Chess

নির্বাচনের ঢোলে চাটি পড়েছে। থাক না দেড় বছর বাকি, তাতে কী? আগে থেকে প্রস্তুতি নিতে দোষ কী? পরীক্ষার আগের রাতে চুটিয়ে পড়লেই ভালো রেজাল্ট আশা করা যায়? আগে থেকে প্রস্তুতি নিতে হয়। আমাদের রাজনৈতিক মহলেও নির্বাচন সামনে রেখে নানামুখী তৎপরতা লক্ষ করা যাচ্ছে।

শাসক দল আওয়ামী লীগ একদিকে দল গোছাতে মাঠে নেমেছে, অন্যদিকে নজর রাখছে অন্য দল, জোটের দিকে; তারা কে কী করছে। ১৪-দলীয় জোটের পরিধি বাড়ানোর চিন্তাও আওয়ামী লীগের আছে। দু-চারটা ইসলামি দলের সঙ্গে প্রাথমিক কথাবার্তাও হয়েছে। আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধবাদীরা ‘ধর্ম’ কার্ড ব্যবহার করে যাতে বেশি সুবিধা করতে না পারে সে জন্য ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করা চিহ্নিত দু-চারটি দলকে সঙ্গে রাখার পরিকল্পনা আওয়ামী লীগের রয়েছে বলে মনে হয়। হেফাজতে ইসলামী নামের হঠাৎ প্রভাববিস্তারী শক্তির সঙ্গেও একধরনের আপস-সমঝোতার পথে হাঁটছে আওয়ামী লীগ।

অন্যদিকে শাসক দলের অন্যতম প্রতিপক্ষ বিএনপিও বসে নেই। তারাও তলে তলে নিজেদের প্রস্তুত করছে। ২০-দলীয় জোটে নতুন শরিক জোটানোর টার্গেট বিএনপির আছে। কারা বিএনপির নতুন মিত্র হবে তা এখনও স্পষ্ট নয়। রাজনীতিতে বিএনপি খুব সুবিধাজনক অবস্থায় নেই। জোটসঙ্গি জামায়াতে ইসলামীকে নিয়েও রয়েছে বিএনপির উদ্বেগ। জামায়াত আইনি জটিলতায় নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে না। তাই নির্বাচনে জামায়াতের খুব আগ্রহ থাকার কথা নয়। আবার দলের শীর্ষ নেতারা যুদ্ধারপরাধের দায়ে দণ্ডিত হয়ে ফাঁসিতে ঝুলেছেন। আরও দু-চারজনের সামনেও দড়ি ঝুলছে।

আত্মরক্ষা এখন জামায়াতের প্রধান কাজ। জাময়াত তার স্বার্থ বিবেচনা করেই সিদ্ধান্ত নেবে। বিএনপির সঙ্গে থাকা নাকি আওয়ামী লীগের সঙ্গে মিলঝুল করে চলাই হবে জামায়াতের জন্য লাভজনক, সে হিসাবনিকাশ করেই তারা সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করবে। জামায়াতের মতিগতি বুঝতে না পেরে বিএনপির মধ্যে বাড়তি টেনশন আছে।

জামায়াতের সঙ্গত্যাগের একটি চাপও বিএনপির ওপর আছে। মুক্তিযুদ্ধবিরোধী জামায়াতের সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের বলে দাবিদার বিএনপির মিত্রতা নিয়ে বিএনপি-দরদিদের একধরনের অস্বস্তি আছে। বিএনপি যদি সে অস্বস্তি দূর করতে চায় তাহলে তাকে শূন্যস্থান পূরণের জন্য নতুন মিত্র খুঁজতে হবে। সে লক্ষ্যে বিএনপি সচেষ্ট রয়েছে। তবে বিএনপি যাদের দিকে হাত বাড়াতে চায় তারা আবার এক নতুন উদ্যোগে শামিল হয়েছে।

গত ১৩ জুলাই জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির প্রধান নেতা আ স ম আব্দুর রব তাঁর উত্তরার বাসভবনে সমমনা আরও কয়েকটি দলের নেতাদের সন্ধ্যায় চায়ের নিমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। এই দাওয়াতি বাসায় পুলিশ হাজির হয়ে বেরসিকের মতো কাজ করেছে। পুলিশ একটি গুরুত্বহীন বিষয়কে গুরুত্বপূর্ণ করে তুলেছে।

