতে চান, তার কোনো রূপরেখাই তিনি দিতে পারেননি। দেশ-জাতি-রাষ্ট্র-রাজনীতির আন্তঃসম্পর্কিত কোনো সমন্বিত রূপরেখাই তাঁর নেই।

সমস্যা হচ্ছে, দার্শনিকভাবে ফরহাদ মজহার বিস্তৃত ও সমন্বিত রূপরেখার বিরুদ্ধে। কারণ, সমগ্রকে যা ব্যাখ্যা করে তাকে তিনি ও তাঁর শিষ্যরা ‘গ্র্যাণ্ড ন্যারিটিভ’ বলে নিন্দা করেন উত্তরাধুনিকতাবাদীদের রেটোরিক অনুসরণ করে। তবে ইদানিং তিনি দেশে ইসলাম প্রতিষ্ঠার কথা খোলামেলাই বলেন। দুবছর আগে লণ্ডনের একটি আলোচনায় তিনি বলেছেন, ইসলাম প্রতিষ্ঠার জন্যে তিনি বাংলাদেশকে ‘কব্জা’ করতে চান।

রাজনৈতিক পরিবর্তনের প্রক্রিয়া হিসেবে ফরহাদ মজহার প্রথমে শ্রেণি-সংগ্রামবাদী হলেও, পরবর্তীতে তিনি জিহাদের মধ্যে শ্রেণিসংগ্রাম আবিষ্কার করেন। আমি ২০১৩ সালে এক লেখায় দেখিয়েছিলাম, তিনি শ্রেণি-সংগ্রামের মর্মবস্তু অন্তর্ভুক্ত না করেই জিহাদের সাথে শ্রেণি-সংগ্রাম অভিন্ন করে দেখাচ্ছেন।

শ্রেণি-সংগ্রাম যেখানে উৎপাদনের উপায় (মিনস অব প্রোডাকশন) ও উৎপাদিত পণ্যের (কোমোডিটি) ওপর অধিকার ও অধিকারহীনতার ভিত্তিতে সৃষ্ট দুই বিরুদ্ধ মানব-দলের পরস্পরবিরোধী ইহজাগতিক স্বার্থের সংঘাত দ্বারা বস্তুনিষ্ঠভাবে সংজ্ঞায়িত, জিহাদ সেখানে আল্লাহ্‌র একত্ব, শ্রেষ্ঠত্ব ও শরিকহীন উপাস্যতার ভিত্তিতে কুরআন ও সুন্নাহর নির্দেশিত বিধি প্রতিষ্ঠার ধর্মতাত্ত্বিক ও রাজনৈতিক আন্দোলন, যার রয়েছে ইহজাগতিক ও পারলৌকিক তাৎপর্য।

দুবছর আগে বিশ্বের বিভিন্ন সংবাদ সংস্থা আইএসের এই ঘোষণার ওপর প্রতিবেদন প্রকাশ করে জানিয়েছে যে, তারা সৌদি আররের মক্কায় প্রতিষ্ঠিত প্রাচীন উপসনালয় ‘কাবা’ ধ্বংস করতে চায়। ২০১৪ সালের ৩০ জুন আজারবাইজানের রাজধানী বাকু থেকে রাশেদ সুলেমানভ নামের এক প্রতিবেদক বার্তাসংস্থা APAএর ওয়েবপেইজে প্রকাশিত তাঁর প্রতিবেদনে আইএসের এক নেতার নাম উল্লেখ লিখেন:

ISIS member Abu Turab Al Mugaddasi said that they would destroy the Kaaba in Mecca: “If Allah wills, we will kill those who worship stones in Mecca and destroy the Kaaba. People go to Mecca to touch the stones, not for Allah.

অর্থাৎ, “আইএস সদস্য আবু তুরাব আল মুগাদ্দাসি বলেন যে, তাঁরা মক্কার কাবা ধ্বংস করবে: “আল্লা চাহে তো, আমরা মক্কার সেইসব পাথর (আসওয়াদ) পুজারীকে হত্যা করব এবং কাবা ধ্বংস করব। লোকেরা মক্কায় যায় পাথরগুলো স্পর্শ করতে, আল্লাহ্‌র জন্য নয়।””

JihadWatch (জিহাদ পর্যবেক্ষক) নামের একটি ওয়েবসাইট এই দিনে উপরের খবর পরিবেশন করে প্রশ্ন করেছে নবী মুহাম্মদকে অনুসরণ করে কাবাতে উপাসনা করা উচিত নাকি পৌত্তলিকতা বন্ধ করতে তা ধ্বংস করা উচিত? সাইটটি লিখেছে:

This will not endear them to many Muslims. The Saudis themselves, who are no friends of The Islamic State, assiduously destroy religious artifacts in a bid to prevent “idolatry,” but since Muhammad himself is — according to Islamic tradition — supposed to have prayed in the Kaaba, they have not dared to touch it. Will an irresistible force here meet an immovable object? Muslims must reject and destroy all possible temptations to idolatry, and also must follow Muhammad’s example in all things. Can the Kaaba ipso facto not be an inducement to idolatry because Muhammad prayed there? Or must it be destroyed despite Muhammad’s example so as to prevent the worship of stones? Are Muslims to follow Muhammad in all things or are they to destroy all sources of idolatry?

অর্থাৎ, “এটি (কাবা ধ্বংস কারা) তাদেরকে (আএইসকে) মুসলমানদের কাছে আদরণীয় করবে না। স্বয়ং সৌদিরা, যারা ইসলামিক স্টেইটের বন্ধু নয়, তারাও ‘পৌত্তলিকতা’ রুখতে ধর্মীয় শিল্পকর্ম ধ্বংস করতে চায়, কিন্তু যেহেতু ইসলামিক ঐতিহ্য (সুন্নাহ) মতে মুহাম্মদ স্বয়ং কাবাতে উপাসনা করেছেন বলে মনে করা হয়, তাই তারা এটি স্পর্শ করার সাহস দেখাচ্ছে না। এখানে কি একটি অপ্রতিরোধ্য শক্তি একটি জড় বস্তুর সম্মুখীন হবে? মুসলমানদেরকে পৌত্তলিকতার প্রতি সম্ভাব্য সকল প্রবণতা প্রত্যাখ্যান করতে হবে এবং সকল বিষয়েই মুহাম্মদকে অনুসরণ করতে হবে। মুহাম্মদ উপাসনা করেছেন বলেই কি কাবা তার বাস্তব ঘটনার কারণে পৌত্তলিকতার প্রণোদনা হতে পারে না? নাকি মুহাম্মদের উপাসনা সত্ত্বেও পৌত্তলিকতা রুখতে এটিকে ধ্বংস করা উচিত? মুসলমানদের কি সকল বিষয়েই মুহাম্মদকে অনুসরণ করতে হবে, নাকি তাদেরকে পৌত্তলিকতার সকল উৎস ধ্বংস করতে হবে?”

উপরে উদ্ধৃতিতে জিহাদীদের কাছে পৌত্তলিকতার ধারণা এবং এর প্রতি তাদের ঘৃণা বুঝা যায়। তারা এমনকি স্বয়ং নবী মুহম্মদের কাবা-চর্চার বিরুদ্ধে যেতেও প্রস্তুত, যা শুধু সময়ের ব্যাপার। জিহাদীরা যেখানে পৌত্তলিকতার ঘোরতর বিরোধী, রাধাকৃষ্ণের প্রতীক-ভিত্তিক ভাবান্দোলক ফরহাদ মজহার সেখানে কীভাবে জিহাদ ধারণ করবেন? যে-জিহাদীরা তাদের দৃষ্টিতে ‘পৌত্তলিকতা’ রোধে মুসলমানদের মধ্যে সবচেয়ে পবিত্রজ্ঞাত স্থান ‘কাবা’ তথা ‘আল্লাহ্‌র ঘর’ পর্যন্ত ভেঙ্গে ফেলতে চায়, তাদের জিহাদের সঙ্গে কীভাবে লালন ফকিরের মাজারে গীত-নৃত্য-বাদ্য যোগে ভাবচর্চাকারী ফরহাদ মজহার একাত্ম হবেন?

এখানে ভাবুক নীরব, অস্পষ্ট, আলো-আধাঁরিতে আছন্ন।

এই যে অস্পষ্টতা, এই যে কুহেলিকা, এই যে ধূম্রজাল, এটি এক প্রকারের মেইজ বা ফাঁদ, যা ভেদ করতে তরুণ বয়েসী নারীপুরুষ সাধারণত তাদের বয়সের কারণেই আকৃষ্ট হয়। বিশেষত জাতির মধ্যে যদি যখন রাজনৈতিক সঙ্কট চলে, তখন এর সর্বোচ্চ অভিঘাত পড়ে তারুণ্যের মননে ও বুদ্ধিতে। কিন্তু সবাই এই অভিঘাতে সমানভাবে সাড়া দেয় না। তরুণদের মধ্যে বুদ্ধিবৃত্তিকভাবে চৌকস যারা, তা্রা প্রচলিত ব্যাখা-বিবৃতিতে সন্তুষ্ট থাকতে পারে না। স্বভাবত তারা অস্পষ্টতা, কুহেলিকা ও ধুম্রজাল ভেদ করতে প্রবৃত্ত হয় এই আশায় যে, সেখানে হয়তো সত্যের সন্ধান পাওয়া যাবে।

