Feature Img

Umme Rayhana৬ আগস্ট বাংলাদেশে তিনটি ভারতীয় টেলিভিশন চ্যানেল বন্ধ করে দেওয়ার জন্য হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করা হয়েছে। হাইকোর্টের আইনজীবী সৈয়দা শাহিন আরা লাইলী বাদী হয়ে এই রিট আবেদন করেন। তার পরের রবিবার অর্থাৎ ১০ আগস্ট এই রিট আবেদনের শুনানি হওয়ার কথা থাকলেও এর অগ্রগতির খবর পাইনি। রিট যেহেতু হয়েছে, এটি এখন আইনি প্রক্রিয়ার মধ্যে চলে যাবে, তাতে সন্দেহ নেই।

এই চ্যানেলগুলো হল জি বাংলা, স্টার জলসা ও স্টার প্লাস। হঠাৎ করে এই তিনটি চ্যানেল বন্ধ করার বিষয়ে তৎপরতার কারণ এখন আর কারও অজানা নেই।

এই পুরো ঘটনায় দুটো বিষয় গুরুত্বপূর্ণ। এক, পাখি জামা ও দুই, ভারতীয় টেলিভিশন সিরিয়াল।

পত্রপত্রিকা ও ফেইসবুকের কল্যাণে পাখি জামা নামের একটি পোশাকের কথা এখন সবাই জানেন। গত ঈদ-উল-ফিতরে পাখি জামা নিয়ে আলোচনার ঝড় দেখা গেছে। ঈদ শেষ হয়ে যাওয়ায় এই নিয়ে আলোড়ন কমে গেলেও চ্যানেল বন্ধ করার প্রক্রিয়া থেমে নেই।

ঈদের আগে আগে খবরে জানা গেছে এক শিশু (স্ত্রীলিঙ্গ হওয়ায় তার সম্পর্কে পত্রপত্রিকাগুলো কিশোরী শব্দটি প্রয়োগ করতে বেশি আগ্রহী হলেও ১৬ বছর বয়সী একজন মানুষকে শিশু বলাই যথাযথ, মতান্তরে মেয়েটির বয়স ছিল ১০, সে ক্ষেত্রে এখানে বিতর্কের অবকাশই থাকে না) তার বাবার কাছে এই পোশাক চেয়েছিল। বাবার আর্থিক সঙ্গতি সম্পর্কে ধারণা না থাকায় অভিমানে আত্মহত্যা করেছে সেই মেয়ে।

এর আগে অথবা পরে (আমি নিশ্চিত নই) গণমাধ্যম মারফত জানা গেল এই একই জামার দাবি পূরণ না হওয়ায় কোনো এক নারী তার স্বামীকে তালাক দিয়েছেন। আলোচনার খাতিরে যদি ধরে নিই যে দুটি খবরই সত্যি, অর্থাৎ ঐ আত্মহত্যা আর তালাকের ঘটনার পেছনে নির্লজ্জ লোভ ছাড়া আর কোনো কারণই ছিল না, তাহলে বলতেই হবে প্রথম ঘটনাটি বেশ করুণ।

এই ঘটনায় ছোটবেলায় দেখা একটি সিনেমার দৃশ্যের কথা মনে পড়ে গেছে আমার। খুব সম্ভবত সিনেমার নাম ‘এতটুকু আশা’। এই সিনেমায় নায়িকার ভুমিকায় অভিনয় করেছিলেন সুজাতা। নায়িকা ঢাকায় একটি কলেজে অথবা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েন। তিনি জানতেন না তার বাবা (চাকরি হারিয়ে অথবা ব্যবসায় লস করে) সংসার চালানোর জন্য খেলনা-পুতুল ফেরি করে বিক্রি করেন এই শহরেরই পথে পথে। একদিন এক বান্ধবীসহ হাঁটতে হাঁটতে বাবার সঙ্গে দেখা হয়ে যায় মেয়ের। চোখাচোখি হতে দু’জন দু’জনকে এড়িয়ে চলে যান।

সেদিন ঢাকা থেকে নদী পার হয়ে বাড়ি ফেরার সময় বাবা তার খেলনা ফেরির বাঁশের কাঠামো খেয়াঘাটে পরিচিত দোকানির জিম্মায় রেখে আসেন না আর। বালিশে মুখ গুঁজে কাঁদতে থাকা মেয়ের দিকে বাড়িয়ে ধরেন একটি প্লাস্টিকের পুতুল। তাঁর গলায় স্নেহ ঝরে পড়ে, যেন তাঁর মেয়েটি শাড়ি পরে কলেজে পড়তে যায় না, যেন তাঁর পাঁচ বছরের মেয়ে খেলতে গিয়ে ব্যথা পেয়ে কাঁদছে, এমনভাবে তিনি বলেন– “নিবি?”

কোনো মিল নেই, কিন্তু মনের উপর তো কারও হাত থাকে না। আর সিনেমার শক্তির কথাও আমরা জানি। তাই হয়তো বাস্তবের একটি অভিমানী মেয়ের আত্মহত্যার খবর শুনে আমার মনে পড়ে সিনেমার বাবার আর্থিক দৈন্য মেয়ের কাছে প্রকাশ হয়ে যাওয়ার লজ্জা আর গ্লানির দৃশ্য। মধ্যবিত্তের গরিব হয়ে যাওয়ার অসহায় করুণ রস।

দ্বিতীয় ঘটনাটি এতটা করুণ নয়, বরং খানিকটা আশঙ্কার, নিন্দার আর বেশ অনেকটা হাসির।

পাখি ড্রেস নিয়ে ব্যপক হাসাহাসির চর্চা সম্ভবত অনেকেরই চোখে পড়েছে। শুধু ফেসবুকে নয়, নিজের আশেপাশের অনেককেই দেখেছি খুব একটা মজার কথা বলা হচ্ছে, এহেন ভাব করে এই পোশাকের কথা উল্লেখ করতে। এমনকি ঈদের নতুন পোশাক পরা পুরুষ বন্ধুর সঙ্গে বের হয়ে বন্ধুকে “এটা কি পাখি ড্রেস নাকি?” এই প্রশ্নের মুখোমুখি হতে দেখেছি মধুর ক্যান্টিনের সামনে। কিংবা ছবির হাটে চা সিগারেটের দোকানে কাজ করে, ঈদের পর পর ঈদের জরিচুমকিওয়ালা পোশাকটাই পরে মা বাবাকে চা বিক্রি করতে সাহায্য করছে, এমন একটা বাচ্চা মেয়েকে ডেকে এই প্রশ্ন করতে শুনেছি একজনকে।