রবের আমন্ত্রণে তাঁর বাসায় গিয়েছিলেন বিকল্প ধারার সভাপতি ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, তাঁর পুত্র মাহী বি চৌধুরী, বাসদের খালেকুজ্জামান, বজলুর রশীদ ফিরোজ, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের কাদের সিদ্দিকী, গণফোরামের সুব্রত চৌধুরী ও আ হ ম শফিউল্লাহ, নাগরিক ঐক্যের মাহমুদুর রহমান মান্না ও এস এম আকরাম। বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাইফুল হক ও বহ্নিশিখা জামালী, জেএসডির আব্দুল মালেক রতন। সুজনের সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারও উপস্থিত ছিলেন। দাওয়াত পেয়েও যাননি গণফোরামের ড. কামাল হোসেন, সিপিবির মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম এবং গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরউল্লাহ চৌধুরী।

উপস্থিত নেতারা অনানুষ্ঠানিক ওই বৈঠকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপির বাইরে একটি তৃতীয় রাজনৈতিক শক্তির বলয় তথা একটি নতুন জোট গঠনের ব্যাপারে প্রাথমিক আলোচনা করেছেন। এ বিষয়ে তাঁরা একমতও হয়েছেন। এ নিয়ে তাঁরা আরও বৈঠক করবেন, কথা বলবেন।

এই উদ্যোগ নতুন নয়। এরা অনেকদিন থেকেই সলতে পাকানোর চেষ্টা করছেন। কিন্তু কাজ হচ্ছে না। রস জ্বাল দিচ্ছেন কিন্তু গুড় জমাট বাঁধছে না। আগামী নির্বাচনের আগে বাঁধবে বলে মনে হয় কি? যেসব দল নতুন জোট গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে তাদের একক ও সম্মিলিত শক্তি এতই কম যে তা প্রচলিত রাজনৈতিক ধারার বাইরে যাওয়ার জন্য একেবারেই উপযুক্ত নয়। নামসর্বস্ব দলের জোট রাজনীতিতে জট তৈরির ক্ষমতাও সম্ভবত রাখবে না।

নির্বাচনের আগে নিজেদের ওজন বাড়ানোর জন্যই এই নতুন জোট গঠনের উদ্দেশ্য বলে অনেকে মনে করছেন। কিন্তু পর্যবেক্ষক মহলের ধারণা, এঁদের কেউ কেউ গায়ে-গতরে দশাসই হলেও শক্তি-সামর্থের দিক দিয়ে একেবারেই পলকা। এঁদের নিজেদের জ্বলে ওঠার ক্ষমতা নেই। তবে অন্যকে জ্বলে উঠতে হয়তো কিছু সহায়তা করতে পারেন। রাজনীতি থেকে যখন এঁদের অনেকেরই অবসর নেওয়া উচিত, তখন তাঁরা বিকল্প জোট গড়তে মাঠে নামছেন।

মানুষ আওয়ামী লীগ-বিএনপির প্রতি যদি বিরূপ হয়েও থাকে তবু এঁদের প্রতি সদয় হবে এমন ধারণা তাদের হল কীভাবে? মানুষের সামনে সবচেয়ে বড় প্রশ্ন, এঁরা কি রাজনীতির প্রধান দুই ধারার বাইরে একটি নতুন ধারা, নাকি দুই ধারার কোনো একটিতে ভিড়ে যাওয়ার ট্রানজিট রুট? তাঁরা কোনো তরফ থেকে ডাকের অপেক্ষা করবের, নাকি নিজেরা কিছু একটা করে দেখাবেন? এঁদের অনেকেরই ‘ট্র্যাক রেকর্ড’ এত ভালো যে মানুষ পারলে মুখ ঘুরিয়ে নেয়!

