Feature Img

sagor-f12111দুটি ভিন্ন পত্রিকা। অথচ দুটির প্রতিবেদনে আলাদা কিছু নেই। বলা হয়েছে ‘অনুসন্ধানী প্রতিবেদন’। কিন্তু প্রতিবেদন দুটি পড়ে ঠিক অনুসন্ধানের কোনো কিছু পাওয়া গেল না। বরং দুটি প্রতিবেদন মোটামুটি একই। ‘ডেইলি মেইল’ এবং ‘সানডে মিরর’- উভয়েই উদ্ধৃতি দিয়েছে ঢাকার ‘আমার দেশ’ নামের বিতর্কিত একটি পত্রিকার।

চোখ রাখি ‘আমার দেশ’ পত্রিকায় কদিন আগে ছাপা হওয়া ওই রিপোর্টের উপর। ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড দুটিতে প্রকাশিত প্রতিবেদন আসলে ‘আমার দেশ’-এ প্রকাশিত প্রতিবেদনটির ইংরেজি অনুবাদ মাত্র। ভিনদেশি কোনো পত্রিকায় প্রকাশিত পত্রিকার খবরের উদ্ধৃতি দিয়ে প্রকাশিত খবরও কি ‘অনুসন্ধানী প্রতিবেদন’ হয়? সাংবাদিকতার পণ্ডিত ব্যক্তিরা ভালো বলতে পারবেন।

তবে প্রতিবেদনটি ‘আলোড়ন’ তুলতে পেরেছে এটা সত্য। একই সঙ্গে বিতর্কও তৈরি করেছে। কিন্তু সবকিছু ছাপিয়ে যেটি করেছে সেটি হল ‘ডেইলি মেইল’ এবং ‘মিরর’ নামের ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড দুটি বাংলাদেশের মিডিয়া, সাংবাদিকতা, মিডিয়ার পেশাদারিত্ব প্রশ্নের মুখে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। মিডিয়ার দায়িত্ববোধ এবং নৈতিকতাবোধ নিয়েও প্রশ্ন তোলার সুযোগ করে দিয়েছে পত্রিকা দুটো।

সাভারের রানা প্লাজার ধ্বংসস্তূপ থেকে ১৭ দিন পর উদ্ধার হওয়া এবং অলৌকিকভাবে বেঁচে যাওয়া রেশমার উদ্ধার ঘটনা দুটি ট্যাবলয়েড পত্রিকাই ‘ভাঁওতাবাজি’ হিসেবে অভিহিতি করেছে। স্পষ্টতই এটি একটি সিন্ডিকেটেড নিউজ। একই সূত্র থেকে পাওয়া একই নিউজ দুটি পত্রিকায় দুজন ভিন্ন রিপোর্টারের নামে প্রকাশিত।

‘মিরর’-এর রিপোর্টার সাইমন রাইট দাবি করেছেন তিনি ঢাকা সফর করেছেন, রেশমার গ্রামের বাড়িতে গিয়েছেন। রেশমার মায়ের সঙ্গে রিপোর্টারের একটি ছবিও আছে পত্রিকায়। ‘ডেইলি মেইল’-এর রিপোর্টার এ ধরনের কোনো দাবি তার রিপোর্টে করেননি।

মজার ব্যাপার হচ্ছে, ব্রিটিশ ট্যাবলয়েডের এ রিপোর্ট ঢাকার অনেকগুলো পত্রিকা বাংলায় অনুবাদ করে হুবহু প্রকাশ করেছে। যে পত্রিকাগুলো বাংলা করে প্রকাশ করেছে তার সবকটিই জামায়াত-বিএনপির রাজনীতির অনুসারী। পত্রিকাগুলোর এ চরিত্রের কথা তা কাউকে বলে দিতে হয় না।

ব্যতিক্রম হচ্ছে ‘প্রথম আলো’। এটি সবসময়ই নিজেদের নিরপেক্ষ হিসেবে দাবি করে থাকে। তাহলে তারা তাহলে জামায়াত-বিএনপিপন্থী মিডিয়ার সঙ্গে সিন্ডিকেটের অংশীদার হল কেন? শাহবাগের গণজাগরণ-পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন ইস্যুতে ‘প্রথম আলো’র ভূমিকার প্রতি যাদের সজাগ দৃষ্টি নিবদ্ধ ছিল তাদের কাছে এ প্রশ্ন হাস্যকর। নিরপেক্ষতার মুখোশের আড়ালে থেকে ‘প্রথম আলো’ যে জামায়াত-বিএনপির দিকে হেলে পড়ছে, সেটি পত্রিকার সচেতন পাঠকদের দৃষ্টি এড়ায়নি।

রেশমা ইস্যুতে ‘প্রথম আলো’ নিজেই যেন নিজের অবস্থান খোলামেলা করে দিল। রেশমাকে নিয়ে শুরু থেকেই যে একটা গুঞ্জন তৈরি হয়েছিল, জামায়াত-বিএনপিপন্থীরা সে গুঞ্জনটাকে নানাভাবে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে দিয়েছে– সেটাকে একটা গ্রহণযোগ্যতা দেওয়ার ক্ষেত্রে ভূমিকা রেখেছে ‘প্রথম আলো’।

রানা প্লাজার ধ্বংসস্তূপ থেকে উদ্ধারের পরপরই রেশমাকে নিয়ে কিছু সন্দেহ এবং গুঞ্জনের জন্ম দেয় আমাদের মিডিয়া। ‘এত ফ্রেশ লাগছে কেন, কাপড়চোপড় এত পরিষ্কার কেন, হাতের নখ ছোট কেন, কোথাও আঘাত লাগেনি কেন’ এ ধরনের প্রশ্নের অবতারণা করে রেশমা উদ্ধারের ঘটনা সম্পর্কে একটি সন্দেহ তৈরি করে দেয় মিডিয়া। স্বভাবগতভাবেই কৌতূহলী বাঙালির কৌতূহল মিডিয়া দক্ষতার সঙ্গেই উসকে দিতে পেরেছে।

কিন্তু কেবল এ কাজ করেই চুপ হয়ে যায় ঢাকার মিডিয়া। কোনো মিডিয়াই সে কৌতূহল নিবৃত্ত করার বা সঠিক উত্তরটি খুজেঁ বের করার প্রয়োজন বোধ করেনি। অথচ সেটি ছিল নৈতিক এবং পেশাগতভাবে মিডিয়ার কর্তব্য। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে ’ওয়ার্ড অব মাউথ’ ও সামাজিক যোগাযোগের নানা মিডিয়ায় অপ্রপচারের শীর্ষে নিয়ে যায় জামায়াত-শিবির আর জাতীয়তাবাদী রাজনীতির কর্মীরা। একটা গুজব, একটা গুঞ্জন নিভৃতে ডালপালা ছড়াতে থাকে।

মূলধারার মিডিয়ার নিরবতা কাজে লাগায় অপপ্রচারে শীর্ষস্থানে থাকা জামায়াত-বিএনপি গ্রুপের মুখপাত্র ‘আমার দেশ’। তারা তাদের ‘অনুসন্ধানী(?)’ প্রতিবেদনে দাবি করে, রেশমার ঘটনা ছিল সাজানো নাটক। মিথ্যাচার আর প্রোপাগাণ্ডা চালানোর কারণে কুখ্যাতি পাওয়া এবং রাজনৈতিক পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে অভিযুক্ত হওয়ার কারণে ‘আমার দেশ’-এর রিপোর্টটি বিশ্বাসযোগ্যতা তৈরি করতে পারেনি। ফলে সেটি নিয়ে তেমন কোনো আলোচনা বা বিতর্ক হয়নি। তারপরই ওদের রিপোর্টের ইংরেজি সংস্করণ প্রকাশিত হয় লন্ডনের ট্যাবলয়েড পত্রিকা ‘ডেইলি মেইল’ এবং ‘সানডে মিরর’-এ।

মজার ব্যাপার হচ্ছে, সংবাদ পরিবেশনের ক্ষেত্রে দুটি ব্রিটিশ পত্রিকাই ‘অনুসন্ধানী’ শব্দটি ব্যবহার করেছে। অনুবাদের ক্ষেত্রেও ঢাকাই মিডিয়াগুলো ‘ব্রিটিশ পত্রিকার অনুসন্ধানী রিপোর্টে’ তকমা লাগিয়ে এক ধরনের সেনশেসন তৈরির চেষ্টা করেছে। কিন্তু দুটো রিপোর্ট মনোযোগ দিয়ে পড়লে স্পষ্ট হয়ে উঠে যে এগুলোতে কোনো ধরনের অনুসন্ধান নেই।

‘আমার দেশ’, ‘মিরর’ আর ‘ডেইলি মেইল’-এ প্রকাশিত রিপোর্টগুলো এক হাতে তৈরি বলে সবকটি রিপোর্টে একই ধরনের অসঙ্গতি ও দুর্বলতা চোখে পড়ে। চোখে পড়ে একই ধরনের মিথ্যাচার। ‘মিরর’ এবং ‘ডেইলি মেইল’-এর রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে, রেশমা উদ্ধারের আগের দিন নাকি রানা প্লাজার আশপাশের বাসিন্দাদের তাদের বাড়িঘর থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। চব্বিশ ঘণ্টার জন্য টেলিভিশনে সংবাদ প্রচার নিষিদ্ধ করে দেওয়া হয়েছিল।