 

Kaaba - 111
জিহাদীরা এমনকি স্বয়ং নবী মুহম্মদের (স.)) কাবা-চর্চার বিরুদ্ধে যেতেও প্রস্তুত, যা শুধু সময়ের ব্যাপার

 

সত্তরের দশকে জাসদের সিরাজুল আলম খানও আজকের ফরহাদ মজহারের মতো সে-সময়ের রাজনৈতিক সঙ্কটের প্রেক্ষাপটে বিপ্লবের নামে এক ধরনের অস্পষ্টতা, কুহেলিকা ও ধূম্রজাল তৈরি করে লক্ষ লক্ষ তরুণ-তরুণীকে আকৃষ্ট করেছিলেন। আজ ফরহাদ মজহার যেমন ইসলামিক উম্মাহ্‌র কথা বলেন, সিরাজুল আলম খানেরাও সর্বহারার আন্তর্জাতিকতার কথা বলতেন। আজ যেমন, জিহাদী তরুণ-তরুণীরা আরব, সিরিয়া, ইকার, প্যালেস্টাইনকে পূণ্যভূমি মনে করে, সে-সময়ের তরুণ-তরুণীরা চীন-রাশিয়া-ভিয়েতনামকে পূণ্যভূমি মনে করত। এগুলো সম্ভব হয় ‘আদর্শ’র কারণে।

আদর্শ মানুষকে তার অভিজ্ঞাত বাস্তবতার বিকল্প বিবরণ ও ভবিষ্যত প্রকল্প প্রস্তাব দিয়ে প্রত্যয় তৈরির ভিত্তিতে পরিবর্তন প্রচেষ্টায় প্রয়াসী করে তোলে। কিন্তু সেই আদর্শ যদি বাস্তব জগতের বস্তুনিষ্ঠ সত্য ধারণ না করে, তা থেকে বিচ্যুত কোনো কল্পিত সৌন্দর্য নির্দেশ করে তরুণ-তরুণীদের ডাকে, তারুণের স্বাভাবিক ধর্মে তারা সেদিকে আকৃষ্ট হতে পারে ও হয়ে থাকে। এই আকর্ষণ থেকে তাদেরকে মা-বাবার চোখের জল কিংবা শাসকের বন্দুকের নল, কোনোটা দিয়েই রোখা যায় না, যদি না তার চেয়ে শ্রেয় ও সত্য প্রকল্প হাজির করা যায়।

সত্য বলতে কোনো বস্তু নেই, সত্য বলতে বোধের বস্তুনিষ্ঠতা বুঝায়। যে-মানব গোষ্ঠী প্রাকৃতিকভাবে প্রাপ্ত ও ঐতিহাসিক চর্চায় রপ্ত পার্থক্যসূচক বিবিধ বৈশিষ্ট্য ধারণ করে দেহগতভাবে, ভাষাগতভাবে, সাংস্কৃতিকভাবে, ঐতিহ্যিকভাবে একটি জনজাতি হিসেবে বিকশিত হতে হতে একটি রাজনৈতিক জাতি হিসেবে গড়ে উঠেছে ‘বাঙালি’ নাম ধারণ করে বাংলা নামের ভূপরিসরে, সেই জাতিকে দূরদেশের ভিন্ন দেহের, ভিন্নভাষার, ভিন্ন সংস্কৃতির, ভিন্ন ঐতিহ্যের জাতির সঙ্গে শুধু অতিপ্রাকৃত বিশ্বাসের জোরে একজাতি বা ‘উম্মাহ’ হিসেবে প্রকল্পিত করে জিহাদে উদ্বুদ্ধ করলে তার পরিণাম ভয়াবহ হতে বাধ্য।

মানুষ প্রকৃতির সচেতন অংশ বলে, তার প্রকৃতিবিরোধী চেতনা ও কল্পনা তাকে ব্যর্থতায় পর্যবসিত করতে বাধ্য। অতিপ্রাকৃতিক জাতি-পরিচয়ের কুফল কী, তা কি বাঙালি কঠিন মূল্যে শেখেনি? ধর্মীয় বিশ্বাসকে জাতি-পরিচয়ের ভিত্তি হিসেবে ব্যবহার করে যে পাকিস্তান করা হয়েছিল এবং তার বিষফল কি ১৯৭১ সালে বাঙালি জাতিতে ৩০ লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে ভোগ করতে হয়নি?