এই নেতাদের কারো পক্ষেই এককভাবে নির্বাচন করে জিতে আসা সম্ভব নয়। এখন থেকে আরও আগে, যখন তাদের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল ছিল, তখনও নির্বাচনে জেতার রেকর্ড তাদের অনেকের নেই। এমনকি নৌকা প্রতীক নিয়ে লড়েও তীরে পৌঁছুতে পারেননি। এখন শেষবেলায় সলতে পাকিয়ে সন্ধ্যাপ্রদীপ জ্বালাতে পারবেন বলে মনে হয় না।

আ স ম রবের উদ্যোগ আমাদের রাজনীতির বৃত্ত ভাঙতে সহায়ক হবে বলে মনে করে যদি উচ্ছ্বসিত হতে পারতাম তাহলে খুশি হতাম। কিন্তু সেটা পারছি না বলে দুঃখিত। এসব বলে আমি অবশ্যই এই নেতৃবৃন্দকে মোটেও অসন্মান করছি না। এদের অনেকেই জীবনের বিভিন্ন পর্যায়ে দেশের জন্য অবদান রেখেছেন। তাঁরা অবশ্যই শ্রদ্ধেয়জন। ড. কামাল হোসেন বঙ্গবন্ধুর স্নেহধন্য, খ্যাতিমান আইনজীবী। বাংলাদেশের সংবিধান প্রণয়নে নেতৃত্ব দিয়ে তিনি কীর্তিমান হয়ে আছেন। কিন্তু শুনতে ভালো না লাগলেও সত্য এই যে, তিনি আর নিজেকে অতিক্রম করতে পারছেন না। তাঁর কাছ থেকে যারা এখন নতুন কিছু আশা করছেন, তাদের আশাহত হওয়ার বেদনা নিয়েই সময় কাটাতে হবে।

আ স ম আব্দুর রব ছাত্র আন্দোলনের ডাকসাইটে নেতা। তিনিও বঙ্গবন্ধুর স্নেহসান্নিধ্য পেয়েছেন। বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের সঙ্গে তাঁর নাম জড়িয়ে আছে। কিন্তু পরবর্তী সময়ে তিনি রাজনীতিতে এত ডিগবাজি খেয়েছেন যা মানুষের মনে বিরক্তিকর ঠেকেছে।

ডা. বদরুদ্দোজা চৌধুরী একজন স্বনামপ্রসিদ্ধ চিকিৎসক। সামরিক শাসক জিয়াউর রহমান তাঁকে রাজনীতিতে আনেন। তাঁর একটা ভালোমানুষি ইমেজ ছিল। তাঁকে খালেদা জিয়া রাষ্ট্রপতি বানিয়েছিলেন। কিন্তু খালেদাই আবার তাঁকে বিতাড়িতও করেন। তারপর রাজনীতিতে নেমে খেই হারিয়ে ফেললেন। এখন তিনি না ঘরকা না ঘাটকা।

কাদের সিদ্দিকীর ব্যাপারেও একই কথা। মুক্তিযুদ্ধে বড় ভূমিকা পালন করে এখন যুদ্ধ শেষের পাওনা আদায়ে ব্যস্ত। দাড়িপাল্লায় না মেপে নিজের ওজন সম্পর্কে ভুল ধারণা নিয়ে তিনি রাজনীতির ময়দান কাঁপাতে গিয়ে নিজেই এখন কাঁপুনির মধ্যে আছেন।

খালেকুজ্জামান মানুষ হিসেবে মন্দ নন। কিন্তু তিনিও বুঝতে পারেন না যে মুখস্থ তত্ত্ব কপচে কমবয়সীদের মোহিত করা গেলেও রাজনীতিটা তো আর ছেলেমানুষি ব্যাপার নয়। মানুষ তত্ত্ব বুঝতে পারছে কি না সেটা না বুঝে রাজনীতি করে তিনি কেবলই নিজের ক্লান্তি বাড়িয়ে চলেছেন।

মাহমুদুর রহমান মান্নাও ছাত্র আন্দোলনের ‘আইকন’। ডাকসুতে বারবার জেতাটাই সম্ভবত তাঁর জন্য কাল হয়েছে। ভেবেছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের কাছে যখন ‘হিরো’ তখন আমপাবলিকের কাছে ‘হিরো’ হওয়া এমনকি কঠিন। এদল ওদল করে মান্না এখন নাগরিক ঐক্যে। দেখা যাক, তিনি নাগরিকদের ঐক্যবদ্ধ করতে পারেন কি না।