কিন্তু এ ধরনের কোনো ঘটনা সে সময় ঘটেছে বলে ঢাকার কোনো মিডিয়ায় খুজেঁ পাওয়া যায়নি। এমনকি যে ‘প্রথম আলো’ বিতর্কিত এই রিপোর্টটি বাংলা করে ছেপেছে তারাও সে সময় এ ধরনের কোনো সংবাদ দেয়নি।

রিপোর্টের একমাত্র সোর্স হচ্ছে রেশমার কথিত সহকর্মী যে দাবি করেছে প্রথম দিনেই তাকে আর রেশমাকে একসঙ্গে উদ্ধার করা হয়েছে। মাত্র একজন ব্যক্তির বক্তব্য দিয়েই কোনো ‘অনুসন্ধানী’ সাংবাদিকতা হয় কি না তা আমার জানা নেই। রিপোর্টে এনাম হাসপাতালে রেশমার চিকিৎসা নেওয়ার কথা বলা হলেও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কোনো বক্তব্য নেই। এ থেকেই রিপোর্টের উদ্দেশ্য পাঠকের কাছে পরিষ্কার হয়ে যায়।

রিপোর্টটিতে শিশির আবদুল্লাহ নামের একজন ‘অনুসন্ধানী’ সাংবাদিকের উদ্ধৃতি দেওয়া হয়েছে। কিন্তু কে এই শিশির আবদুল্লাহ? ঢাকার সাংবাদিক বন্ধুদের কেউই তার সম্পর্কে তেমন কোনো তথ্য দিতে পারেননি। পরে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শিশির আবদুল্লাহর আসল নাম ‘কদরউদ্দিন’। শিবিরের দীর্ঘদিনের কর্মী এ কদরউদ্দিন ‘বাশেঁর কেল্লার’ সক্রিয় কর্মী। শিশির আবদুল্লাহ নাম নিয়ে তিনি আমার দেশ-এ রিপোর্টার হিসেবে কাজ করছেন। দেখা যাচ্ছে, রেশমা নিয়ে ‘অনুসন্ধানের’ নামে ‘আমার দেশ’ আর বিএনপি-জামায়াতপন্থীরাই আসলে এ অপপ্রচার চালাচ্ছে।

লন্ডনের ট্যাবলয়েডগুলো পয়সা খরচ করে খবর বানায়– এটা নতুন কোনো তথ্য নয়। ‘মিরর’-এর আলোচিত রিপোর্টার সাইমন রাইট সাজানো খবর বানাতে গিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকায় গ্রেফতার হয়েছিলেন এবং তাকে সে দেশ থেকে বহিঃষ্কার করা হয়েছিল। মন্দ সাংবাদিকতার কলঙ্কতিলক পরা সাইমন রাইট দক্ষিণ আফ্রিকার বিশ্বকাপ আয়োজন প্রশ্নবিদ্ধ করতে ৩৫ হাজার পাউন্ডে চুক্তি করা এক ব্রিটিশ তরুণকে ঢুকিয়ে দিয়েছিলেন ইংল্যান্ড ফুটবল টিমের ড্রেসিংরুমে। যোশেফ নামের ওই তরুণের সঙ্গে চুক্তি হয়েছিল সে ইংল্যান্ড ফুটবল টিমের ড্রেসিংরুমের বর্ণনাসমেত তাকে সাক্ষাৎকার দেবে।

কিন্তু কেপটাউনের পুলিশ দুজনকেই গ্রেফতার করে। এ নিয়ে আন্তর্জাতিক সব মিডিয়ার শিরোনাম হয়েছিলেন সাইমন রাইট। তার অতীত এবং ‘আমার দেশ’-এর চরিত্র, দুটো একসঙ্গে মিলালেই রেশমাকে নিয়ে অপপ্রচারের একটি কারণ সম্পর্কে উপসংহার টানা যায়।

রেশমাকে নিয়ে বিতর্কটি রেশমা নামের গ্রামের সাধারণ এক গার্মেন্টকর্মীকে কতটা ক্ষতিগ্রস্ত করেছে, আদৌ করেছে কি না সেটা প্রশ্নসাপেক্ষ। কিন্তু আমাদের মিডিয়ার নৈতিকতা ও পেশাদারিত্বে যে প্রচণ্ড চপেটাঘাত করেছে সে ব্যাপারে কোনো সন্দেই নেই।

শওগাত আলী সাগর : প্রথম আলোর সাবেক বিজনেস এডিটর এবং কানাডা থেকে প্রকাশিত ‘নতুনদেশ ডটকম’-এর প্রধান সম্পাদক।

শওগাত আলী সাগরটরন্টোর বাংলা পত্রিকা ‘নতুন দেশ’এর প্রধান সম্পাদক

১২০ Responses -- “রেশমা ‘নাটক’ এবং মিডিয়ার পেশাদারিত্ব”

  1. Niloy Rahman

    আপনার বক্তব্য প্রমাণ করার মতো যথেষ্ট যুক্তি পেলাম না।

    Reply
  2. সারাহ খান

    আপনারা নিজেরা একটা অনুসন্ধানী রিপোর্ট করলেই তো ঝামেলা মিটে যায়। রেশমাকে নিয়ে লুকোচুরি খেলা কিন্তু সরকার নিজেই প্রথমে শুরু করেছে।

    Reply
  3. ফজল হক

    যে দেশের অধিকাংশ মানুষ জিন, পরী, তাবিজ, কবজ, পীর ইত্যাদিতে বিশ্বাস করে সে দেশে রেশমা নাটক বিশ্বাস করানো কোনো ব্যাপার নয়। এতদিন পরেও যদি বলা হয় যে রানা প্লাজার ভগ্নস্তূপের নিচে চাপাপড়া জীবন্ত মানুষ আছে এটা বিশ্বাস করার মতো বহু লোক পাওয়া যাবে। এই জন্য এই দেশে সব ধরনের নাটক জনগনকে গিলানো সহজ হচ্ছে।

    Reply
  4. আদিত্য

    আপনার বক্তব্য প্রমাণ করার মতো যথেষ্ট যুক্তি পেলাম না।

    Reply
  5. Aktamanus

    আসলে আমাদের সত্য-মিথ্যা বোঝার ক্ষমতা নেই, তাই সবাই আমাদের বোকা বানানোর চেষ্টা করে।

    আরেকটা কথা। রেশমার ব্যাপারটা নিয়ে সঠিক প্রতিবেদন দিতে হবে সরকারকে। সেই সঙ্গে সাংবাদিকদেরও প্রশ্ন করার সুযোগ দিতে হবে। তাহলেই সত্যটা বের হয়ে আসবে।

    Reply
  6. মো: আলমাস

    মাননীয় লেখক,

    আপনার লেখাযর প্রেক্ষিতে কিছু প্রশ্ন ছিল সেগুলোর উত্তর বের করবেন আশা করি।

    আর মো. আবদুল গফুরের এই প্রশ্নটার উত্তর দিবেন প্লিজ….. ‘সতেরো দিন একজন মানুষ অন্ধকারাচ্ছন্ন ভাঙা বিল্ডিং-এর নিচে থেকে বের হওয়ার পর কী করে চোখ মেলে তাকাল? এটা কীভাবে সম্ভব? চিকিৎসা বিজ্ঞান বলছে, ৭২ ঘন্টা কোনো অন্ধকারাচ্ছন্ন জায়গায় থাকলে কোনো মানুষের পক্ষে ৫/১০ মিনিট চোখ মেলে তাকানোই সম্ভব নয়, কিন্ত রেশমার ক্ষেত্রে কী হল?’

    বিল্ডিং-এর বেজমেন্টে যেখানে রেশমা আটকে ছিল সেখানে সে জামাকাপড় কোথায় পেল? সতেরো দিন পর উদ্ধার হতে যাওয়া একজন মানুষের পক্ষে জামাকাপড় পরিবর্তন করার মতো মানসিকতা থাকার কথা কি? পানি ছাড়া ১৭ দিন!!!!!

    Reply
  7. kamal

    আপনার লেখার কোথাও তো অনুসন্ধানী কিছুই পাওয়া যায়নি। শিশির আবদুল্লাহ কি শিবির করে নাকি বিএনপি করে সেটা তো বিবেচ্য হতে পারে না। নাকি শিবির করলে রিপোর্ট করা যাবে না?

    মূল ব্যাপার হল রিপোর্টের সঙ্গে বাস্তবতার মিল আছে কি না….

