Feature Img

Dr. Md. Jafar Iqbalআমি যখন এটা লিখছি তখন বাংলাদেশ স্বাধীনতার চুয়াল্লিশ বছরে পা দিয়েছে। একজন মানুষ যখন চুয়াল্লিশ বছরে পা দেয় সে তখন পূর্ণবয়স্ক হয়ে যায়। দেশের জন্যে সেটা সত্যি নয়, চুয়াল্লিশ বছর একটা দেশের জন্যে এমন কিছু বয়স নয়। আমাদের দেশের জন্যে তো নয়ই। এই চুয়াল্লিশ বছরের ভেতর পনেরো বছর দেশটা ছিল মিলিটারি শাসকদের কব্জায়– দেশের মন-মানসিকতা তখন একবারে উল্টোদিকে ঠেলে দেওয়া হয়েছে। তাই আমাদের দেশ আসলে শূন্য থেকে শুরু করেনি– নেগেটিভ থেকে শুরু করেছে।

এই চুয়াল্লিশ বছরেও দেশের কয়েকটা খুব বড় অপ্রাপ্তি রয়েছে। আমার ধারণা, সেগুলো গুছিয়ে না নেওয়া পর্যন্ত আমরা ঠিকভাবে অগ্রসর হতে পারব না। তার একটা হচ্ছে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের অবস্থান– আমরা যারা স্বচক্ষে এই দেশটিকে জন্ম নিতে দেখেছি তারা জানি বাংলাদেশ আর বঙ্গবন্ধু প্রায় সমার্থক দুটি শব্দ। বঙ্গবন্ধুর যদি জন্ম না হত তাহলে আমরা সম্ভবত বাংলাদেশ পেতাম না।

১৯৭৫ সালে সেই বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে এই দেশে এমন একটা পরিবেশ তৈরি করা হল যেখানে বঙ্গবন্ধুর সঠিক অবস্থান দূরে থাকুক, এই মানুষটির অস্তিত্বই রীতিমতো মুছে দেওয়া হল। শুধুমাত্র আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর বঙ্গবন্ধুর নাম প্রথমবার রেডিও-টেলিভিশনে উচ্চারিত হতে শুরু করল। বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে প্রচারণা এত ব্যাপক আর পূর্ণাঙ্গ ছিল যে এখনও অনেকেই মনে করে, যে বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণ করে সে বুঝি আওয়ামী লীগের সমর্থক!

বঙ্গবন্ধুর প্রতি অসম্মান দেখানোর বিষয়টি সবচেয়ে উৎকটভাবে দেখিয়েছেন খালেদা জিয়া; বঙ্গবন্ধুকে যেদিন সপরিবারে হত্যা করা হয়েছে সেই দিনটিকে নিজের জন্মদিনের উৎসব করার দিন হিসেবে বেছে নিয়ে! আমাদের পারিবারিক একজনের জন্মদিন ঘটনাক্রমে নিজেদের অন্য একজনের মৃত্যুদিন হয়ে যাওয়ার কারণে জন্মদিনটি আর সেদিন পালিত হয় না– অথচ বঙ্গবন্ধুর মতো একজন মানুষের সপরিবারে নিহত হওয়ার দিনটিতে বিছানার মতো বড় কেক কেটে জন্মদিনের উৎসব পালন করা যে কত বড় রুচিহীন কাজ সেটি একটি রাজনৈতিক দল জানে না সেটি বিশ্বাস করা কঠিন।

এই বিষয়টা থেকে একটা বিষয়ই শুধু নিশ্চিত হওয়া যায় যে, বিএনপি (এবং তাদের সহযোগী দলগুলো) এখন বঙ্গবন্ধুকে তাঁর যথাযথ সম্মান দিতে রাজি নয়। সত্যি কথা বলতে কী, তাঁকে অসম্মান করাটা তারা তাদের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের অংশ হিসেবে বিবেচনা করে।

অথচ সবচেয়ে বিচিত্র ব্যাপার হচ্ছে, বিএনপি দলটির জন্ম হয়েছে বঙ্গবন্ধুর মৃত্যুর অনেক পরে। বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবনে বিএনপি কিংবা তাদের প্রতিষ্ঠাতা কোনো মানুষের সঙ্গে তাঁর কোনো বিরোধিতা হওয়ার কোনো সুযোগ পর্যন্ত ছিল না। তাহলে এই মানুষটিকে তাঁর যথাযথ সম্মান দেখাতে এই দলটির এত অনীহা কেন?