এঁরা প্রত্যেকেই আসলে নিজ নিজ সুনামের সঙ্গে নিজেরাই সুবিচার করতে পারেননি। তাই মানুষও আর তাদের ব্যাপারে খুব একটা আগ্রহী নয়।

যাদের অবস্থান বা উপস্থিতি নিজ নিজ বাসাবাড়িতে, জনসমর্থন তলানিতে, কারো কারো ব্যক্তিগত ভূমিকা বিতর্কমুক্ত নয়, তারা জোট বানিয়ে ডাক দিলেই মানুষ পিঁপড়ের মতো সার বেঁধে তাদের দিকে ধাবিত হবে– এমন বিশ্বাস তাদের মধ্যে হল কীভাবে?

তবে মিডিয়ার মনোযোগ তাঁরা পাবেন। আমাদের দেশের রাজনীতির ‘ডেড হর্স’রা বেঁচে থাকেন গণমাধ্যমের বদান্যতায়। আ স ম রবের বাসায় ইনফরমাল বৈঠক করতে গিয়েও এমন কয়েকজন নেতা মিডিয়ার আকর্ষণ পেয়েছেন। আর সেটা পেতে সহায়তা করেছে আমাদের চৌকশ পুলিশ বাহিনী। কী প্রয়োজন ছিল রবের বাসায় গিয়ে অহেতুক ঝামেলা বাঁধানোর?

যে পুলিশ কর্মকর্তা এই নির্দেশ দিয়েছেন, তিনি কি সরকারের ভালো করলেন, না খারাপ করলেন? যাঁরা ডাক দিলে তাদের আত্মীয়স্বজনেরাও রাস্তায় বেরিয়ে আসবেন না (কারণ, তারা কেউ রাজনীতি করেন না) তাদের একটি ঘরোয়া ব্যাপারে নাক গলাতে গিয়ে অতিউৎসাহী পুলিশদল সরকারকে অকারণ সমালোচনার মুখে ফেলে কার্যত ওই নেতাদের পক্ষেই কাজ করেছে।

নেতারা বলার সুযোগ পেয়েছেন যে, সরকার তাদের জোট গঠনের উদ্যোগে ঘাবড়ে গেছে। তাই পুলিশ পাঠিয়ে বৈঠক ভণ্ডুল করতে চেয়েছে। সত্যি কি তাই? সরকারের উচিত হবে বিষয়টি পরিষ্কার করা। পুলিশ যদি উপযুক্ত কর্তৃপক্ষের নির্দেশ ছাড়া রবের বাড়ি গিয়ে থাকে তাহলে বাড়াবাড়ি করা পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। আর যদি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এমন নির্দেশ দিয়ে থাকে, তাহলে সেই ঊর্ধ্বতনকেও অবিলম্বে অধঃস্তন করা উচিত।

বিভুরঞ্জন সরকারসাংবাদিক ও কলামিস্ট।

১৪ Responses -- “আরও এক নতুন জোট?”

  1. আব্দুল হাই

    বিভুদা কি বুজাতে চাইছেন><? বাঙালীরা ওই দুইদলের বাইরে যেতে চাচেছ না?

    Reply
  2. ভবঘুরে পথিক

    যেখানে রাজনীতিবিদরা গনতন্ত্র বিশ্বাসই করেন না সেখানে বলার কি থাকতে পারে? বাকশাল করে গনতন্ত্রকে হত্যা করা হল, আওয়ামী লীগ বিএনপিতে নেত্রী যা বলবেন তাই গনতন্ত্র ?
    সরকার মশাই, জোট গঠনে ক্ষতি দেখছেন কেন? এক থেকে দুই, দুই থেকে চার চার থেকে আট এভাবেইতো এগুতে হবে। তাদেকে উৎসাহ দিন।
    লেখুন, দেশের এই ক্রান্তি লগ্নে এগিয়ে এসেছেন এই মহান দেশপ্রেমিক ব্যক্তিগন। তবে মাঝে মধ্যে গনতন্ত্রকে সম্মান করতে স্মরন করে দিয়েন।