    Reply
  8. আসাদ

    লেখক ভাই, আপনি কোন দলের সমর্থক? আপনার নিরপক্ষতা নিয়ে আমার প্রশ্ন থাকল। আমরা সব বুঝতে পারি।

    Reply
  9. Syed Anwar Hossain

    আচ্ছা, আপনি যদি মনে করেন রেশমা সত্যিই ওই ভবনের নিচে ১৭ দিন আটকে ছিল তাহলে আমাদের জানতে দিন। উদ্ধারের সময় তাকে পুরো ফ্রেশ দেখা যাচ্ছিল। খাদ্য, পানীয় ছাড়া ১৭ দিন ওখানে আটকে থাকা কত কঠিন ভাবতে পারেন।

    এর আগের ওই এলাকায় মিডিয়াকে ঢুকতে দেওয়ায় একটু বিধিনিষেধ ছিল। কেন? হয়তো নাটক মঞ্চস্থ করার সুবিধার জন্য। পারিপার্শ্বিক সব সাক্ষ্য প্রমাণ করে যে অপ্রয়োজনীয় ক্রেডিট নেওয়ার জন্য। আমাদের দায়িত্বশীল মিডিয়া সত্য অনুসন্ধান করে বের করেছে। প্রমাণও দিয়েছে তারা।

    ধন্যবাদ আনোয়ার হোসেন।

    Reply
  10. Milon Rahman

    চমৎকার উপস্থাপন। তবে কিছু মন্তব্য পড়ে বুঝলাম, লেখাটি জামায়াত-শিবিরের আঁতে ঘা দিয়েছে, তাই ওরা ফোঁস ফোঁস করছে।

    ভালোই লিখেছেন। ধন্যবাদ।

    Reply
  11. মাসুদ রানা

    এ দেশে কীসের প্রতিক্রিয়া লিখবেন, দুভাগে ভাগ হয়ে গেছে দেশের সব মানুষ! যে দলকে যে সাপোর্ট করে সে দল যদি পুরো দেশটা চুরি করে শেষ করে ফেলে তবুও কিছু বলবে না। আর দুই দলই সাবেক আমলাদের উপদেষ্টা হিসেবে রেখেছেন। যে আমলারা সারাজীবন জনগণের ঘাড় মটকিয়ে খেয়েছেন তারা জনগণের ভালোর জন্য কী উপদেশ দিবেন দুই নেত্রীকে?

    তার প্রমাণ দেখুন। উপদেশ- গ্যাস আছে, দেওয়া যাবে না। আবার আরেক দলের আমলা ও টিন ব্যবসায়ী দল ক্ষমতায় থাকতে ছিলেন উপদেষ্টা। ক্ষমতার শেষে পত্রিকা কিনে সাংবাদিক হয়ে মক্কা-মদিনার মতো পবিত্র স্থানকেও কীভাবে অপবিত্র করছেন!

    কাজেই এই দুই দলকে ভোট দেওয়া থেকে বিরত থাকবেন। আর যাই হোক, তাতে অন্তত নিজের মনকে সান্ত্বনা দিতে পারবেন।

    Reply
  12. Md. Abdul Gafur

    সতেরো দিন একজন মানুষ অন্ধকারাচ্ছন্ন ভাঙা বিল্ডিং-এর নিচে থাকার পর বের হওয়ার পর কী সুন্দর হাসি দিল। চোখ মেলে তাকাল। এটা কীভাবে সম্ভব? চিকিৎসা বিজ্ঞান বলছে, ৭২ ঘন্টা কোনো অন্ধকারাচ্ছন্ন জায়গায় থাকলে কোনো মানুষের পক্ষে ৫/১০ মিনিট চোখ মেলে তাকানোই সম্ভব নয়, কিন্ত রেশমার ক্ষেত্রে কী হল?

    বিল্ডিং-এর বেজমেন্টে যেখানে রেশমা আটকা ছিল সেখানে সে জামাকাপড় কোথায় পেল? সতোরো দিন পর উদ্ধার হতে যাওয়া একজন মানুষের পক্ষে জামাকাপড় পরিবর্তন করার মতো মানসিকতা থাকার কথা কি? রেশমার ঘটনা একটা সাজানো নাটক কি না আমি তা বলতে চাই না, তবে ……………. ??????

    Reply
    • হাবিব

      আরও কত যে নাটক এখনও দেখার বাকি আছে! তবে রেশমার জন্য মায়া হয়, সে নোংরা রাজনীতির শিকার হল। পাগলও বুঝবে রেশমার কাহিনী। প্রকাশ্যে পক্ষে বললে আওয়ামী লীগ হয়ে যেতে হবে; সাজানো বললে বলবে বিএনপি-জামায়াত।

      সুতরাং মানবাধিকারের মতো সত্যও আপাতত গৃহবন্দী!

      Reply
    • A B M Faiz ullah

      জনাব সাগর, আপনিও কি সত্য লিখেছেন? উক্ত পত্রিকাগুলি লিখেছে, আত্মীয়স্বজনের খোঁজে রানা প্লাজার আশপাশে যে সব নারী-পুরুষ ভিড় করে থাকে, তাদের রেশমা উদ্ধারের আগের দিন ওই স্থান থেকে সরিয়ে দিয়েছিল। আর আপনি লিখলেন এলাকার লোকদের বাড়িঘর থেকে সরিয়ে দিয়েছিল।

      উক্ত পত্রিকাগুলি লিখেছে, ২৪ ঘণ্টা সাংবাদিকদের চিত্র ধারণ করতে দেয়নি। ২৪ ঘণ্টা টিভি চ্যানেল বন্ধ ছিল, লিখলেন আপনি।

      মানলাম, ওরা মিথ্যাবাদী। তা, আপনি মিথ্যা লিখলেন কেন? বিএনপি-জামায়াত হলেই খারাপ আর আওয়ামী-বাম মানেই ধোয়া তুলসীপাতা, এই বোধোদয়ের কারণ?

      আমরা মনে করি জাতীয় সার্থেই এ জন্য বিচার বিভাগীয় তদন্ত হওয়া দরকার।

      Reply
  13. Bashar

    বারবার বলছেন, ‘জামায়াত-বিএনপিপন্থী’, আপনিও নিশ্চয়ই কোনো পন্থী?

    মুন্নী সাহা প্রথম দিনই রেশমার জামা নিয়ে প্রশ্ন করেছিলেন।

    ১৭ দিন আমার কাছে বড় একটা প্রশ্ন!!!

    Reply
  14. রায়হান

    বেশি কিছু বলতে চাই না, শুধু কয়েকটা প্রশ্ন। আপনি কি শুধুমাত্র ‘আমার দেশ’ পত্রিকাটির প্রতিবেদনই পড়েছেন? নাকি ‘মিরর’ও পড়েছেন? (আপনি নিজেই কিন্তু উল্লেখ করেছেন- চোখ রাখি ‘আমার দেশ’ পত্রিকায় কদিন আগে ছাপা হওয়া ওই রিপোর্টের উপর)।

    আচ্ছা, সব ষড়যন্ত্র আর দুষ্টু কৌশল কি শুধু বিরোধী আর দু’চোখের বিষ জামায়াতে ইসলামী, হেফাজতে ইসলামীরা করতে পারে? সরকার কি এতই সাদা? এতই পিওর? শুধুই সরকার?

    রেশমা চাকরি পেয়েছে, তাতে আমাদের জ্বলছে খুব ভালো। প্রম্ন হচ্ছে, শুধু রেশমা কেন, আর সব গার্মেন্টসকর্মী কী দোষ করল?

    আশা করি উত্তর পাব! উত্তরের অপেক্ষায় রইলাম।

    Reply
  15. Hasan

    আগে খবরের কাগজ পড়ে আমরা খবর জানতাম, এখন YOUTUBE আছে আমাদের।

    সময় বদলে গেছে, আমাদের বোকা বানাতে হলে নতুন কোনো পথ বের করতে হবে!

    Reply
  16. Rana

    ভাই, দেশের জন্য কিছু একটা করুন। সারাজীবন নেগেটিভ কথা বললেন, এবার বাদ দিন।

    Reply
  17. lilnjl

    অনেকদিন হল বিডিনিউজ পড়া ছেড়ে দিয়েছি। আবার দুদিন ধরে পড়ছি। বিডিনিউজ এখনও আগের মতোই প্রথম এবং ভালো।

    ভালো থাকবেন।

    Reply
  18. জসিম

    আপনিও তো পেশাদারিত্ব থেকে লিখতে পারলেন না। শুধু একতরফাভাবে কিছু সাফাই গেয়ে গেলেন। কোনো যুক্তি-তর্ক নেই। ইতিহাস কি ভুলে গেছেন? স্বাধীনতার পর চারটি পত্রিকা ছাড়া সব বন্ধ করে দেওয়া হল। উদ্দেশ্য হল, আমি যা করব এর বিরোধিতা যেন কেউ না করতে পারে, ভালো হোক আর খারাপ! বাকস্বাধীনতা হরণ করে ওই সরকার কেমন দেশপ্রেমের পরিচয় দিলেন?

    আন্তরিকভাবে বলছি, সুস্থ মস্তিস্কে চিন্তা করে দেখুন তো রেশমা কি আসলে ১৭ দিন ছিল ভবনের নিচে? তাহলে এত পরিষ্কার কাপড়চোপড়, হাত-পায়ের নখ স্বাভাবিক, চেহারা স্বাভাবিক, গ্রামের বাড়িতে যাওয়ার পর জনগণের সঙ্গে তাকে কথা বলতে না দেওয়া– এসবের কারণ কী?