আমি রাজনীতির বিশ্লেষক নই, রাজনীতির অনেক মারপ্যাঁচ আমি বুঝি না। কিন্তু অন্তত এতটুকু জানি যে ‘কমন সেন্স’ দিয়ে যদি রাজনীতির কোনো একটা বিষয় বোঝা না যায় তাহলে সেখানে অনেক বড় সমস্যা আছে। তাই কোনো রাজনৈতিক দল যদি বাংলাদেশে রাজনীতি করতে চায়, অথচ সেটা করার জন্যে এই দেশের স্থপতিকেই অস্বীকার করে তাহলে সেটা হচ্ছে ভুল রাজনীতি। ভুল রাজনীতি করলে একটা দল কত দ্রুত ক্ষমতাহীন হয়ে যেতে পারে সেটা বোঝার জন্যে কি আইনস্টাইন হতে হয়? হয় না।

কাজেই আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি, বিএনপিকে যদি এই দেশের রাজনীতিতে টিকে থাকতে হয় তাহলে তাদের সবার আগে বাংলাদেশের জন্ম-ইতিহাসে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা স্বীকার করে নিতে হবে!

আমরা সব সময়েই রাজনৈতিক দলগুলোর মাঝে সম্প্রীতির অভাব রয়েছে বলে অভিযোগ করি। কিন্তু রাজনৈতিক দলগুলো যদি দেশ, দেশের পতাকা, দেশের জাতীয় পতাকার মতোই সমান গুরুত্বপূর্ণ দেশের স্থপতিকে নিয়ে বিভ্রান্তির মাঝে থাকে তাহলে তারা কোন বিষয় নিয়ে আলাপ-আলোচনা করবে?

২.

এবারের স্বাধীনতা দিবসে লাখো কণ্ঠে জাতীয় সঙ্গীত গাওয়া নিয়ে শুরুতেই একটা জটিলতা তৈরি হয়েছিল, আমরা সবাই সেটা জানি। জটিলতাটি এসেছিল ইসলামী ব্যাংকের অনুদান নিয়ে। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছিল যে কুলাঙ্গারেরা, তাদের সমর্থনপুষ্ট এই ব্যাংক কী করেছে সেটি তো কারও অজানা নেই! এই মুহূর্তে যে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারকাজ চলছে, সেই বিচারকাজ থামানোর জন্যে দেশে-বিদেশে যে লবিস্ট লাগানো হয়েছে, তাদেরকেও টাকা-পয়সা দিয়ে সাহায্য করছে এই ব্যাংক– আমাদের কাছে সে রকম গুরুতর অভিযোগ আছে।

জামায়াতে ইসলামী নামে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধবিরোধী যে দলটি আছে, তাদের সবচেয়ে বড় শক্তি হচ্ছে টাকা-পয়সা আর ব্যবসা-বাণিজ্য। এই ব্যাংকটি দিয়েই সেই টাকা-পয়সা, ব্যবসা-বাণিজ্য নিয়ন্ত্রণ করা হয়। সেই ব্যাংকটি আমাদের জাতীয় সঙ্গীত গাওয়ার জন্যে টাকা দেবে আর সেই টাকায় আমরা ‘আমার সোনার বাংলা’ গাইব– এটি যে কত উৎকট একটি রসিকতা সেটা আমাদের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকার জানে না সেটা বিশ্বাস করা কঠিন!