ভারতীয় চ্যানেল বন্ধের পক্ষে বিপক্ষে অনেক রকম কথা শুনতে পাচ্ছি। চোখে পড়ছে অনেক রকম যুক্তি। বিভিন্ন জনের লেখালেখি ও মতামত মারফত এই ঘটনার সঙ্গে সম্পর্ক দেখতে পাচ্ছি ভোগবাদিতার,পণ্য-মোহাচ্ছন্নতার।

একটি খবরে বলা হয়–

“আবেদনকারীর আইনজীবী একলাছ উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, ভারতে বাংলাদেশের কোনো টিভি চ্যানেল প্রচার হয় না। অথচ বাংলাদেশে ভারতীয় টিভি চ্যানেলের অবাধ সম্প্রচারের ফলে যুব সমাজ ধংসের সম্মুখীন। সর্বশেষ তাদের একটি টিভি চ্যানেল স্টার জলসার ‘বোঝে না সে বোঝে না’ সিরিয়ালের পাখি চরিত্রের নামে পোশাক কিনতে না পেরে বাংলাদেশে অনেকে আত্মহত্যা করেছে। তাই যুব সমাজকে রক্ষার্থে এ রিট করা হয়েছে। এর আগে গত রোববার বিকালে রেজিস্ট্রি ডাকযোগে এ বিষয়ে আইনি নোটিশ পাঠান আইনজীবী এখলাস উদ্দিন ভূঁইয়া। নোটিশ পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বাংলাদেশে ভারতীয় টিভি চ্যানেলের সম্প্রচার বন্ধের ব্যবস্থা না নেওয়া হলে হাইকোর্টে জনস্বার্থে রিট করা হবে বলে নোটিশে জানানো হয়। নোটিশে বিবাদী করা হয় তথ্যমন্ত্রী, তথ্যসচিব ও বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশনকে (বিটিআরসি)। এখলাস উদ্দিন জানান, ভারতে আমাদের দেশের চ্যানেল সম্প্রচারের অনুমতি দেয় না। কিন্তু আমাদের দেশে তাদের চ্যানেল চলছে। আর এতে সামাজিক অবক্ষয় ঘটেছে।”

সত্যাসত্য যাচাই সাপেক্ষ, একটি খবরে এ-ও বলা হয়–

“গৃহিণী ও ছাত্রছাত্রীদের পাশাপাশি কাজের বুয়ারাও এসব চ্যানেলে অভ্যস্ত হয়ে গেছেন মন্তব্য করে নোটিসে বলা হয়, ‘কাজের বুয়াদের এসব চ্যানেল দেখতে না দিলে তারা কাজ করতে চায় না।’”

হাস্যরস আর ঠেকা মারা ভঙ্গিটা দেখা যাচ্ছে কি? আমি কিন্তু দেখতে পাচ্ছি।

এছাড়াও সাংস্কৃতিক মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট হ্যাক করে ভারতীয় চ্যানেল বন্ধ করার দাবি জানিয়েছে সাইবার-৭১ নামক একটি হ্যাকার সংগঠন।

দারুণ দারুণ প্রবন্ধ চোখে পড়ছে; যেমন, নারীর ডিজ্যায়ার বনাম নারীর আশা-আকাঙ্ক্ষা গলা চেপে দমন করার আগ্রাসী, পুরুষাধিপত্যবাদী মনোভাবের চুলচেরা বিশ্লেষণ করে ব্লগার রেজাউল করিম তাই লিখেছেন–

“ …ভারতীয় সিরিয়াল যদি মেয়েদের ‘ডিজায়্যার’ শিখায় বা ‘ডিজায়্যার’ প্রকাশের সংকোচ দূর করে দেয়— ভারতীয় সিরিয়াল তাইলে খারাপ? আর আপনি? যিনি ‘ডিজায়্যার’কে মেয়েদের জন্য নিষিদ্ধ রাখতে চান, মেয়েদের ‘ডিজায়্যার’ প্রকাশ আমরণ স্থগিত রাখতে বলেন, বউয়ের ইচ্ছারে পাত্তা না দেওয়া স্বামীর সাথেই শুইতে বলেন— আপনিই তাইলে ভালো?…”

অথবা ভারতীয় চ্যানেল বনাম বাংলাদেশি চ্যানেলের অনুষ্ঠানের মান, নির্মাণ দক্ষতা ইত্যাদির তুলনামূলক আলোচনা এবং চ্যানেল বন্ধ করার পরবর্তী প্রভাব নিয়ে দূরদৃষ্টি দেখতে পাই সোহানা তুলির লেখায়–

“কিছুদিন আগে কার্টুন চ্যানেল ডিজনি বন্ধ করা হয়েছে। কারণ ওই চ্যানেলে প্রচারিত হিন্দি ভাষায় ডাব করা কার্টুন ডোরেমন দেখে শিশুরা নাকি হিন্দি ভাষা শিখে ফেলছে। এই অজুহাতে ওটা বন্ধ করা হলো। কিন্তু আসলে কি ওই চ্যানেল বন্ধ করে তা রোধ করা গেছে? আমার তো মনে হয় না। বরং বাচ্চার বাবা-মায়েদের ডোরেমনের সিডি কিনে দিতে হয়েছে। বা বিকল্প কোনো ব্যবস্থা নিতে হয়েছে। আবার অন্য চ্যানেলে কাছাকাছি ধরনের নতুন কার্টুন চালু হয়েছে।