ফরহাদ মজহারসহ যে-সকল বুদ্ধিজীবী ডানে-বামে, উত্তরে-দক্ষিণে, পূবে-পশ্চিমে কিংবা উর্ধ্বে-অধে তৎপর রয়েছেন বাঙালি আত্মপরিচয়ের বিপরীতে, তাঁরা শুধু জাতির বিরুদ্ধেই নয়, প্রকৃতির বিরুদ্ধে ব্যর্থ প্রয়াসে নিজের বুদ্ধিনাশ ও তরুণ প্রজন্মের বুদ্ধি ও প্রাণ উভয় নাশ করছেন মাত্র।

শনিবার ৩০ জুলাই ২০১৬; লন্ডন, ইংল্যান্ড

মাসুদ রানালন্ডন-প্রবাসী শিক্ষক

১৫ Responses -- “ভাবান্দোলন ও জিহাদ: বিভ্রান্তির স্বরূপ সন্ধান”

  1. Zahidul Karim

    “জিহাদ সেখানে আল্লাহ্‌র একত্ব, শ্রেষ্ঠত্ব ও শরিকহীন উপাস্যতার ভিত্তিতে কুরআন ও সুন্নাহর নির্দেশিত বিধি প্রতিষ্ঠার ধর্মতাত্ত্বিক ও রাজনৈতিক আন্দোলন, যার রয়েছে ইহজাগতিক ও পারলৌকিক তাৎপর্য।”
    Man, from where u get this meaning of jihad? Its sounding like it’s an IS version. It mainly should be humanitarian movement by oneself to become human in light of কুরআন ও সুন্নাহর নির্দেশিত বিধি .
    And again u critics about Hajrat Farhad Mazhar (ha ha ha), r u trying to make him notichable by mentioning him? One pinaki said he is the bla.. bla.. bla.. and u bring this up straight to us. I don’t think Hajrat(?) and his pinaki aren’t worth this critics, they only can make a biased methodology (sound and social pollution).

    Reply
  2. সৈয়দ মবনু

    ফরহাদ মাজহারের ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণের সাথে আমাদেরও দ্বিমত আছে। তবে তাঁর মধ্যে যে জিনিসটা রয়েছে তা হলো মার্কসের চিন্তা, ইসলামের চিন্তা ও স্থানীয় চিন্তার সমন্বয়। ইসলামের বক্তব্যের সাথে রাধা-কৃষ্ণ কাহিনী যুক্ত করে বক্তব্য দেওয়ার রেওয়াজ আমাদের ভারতবর্ষে নতুন কিছু নয়। এই অঞ্চলের ভাববাদী অনেকেই রাধা-কৃষ্ণের প্রেমকে গ্রহণ করেছেন নিজের মনের ভাবকে প্রকাশ করতে। আমরা দেখি মজির উদ্দিন পিরের (জন্ম ১২৮৩ হিজরী) অসংখ্য আধ্যাত্মিক গান রয়েছে রাধা-কৃষ্ণ নিয়ে। তাঁর উপর যখন আত্মপরিচয়শূন্যতার অভিযোগ আসে তখন তিনি খুব দৃঢ়তার সাথে বলেন,
    ‘হিন্দু বলে রাধা-কৃষ্ণ দেবতা তারার।/ আমি ভাবি এই সবের নাহি দরকার।/ তন রাধা, মন কানু-ভাবিয়া দেখ মনে।/ রাধা কানু বিচারিয়া চাও আপন তনে॥/ কানুর বাঁশী নাকের স্বর লওরে বুঝিয়া।/ তন রাধা সুন্দরী নারী, রুহুত কালিয়া॥’
    ফরহাদ মাজহারের জন্মের আগেই মজির উদ্দিন বলে দিয়েছেন, ‘আমরা যে রাধা-কৃষ্ণ বলি তা সেই দেবতা রাধা-কৃষ্ণ নয়, এটা হলো প্রেমের, ভাবের রাধা-কৃষ্ণ।’