    Reply
  3. সরকার জাবেদ ইকবাল

    আমার বিশ্লেষণ এ রকম, –

    আসম আব্দুর রব = কাগুজে বাঘ
    ডা: বদরুদ্দোজা = বিকেলে ভোরের ফুল
    কাদের সিদ্দীকি = টিনের তলোয়ার
    খালেকুজ্জামান = অন্তরালের নেতা
    মাহমুদুর রহমান মান্না = ছন্দহারা

    Reply
  4. সিম্পলগার্ল

    জনগণের ভোট নেই এমন কিছু নেতার সামান্য বৈঠক ও দাওয়াতকে ভয় পেয়ে শেখ হাসিনা সেখানে পুলিশ লেলিয়ে দিয়েছে। এখন চিন্তা করুন, সুষ্ঠু-নিরপেক্ষ নির্বাচন ও বিএনপি-জামায়াতকে কি পরিমাণ ভয় পাচ্ছে আওয়ামীরা!

    Reply
  5. E A Bari

    সরকার বাবু আমার প্রিয় সাংবাদিক ও প্রাবন্ধিক। বেশ সুন্দর আলোচনা করেছেন টকিং-শপ, বিগত-যৌবনা কয়েকজন নেতাদের নিয়ে। আমি আরো একটু অগ্রসর হয়ে বলছি, বাংলাদেশের রাজনীতি থেকে এ ক’জনসহ আরো যারা এখনও ‘আমলহীন জ্ঞানবান’ হিসেবে সক্রিয় তাদেরকে ইস্তিফা দেওয়ার সময় এসেছে। মাঝে মাঝে এক দু’টো বাজে মন্তব্য দ্বারা সাংবাদিকদের কলম নাচানোই হচ্ছে এদের কাজ। দৃষ্টাত্ব স্বরূপ এককালের তুখোড় ছাত্রনেতা মাহমুদুল হক মান্না সাহেবের আগের [এক দু’টো লাশ ….] ফোনালাপ ফাঁস ও ইদানিংয়ের ‘বেকুব ও মশকরা’ ইত্যাদি এখানে উল্লেখযোগ্য! এরা কেনো আর্লি রিটায়ারমেন্টে যেয়ে নিজেদের স্বজনদের নিয়ে সুখে-শান্তিতে বসবাসকে বেছে নিচ্ছেন না? তাদের জন্য এটা করা ছাড়া রাজনীতিতে নাক-গলানো মোটেই আর সুখকর হবে না।

    Reply
  6. Mahbubur Rahman

    Intellectuals use to say ”Old wine in new bottle”, “ Both sides of coin” etc. about AL and BNP, If a new front will form, what wrong with Bibhuti Babu?.
    M.Rahman

    Reply
    • Mirza Kibria

      Perhaps following quotes could be referred as reference:-

      আ স ম আব্দুর রব ছাত্র আন্দোলনের ডাকসাইটে নেতা। তিনিও বঙ্গবন্ধুর স্নেহসান্নিধ্য পেয়েছেন। বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের সঙ্গে তাঁর নাম জড়িয়ে আছে। কিন্তু পরবর্তী সময়ে তিনি রাজনীতিতে এত ডিগবাজি খেয়েছেন যা মানুষের মনে বিরক্তিকর ঠেকেছে।

      ডা. বদরুদ্দোজা চৌধুরী একজন স্বনামপ্রসিদ্ধ চিকিৎসক। সামরিক শাসক জিয়াউর রহমান তাঁকে রাজনীতিতে আনেন। তাঁর একটা ভালোমানুষি ইমেজ ছিল। তাঁকে খালেদা জিয়া রাষ্ট্রপতি বানিয়েছিলেন। কিন্তু খালেদাই আবার তাঁকে বিতাড়িতও করেন। তারপর রাজনীতিতে নেমে খেই হারিয়ে ফেললেন। এখন তিনি না ঘরকা না ঘাটকা।