এখনও ঠিক একই রকম প্রশ্ন চলে আসছে। চ্যানেল বন্ধ করে দিলেই কি আর কেউ আর সিরিয়াল দেখতে পারবে না? সেই রাস্তা কি চিরতরে বন্ধ হয়ে যাবে? বা এই দুটি চ্যানেল বন্ধ করে দেওয়ার পর যারা এসব চ্যানেলের দর্শক ছিলেন তাদের জন্য কোনো বিকল্প ব্যবস্থা করা হয়েছে? জবাব আসবে না।”

আদর রহমান ফ্যাশনে দেশি তারকাদের জায়গায় ভারতীয় তারকাদের স্থান করে নেওয়ার দিকে চোখ ফেরাতে চেয়েছেন, লিখেছেন-

“ভারতীয় চ্যানেলের কারণে দেশ গোল্লায় যাচ্ছে, সমাজে অস্থিরতা দেখা দিচ্ছে, মানসিক অবক্ষয়, ঘরে ঘরে সংকট– এসব ক্লিশে সংলাপ আর আওড়াতে চাই না। তবে আমার ‘কিউরিয়াস মাইন্ড’ শুধু এতটুকু জানতে চায়, সেই ‘মৌসুমীর লাছা’ থেকে আমরা কী করে ‘বেবি ডল’ পোশাকের দিকে ধাবিত হলাম? কেন ‘সালমান শাহ্ ব্লেজার’র জায়গা নিয়ে নিল ‘রাওডি রাথোর টি-শার্ট’?”

বাংলাদেশের মেয়েদের প্রাণঘাতী চ্যানেল নিয়ে বাঁধন অধিকারী লিখছেন–

“তবে মুক্তবাজারের সন্ত্রাসী আক্রমণ যে গ্রাম পর্যন্ত বিস্তৃত হয়ে সেখানেও হত্যাকাণ্ড চালাতে শুরু করেছে, হালিমার মৃত্যু তার সাক্ষী হয়ে থাকবে। কেননা হালিমার বাড়িও একটা গ্রামে। তবে মার্কিন নিও লিবারাল দর্শনের অন্যতম হাতিয়ার নয়া যোগাযোগের প্রযুক্তি হালিমার গ্রামেও আজ পৌঁছে দিয়েছে স্যাটেলাইট আর ইন্টারনেট। পৌঁছে দিয়েছে লোভ। লোভকে উসকে দেওয়া হচ্ছে বিজ্ঞাপন নামের মারণাস্ত্র দিয়ে। হালিমা মরে যাচ্ছে। অথচ মিথ্যে করে আত্মহত্যার খবর লেখা হচ্ছে!”

সাংস্কৃতিক আগ্রাসন অথবা প্রভাব, ভারতের একচেটিয়া ব্যবসা করে যাওয়ার ফন্দি– এমন আরও বহু কিছুর উপর লেখা হচ্ছে এমন অনেক রকম ব্যখ্যা বিশ্লেষণ।

আমি এত কিছুর মধ্যে না গিয়ে এই হাসাহাসির অংশটুকুর কারণ এবং চ্যানেল বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্তের যৌক্তিকতা নিয়ে ভাবতে আগ্রহী।

অনেকেরই ধারণা, টিভি সিরিয়াল শুধু একটি “মেয়েদের জিনিস”-– সাবান শ্যাম্পুর মতো, যদিও সাবান শ্যাম্পু সবারই দরকার হয়, কিন্তু বিজ্ঞাপনের কল্যাণে এহেন ধারণা প্রতিষ্ঠিত হয়।

কেউ প্রশ্ন করতে পারে প্রতিষ্ঠিত হলে দোষ কোথায়? দোষ এখানেই যে যখনই কোনো পণ্যের ভোক্তা হিসেবে যে কোনো একদল মানুষকে চিহ্নিত করে ফেলা হবে, তখনই বিতর্ক উঠলে, পণ্য-মোহাচ্ছন্নতা বা ভোগবাদিতার দোষে দুষ্ট হবে সেই একদল মানুষ, যেমনটা এখন আঙুল তোলা হচ্ছে নারীর দিকে।

আঙ্গুল তুলছে সবাই। অনেকটা লিও তলস্তয়ের ‘ক্রয়তযার সোনাটা’ গল্পের সেই বুড়োর মতো, যে কিনা নিজের স্ত্রীকে হত্যা করার ঘটনা বর্ণনা করার সময় বলেছিলেন, ইহুদিরা আর নারীরা তাদের প্রতি নিপীড়নের অস্ত্রকেই ব্যবহার করছে নিপীড়নকারীর প্রতি। ইহুদিদের আছে টাকা বা পুঁজি আর নারীর আছে মাধুরী, তাই দোকান, বাজারভর্তি কেবল নারীর পোশাকে আর অলঙ্কারে। ঐ সব আদায় করার জন্য পুরুষকে দাবিয়ে রাখছে তারা, দাবিয়ে রাখছে নিজের মোহময়ী জাদু দিয়ে।

মজার ব্যাপার হচ্ছে টিভি সিরিয়ালের আদি দর্শক নারীই। সোপ সিরিয়ালের ইতিহাস লিখে গুগলে সার্চ দিলে উইকিপিডিয়া জানিয়ে দেবে সাবানের বিজ্ঞাপনের হাত ধরে রেডিও নাটকের যাত্রা শুরুর গল্প, সময়ে টিভি সিরিয়ালের উদ্ভব ও ক্রমবিকাশ। পশ্চিমের দেশগুলোতে পুঁজিবাদের প্রয়োজনে, নতুন নতুন ইলেকট্রনিক জিনিস বিক্রির জন্য সময়ে সময়ে নারীকে গৃহবধূ করে রেখে মাইক্রোওয়েভ ওভেন, ভ্যাকুয়াম ক্লিনার থেকে শুরু করে সোপ সিরিয়ালের ভোক্তা বানিয়ে তোলার প্রয়োজন হয়েছে।