কিন্তু সেটাই ঘটে গিয়েছিল, এই দেশের তরুণেরা প্রথমে এর বিরোধিতা করে সোচ্চার হয়েছিল; তারপর অন্যেরা। এই দেশের মানুষের প্রচণ্ড চাপে সরকার শেষ পর্যন্ত বলতে বাধ্য হয়েছে যে, ইসলামী ব্যাংকের টাকাটা তারা জাতীয় সঙ্গীত গাওয়ার জন্যে ব্যবহার করবে না।

এইটুকু হচ্ছে ভূমিকা। আমি এর পরের কথাটা বলার জন্যে এই ভূমিকাটুকু করেছি। সরকার ঘোষণা দিয়েছে, ইসলামী ব্যাংকের টাকা জাতীয় সঙ্গীত গাওয়ার জন্যে ব্যবহার করা না হলেও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্যে ব্যবহার করা হবে! সরকারের আচরণ দেখে মনে হচ্ছে, এই দেশের তরুণ ছেলেমেয়েরা ইসলামী ব্যাংকের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে ফেলেছে, ইসলামী ব্যাংক যেন সেই দুর্ব্যবহারে মনে কষ্ট না পায় সে জন্যে যেভাবে হোক সরকারের তাদেরকে যখোপযুক্ত সম্মান দেখাতে হবে! তাই তাদের টাকাটা বাংলাদেশের আয়োজিত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ব্যবহার করা হবে!

বেশ কিছুদিন আগে যখন হলমার্ক চার হাজার কোটি টাকা চুরি করেছিল, তখন আমাদের অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন, এটা এমন কিছু বেশি টাকা নয় (শুনে আমি চমৎকৃত হয়েছিলাম, টাকা চুরি করার টার্গেট হিসেবে কত টাকা রাখা যেতে পারে সেখানে এটা একটা নূতন মাত্রা যোগ করেছিল)! যদি চুরি করার জন্যেই হাজার কোটি টাকা খুব বেশি টাকা না হয়, তাহলে ইসলামী ব্যাংকের মাত্র কয়েক কোটি টাকা যেন আমাদের দেশের জাতীয় একটা অনুষ্ঠানে নিতেই হবে? দেশের মানুষের রক্তমাখা টাকা তাদের ফিরিয়ে দিলে কী হত? মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকারকে জানতে হবে, ইসলামী ব্যাংকের প্রতি তাদের এই ভালোবাসা আর সহমর্মিতা এই দেশের অসংখ্য তরুণ-তরুণীকে হতাশ করেছে– আমাকেও হতাশ করেছে।

শুরুতে বলেছিলাম, দেশটাকে এগিয়ে নিয়ে হলে মূল কিছু বিষয়ে সবার একমত হতে হবে। বঙ্গবন্ধু যে এই দেশের স্থপতি সেটি হচ্ছে এ রকম একটি বিষয়। এই দেশটি হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধ করে পাওয়া একটি দেশ; তাই মুক্তিযুদ্ধের যে স্বপ্ন নিয়ে এই দেশটি শুরু করা হয়েছিল সেই স্বপ্নকে ভিত্তি করে তার উপর পুরো দেশটি দাঁড় করানো হবে– এই সত্যটিও সে রকম একটি বিষয়।

আমরা আজকাল খুব ঘন ঘন গণতন্ত্র শব্দটি শুনতে পাই। যখনই কেউ এই শব্দটি উচ্চারণ করেন তখনই কিন্তু তাকে বলতে হবে এই গণতন্ত্রটি দাঁড়ানো থাকবে মুক্তিযুদ্ধের ভিত্তির উপরে। আমরা মুক্তিযুদ্ধের ভিত্তি সরিয়ে একটা গণতন্ত্র তৈরি করব, সেই গণতন্ত্র এই দেশটিকে একটা সাম্প্রদায়িক দেশ তৈরি করে ফেলবে, সকল ধর্মের সকল বর্ণের সকল মানুষ সেই দেশে সমান অধিকার নিয়ে থাকতে পারবে না– সেটা তো হতে পারে না।