    Reply
  3. সুহৃদ

    “আতি-আল্লাহু ওয়া আতিয়ার রসূল” (আল্লাহকে মানো আর আল্লাহর রাসূল (সঃ)-কে মানো।) কুরান শরীফের বিভিন্ন আয়াতে এ কথা বার বার বলা হয়েছে। রাসূল (সঃ)-এর জীবন হচ্ছে কুরানের তথা আল্লাহর আদেশ-নিষেধের ফলিত/প্রায়োগিক রূপ। কাজেই তৌহিদ (একত্ববাদিতা) ও শিরকের (অংশীবাদিতা/পৌত্তলিকতা) ফারাক বুঝতে নবীজীর জীবনাচরণ বুঝতে হবে। তিনি পানাহার করেছেন, ঔষধ খেতে বলেছেন মানবিক নিয়মকানুনের মতোই। তবে আল্লাহর উপর ভরসা আর তাকদির (ভাগ্য) মেনে নিতেও বলেছেন। কাজেই উনার সুন্নাতে যা কিছু আছে (পাথর চুম্বনও) আমরা অস্বীকার/বিতর্কিত করতে পারি না। তাহলে প্রকারান্তরে আমরা আল্লাহর কিতাবকে তথা আল্লাহতেই অনাস্থা আনার ধৃষ্টতা দেখানোর অপরাধে অপরাধী হবো।

    Reply
  4. আসাদুজ্জামান নুর

    এটার মধ্যে কিছুটা বিভ্রান্তি রয়েছে যার একটি আইএসআই ও রামকৃষ্ণ। দুইটি ধর্ম কখনো এক হতে পারেনা। অথবা দুটি আদর্শ এক হতে পারেনা। কাবা ঘর ভাঙ্গার চিন্তা কখনোই সে জাতী করবেনা যে জাতী সুরা ফীল পরেছেন। আইএস বলেছে মাজার ,মূর্তির সম্পর্কে এখানে সেই কথাটা কাবাঘরে বদলে দিলেন। আপনি কি দেখেনি তারা দখলকৃত জায়গা গুলোর মাজার ও মূর্তি গুলো ভেঙ্গেছে। তাদের প্রকাশিত কোন ভিডিও তে এমন তথ্য. পেয়েছেন। আমি যদি অন্যের কথা শুনে আপনাকে খুনি বলি তাহলে কি আপনি তা হয়ে গেলেন? এমন রেফারেন্স দিবেন যার ভিত্তি মজবুদ হয়। মোনে রাখবেন আমার অসংখ্য যুবক বাংলায় রয়েছে যারা ভিত্তিহীন কিছু তে কানদেয়না। আর আপনার কাছে এরকরকম. আশা করি না। আপনি বলতে পারেন. কেন. শুধু মাত্র মুসলমানদের বেলায় জঙ্গি ব্যবহার হচ্ছে? ইজরায়েল এর বলায় কেন নয়? অতিসাম্প্রতি জার্মানে একজন. উগ্রবাদি কতজনকে গুলিকরে হত্যা করল বিশ্ব মিডিয়া কেন. সেটার ঢালাওভাবে প্রচার করলোনা? সে খ্রিস্টান বলে? তাকে জঙ্গি তকমাা লাগনো গেলোনা। ভারতের হিন্দু রা মুসলমানদের যখন পিটিয়ে হত্যা করছে তখন সেটা ধর্ম যুদ্ধ. আরমুসলমান করলে জঙ্গি মিডিয়াগো গুলো তো কিনা গোলাম। সুদান থেকে দঃক্ষীণ সুদানকে আলাদা করে খ্রিস্টান রাজ্য বানালো জাতীসংঘ ;ফিলিস্তিন এর বেলায় নয় কেন মুসমান বলে? কাষ্মিরের বেলায় নয় কেন মুসলমান বলে? আর বল্লাম না। শবশেষে আমাদের দেশ থেকে সন্ত্রাস ও বিচ্ছিন্ন তা চলেগিয়ে সবাই এখন জঙ্গি হয়ে গেছে তাই পুলিশ এখন খালি জঙ্গি ধরে হাহা

    Reply
  5. sumon

    অতি উগ্রবাদীরা যখন সমাজতন্ত্র কায়েমের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয় তখন তারা নিজের পরাজয়ের গ্লানি মুছতে ধর্মের আশ্রয়ে আসার চেষ্টা করে। ইসলামের নামে ফরহাদ মাজহার তাঁর পুরনো ব্যর্থতা ভুলতে চাচ্ছে। মানুষকে বিপথগামী করা তাঁর নেশা। তিনি সব কিছুর অপব্যাখ্যা দিতে পারেন।

    Reply
  6. হাছান

    সবচেয়ে পবিত্রজ্ঞাত স্থান ‘কাবা’ তথা ‘আল্লাহ্‌র ঘর’ পর্যন্ত ভেঙ্গে ফেলতে চায়! বেকুব কত প্রকার?