বেটি ফ্রিডেনের ‘ফেমিনিন মিসটিক’ গ্রন্থে যে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যোগ্য স্বামী জোগাড় করা মেয়েদের কথা বলা হয়েছে, যারা কিনা ভুগতেন নামহীন এক সমস্যায়, তাদের জন্য শুরু হলেও সময়ে বিবর্তিত হয়েছে সোপ সিরিয়াল। নারী ঘরের বাইরে কাজ করতে গেলে, দিনের বেলা সিরিয়ালের দর্শক কমে গেলে বানানো হয়েছে অন্যন্য লিঙ্গ, পেশা ও বয়সের দর্শকের জন্য অন্যান্য বিষয়ের সিরিয়াল। নারী পুরুষ নির্বিশেষে আমার অনেক বন্ধু ইন্টারনেট থেকে নামিয়ে নিয়ে দেখেন এসব সিরিয়াল। আমি নিজে দেখেছি এমন কয়েকটা সিরিয়াল হচ্ছে, ফ্রেন্ডস, সেক্স অ্যান্ড দ্য সিটি, হাউজ ইত্যাদি। এখন সিরিয়াল আর মেলোড্রামাভিত্তিক রিলেশনশিপ স্টোরিতে আটকে নেই। সিরিয়াল হয় খুন, জখম নিয়ে, গোয়েন্দা গল্প নিয়ে। সাসপেন্স, থ্রিলার, হরর– সব রকমের।

কিন্তু এইসব সিরিয়ালের দর্শকদের নিয়ে কেউ হাসাহাসি করে না। কিন্তু ‘কিউ কি সাস ভি কাভি বহু থি’ অথবা ‘কুসুম’ কিম্বা ‘কাসৌটি জিন্দেগি কি’ ধরনের সিরিয়াল নিয়েই হয় হাসাহাসিগুলো, যার চরম রূপ দেখা গেল ‘বোঝে না সে বোঝে না’ সিরিয়ালের দর্শক, বলা ভালো নারী দর্শকদের নিয়ে।

এই হাসাহাসি দেখে আমার আবারও ছোটবেলার কথা মনে পড়ে। মনে করে দেখুন আশির দশকের জনপ্রিয় পত্রিকা ‘বিচিত্রা’ ঈদ সংখ্যায় পাতার পর পাতা র’নবীর আঁকা কার্টুনের কথা। পরিবারের রোজগেরে পুরুষের প্রতি ক্ষমাহীন শোষণ করে শপিং কিংবা কাঁচা বাজারের লিস্ট ধরিয়ে দেওয়া অসংবেদনশীল নারীর কথা। নারীর নির্লজ্জ লোভ আর ভোগী চরিত্রকে উপজীব্য করে আঁকা এ সব কার্টুন অত্যন্ত জনপ্রিয় ছিল সন্দেহ নেই। তা নইলে বছরের পর বছর একই সব কার্টুন দিয়ে ঈদ সংখ্যা ভরে থাকবে কেন?

কার্টুন সিরিয়াস কিছু নয়– এই বলে উড়িয়ে দেওয়া যেতে পারে; আবার নারীর বোকামি, লোভ ও সংবেদনহীনতাকে প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টাকে চিহ্নিতও করা যেতে পারে এই কার্টুনের তুমুল জনপ্রিয়তা দেখে।

আমার প্রশ্ন হচ্ছে, ঐ সময় তো কলকাতার বাংলা বা মুম্বাইয়ের হিন্দি সিরিয়াল দেখানো হত না। তখনও কেন নারীকে লোভী ও ভোগী করে দেখানো হত?

নারী এই সমাজে নানাভাবে প্রান্তিক হয়। তার মধ্যে এই হাসির রাজনীতি একটা অন্যতম প্রধান অস্ত্র নারীকে দমিত করার। হাসির রাজনীতি শব্দবন্ধের জন্য নাসরিন সিরাজকে ধন্যবাদ জানাতে চাই, ২০০৬ সালে এই শিরোনামে লেখা একটি প্রবন্ধে তিনি নারীর বিরুদ্ধে ব্যবহার করা এই অস্ত্র নিয়ে বিশদ লিখেছেন।

গোপাল ভাঁড়, মোল্লা নাসিরুদ্দিন, বীরবল, শিখ বা আরও অনেককে নিয়ে যত হাসির গল্প প্রচলিত আছে, নারীর বোকামি, লোভ, মূর্খতা, স্বার্থপরতা ইত্যাদি নিয়ে তার চেয়ে কোনো অংশে কম নেই। যার ফলশ্রুতিতে আত্মহত্যা বা তালাকের মতো বিষয়ও হাসির উৎস হয়ে ওঠে। নারীকে নিয়ে হাসাহাসি করার বহুদিনের প্রচলিত সংস্কৃতিরই একটা নতুন রূপ এই পাখি জামা বিতর্ক।

এবার আসি চ্যানেল বন্ধ করা প্রসঙ্গে। ভারতের একশ একটা চ্যানেল এ দেশে দেখানো হয়, ভারতে আমাদের কোনো চ্যানেল দেখানো হয় না। এই অসম বাণিজ্য নীতির বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে বলা যেতেই পারে ভারতীয় চ্যানেল বন্ধ করা হোক।

কিন্তু ভারতীয় চ্যানেল মানে কেবল স্টার প্লাস, স্টার জলসা ও জি বাংলা তো নয়। বন্ধ যদি করতেই হয় নারীকে ক্রমাগত বস্তু ও পণ্য করে তোলা, অবিরাম বেবি ডল নাচ প্রদর্শন করা চ্যানেলগুলো কেন বন্ধ করা হবে না? এই চ্যানেলগুলো দেখে ‘ইভ টিজিং’ (পড়ুন যৌন নিপীড়ন) কি বাড়ছে না দেশে?