    যাক, নিশ্চয়ই মনে মনে বলবেন যে, ভাইজানে মনে হয় জামায়াত-শিবির বা বিএনপি করে। আসলে জীবনে রাজনীতিই করিনি।

    Reply
  19. biplob

    ভাই, আপনি যদি ‘আমার দেশ’, ‘ডেইলি মেইল’, ‘সানডে মিরর’ পত্রিকার সমালোচনা না করে তাদের যুক্তির বিপক্ষে যুক্তি দাঁড় করতেন তবে বুঝতাম আপনি নিরপেক্ষ। আপনিও যে হলুদ সাংবাদিকতা করেন তা বলাই বাহুল্য।

    Reply
    • saifullah

      ভাই, আপনি অনেক ভালো কথা বলেছেন। ধন্যবাদ। ওরা এমনভাবে কথা বলেন যেন মিডিয়া ‘দুধে ধোয়া তুলসী পাতা’।

      Reply
    • Mahfuz

      ঠিক কথা বলেছেন। ‘আমার দেশ’ বলুক আর ‘মিরর’ বলুক তাদের রিপোর্টের বিরুদ্ধে সরকার কিংবা দায়িত্বশীল মহল কেউই এখনও কোনো যুক্তি উপস্থাপন করতে পারেনি।

      ওদিকে সেনাবাহিনী কোনো প্রকার যুক্তি উপস্থাপন না করে উল্টো বিরোধী দলগুলোকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, ‘ফাউল খেললে ব্যথা পেতে হয়।’

      সত্য সবসময় যুক্তির কাছে হার মানবেই। কারণ, ‘সত্য’ চিরকাল সত্য।

      Reply
  20. Akash

    ভাই, আপনি যদি ‘আমার দেশ’, ‘ডেইলি মেইল’, ‘সানডে মিরর’ পত্রিকার সমালোচনা না করে তাদের যুক্তির বিপক্ষে যুক্তি দাঁড় করতেন তবে বুঝতাম আপনি নিরপেক্ষ। আপনিও যে হলুদ সাংবাদিকতা করেন তা বলাই বাহুল্য। আপনাদের মতো সাংবাদিকদের জন্যই আমরা সাধারণ জনগণ বোকা হয়ে থাকি। সম্ভবত এর কোনো শেষ নেই…………

    Reply
      • সাইফুল ইসলাম

        একমত। আমি বলছি না রেশমা উদ্ধার সাজানো নাটক। তবে ‘আমার দেশ’, ‘ডেইলি মেইল’, ‘সানডে মিরর’ পত্রিকায় প্রকাশিত খবর ছিল যুক্তিনির্ভর যা বিশ্বাস করার মতো। কিন্তু আপনারা যারা ‘আমার দেশ’, ‘ডেইলি মেইল’, ‘সানডে মিরর’ পত্রিকার খবরকে সাজানো বলছেন তারা বলছেন না কোন যুক্তিতে আমরা বিশ্বাস করব যে রেশমার ঘটনা সাজানো নয়।

        আমি ধরে নিলাম টাকা দিয়ে ‘ডেইলি মেইল’, ‘সানডে মিরর’ পত্রিকায় খবর ছাপানো হয়েছে; কিন্তু আপনারা যারা সৎ নিষ্ঠাবান সাংবাদিক তারা তো ‘আমার দেশ’, ‘ডেইলি মেইল’, ‘সানডে মিরর’ পত্রিকায় প্রকাশিত খবরের বিপরীতে কোনো যুক্তি দেখাতে পারছেন না।

        আমরা যারা সাধারণ মানুষ তারা বিশ্বাস করতে চাই আপনাদের।

  21. pavel kamal

    আমরা আবারও প্রমাণ করলাম আমরা হুজুগে মাতাল৤ শুনলাম চিলে কান নিয়ে গেছে তা শুনেই চিলের পিছনে ছুটলাম। কানের জায়গায় আর হাত দিয়ে দেখলাম না যে কান আছে কি না৤

    আর আমাদের মিডিয়ার যে কোনো আত্নসম্মানবোধ নেই তা তারা নিজেরাই প্রমাণ করল৤ বিদেশি দুটি সংবাদপত্র যখন রেশমা উদ্ধার নাটক বলল তখন তারা তার প্রতিবাদ না করে সেটা নিয়ে নাচানাচি শুরু করে দিল৤ এতেই প্রমাণিত হয় আমাদের মিডিয়ার চরম সত্য কী৤

    Reply
    • Kamal

      আমাদের মিডিয়ার যে কোনো আত্নসম্মানবোধ নেই তা তারা নিজেরাই প্রমাণ করল।

      Reply
  22. দূরন্ত ফারুক

    আমি বলি কি, ‘প্রথম আলো’ যদি ‘নিরপেক্ষ’ আর ‘ব্যতিক্রম’ই হয়ে থেকে, তবে তারা যদি নিরপেক্ষভাবে খবর প্রকাশ করে আর খবরটা জামায়াত-বিএনপির পক্ষে যায় তাতে তো আপনার সমস্যা হওয়ার কথা না। আপনি বিএনপি-জামায়াতকে ভয় পান, না সত্যকে?

    Reply
  23. Selim

    খোঁচা মারা ছাড়াও আমরা অন্যভাবে প্রতিবাদ জানাতে পারি। আমরা আমাদের চরিত্রের দিকে না তাকিয়ে অন্যজনের দোষ খুঁজতে অতিআগ্রহী হয়ে পড়ি। কবে কোন মহাদেবতার আশীর্বাদে আমরা নিজেদের দোষের সমালোচনা করতে শিখব কে জানে!

    রেশমার ঘটনা নিয়ে যেসব প্রশ্ন উঠেছে তা কি সম্পূর্ণ অমূলক? চারদিন অভুক্ত ব্যক্তির অবস্থাই এমন স্বাভাবিক থাকার কথা নয়। এটা সবাই উপলব্ধি করতে পারে যে সম্পূর্ণ অনিশ্চিত জীবনের কুহেলিকায় ঢেকে হতাশার মরণকূপ থেকে বেরিয়ে আসার প্রচেষ্টায় ক্লান্ত শরীরে এমন শক্তি থাকার কথা নয়! লোকালয়ে আসা রেশমাকে স্ট্রেচারে মাথা উঁচু করতে এবং হাস্যোজ্জ্বল দেখাচ্ছিল। ভিডিও ফুটেজ প্রয়োজনে আবার গুরুত্বের সঙ্গে দেখে নিন, আপনার চোখকে আপনি বিশ্বাস করাতে পারবেন আশা করি।

    হতে পারে আপনার অনুমান বা বক্তব্য সঠিক। তাই নিশ্চিত তথ্যনির্ভর সত্য উদ্ঘাটনের জন্য উদাত্ত আহ্বান রাখছি।

    Reply
    • Jeremiah

      ভাইজান সেলিম,

      সালাম নিবেন। আশা করি বাংলাদেশের প্রতিহিংসাপরায়ণ ব্যক্তিদের বিষয়ে আপনার জানা আছে। বাংলাদেশে এ ধরনের লোকের অভাব নেই। রেশমার বর্তমান অবস্থান দেখে তার গার্মেন্টস সহকর্মীরা তো বটেই, আপনার-আমার মতো অনেকের হিংসা হবে এবং হচ্ছে যা চূড়ান্ত সত্য। অপরদিকে বাংলাদেশের বিরোধী দলের কাজ হচ্ছে ক্ষমতাসীন দলের যাবতীয় ভালো-মন্দ কাজের বিরোধিতা করা। এর ব্যতিক্রম বর্তমান বিএনপি-জামায়াত হতে পারেনি।

      যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের ক্ষেত্রেও আপনি লক্ষ্য করেছেন যে, বিএনপি কোনো সময় সাহস করে বলতে পারেনি যে তারা যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চায়। আপনি একটা বিষয় ভালো করেই জানেন যে, এই রাজনৈতিক দলগুলি কোনোভাবেই বর্তমান ক্ষমতাসীন সরকারের কোনো সাফল্য পছন্দ করবে না বরং কীভাবে কুৎসা রটানো যায় তার ব্যবস্থা করবে। রেশমা-বিষয়ক ঘটনাটি তার মধ্যে একটি।

      আমি জানি না আপনি কোন দলকে সমর্থন করেন। জানি না আপনি আমার সঙ্গে এই কথায় একমত হবেন কি না, আমি বলব, জামায়াত কোনোদিন বাংলাদেশের ভালো চায় না বা চাইবে না।

      Reply
      • ayon

        জেরেমিয়া ভাই, তাহলে আপনি বলতে চাচ্ছেন রেশমা উদ্ধার সরকারের সফলতা!!!