কাজেই ধর্ম ব্যবহার করে রাজনীতি করা গণতান্ত্রিক অধিকার বলে দাবি করা হলেও কিন্তু আমাদের মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্নের সঙ্গে খাপ খায় না। গত নির্বাচনের ঠিক আগে আগে নির্বাচন প্রতিহত করা আর যুদ্ধাপরাধীর বিচার প্রতিহত করার আন্দোলন যখন মিলেমিশে একাকার হয়ে গেল, তখন সন্ত্রাস কোন পর্যায়ে যেতে পারে সেটা দেশের মানুষের নিজের চোখে দেখার একটা সুযোগ হয়েছিল।

সেই সন্ত্রাসের নায়ক ছিল জামায়াতে ইসলামী আর তার ছাত্র সংগঠন। একাত্তরে এই দেশটি যুদ্ধাপরাধ করেছিল। চার দশক পরেও সেই যুদ্ধাপরাধের জন্যে তাদের মনে অপরাধবোধ নেই, গ্লানি নেই, একাত্তরের সমান হিংস্রতা নিয়েই তারা এই দেশে তাণ্ডব করতে রাজি আছে।

আমি অবশ্য এই লেখায় জামায়াতে ইসলামীর সন্ত্রাস নিয়ে কথা বলতে আসিনি। আমি কিছুদিন আগে দেখা খবরের কাগজের একটা রিপোর্টের কথা বলতে এসেছি যেখানে লেখা হয়েছে উত্তরবঙ্গের কোনো একটি শহরে জামায়াতে ইসলামীর বড় একটা দল অনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়ে আওয়ামী লীগে যোগ দিতে এসেছে। বিষয়টা কি এতই সহজ?

যে সারাজীবন জামায়াতে ইসলামী করে এসেছে, একাত্তরে মুক্তিযোদ্ধাদের জবাই করেছে, হিন্দুদের বাড়ি লুট করে তাদেরকে দেশছাড়া করেছে, এই কয়েক মাস আগেও পেট্রোল বোমা দিয়ে সাধারণ মানুষকে পুড়িয়ে মেরেছে, হিন্দুদের বাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে– রাতাবাতি তারা জামায়াতে ইসলামী থেকে আওয়ামী লীগ হয়ে গেল! তাদের সমস্ত মন-মানসিকতা, চিন্তা করার ধরন, আদর্শ, স্বপ্ন একটা ম্যাজিকের মতো পাল্টে গেল?

তারা এখন বঙ্গবন্ধুর অনুসারী, মুক্তিযুদ্ধের পতাকাবাহক? এটি কী করে সম্ভব? আমাকে কেউ বুঝিয়ে দেবে? না কি প্রকৃত ব্যাপারটা আরও ভয়ংকর– জামায়াতে ইসলামীর কর্মীদের গ্রহণ করার জন্যে আওয়ামী লীগকেই খানিকটা পাল্টে যেতে হবে? তাদের এখন মুক্তিযুদ্ধের কথা বেশি বলা যাবে না, বঙ্গবন্ধুর সমালোচনা করতে হবে, হিন্দুধর্মের মানুষকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করতে হবে, পেট্রোল বোমা বানানো শিখতে হবে?

কেউ কি আমাকে একটু বুঝিয়ে দেবেন? যে আদর্শকে আমরা এত গুরুত্ব দিয়ে নিই, রাজনীতিতে সেটা আসলে একটা রঙ-তামাশা?