এই প্রশ্ন তুলে সেদিন বোকা বনে গেলাম। আমার এক পুরুষ সহকর্মী আমাকে বোঝালেন যে, এসব চ্যানেল রেপ বা টিজিং বাড়াচ্ছে না, বরং পুরুষের অবদমিত কামনা বশে রাখছে। বাঁচিয়ে দিচ্ছে নারীকে। ভারতীয় চ্যানেলবিরোধীদের প্রকৃত চেহারা ধরতে পারলাম আমি। বেবি ডলের দর্শক পুরুষ বলে তাতে দোষ নেই। নারীকে উল্টেপাল্টে, ঘুরিয়ে ফিরিয়ে, ভিজিয়ে শুকিয়ে– যত রকমভাবে ইচ্ছা দেখানো যেতে পারে।

সিরিয়ালের দর্শক নারী বলে এ নানান দোষে দুষ্ট। এই সমস্ত চ্যানেলের উপর নির্ভরশীল হয়ে যাওয়ার আগে নারীর জন্য কী ধরনের বিনোদনের জোগাড় সমাজ করে রেখেছিল সেই আলোচনা না হয় অন্য কোনোদিন করা যাবে। আপাতত এতদিন ধরে ঘরবন্দি নারীর বিনোদনের বিকল্প নিয়ে ভাবা যাক। তার অনুভূতি নিয়ে ভাবা যাক। তার অনুভূতির উপর, অভ্যাসের উপর, রুচির উপর তীব্র শ্লেষাত্মক আক্রমণ নিয়ে ভাবা যাক।

আমাকে মনে হয় বলে দিতে হবে না যে আমি কোন নারীর কথা বলছি, সমাজের কোন অংশের মানুষের কথা বলছি।

আমি আমার পাশের বাড়িতে থাকা, সন্তানকে স্কুলে নেওয়া আর বাজারে যাওয়া গৃহিণীর কথা বলছি, যার পক্ষে সপ্তাহে তো দূরের কথা মাসে একটা সিনেমা প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে দেখার সুযোগ নেই। আমি পুরো জীবন সন্তান মানুষ করে বড় করে ফেলা আমার মা, বড়খালামণি আর মাসিমার কথা বলছি, যারা এখন নিঃসঙ্গ হয়ে পড়েছেন। আমি মফঃস্বলের ঘরবন্দি কিশোরীর কথা বলছি, ছুটির দিনে যার ছাদ ছাড়া কোথাও যাওয়ার অনুমতি নেই।

তাদের অলস (?) সময় কাজে লাগিয়ে প্রসার করা ব্যবসায় কোন পক্ষের গায়ে আঘাত লাগল আর নতুন করে নারীকে হাস্যকর বোকা জীব হিসেবে প্রমাণ ও প্রতিষ্ঠা করার প্রয়োজন পড়ল খুব জানতে ইচ্ছে করছে।

শেষকালে এইটুকু বলা যেতে পারে, ভারতের সঙ্গে ব্যবসায়িক লেনদেন নিয়ে, চ্যানেল দেখানো নিয়ে যে সিদ্ধান্তই নেওয়া হোক, তা হতে হবে যৌক্তিক। বাংলাদেশের নারীর নির্বুদ্ধিতাকে যুক্তি হিসেবে নিয়ে, তার চয়েসকে আদৌ গোনায় না ধরে কোনো সিদ্ধান্ত নিলে সমাজে নারীর দ্বিতীয় মাত্রার অবস্থান পাকাপোক্ত করার পথে এক ধাপ এগিয়ে যাওয়া ছাড়া আর কিছুই হবে না।

উম্মে রায়হানা: স্নাতকোত্তর, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ।

২৫ Responses -- “খুব জানতে ইচ্ছে করে”

  1. শাহজাহান সিরাজ

    মিডিয়া রোমান্টিকতার ফুটানির সঙ্গে আমি কেন যেন ফুটি না! প্রথম থেকেই এসবের প্রতি আমার অনীহা।

    আমার মনে হয়, মিডিয়ার বিনোদনগুলার প্রধান উদ্দেশ‍্য হওয়া উচিত ‘শিক্ষা আর জীবনের মান উন্নয়ন’… চামড়ার ঝিলিক আর চামড়ার ভাঁজ আমাদেরকে বেশি দূর নিয়ে যেতে পারবে না।

    Reply
  2. ador

    যারা ভারতীয় সেই চ্যানেলগুলোর বিরুদ্ধে কথা বলছে, তাদের সেই বিরোধিতা করে কী কী লাভ হচ্ছে, সেটা যারা ভারতীয় চ্যানেলের পক্ষে কথা বলছে তাদের কাছ থেকে জানতে বড় ইচ্ছে করছে।

    এক কাজ করুন না, চলুন আমরা সবাই মিলে এ ধরনের আরও যত সব ক্ষেত্রে আমাদের দেশের মান কম রয়েছে বা পূর্বে ছিল এখন নেই, সে সব ক্ষেত্রে স্বদেশি উপাদানগুলো বর্জন করে একেবারে পুরোপুরি বিদেশি উপাদানে অভ্যস্ত হয়ে যাই।

    আমাদের বিদে……….!

    Reply
    • আব্দুস সবুর

      যারা অধ্যয়ন করছেন অথবা বাণিজ্যিক প্রয়োজনে গবেষণা করছেন, তারা ছাড়া অন্যদেরকে সহজে বিলাসদ্রব্য ভোগ, সিনেমা, টিভি দেখা, ফেসবুকে বেশি বেশি মাতামাতি করা থেকে বিরত থাকতে বলা অবশ্যই দরকার। আমি নিষিদ্ধ করা বা একেবারে বর্জন করার চেয়ে সচেতনভাবে আমাদের সমাজের গ্রহনযোগ্যতা বিবেচনা করার কথাই বলছি।

      আর যারা আমাদের দেশে সিনেমা বানাচ্ছেন, টিভি প্রোগ্রাম বানাচ্ছেন, তাঁরা উন্নততর প্রোগ্রাম বানানোর নতুন নতুন আইডিয়া সংগ্রহের জন্য অবশ্যই সবকিছু দেখবেন। সেটার জন্য সব বিদেশি টিভি চ্যানেল চালু রাখা লাগে না, ইন্টারনেটে সব পাওয়া যায়।