      • Jeremiah

        রেশমা উদ্ধার সরকারের সফলতা আমি কেন কেউ এটা বলবে না। তবে রেশমা উদ্ধারকার্যকে যদি বিএনপি-জামায়াত একটি সাজানো নাটক হিসাবে দেশে-বিদেশে ছড়াতে বা কিছুটা হলেও বিশ্বাস করাতে পারে তবে কিন্তু ক্ষমতাসীন দলের একটা দুর্ণাম হবে। সেই সঙ্গে আমাদের বাঙালি জাতিও কিন্তু মিথ্যাচারের অভিযোগে অভিযুক্ত হবে। এটা সম্পূর্ণরূপে অবগত হয়েই বিএনপি-জামায়াতের লোকজন এহেন কর্মে লিপ্ত রয়েছে।

      • Syed Ahmed

        ঠিকই বলেছেন, সফলতা না বিফলতা সেটা আল্লাহর উপরই ছেড়ে দিলাম। কিন্তু দেশে-বিদেশে বাঙালি জাতিকে মিথ্যাচারের অভিযোগে অভিযুক্ত করা এবং ক্ষমতাসীন দলের দুর্নাম করার জন্যই বিএনপি-জামায়াতের লোকজন এহেন কর্মে লিপ্ত রয়েছে। আল্লাহ্ সবাইকে হেদায়েত করুন। আমীন।

  24. আজিম

    প্রিয় লেখক,

    আপনার লেখাতেও নিরপেক্ষতা পাওয়া গেল না। ‘প্রথম আলো’ সম্পর্কে লিখেছেন “…নিরপেক্ষতার মুখোশের আড়ালে থেকে ‘প্রথম আলো’ যে জামায়াত-বিএনপির দিকে হেলে পড়ছে, সেটি পত্রিকার সচেতন পাঠকদের দৃষ্টি এড়ায় না”।

    আপনারা কি সচেতন পাঠকের প্রতিনিধিত্ব করেন না কি কোনো রাজনৈতিক দলের পক্ষে কলাম লিখে সাধারণ পাঠকদের বিভ্রান্ত করতে চান? আমরা আপনাদের কাছ থেকে নিরপেক্ষতা আশা করি না, কিন্তু দেশের উন্নয়নে আপনাদের কলাম হাতিয়ার হবে সেটা আশা করি।

    Reply
  25. Samad

    লেখক পাঠকদের এটা বলতে চেয়েছেন যে, বেশকিছু পত্রিকা ‘ভুয়া’ নিউজ ছাপে। তারা বিএনপি-জামায়াতের পক্ষে কাজ করে। কিন্তু তিনি কীভাবে একটি নিউজকে ‘ভুয়া’ বলতে পারেন?

    আমার কথা হল, যা সত্য তাই আমাদের বলুন। মনে রাখবেন এ যুগে জনতা ঘাস খায় না।

    Reply
  26. jafor khan

    ভাই, আপনি কোনো উত্তর বের না করে নিজের কথা বলেছেন। অদ্ভূত তো!

    Reply
  27. Moazzem Hossain

    জনাব শওগাত আলী সাগর,

    আপনাকে ধন্যবাদ এবং শুভেচ্ছা জানাচ্ছি সত্য কথাগুলো লেখনীর মাধ্যমে তুলে ধরার জন্য। কারণ সামনে থেকে কেউ এভাবে সত্যটা প্রকাশ করে না। খুঁজলে হাজারে এক বা দুইজন পাওয়া যায়। তাদের মধ্যে হয়তো আপনিই একজন। এ জন্য আপনাকে অবশ্যই ধন্যবাদ জানাই। বাংলাদেশের রাজনীতিক ও সাংবাদিকদের প্রকৃত মুখোশ উম্মোচন করে দেওয়ার জন্যও আপনাকে ধন্যবাদ।

    এছাড়া বিশেষ করে ‘প্রথম আলো’ নিরপেক্ষতার আড়ালে শিবির-জামায়াতি-হেফাজতি ও বিএনপির দালালি করার জন্য কৌশল হিসেবে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে সবসময় উপরে রেখে আওয়ামী লীগের চোখে ধুলা দিয়ে অন্ধকারে ইয়েলো ও করপোরেট জার্নালিজম করে। এতে ওদের প্রথম স্বার্থ হল- ‘আগে বিজ্ঞাপন দাও, নইলে রিপোর্ট খাও’ মূলমন্ত্র। একটি উদাহরণ দিতে পারি। যেমন, রাজশাহীর বাগমারার এমপি প্রকৌশলী এনামুল হক। তিনি প্রত্যেক বছর কোটি কোটি টাকার বিজ্ঞাপন দিতেন ‘প্রথম আলো’তে। এটা বন্ধ করে দেওয়ার পর ওরা তার বিরুদ্ধে বাহিনী লেলিয়ে দিয়ে একের পর এক মিথ্যা, ভিত্তিহীন সংবাদ পরিবেশন করতে থাকে।

    পত্রিকাটি মূলত দেশের মানুষের মূলবোধে আঘাত হানছে বারবার। মাফও চাচ্ছে। ওদের একের পর এক কেলেঙ্কারিও ধরা পড়ছে। কিন্তু………….। ফখরুল সাহেব ক্ষমতায় গেলে ‘প্রথম আলো’ বন্ধ করে দেওয়ার হুমকি দিলে তিনি হেলে পড়েন। কারণ অভিযোগ উঠেছে তিনি নাকি ‘আমার দেশ’ ও ‘এনটিভি’ কার্যালয়ে আগুন লাগানোর খলনায়ক। এছাড়া জঙ্গি মুফতি হান্নানের সঙ্গী। এসব কারণে তিনি বিএনপি-জামায়াত-হেফাজতের দিকে হেলে পড়েছেন।

    যাক, আপনার লেখাটি পড়ে বোঝা গেল ‘আমার দেশ’ পত্রিকার রিপোর্টটি অনুবাদ করে মূল বক্তব্য ঠিক রেখে ইংরেজিতে ছেপেছে ‘ডেইলি মেইল’ ও ‘সানডে মিরর’। একই সূত্রে সবকিছু গাঁথা।

    আপনি বলেছেন শিশির আবদুল্লাহকে নিয়ে। আমি আরও স্পষ্ট করে বলতে চাই, এই শিশির আবদুল্লাহ ‘প্রথম আলো’র শিশির মোড়ল নয় তো! কারণ বিএনপির অভিযোগের সূত্রেই বলি- টিপু সুলতান কই? তার বিরুদ্ধে বিএনপির কী ধরনের অভিযোগ? নতুন বার্তা নিউজ পোর্টালে দেখি, ভারতীয় রিপোর্টার ‘প্রথম আলো’র অফিসে যোগদান করেছেন। এসব রিপোর্টার ভারতের তথ্য পাকিস্তানের হাতে তুলে দিতে আবার বাংলাদেশের ‘প্রথম আলো’র সঙ্গে হাত মিলিয়ে কাজ করবেন না তো?

    এ জন্য ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংকে অনুরোধ করি, ওইসব সাংবাদিকের ব্যাপারে খোঁজখবর নিন। কারণ এখন দেশে দেশে তথ্যসন্ত্রাস চলছে। পাকিস্তানি সাংবাদিক হামিদ মীরও বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক রাখছেন সেভাবেই। তিনি বাংলাদেশের বন্ধু সেজে সিঁধ কাটছেন না তো!

    ১৬ কোটি মানুষের দেশে ১০ থেকে ১২ লাখ পত্রিকাপাঠক। বাকিদের মধ্যে ৫০ শতাংশই মূর্খ। কারণ তারা রিডিংজ্ঞানহীন। এ জন্য ‘প্রথম আলো’, ‘আমার দেশ‘ ও কতিপয় মিডিয়া হাউজের রাজনৈতিক কূটচাল চালানোর উদ্দেশ্য হচ্ছে- অবৈধভাবে অর্থনৈতিক বিত্তবৈভবের মালিক হওয়া!

    Reply
    • মো: আলমাস

      ‘প্রথম আলো’ ইয়েলো জার্নালিজম করে!!!

      এটা করে না কারা? ৭১ টিভি, বিটিভি, জিটিভি, সময় টিভি, মোহনা টিভি, দেশ টিভি, এটিএন বাংলা, মাই টিভি, এটিএন নিউজ……

      কোনটির কথা বলবেন?

      Reply
  28. Moazzem Hossain

    মন্তব্যগুলো পড়ে দেখলাম। চোরকে চোর বললে গা জ্বলে!