    Reply
  7. R. Masud

    চমৎকার লেখ। ফরহাদ মঝহারদের মতো বিকৃত ধারণা বিক্রি করা ব্যাবসায়ীদের স্বরূপ প্রকাশ হবার হাজারো পদক্ষেপ আগানো সাহায্যকারী লেখা।
    ভালো লেগেছে, ১৯৭০ দশকের সিরাজুল আলম খানের প্রচার করা আরেকটা ভণ্ড আদর্শের কথার উল্ল্যেখ থাকার কারণেও।
    আরো আরো লেখা আশা করশি জনাব মাসুদ রানার কাছ থেকে, বিশেষ করে, বিকৃত বুদ্ধিজীবীদের নিয়ে যাঁরা ইসলামী জাতীয়তা বাদকে বাঙ্গালি জাতিয়তাবাদের উপরে স্থান দেন।
    আল্লাহ্‌ জাতীয়তাকে পরিবর্তন করার সুযোগ রাখেননি, ধর্মকে পরিবর্তনের সুযোগ রেখেছেন– যেমন একজন জাপানি বা কোরিয়ান বাঙ্গালি হতে পারে না, কিন্তু মুসলমান হতে পারে…

    Reply
    • asaduzzaman nur

      এটার মধ্যে কিছুটা বিভ্রান্তি রয়েছে যার একটি আইএসআই ও রামকৃষ্ণ। দুইটি ধর্ম কখনো এক হতে পারে না। অথবা দুটি আদর্শ এক হতে পারে না। কাবা ঘর ভাঙ্গার চিন্তা কখনোই সে জাতি করবে না যে জাতি ‘সুরা ফীল’ পরেছেন। আইএস বলেছে মাজার, মূর্তির সম্পর্কে; এখানে সেই কথাটা কাবাঘরে বদলে দিলেন! আপনি কি দেখেননি তারা দখলকৃত জায়গার মাজার ও মূর্তিগুলো ভেঙ্গেছে। তাদের প্রকাশিত কোনো ভিডিওতে এমন তথ্য পেয়েছেন। আমি যদি অন্যের কথা শুনে আপনাকে ‘খুনি’ বলি তাহলে কি আপনি তা হয়ে গেলেন? এমন রেফারেন্স দিবেন যার ভিত্তি মজবুদ হয়। মনে রাখবেন আমার অসংখ্য যুবক বাংলায় রয়েছে যারা ভিত্তিহীন কিছুতে কান দেয় না। আর আপনার কাছে এ রকম আশা করি না। আপনি বলতে পারেন কেন শুধুমাত্র মুসলমানদের বেলায় ‘জঙ্গি’ শব্দটি ব্যবহার হচ্ছে? ইজরায়েল-এর বেলায় কেন নয়? অতিসম্প্রতি জার্মানে একজন উগ্রবাদি কতজনকে গুলিকরে হত্যা করল বিশ্ব মিডিয়া কেন সেটার ঢালাওভাবে প্রচার করল না? সে খ্রিস্টান বলে? তাকে জঙ্গি তকমা লাগনো গেল না। ভারতের হিন্দুরা মুসলমানদের যখন পিটিয়ে হত্যা করছে তখন সেটা ধর্মযুদ্ধ আর মুসলমান করলে জঙ্গি, মিডিয়াগুলো তো কেনা গোলাম! সুদান থেকে দক্ষিণ সুদানকে আলাদা করে খ্রিস্টান রাজ্য বানালো জাতিসংঘ; ফিলিস্তিন-এর বেলায় নয় কেন? মুসলমান বলে? কাশ্মীরের বেলায় নয় কেন? মুসলমান বলে?

      Reply
      • Bagha Bangalee

        মি. নূর, আপনার মতো উমমা মতবাদী অবাঙালি মানসিকতার ধর্মাশ্রয়ী এবং ধর্ম ব্যবসায়ীদের জন্যই দেশে আজ জঙ্গি সৃষ্টি হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—