      তবে জননিরাপত্তার খাতিরে আমাদের সামাজিক ও ধর্মীয় মূল্যবোধ বিবেচনা করে কিছু চ্যানেল বন্ধ করার কথাও অবশ্যই বিবেচনা করতে হবে।

      Reply
  3. নাসরীন রহমান

    কোনো কিছু নিয়ে মাতামাতি করা বাঙালির চিরাচরিত অভ্যাস। এখানে লক্ষ্যণীয় যে আত্মহত্যা করেছে একটি কিশোরী। ঐ বয়সটিতে খুব আবেগপ্রবণ থাকে ছেলেমেয়েরা। অভিমানবোধও থাকে তীব্র। পাখি ড্রেস একটি উপলক্ষ মাত্র। এর আগে কি অন্য কারণে এই বয়সের কিশোরী আত্মহত্যা করেনি?

    পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়েও এদেশে শিক্ষার্থীর আত্মহত্যার নজির কম নয়। তাতে কি এখন পরীক্ষা বন্ধ করে দিতে হবে?

    সুতরং ভারতীয় টিভি চ্যানেলকে দোষারোপ করে এবং তা বন্ধ করার যৌক্তিকতা দেখি না আমি কোনোমতেই।

    Reply
    • উম্মে ড়ায়হানা

      পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়েও এদেশে শিক্ষার্থীর আত্মহত্যার নজির কম নয়। তাতে কি এখন পরীক্ষা বন্ধ করে দিতে হবে?

      এই প্রশ্ন আমারও….

      Reply
    • অজানা মানুষ

      আর যে মহিলা তার স্বামীকে তালাক দিয়েছে? তার বেলায়? এ তো কিছু অঘটনের স্যাম্পল। আমার ব্যাপারটা নিয়ে আপনাকে বলি। শুনুন–

      এবারের ঈদে বাড়ি (গ্রামে) গেলাম। আমাদের কাজের মেয়ে আমাকে ৮.৩০ টার দিকে বলে, ‘‘মামা, খেয়ে নেন।’’

      বললাম, “কেন? আমি তো বাইরে যাব এখন। ১০.০০ টার দিকে এসে খাব।”

      সে বলে, “না মামা, খেলে এখনই খান। ১১.০০ টার আগে ভাত দেওয়া যাবে না।”

      আমি কিছু না বুঝতে পারায় মাকে বললাম বিষয়টা। মা বলল, “এখনই খেয়ে নে, সিরিয়াল দেখব তো, ‘মা’ আবার শেষ হয়ে যাবে ৪ তারিখে।”

      আমি তো থ!

      কিছুদিন আগে ইডেনের হোস্টেলে মারামারির কথা মনে আছে?

      এইচএসসি পরীক্ষার আগে আমারই এক বোন টিভি দেখতে থাকায় তার আব্বু তাকে বলছে পড়তে যাওয়ার জন্য। তার মা পাশ থেকে বলছে “‘মা’-টা দেখে তারপর পড়তে বসুক।”

      Reply
  4. মো. রহমত উল্লাহ্‌ (রানা ইশতিয়াক)

    ‘নারীকে উল্টেপাল্টে, ঘুরিয়ে ফিরিয়ে, ভিজিয়ে শুকিয়ে– যত রকমভাবে ইচ্ছা দেখানো যেতে পারে।’

    — কারণ, এমন নারী আছে যারা এভাবে নিজেদের ধন্য মনে করে এবং সম্পদ উপার্জন করে। তাদের থামান। তারা যদি এমনটি করতে লাফিয়ে এগিয়ে না আসে তো পুরুষের কী ক্ষমতা আছে যে নারীদের দিয়ে ‘বেবি ডলের’ মতো নাচ তৈরি বা প্রচার করার?

    Reply
    • উম্মে ড়ায়হানা

      আমার প্রশ্ন, ঐ ধরনের নাচ-গান বানিয়ে টাকা উপার্জন করে কারা?

      একজন মডেল বা নায়িকা যত টাকা রোজগার করেন তার চেয়ে অনেক অনেক গুণ বেশি টাকা লেনদেন হয় সিনেমা, নাটক, আইটেম সং, পর্নোগ্রাফি উৎপাদন, বিতরণ, বিক্রয়, বিপণন ও বিজ্ঞাপনে।

      সেটা কারা চালায়?

      “তারা যদি এমনটি করতে লাফিয়ে এগিয়ে না আসে তো পুরুষের কী ক্ষমতা আছে যে নারীদের দিয়ে ‘বেবি ডলের’ মতো নাচ তৈরি বা প্রচার করার?”

      জনাব মোঃ রহমত উল্লাহ, দয়া করে কিছু মনে করবেন না, কী বিশাল সংখ্যক নারী প্রতি বছর সারা পৃথিবীতে পাচার হয়, পতিতাবৃত্তি ও পর্নো ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করতে বাধ্য হয়, তা কি জানেন?

      খুন-ধর্ষণের ভয় দেখিয়ে, নির্যাতন করে কত নারীকে বেশ্যাবৃত্তিতে নিয়োজিত করা হয়, ক্যামেরার সামনে যৌন কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হতে বাধ্য করা হয়– সে সম্পর্কে কোনো রকম ধারণা আছে আপনার?