এই লেখাটি যখন লিখছি তখন খবর পেলাম খালেদা জিয়ার পুত্র তারেক রহমান লন্ডনে ঘোষণা দিয়েছেন, তার বাবা জিয়াউর রহমান যেহেতু ‘স্বাধীনতার ঘোষণা’ দিয়েছিলেন তাই তিনিই হচ্ছেন দেশের ‘প্রথম’ প্রেসিডেন্ট! ভাগ্যিস বেচারা জিয়াউর রহমান বেচেঁ নাই। যদি বেঁচে থাকতেন তাহলে নিশ্চিতভাবেই তার গুণধর ছেলের কথাবার্তা শুনে লজ্জায় গলায় দড়ি দিতেন।

মুহম্মদ জাফর ইকবাল: লেখক ও অধ্যাপক, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

মুহম্মদ জাফর ইকবাললেখক ও অধ্যাপক, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

Responses -- “স্বাধীনতার চুয়াল্লিশ বছর”

  1. Rudra Chowdhury

    মনে হয় না জিয়াউর রহমান তার গুণধর ছেলের কথাবার্তা শুনে লজ্জায় গলায় দড়ি দিতেন। বরং খুশি হতেন এই ভেবে যে ছেলে আমার মান রেখেছে!!!

    আর খালেদাকে ধন্যবাদ দিতেন ও রকম একটি সুপুত্র গর্ভে ধারণ করার জন্য।

    চরিত্র, রুচি, এগুলো সব মানুষ শেখে পরিবার থেকে। তারেক এবং তার পরিবার সম্পর্কে কথা বলা নিজেকে নিচ করার সামিল।

    Reply
  2. কান্টি টুটুল

    জাফর ইকবাল সাহেব বলেছেন যে, ব্যক্তিগতভাবে তিনি মনে করেন বিএনপিকে এই দেশের রাজনীতিতে টিকে থাকতে হলে বাংলাদেশের জন্ম-ইতিহাসে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা স্বীকার করে নিতে হবে!

    কিন্তু ইতিহাস তো বলে ভিন্ন কথা….

    ১৯৭৫ সালের ২৪ জানুয়ারি সংবিধানের চতুর্থ সংশোধনী তথা বাকশাল কায়েমের মাধ্যমে যখন সকল রাজনৈতিক দল নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয় তখন তাদের সকলেই স্বাধীন বাংলাদেশের জন্ম-ইতিহাসে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা অস্বীকার করেছিলেন, এটি নিশ্চয়ই পাগলেও বিশ্বাস করে না।

    আর তাই….

    “স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য বাকশাল অকল্যাণকর” … এটি প্রকাশ্য ঘোষণা দিয়ে স্বীকার করে নেওয়াসহ আওয়ামী লীগ যতদিন পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুকে দলীয় সংকীর্ণতার উর্ধ্বে তুলে ধরতে সমর্থ না হয় ততদিন পর্যন্ত তিনি তাঁর প্রাপ্য মর্যাদা থেকে বঞ্চিতই থেকে যাবেন!

    Reply
  3. বিপ্লব রহমান

    বাঙালি এবং বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদের পাইকাররা স্বাধীনতার পর থেকেই মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসটিকে একক কব্জায় নিতে মরিয়া। এরই ধারাবাহিকতায় পাঠ্যপুস্তক, রাজনীতির ময়দান, বক্তৃতা, বিবৃতি, টকশোসহ সর্বত্র মুক্তিযুদ্ধ কারও পিতা বা স্বামীর দয়ার দান বলে প্রচারে গোষ্ঠীটি খুবই তৎপর। যেন এ বলে, আমায় দেখ, ও বলে, না, আমায় দেখ!