    ‘প্রথম আলো’ যে ইয়েলো অজার্নালিজম করে তারও বড় প্রমাণ হল গণজাগরণ মঞ্চ নিয়ে তাদের একাধিক গল্প প্রকাশ। ভুল হলে একটা বা দুটো হতে পারে, কিন্তু উদ্দেশ্য নিয়ে কাজ করা না হলে গণজাগরণ মঞ্চ নিয়ে এত কটাক্ষ করত না।

    পরে আবার বলে, মাফ চাই। এটা তাদের রীতিই দাঁড়িয়ে গেছে।

    Reply
  29. মো: মাহমুদ

    জামায়াত-বিএনপি রাজনৈতিক স্বার্থে যেটাকে ইউজ করেছে আপনি সেটাকে ব্যবসায়িক কাজে করেছেন।

    Reply
  30. মো: খালেকুজ্জামান মিন্টু

    মিথ্যাচারের একটা সীমা থাকা উচিত। দেশের অর্জনে নাখোশ! দেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য বিদেশিদের কাছে মিথ্যা বলা! এ সব কর্মকাণ্ড দেখে কবির ভাষায় বলতে হচ্ছে- “যে সব বঙ্গেতে জন্মি হিংসে বঙ্গবাণী, সে সব কাহার জন্ম নির্ণয় ন জানি”।

    কোটি কোটি মানুষের ইমোশনকে একাত্তরের নরপিশাচ ও তাদের দোসররা এখনও ভুলুণ্ঠিত করতে চায়। আসুন সকলে মিলে তাদের প্রতিহত করি।

    Reply
  31. অতীত

    বর্তমানে অধিকাংশ মিডিয়া যে কোনো খবর প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে প্রচ্ছন্নভাবে ওই নির্দিষ্ট খবরের বিষয়ে তাদের নিজস্ব দৃষ্টিভঙ্গি বা আদর্শ প্রচার করতে চেষ্টা করে। সচেতন পাঠক এগুলো বুঝতেও পারেন। বর্তমানে হয়তো কোনো মিডিয়ার পক্ষেই চরমভাবে নিরপেক্ষ থাকা সম্ভব নয়। কেননা কখনও কখনও নিরপেক্ষতা অন্যায়কারীর পক্ষে যায় (সম্ভব)।

    খবরের সঙ্গে প্রচ্ছন্নভাবে নিজেদের দৃষ্টিভঙ্গি প্রচারের এ প্রবণতা ততক্ষণ পর্যন্ত ঠিক আছে যতক্ষণ কোনো খবরকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে চরম বিকৃত (২৫০০ হেফাজত কর্মী নিহত হওয়ার খবর) উপস্থাপন করা না হয় এবং যখন নিতান্তই মানবিক (যেমন র‌্যাবের গুলিতে পা-হারানো লিমন) তাগিদে করা হয়।

    Reply
  32. Quazi T. H. Shubhra

    ওই পত্রিকাগুলো কিছু প্রশ্ন রেখেছিল: নখ ছোট কেন? চোখ খোলা রেখে কীভাবে অন্ধকার থেকে বের করা যায় (যেটা সিরিয়াস health risk)?

    সেই যুক্তি যদি খণ্ডন করতেন, আর সরকারকেও যদি প্রায় ১২০০ লোকের মৃত্যুর জন্য একটু দোষ দিতেন (কারণ সরকার রানাকে দেরিতে গ্রেফতার করেছে), তাহলে আপনার লেখা সবারই ভালো লাগত। আপনিও নিরপেক্ষতা হারালেন। আর এই পত্রিকাটি সরকার-সমর্থক বলে আপনার লেখা ছাপিয়ে দিল, যেমনটা করে জামায়াত-সমর্থিত পত্রিকা (যেটাকে আপনি তিরস্কার করলেন)!

    Reply
    • shahin

      আমি সত্য জানি না। কিন্তু এটা বের করা খুব সহজ।

      বলা হচ্ছে যে, রেশমাকে উদ্ধার করার আগে আর্মি সাংবাদিক ও সাধারণ স্বেচ্ছাসেবকদের ওই এলাকা থেকে সরিয়ে দিয়েছিল। এটা যদি সত্য হয় তবে রেশমা উদ্ধার ঘটনা সাজানো নাটক। কিন্তু এটা সত্য না হলে ঘটনাটি অবশ্যই ঘটেছে।

      আমাদের দেশে হাজার হাজার রানা আছে। তারা তৈরি হচ্ছে আমাদের পলিটিক্যাল সিস্টেমের দ্বারা, একা আওয়ামী লীগের হাতে নয়। সব রাজনৈতিক দলই এই সিস্টেম তৈরির জন্য দায়ী। তাই এ সরকারকে একা দায়ী করা ঠিক হবে না।

      কথা হচ্ছে, উদ্ধার তৎপরতা ছিল সফল এবং অত্যন্ত কার্যকরভাবে এটা সম্পাদিত হয়েছে। রানাকে তো দ্রুততার সঙ্গে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সে সরকারি দলের লোক কিন্তু সে বিরোধী দলেরও হতে পারত। আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে এক কাতারে ফেলা ঠিক হবে না। স্বীকার করছি যে এই আওয়ামী লীগকে মানুষ চায়নি। কিন্তু ওরা যদি কিছু কাজ করত তবে খুব জনপ্রিয় সরকারে পরিণত হতে পারত।

      কিন্তু বিএনপি তো বিএনপিই। শুরু থেকেই এটি নৈতিকতার সঙ্গে আপোষ করেছে। তাই এ দলের কাছে বেশি প্রত্যাশা করার কিছু নেই। আওয়ামী লীগ যদি একশ’তে পঞ্চাশ পায় তবে বিএনপি পাবে মাত্র ২০ পয়েন্ট!

      Reply
  33. Shah Arefin

    আপনি যে কারও পক্ষে কথা বলছেন না তা কীভাবে বুঝি? আসলে মিডিয়া মাত্রই কারও না কারও পক্ষে কথা বলে। কিন্তু আমরা বোকা জনগণ তা অনেক সময়ই বুঝি না।

    Reply
    • MD:MERAJUL ISLAM

      নিজেকে জিজ্ঞেস করুন, ঘটনাটা কি সাজানো নাটক নাকি সত্যি? আমরা এভাবে নিজেদের অস্তিত্ব হারিয়ে ফেলছি।

      Reply
  34. তানভির

    নিজেকে নিজে জিজ্ঞেস করুন, ঘটনাটা কি সাজানো নাটক নাকি সত্যি? আমরা এভাবে নিজেদের অস্তিত্ব হারিয়ে ফেলছি।

    Reply
  35. Hamid

    আপনি যে একটা পক্ষপাতমূলক লেখা লিখলেন, সেটা কোনো সচেতন পাঠকের দৃষ্টি এড়াবে না। আর আপনি যে বিশেষ একটা দলের পক্ষে কাজ করছেন, সেটাও বোঝালেন লেখাটা লিখে। আশা করি অন্যান্য পাঠকের মন্তব্যগুলো পড়ে নিজেকে শুধরে নিবেন। তাহলে দলীয় প্রতিনিধি থেকে অন্তত লেখক হিসেবে একটা নাম থাকবে।

    Reply
  36. Imran

    ভাই, একটু বলবেন কি, রেশমাকে নিয়ে সরকার কেন এত বাড়াবাড়ি করছে? যেমন তাকে কারও সঙ্গে কথা বলতে দিচ্ছে না; তাকে যখন প্রথমদিন মিডিয়ার সামনে হাজির করা হল তার কাঁধের উপর এক নার্স সারাক্ষণ হাত দিয়ে ডি নির্দেশ দিচ্ছিল।

    আবার তাকে এত বড় চাকরি দেওয়া হল, অথচ বাকি হতাহতদের কোনো খবর নেই! তার বাড়িতে পুলিশ কেন পাহারা দিচ্ছে?

    দেখুন, যেখানে একটু বেশি কদর সেখানেই কিন্তু আছে গলদ!!!

    Reply
  37. বাংগাল

    এই মাহমুদুর যখন দেশবিরোধী অপকর্মের দায়ে গ্রেফতার হন তখন কিছু নেতা-সাংবাদিকদের লম্ফঝম্ফ আমাদের চোখ এড়ায় না। আমলা থেকে সিরামিক ও ঢেউটিন ব্যবসায়ী– সেখান থেকে পত্রিকা অফিস কিনে রাতারাতি সাংবাদিক বনে যাওয়া মাহমুদুর রহমানের জন্য হেফাজতিদের মায়াকান্না, জামায়াতি বা ফখরুলি কুম্ভীরাশ্রু দেখলে যোগসূত্র কোথায় তা সহজেই বোঝা যায়। মাহমুদুর রহমানের ক্ষমতার উৎস কোথায় যে ক্ষমতার বলে সেনাবাহিনীর মতো প্রতিষ্ঠানকে ফুঁ মেরে প্রশ্নবিদ্ধ করে ফেলেন?

    মাহমুদুর রহমানের সাম্প্রতিক রাষ্ট্রবিরোধী কার্যকলাপ দেখে চিন্তা হয় কে বড়– রাষ্ট্র, সেনাবাহিনী নাকি মাহমুদুর রহমান? মাহমুদুর রহমান বা ‘আমার দেশ’ কি তাহলে ২০০৬ সালের তারেক জিয়া বা হাওয়া ভবনের চেয়ে বেশি শক্তিময় হয়ে উঠেছে?