      Reply
      • মো. রহমত উল্লাহ্‌ (রানা ইশতিয়াক)

        ১. ‘বেবি ডল’ থেকে, পর্নো ছবি থেকে, বেহায়া বিজ্ঞাপন থেকে, সুন্দরী প্রতিযোগিতা থকে, বিচ ভলিবল থেকে, অশ্লীল নাটক, সিনেমা, সিরিয়াল থেকে, দেহব্যবসা থেকে (ব্রাজিলের মতো অনেক দেশে যেখানে নারীরা তাদের ভাষায় স্বাধীন) বিনা পূুঁজিতে সর্বপ্রথম টাকা উপার্জন করে কতিপয় নারী।

        ২. সিনেমা, নাটক, আইটেম সং, পর্নোগ্রাফি উৎপাদন, বিতরণ, বিক্রয়, বিপণন ও বিজ্ঞাপনে এখন কাজ করে অনেক নারী, তা তো আপনার ভালোই জানার কথা। তাদেরকে কী বলা হয় নিশ্চয়ই জানেন, ‘নারী উদ্যোক্তা’। তারা তো এসব না করে, এসবের প্রতিবাদ করার কথা।

        ৩. জনাব উম্মে রায়হানা, দয়া করে কিছু মনে করবেন না, কী বিশাল সংখ্যক নারী প্রতি বছর সারা পৃথিবীতে পাচার হয়, পতিতাবৃত্তি ও পর্নো ইন্ডাস্ট্রিতে কাজ করতে বাধ্য হয়, তার সঠিক হিসাব আমার জানা নেই। তবে এসবের আমি তীব্র নিন্দা, প্রতিবাদ ও ঘৃণা করি এবং সশরীরে এগিয়ে গিয়ে সাধ্যমতো প্রতিরোধ করি। করেছিও একাধিক।

        কষ্ট হয় এগিয়ে গিয়ে যখন দেখি নারী নির্যাতনে নারীরাও পিছিয়ে নেই। অধিকাংশ কাজের মেয়েকে, সরল বধূকে, অসহায় শাশুড়িকে, ভাবিকে, ননদকে নির্যাতন করে নারীরাই। এমনকি নিজের স্ত্রীকে, মাকে, বোনকে অত্যাচার করায় সহযোগিতা করে নারী। জেনেশুনে এক স্ত্রীর সঙ্গে আশান্তিতে ঘর করতে চলে আসে আরেক নারী। ভারতে এক নারী তার স্বামীকে দিয়ে ধর্ষণ করিয়েছে বান্ধবীকে!

        তাদেরকে থামিয়ে আপনার দলে নিয়ে আসুন, না হলে জয়ী হবেন কীভাবে?

  5. M.I.K. SHISHIR

    যুক্তি দিয়ে খারাপ জিনিসকে যেমন প্রতিষ্ঠিত করা যায়, তেমনি ভালো জিনিসকেও। তবে ভারতীয় চ্যানেলগুলোর খারাপ প্রভাব অনেক বেশি। শিক্ষণীয় বিষয়গুলো খুবই নিম্নমানের এবং কুটিলতাপূর্ণ।

    আপনি যতই বলুন না কেন যে এটা আপনার উপরই নির্ভর করে কিন্তু পরিবেশের একটা প্রভাব আপনার উপর আছে। আপনিই যদি সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন, তবে এত কষ্ট করে বিল্ডিং তৈরি না করে, বস্তিতে থেকেও তো সুন্দর জীবন যাপন করতে পারতেন!

    Reply
    • আব্দুস সবুর

      আপনার সঙ্গে শতভাগ একমত। যতদিন ভারতীয় বিনোদনমূলক অনুষ্ঠান আমরা দেখব, ততদিন এদেশের মানুষের মানবিক বা সাংস্কৃতিক মুক্তির আশা নেই।

      Reply
  6. KAILASH TEWARI

    শুধু আপনারা অন্যের খারাপটা দেখেন, নিজেরা ভালো কিছু করতে পারেন না….

    Reply
    • আব্দুস সবুর

      বাংলাদেশের চ্যানেলের অনুষ্ঠান আমি নিয়মিত দেখি, আমার তো খুব ভালো লাগে…

      Reply
      • Sanjay Kumar Dey

        অতীব জরুরি ভিত্তিতে চ্যনেলগুলি বন্ধ করা উচিত। কারণ এতে করে আমাদের সমাজের শুধুমাত্র মহিলারা নয় কিছু শ্রেণির পুরুষরাও আছেন যারা রাত জেগে এই অনুষ্ঠানগুলি হজম করেন এবং দিনে এদের বিপক্ষে কথা বলেন!

        আসলে, আমার মতে, চ্যনেলগুলিতে শিক্ষণীয় যত আছে তার চেয়ে বেশি আছে সামাজিক অবক্ষয়।

        আরেকটি কথা না বললেই নয়, আমাদের মায়েদের একটু চিন্তা করে কাজ করা উচিত, কারণ একটি বিপথগামী নাটক বা সিনেমা যা বাবা-ছেলে বা বড় ভাইদের সঙ্গে বসে দেখা সম্ভব নয় কিন্তু অপরদিকে মা এবং মেয়ে সেই সামাজিক অবক্ষয়গুলি একসঙ্গে বসে দেখছেন। আমাদেরকে অবশ্যই বিবেচনায় আনতে হবে যে, আমাদের চ্যনেলগুলির নাটক যথেষ্ট মানসম্মত কিন্তু ৩০ মিনিটের নাটকে যদি ১৮ মিনিট বিজ্ঞাপন বিরতি, নাটকের পুরাতন পর্বের অংশবিশেষ এবং নাটকের কুশীলব পরিচিতি থাকে, তাহলে নাটক থাকে কতক্ষণ আমি জানি না!

        আমাদের চ্যনেলগুলি যাতে আমাদের সমাজের লোকজন দেখে তার জন্য দৃষ্টি আকর্ষণ করতে বলছি নির্বাচকদের।

  7. শিরীন আখতার

    ইনিয়ে বিনিয়ে কিছু লেখা বা বলা আমার স্বভাব নয়। আমি নিজে টিভি না দেখলেও আমার কখনওই মনে হয়নি সামাজিক যে সব অবক্ষয় ঘটছে তার জন্যে নির্দিষ্ট কোনো টিভি চ্যানেল দায়ী।

    এর আগে কোনো কিশোরী আত্মহত্যা করেনি? এর আগে কোনো স্ত্রী তালাক দেয়নি? উত্তর নিশ্চয়ই ‘না’ নয়। সেগুলোর কারণ কী ছিল?