    এইসব মিথ্যাচারে কিছু লোককে হয়তো কিছু সময়ের জন্য বিভ্রান্ত করা যায়, কিন্তু একটি জাতিকে, বলা ভালো, পুরো বিশ্ববাসীকে সারাজীবনের জন্য বিভ্রান্ত করা যায় না। …

    ইতিহাস সাক্ষী, মহান মুক্তিযুদ্ধটি যেহেতু শুধু ‘বাংলাদেশ’ নামক ৫৬ হাজার বর্গমাইল স্বাধীনতার একক যুদ্ধ ছিল না, এর ব্যাপ্তি ছিল সব ধরনের শোষণ থেকে মুক্তির, তাই এতে বাঙালির পাশাপাশি ভাষাগত সংখ্যালঘু আদিবাসী জনগোষ্ঠীর মানুষও সক্রিয়ভাবে অংশ নেয়। এটি কোনো একক দলেরও লড়াই ছিল না। এটি ছিল সব দল, মত, বর্ণ ও ধর্মের মানুষের সম্মিলিত জনযুদ্ধ।

    দেশ স্বাধীন হয়েছে। কিন্তু কাঙ্ক্ষিত মুক্তির লড়াই ফুরিয়ে যায়নি। নানা মাত্রায় প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে বয়ে চলে আমাদের মুক্তির লড়াই।

    ভাবনাটিকে উস্কে দেওয়ার জন্য জাফর ইকবাল স্যারকে সাধুবাদ।

    Reply
  4. abu eusuf mia

    স্যার, একটা অসাধারণ অপ্রিয় অমোঘ সত্য উচ্চারণ করেছেন। আমাদের দেশের কথিত ‘সুশীল’রা কিনা বলে আওয়ামী লীগ বিএনপির সঙ্গে আলোচনা করতে। এটা কীভাবে সম্ভব তা আমার গোবরভর্তি মাথায় কোনোভাবেই ঢুকছে না।

    যারা বঙ্গবন্ধুর পর বঙ্গবন্ধুর দল ও দলের নেতাকর্মীসহ বঙ্গবন্ধুর মেয়ে শেখ হাসিনাকেও প্রকাশ্য দিবালোকে হত্যার চেষ্টা সর্বান্তকরণে (প্রায়) অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে করেছিল।

    স্যার যথার্থই বলেছেন, “ভাগ্যিস বেচারা জিয়াউর রহমান বেচেঁ নাই। যদি বেঁচে থাকতেন তাহলে নিশ্চিতভাবেই তার গুণধর ছেলের কথাবার্তা শুনে লজ্জায় গলায় দড়ি দিতেন।”

    Reply
  5. হিমেল

    স্যার, বেচারা জিয়াউর রহমান লজ্জায় গলায় দড়ি দিতেন ঠিকই তবে তার আগে নিজের বংশ নিশ্চিহ্ন করতেন। .

    Reply
  6. adnan kabir

    ধন্যবাদ স্যার আপনাকে, এ রকম ঘন ঘন সমসাময়িক বিষয়ে আপনার লেখা পড়ার সুযোগ দেxয়ার জন্য।

    আপনি লিখেছেন–

    “বেশ কিছুদিন আগে যখন হলমার্ক চার হাজার কোটি টাকা চুরি করেছিল, তখন আমাদের অর্থমন্ত্রী বলেছিলেন, এটা এমন কিছু বেশি টাকা নয় (শুনে আমি চমৎকৃত হয়েছিলাম, টাকা চুরি করার টার্গেট হিসেবে কত টাকা রাখা যেতে পারে সেখানে এটা একটা নূতন মাত্রা যোগ করেছিল)! যদি চুরি করার জন্যেই হাজার কোটি টাকা খুব বেশি টাকা না হয়, তাহলে ইসলামী ব্যাংকের মাত্র কয়েক কোটি টাকা যেন আমাদের দেশের জাতীয় একটা অনুষ্ঠানে নিতেই হবে? দেশের মানুষের রক্তমাখা টাকা তাদের ফিরিয়ে দিলে কী হত? মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সরকারকে জানতে হবে, ইসলামী ব্যাংকের প্রতি তাদের এই ভালোবাসা আর সহমর্মিতা এই দেশের অসংখ্য তরুণ-তরুণীকে হতাশ করেছে– আমাকেও হতাশ করেছে।”