    Reply
  38. আলামিন

    আপনি যে চোখ থাকিতে অন্ধ হয়ে গেলেন, ভাবতেই কষ্ট লাগছে। নিরপেক্ষতার মুখোশের আড়ালে থেকে পাঠকদের বোকা বানানোর আওয়ামী-কৌশল প্রয়োগের ষড়যন্ত্র। একজন আওয়ামী কর্মী হিসেবে আমার লজ্জা লাগছে। আপনাদের সমালোচনা গঠনমূলক হয় না, হয় অন্তর্ঘাতমূলক। আপনারা মনে করেন বিরোধী দলের বদনাম বললেই বোধহয় সবাই আপনাদের কোলে তুলে নাচবে! ভুল ধারণা। মানুষ বদনাম পছন্দ করে না। মানুষ সৌন্দর্য খোঁজে, কদর্যতা নয়।

    রেশমার ঘটনাটা সত্যি-মিথ্যা যাই হোক, অন্যের বদনাম না বলে যদি নিজের ধারণা তুলে ধরতেন– তাহলে হয়তো শিক্ষিত পাঠক আপনাকে কিছুটা মূল্যায়ন করার সুযোগ পেত।

    আশা করি শোধরাবেন। দলকে ভালবাসুন, ডোবাবেন না প্লিজ ।

    Reply
  39. Kamal

    আমাদের দেশের মানুষের একটা সমস্যা হল, এখানে যারা লেখালেখি করেন তারা কোনো না কোনো দলের পক্ষে কাজ করেন। জনগণ এখন আর অত বোকা নয়। যখনই বিদেশি পত্রিকায় সরকারের বিপক্ষে কিছু লেখা হয়, তখন সেটা মিথ্যা বলেই আমরা্ উপস্থাপন করি। আর সরকারের পক্ষে গেলে তো কথাই নেই.. তখন সেটা সত্যি।

    এটাই আমাদের কালচার হয়ে গেছে।

    Reply
  40. কাউছার আলম

    সব বুদ্ধিজীবীই (মিডিয়ায় যারা লেখালেখি করেন বা বক্তব্য দেন) কোনো না কোনো দলের পক্ষে কথা বলেন, আসল বা সত্যটা কেউ বলেন না। মিডিয়ার খবর পড়লে বা দেখলেই বোঝা যায় সেটি আসলে কোন দলের হয়ে কথা বলছে।

    আবার সত্য কথা বলা হলেও সেটিকে কোনো দলের বক্তব্য বানিয়ে ফেলা হয়………

    Reply
  41. সাইফুল ইসলাম

    এই ঘটনা নিয়ে বিতর্কের কারণ যে রাজনৈতিক সেটা সবারই কমবেশি জানা আছে। যারা করছে তাদের কাছ থেকে এর চেয়ে বেশি কিছু যেমন কখনও পাওয়া যায়নি তেমনি পাওয়ার আশা করাও চরম নির্বোধের কাজ হবে।

    অপরদিকে আওয়ামী লীগেরও এই দিকে একটা বড় ব্যর্থতা আছে। তারা এই মিডিয়া-রাজনীতিতে মনোযোগ নিবদ্ধ করে না, যার ফলশ্রুতিতে তাদের অধিকাংশ অর্জনই ঢাকা পড়ে মিডিয়া-রাজনীতির শিকার হয়ে।

    Reply
  42. sarkerhabib

    আপনার প্রতিবেদন পড়ে মনে হল আপনিও কারও পক্ষে ওকালতি করছেন।

    Reply
  43. হোসাইন কবির

    সমসাময়িক বিষয় নিয়ে এ সাহসী এবং যৌক্তিক মতামতের জন্য শওগাত আলী সাগরকে ধন্যবাদ জানাই।

    Reply
  44. মোঃ সেলিম

    আপনার লেখাটি দলমতনিরপেক্ষ হলে গ্রহণযোগ্যতা পেত।

    Reply
  45. শামীম হোসেন

    আপনার লেখা পড়ে ভালো লাগল। কোনো বিষয় সম্পর্কে রিপোর্ট করার আগে অবশ্যই তা সঠিকভাবে যাচাই করা দরকার। কিন্তু আমাদের দেশের অবস্থা তার বিপরীত। যে কোনো ঘটনা বা বিষয়কে রাজনীতিতে জড়ানো হবেই।

    আমি এবং বাংলাদেশের সবাই চাই এর সুষ্ঠু তদন্ত হোক এবং বিচার ব্যবস্থার মাধ্যমে এর প্রতিকার হোক।

    ধন্যবাদ।

    Reply
  46. মু.শহীদ

    ‘এত ফ্রেশ লাগছে কেন, কাপড়চোপড় এত পরিষ্কার কেন, হাতের নখ ছোট কেন, কোথাও আঘাত লাগেনি কেন’ এ ধরনের প্রশ্নের অবতারণা করে রেশমা উদ্ধারের ঘটনা সম্পর্কে একটি সন্দেহ তৈরি করে দেয় মিডিয়া। স্বভাবগতভাবেই কৌতূহলী বাঙালির কৌতূহল মিডিয়া দক্ষতার সঙ্গেই উসকে দিতে পেরেছে।”

    কৌতূহলী মিডিয়াগুলোও কি দিগন্ত টিভি, ইসলামিক টিভির মতো অন্যায় করেনি? ওগুলো বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে না কেন? সরকার তো চাইলেই পারে।

    আসলে মিডিয়ার প্রতি আপনারা অবিচার করেন, আর মিডিয়া আমাদের প্রতি।

    ভালো তো, ভালো না?

    Reply
  47. Sayham

    আমার বাসা সাভারে এবং তা রানা প্লাজার অনেক কাছে। আমি তখন যা দেখেছি তা থেকে বলব যে রেশমাকে উদ্ধার করা একটি সত্যিকারের বানানো নাটক। সাভার রানা প্লাজার আশেপাশে যে সব বাসা আছে তাদের সবাইকে জিজ্ঞেস করে দেখেন তারা কী বলে। রেশমা উদ্ধারের আগে ওই এলাকার মানুষজনকে কেন সেদিন বেশ কিছু সময়ের জন্য সরিয়ে দেয়া হয়েছিল? এর উত্তর আপনারা কেউ দিবেন না। ম্যাজিকাল কারসাজি তো সবসময় জনমানুষের সামনেই হয়।

    এই নিবন্ধের লেখককে বলছি, আমরা সাধারণ মানুষরা আপনাকে বলব যে দয়া করে নিরপেক্ষ থাকার চেষ্টা করুন।

    Reply
  48. SHEIKH SELIM

    জনাব শওগাত আলী সাগর,

    আপনাকে ধন্যবাদ না দিয়ে পারছি না। কারণ আপনার মতো সত্য অস্বীকার করে নির্জলা মিথ্যা দিয়ে এত সুন্দর প্রতিবেদন খুব কম লেখকই লিখতে পারেন। প্রতিভা কাজে লাগালে ভালো প্রতিবেদক হতে পারবেন। তবে আপনাকে আওয়ামী বলয় থেকে বের হয়ে আসার চেষ্টা করতে হবে।

    Reply
  49. Mohammed Rahman

    আপনি যে আওয়ামী লীগের লোক এটা আপনার লেখা পড়ে বোঝার কোনো উপায়ই নেই। আপনার পেশাদারিত্ব দেখে মনে হল যে “না, আমার কিছুটা হলেও পেশাদারিত্বের দিকে এগুচ্ছি।’’

    এই গরমের দেশে ১৭ দিন পর সুন্দর একটা থ্রি-পিস পরে, মোটামুটি বেশ সুস্থ অবস্থায় রেশমা কেমন করে বের হয়ে এল এটা নিয়ে তো দেশি মিডিয়ারই প্রশ্ন ছিল। ১৭ দিন পর রেশমার তো ‘আধাগলা’ হয়ে বের হওয়ার কথা। আর ১৭ দিন না খেয়ে, পানিছাড়া কী অবস্থা হয় তা আপনি আর আওয়ামী লীগের লোকেরা না বুঝতে পারলেও অন্য সবাই পারে।

    রেশমা উদ্ধারের নাটক দেখে আমার কান্না লুকাতে বাথরুমে গিয়েছিলাম। আর মঙ্গলবার টরেন্টোর অফিসে যখন আমার কলিগরা জিজ্ঞেস করছিল, তখন বাথরুমে গিয়েছিলাম বমি করতে। একটা জাতি এত নির্লজ্জ হতে পারে ধারণা ছিল না।

    দুঃখের বিষয়, আমিও সেই জাতির একজন। এখন থেকে বাংলা পত্রিকা পড়া ছেড়ে দিয়েছি।

    Reply
  50. ki dorkan

    রেশমা নতুন থ্রি পিস পরে ১৭ দিন পর কীভাবে বের হল সে সম্পর্কে কিছু বললেন না?

    দুনিয়াশুদ্ধ মানুষ বাংলাদেশের মতো মুসাফির দেশের বিরুদ্ধে লাগল কেন? আমাদের মন্ত্রীদের মতো সচ্চরিত্রের লোকদের বিরুদ্ধে এরা চুরির অভিযোগ আনে! রেশমার মতো মেয়ের বিরুদ্ধে এরা নাটকের অভিযোগ আনে!

    কেন?