    আমি ভারতীয় চ্যানেলগুলোর গুণকীর্তন করতে বসিনি কিন্তু ওয়েস্টার্ন যে সব চ্যানেল এদেশে চালু আছে তা দেখেন মূলত পুরুষেরা বলেই কি তা নিয়ে কোনো মাথাব্যথা নাই? তার কোনো কুফল কি সমাজে প্রতিফলিত হয় না? নেই? মাথাব্যথার চিকিৎসা কি মাথা কেটে ফেলা?

    ছোটবেলায় পড়া এক ভাব সম্প্রসারণের দুটো লাইন মনে পড়ছে।

    “দ্বার বন্ধ করে দিয়ে ভ্রমটারে রুখি
    সত্য বলে আমি তবে কোথা দিয়ে ঢুকি?”

    Reply
    • আব্দুস সবুর

      ইন্টারনেটের এই যুগে সব দ্বার খোলাই আছে–

      অযথা হিন্দি সিনেমা বা ভারতীয় ন্যাকামিভরা বাংলা চ্যানেল থেকে কুশিক্ষা নিতে হবে কেন?

      Reply
  8. numan

    আগে নিজেরা ভালো নাটক, সিনেমা বানাতে শিখুন। যে রকম নাটক, সিনেমা আপনারা বানান তা দেশের মানুষই দেখতে চান না, আবার কীভাবে ভাবেন যে অন্য দেশের মানুষ তা দেখবে?

    আপনারা তো চ্যানেল বানিয়েছেন জাতির পিতা আর বস্তাপচা বিজ্ঞাপন দেখানোর জন্য। আপনি ঠিকই বলেছেন, আমাদের মা-বোনদের সুস্থ বিনোদনের ব্যবস্থা করতে হবে। এই সিরিয়াল দেখে অনেকেই সমাজ ব্যবস্থার ভালো-মন্দ অনুভব করতে পারে, আবার কেউ শুধু সংসারের কূটনামি আর খারাপ দিকটাই গ্রহণ করে।

    কথায় বলে না, সোনার মাঝেও খাদ থাকে। দু-একজন মরল কি না-মরল তার জন‌্য চ্যানেল বন্ধ করার দাবি অনৈতিক। অনেক শিক্ষণীয় বিষয়ও তো আছে, আমরা সেগুলো কেন গ্রহণ করছি না?

    আগে আপনারা ভালো নাটক বানাতে শিখুন, তখন এমনিতেই মানুষ ইন্ডিয়ান চ্যানেল দেখা বন্ধ করে দেবে।

    আর কী বলব, দেশের রাজনীতিই তো চলে ভারতীয় ফিল্মি স্টাইলে! এটা যেন বাস্তবিক এক ৫ বছরের ভারতীয় সিনেমা!

    চলছে, দেখুন পরবর্তী অ্যাকশন শটে কী আছে?

    Reply
    • আব্দুস সবুর

      নিরীহ মানুষ পুড়িয়ে মারার দৃশ্য আমরা ২০১৩ জুড়ে দেখেছি– আরও দেখতে চান?

      Reply
  9. Faiz

    ভালো লিখেছেন।

    তবে অামার মনে হয় বিনোদনমূলক বিদেশি চ্যানেল বন্ধ করে দেওয়া উচিত। কারণ অামাদের দেশের সংস্কৃতি অনেক সমৃদ্ধ। অাগে এক সময় মানুষের মধ্যে যে সামাজিকতা ছিল তা এখন অার নেই। মানুষ এখন অনেক অাত্মকেন্দ্রিক হয়ে গেছে।

    মহিলাদের বিনোদনের জন্য অযথা বিদেশি সংস্কৃতি ধার করার প্রয়োজন নেই। স্বামী, ছেলে-মেয়ে, শ্বশুর-শাশুড়ি, বাবা-মা, ভাই-বোন, পাড়া-প্রতিবেশি সকলকে নিয়ে একজন নারীর বিশাল পরিবার। এদের সময় দিয়ে তার হাতে সময় থাকার কথা নয়।

    অাত্মকেন্দ্রিক না হয়ে থাকলে বিদেশি সংস্কৃতি দেখার সময় কোথায়!

    Reply
  10. shuvro

    কী আর বলব, আধুনিক পদ্ধতিতে নারীকে পায়ের নিচে রাখার ব্যবস্থা ….

    Reply
  11. অমিত কুমার রায়

    বিষয়টা আমার কাছে হাস্যকর মনে হয়! আমি নিজে এই সিরিয়ালগুলো খুব একটা দেখি না, তবে বাড়িতে মা, দিদি, বউ দেখে। এই ঈদে সবাই মিলে সিদ্ধান্ত নিলাম ৩ দিন ঈদের অনুষ্ঠান দেখব। একটা নাটক শুরু হল, ৫ মিনিট হওয়ার পর বিজ্ঞাপন বিরতি, বিজ্ঞাপন হল প্রায় ১৯ মিনিট! তারপর নাটক শুরু হল. আবার ৫ মিনিট পর বিজ্ঞাপন!! এইবার ২০ মিনিট!

    একবার বিজ্ঞাপনের Trend বুঝে যাওয়ার পর বিজ্ঞাপন বিরতিতে চলতে থাকল সেই ভারতীয় চ্যানেল। কোনো কলহ ছাড়াই টানা দুটি সিরিয়াল দেখে শেষ করল মা, দিদি ও বউ মিলে, কিন্তু আমার নাটক তখনও শেষ হয়নি!! বাদও পড়েনি, তখনও বিজ্ঞাপন চলছে!!

    যদি বিজ্ঞাপনই দেখান তবে দেখব না, দেখা না-দেখা আমার অধিকার। আমার অধিকার কেড়ে নেওয়ার অধিকার আপনাকে কে দিয়েছে, সৈয়দা শাহিন আরা লাইলী?

    আর আপনি যে এই বিজ্ঞাপনসর্বস্ব চ্যানেলগুলোর দালাল নন আগে তা প্রমাণ করুন।

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—