    এখানে দুটো বিষয় লক্ষ্য করেছি। প্রথমত, বড় বড় চুরিতে প্রশ্রয় দান করে মাননীয় অর্থমন্ত্রী যে চরম আপত্তিকর বক্তব্য দিয়েছিলেন তার নিন্দা জানিয়ে লেখক প্রশংসনীয় কাজ করেছেন। আসলে দখলবাজি-চাঁদাবাজি করে জনজীবন অতিষ্ঠ করে সরকার যা করে চলেছেন তা বন্ধ হওয়া দরকার।

    মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী এবং তরুণ সমাজের পালস বুঝে রাজাকারদের বিচারের কাজে আন্তরিকতা প্রদর্শনকারী সরকার যদি জনহয়রানিমূলক ছোট-বড় দুর্নীতি করে যারা সাধারণ মানুষের কষ্ট বাড়িয়ে চলেছেন, রাস্তা-ফুটপাত দখল করে সাধারণ জনগণের এবং কৃষিপণ্য পরিবহণ ব্যয়বহুল-কষ্টকর করে দিচ্ছেন, যারা জনগণের নিত্য সেবা পেতে অন্যায় দুর্নীতির মাধ্যমে বাধা সৃষ্টি করছেন– তাদের থামানোর দায়িত্ব কেবলমাত্র সরকারের, আর কারও নয়।

    এ ব্যাপারে সরকারের ব্যর্থতার ফলেই মুক্তিযুদ্ধবিরোধীরা জনপ্রিয়তা পাচ্ছে। তেমন ভালো কিছু করার অতীত রেকর্ড তাদের না থাকা সত্ত্বেও।

    শ্রদ্ধেয় জাফর স্যারের প্রতি বিনীত অনুরোধ, শাসকদল তথা আওয়ামী লীগকে আপনার জনপ্রিয় কলম দ্বারা দিকনির্দেশনা দিন, সতর্ক করুন। সুশাসন ও জনগণের কল্যাণের কাজগুলো করতে সিরিয়াস হতে বলুন। অনতিবিলম্বে রাস্তা-নদী দখলবাজ, পথেঘাটে টোল আদায়কারী, কালোবাজারে টিকেট বিক্রয়কারী, চিকিৎসা-পুলিশসহ সব ধরনের সেবাকে প্রকৃত জনসেবার মানসম্পন্ন করার কাজে বাধাসৃষ্টিকারী দলীয় কর্মী-সরকারি কর্মচারীদের নিবৃত্ত করতে হবে।

    দ্বিতীয়ত, ইসলামী ব্যাংকসহ জামায়াতীদের যাবতীয় প্রতিষ্ঠান আগে সরকারকেই বর্জন করতে হবে, পাশাপাশি জনগণকে উদ্বুদ্ধ করতে হবে।

    স্যার, একতরফাভাবে সরকারের পক্ষে না লিখে, সরকারের গঠনমূলক সমালোচনা আপনি আগেও করেছেন, যার ফল সবসময়েই চুড়ান্ত বিচারে ভালো হয়েছে। আপনার এসব লেখালেখি দেশপ্রেমিক জনগণ এবং সরকারের ভেতরের শুভশক্তির পক্ষে গেছে।

    Reply
  7. মামুন

    জনাব, আপনি কি আমাদেরকে একটু বুঝিয়ে বলবেন যে, কেন তিনি ইয়াহিয়া, ভুট্টো এবং অন্যান্য পাকি কুখ্যাত নেতৃবৃন্দের সঙ্গে চব্বিশ মার্চ পর্যন্ত আলোচনা চালিয়েছিলেন? আলোচনা যদি সফল হত তাহলে তিনি কি ‘মুসলিম’ পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতেন? না কি তিনি তাদের সঙ্গে স্বাধীন বাংলাদেশের গঠন নিয়ে আলোচনা চালিয়েছিলেন?

    আমাদের যাদের জন্ম স্বাধীনতা-যুদ্ধকালীন কিংবা যুদ্ধ-পরবর্তীতে, তারা একটু জানতে পারতাম যদি..

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—