    Reply
  51. istiyak

    আসলে কী বলব, বাংলাদেশের মিডিয়াগুলো বরাবরই প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকা পালন করে যা আজ জাতির সামনে উন্মোচিত। প্রতিটি নাটকের নির্দেশনায় থাকেন সরকার আর সেখানে অভিনয় করেন সরকার দলীয় প্রশাসন, ছাত্রলীগ-যুবলীগ। ইতিবাচক উপস্থাপনা করেন আমাদের দেশের মিডিয়া জগত। আর জনগণ থাকেন দর্শক হিসেবে।

    জনগণের রুচি বুঝতে ব্যর্থ হলে এমন একটি ‘রেশমা নাটক’ কেন, শত ঘটনার জন্ম হওয়া স্বাভাবিক।

    Reply
  52. ফজলুর রহমান

    খুবই ভালো একটি লেখা। বাংলাদেশের সাংবাদিকতার সমালোচনা করে এমন লেখা অনেকদিন ধরেই দেখা যায় না। এত সুন্দর একটি লেখা উপহার দেওয়ার জন্য লেখককে ধন্যবাদ জানাই।

    বাংলাদেশের মূলধারার সংবাদপত্রগুলো আমার দেশের অনুসন্ধানী প্রতিবেদন নিয়ে চুপ থাকলেও একেবারেই অজানা অখ্যাত একটি অনলাইন ডেইলি ম্যাগাজিন এ প্রতিবেদনের ঘাটতি ও দুর্বলতা নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছিল। এমনকি মিরর সংবাদ প্রকাশ পর এ ম্যাগাজিনটি বাংলাদেশের সংবাদপত্রের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলার সাহস দেখিয়েছে।

    সেই সাহসী ম্যাগাজিন নতুন দিনকেও ধন্যবাদ জানাই।

    Reply
    • জাহিদ

      এখানে যে প্রশ্নগুলোর অবতারণা করা হয়েছে আগে তার উত্তরগুলো বের করুন।

      দেশ, জাতি, সংবাদপত্র বা গোয়েন্দা সংস্থা অথবা বাংলাদেশ, ভারত বা ইংল্যান্ডের মিরর– যার কথাই বলুন না কেন, সব সমস্যার একটাই সমাধান– উপরোক্ত প্রশ্নগুলোর সমাধান।

      Reply
    • মাসুদ রানা

      যারা একটি দলকে সাপোর্ট করেন তারা মনে করেন ওই দল আল্লাহর ফেরেশতার মতো (তওবা) কাজ করে। এখনকার রাজনীতিবিদদের অধিকাংশই অসৎ। কাজেই এইসব দলের সাপোর্টার হয়ে নিজের অস্তিত্ব বিকিয়ে না দেওয়ার চেষ্টা করুন। অনেকই দেখা যায়, সারাজীবন চাকরি-ব্যবসা করে কিছু করতে পারেননি। অথচ রাজনীতি করলে দল একবার ক্ষমতায় গেলে ৫ বছরে না পারলেও অন্তত ৫ তলা একটা বাড়ি এবং সারাজীবন পরিবার চলবে সে ব্যবস্থা হয়ে যায়। তাকিয়ে দেখুন মেলে কিনা আমার কথা।

      আমি কিন্তু নির্দিষ্ট কোনো দলকে নিয়ে বলিনি, সবার কথাই বলছি। দেশকে কিন্তু কোনো নেতা-নেত্রীই ভালোবাসেন না। এটা তাদের কথা ও কাজেই অনেক প্রমাণ দেন তারা। তাই এদের হয়ে কোনো না বলাই ভালো।

      Reply
  53. নুরুল আজিম

    আপনার প্রতিবেদন পড়ে মনে হল আপনিও কারও পক্ষে ওকালতি করছেন।

    Reply
    • khalid Hossain

      সত্য বলায় আপনার কাছে মনে হল উনি কারও পক্ষে উকালতি করছেন! মানুষ হন। আর কতদিন ছাগু থাকবেন!

      Reply
      • mitthuk

        খালিদ হাসান, মানুষ হন। আর কতদিন আওয়ামী লীগ থাকবেন?

      • Jeremiah

        ভাই, আপনার নামটা ইংরেজিতে যা লেখা আছে তাতে বুঝলাম মিথ্যুক।

    • বাংগাল

      নুরুল আজিম সাহেব,

      এটা তো পরিস্কার বোঝা যায় যে ওকালতি নিশ্চয়ই দেশের শত্রু ‘আমার দেশ’ আর সাংবাদিক (ভুঁইফোড়) নামের কলঙ্ক মাহমুদুর রহমানের পক্ষে নয়, ইসলামের নামে কলঙ্ক-লেপনকারী জামায়াতে ইসলামী (???) বা হেফাজতে ইসলামীদের (???) পক্ষে তো নয়-ই!!!

      Reply
  54. ssk.shakim

    বিশ্লেষণ করতে গিয়ে আপনি ঢালাওভাবে বিএনপি-জামায়াতের কথা বললেন, কেমন লেখক-নৈতিকতার পরিচয় দিলেন? প্রশ্ন থাকল।

    Reply
  55. manir

    আমরা গরীব মানুষ, বিট্রিশরা আমাদের শাসন করেছে ২০০ বছর। হাজার হোক ওরা ভদ্রলোক! তাই হয়তো ওদের কথা এ দেশের মানুষ বিশ্বাস করে!

    Reply
  56. মু.শহীদ

    ” নিরপেক্ষতার মুখোশের আড়ালে থেকে ‘প্রথম আলো’ যে জামায়াত-বিএনপির দিকে হেলে পড়ছে, সেটি পত্রিকার সচেতন পাঠকদের দৃষ্টি এড়ায়নি।”

    -আপনিও যে নিরপেক্ষতার মুখোশের আড়ালে থেকে নির্দিষ্ট একদিকে হেলে পড়েছেন, অন্তত আমার দৃষ্টি এড়াননি। দলের নাম উল্লেখ করে আপনিও যথেষ্ট আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন।

    মিডিয়াগুলোও ‘প্রথম আলো’র মতো জামায়াত-বিএনপি’র দিকে হেলে পড়েছে, তা কিন্তু আপনি এড়িয়ে গেলেন।

    যেখানে এমপি-মন্ত্রীরা প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার জন্য ‘প্রতিবেদন’কেই হাতিয়ার বানিয়েছেন, সেখানে ‘প্রতিবেদন’-এর উপরই একমাত্র বিশ্বাস রাখা যায়।

    “‘এত ফ্রেশ লাগছে কেন, কাপড়চোপড় এত পরিষ্কার কেন, হাতের নখ ছোট কেন, কোথাও আঘাত লাগেনি কেন’ এ ধরনের প্রশ্নের অবতারণা করে রেশমা উদ্ধারের ঘটনা সম্পর্কে একটি সন্দেহ তৈরি করে দেয় মিডিয়া। স্বভাবগতভাবেই কৌতূহলী বাঙালির কৌতূহল মিডিয়া দক্ষতার সঙ্গেই উসকে দিতে পেরেছে।”

    “উসকে” কথাটি সুন্দর হয়নি। আপনার লেখাতেই স্পষ্ট, মিডিয়া যা করেছে তা ‘প্রশ্ন’, ‘উস্কানি’ নয়। ‘উস্কানি’ বলে প্রশ্নগুলোর উত্তর ফাঁকি দিলেন। পারলে রদ্দে প্রতিবেদন বলে প্রশ্নগুলোর সদোত্তর দিন। জাতির জানার অধিকার আছে।

    স্যার, মাফ করবেন, আপনি যদি দলের নাম উল্লেখ না করে নিরপেক্ষতা ধরে রাখতেন তাহলে লেখাটি ন্যূনতম হলেও গ্রহণযোগ্যতা পেত।

    Reply
    • sajjad

      ভাই…

      আমিও আপনার সঙ্গে একমত। উনিও একটি দলের সমর্থক, তা উনার লেখা পড়েই বুঝতে পারছি।

      “এত ফ্রেশ লাগছে কেন, কাপড়চোপড় এত পরিষ্কার কেন, হাতের নখ ছোট কেন, কোথাও আঘাত লাগেনি কেন?’’

      লেখককে বলছি, এই প্রশ্নগুলির উত্তর দিন না।

      Reply
  57. sadek

    একই কথা বারবার লেখা হযেছে। আর শুধু ‘প্রথম আলো’তে নয়, নিউজটা বেশিরভাগ পত্রিকায় এসেছে। তাই আরও গোছানো লেখা আশা করেছিলাম।

    Reply
  58. abdus salam

    আমি নিজে এবং আমার মতো অনেকেই শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত টিভির সামনে বসে দেখেছি রেশমা উদ্ধারের ঘটনা। রেশমার ভগ্নস্বাস্থ্য, জটাধরা চুল, মুখে ছোপ ছোপ দাগ সবই নিজ চোখে দেখেছি। ঘটনাস্থলে মিডিয়া, উদ্ধারকারী জনতা সবই ছিল। আর এতগুলো লোক মিলে কীভাবে একটা ষড়যন্ত্র করল? তাহলে তদন্ত করা হোক। পশ্চিমা পত্রিকা খালেদা জিয়ার নামে নিবন্ধ ছাপিয়েছে যা বিরোধী দলীয় নেত্রী অস্বীকার করছেন। সবকিছুরই তদন্ত হোক।

    Reply
    • Shaheen

      রেশমা উদ্ধারের ঘটনাটি মোটেই বানোয়াট নয়। এটা সত্য। কে বলল তাকে ফ্রেস দেখাচ্ছিল? আমি পুরো ঘটনাটি দেখেছি। এটা মিথ্যা বা বানোয়াট হতে পারে না।

      Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—