      কাদের সিদ্দিকীর ব্যাপারেও একই কথা। মুক্তিযুদ্ধে বড় ভূমিকা পালন করে এখন যুদ্ধ শেষের পাওনা আদায়ে ব্যস্ত। দাড়িপাল্লায় না মেপে নিজের ওজন সম্পর্কে ভুল ধারণা নিয়ে তিনি রাজনীতির ময়দান কাঁপাতে গিয়ে নিজেই এখন কাঁপুনির মধ্যে আছেন।

      খালেকুজ্জামান মানুষ হিসেবে মন্দ নন। কিন্তু তিনিও বুঝতে পারেন না যে মুখস্থ তত্ত্ব কপচে কমবয়সীদের মোহিত করা গেলেও রাজনীতিটা তো আর ছেলেমানুষি ব্যাপার নয়। মানুষ তত্ত্ব বুঝতে পারছে কি না সেটা না বুঝে রাজনীতি করে তিনি কেবলই নিজের ক্লান্তি বাড়িয়ে চলেছেন।

      মাহমুদুর রহমান মান্নাও ছাত্র আন্দোলনের ‘আইকন’। ডাকসুতে বারবার জেতাটাই সম্ভবত তাঁর জন্য কাল হয়েছে। ভেবেছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের কাছে যখন ‘হিরো’ তখন আমপাবলিকের কাছে ‘হিরো’ হওয়া এমনকি কঠিন। এদল ওদল করে মান্না এখন নাগরিক ঐক্যে। দেখা যাক, তিনি নাগরিকদের ঐক্যবদ্ধ করতে পারেন কি না।

      এঁরা প্রত্যেকেই আসলে নিজ নিজ সুনামের সঙ্গে নিজেরাই সুবিচার করতে পারেননি। তাই মানুষও আর তাদের ব্যাপারে খুব একটা আগ্রহী নয়।

      Reply
  7. Fazlul Haq

    পাতে ঝোল পাওয়ার আশায় জোট গঠনের চেষ্টা। পুলিশের অকাজ করাটাই নিয়ম।

    Reply
  8. হাসান মুয়াজ

    বাংলাদেশ বর্তমানে বলতে গেলে রাজনীতিশূণ্য। ১৯৭২-৭৫ সালে বা ১৯৭৯-১৯৯০ পর্যন্তও এদেশের মানুষ যতটুকু রাজনীতি চর্চা করতে পারতো, নিজের মতামত প্রকাশ করতে পারতো, সরকারগুলো জনগণের মতকে সম্মান করতো, জনমতকে ভয় পেতো তার কোনকিছুই আজ আর বর্তমান নেই। অকল্পনীয় লুটপাট, প্রতিটি জিনিসের আকাশছোঁয়া দাম এরপরও পুলিশি প্রটেকশানে থেকে ক্ষমতাশীনদের আস্ফালন, জনগণকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করা এসব বাংলাদেশে ছিল অকল্পনীয়-অবিশ্বাস্য। তাই বর্তমান বাস্তব হয়ে দাঁড়িয়েছে ১/১১ এর বিরাজনীতিকরণের ষড়যন্ত্র শেখ হাসিনা ও ভারত কনটিনিউ করার কারণে।

    Reply
  9. সরকার জাবেদ ইকবাল

    সবার উদ্দেশ্যই যদি হয় দেশ ও জাতির সেবা করা তাহলে এত জোট গঠন করার প্রয়োজন হয় কেন? সবাই মিলে একজোট হলেই তো হয়। তবে এই মুহূর্তে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাভিত্তিক একটি জোট গঠন করা ভীষণ প্রয়োজন।

    Reply
  10. Firoz Uddin

    Very updated political analysis. Especially individual explanations on Rob, Dr. B, Manna, K Siddiqui, Khalequzzaman, Kamal Hossain excellent and fantastic. Needed on Dr. Jafaullah and Bodiul also. Surprisingly a goff man was absent. Mass people to know about them.
    Thanks Bibhu da.

    Reply

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশ করা হবে না। প্রতিক্রিয়া লেখার সময় লক্ষ্য রাখুন--

  • ১. স্বনামে বাংলায় প্রতিক্রিয়া লিখুন।
  • ২. ইংরেজিতে প্রতিক্রিয়া বা রোমান হরফে লেখা বাংলা প্রতিক্রিয়া গৃহীত হবে না।
  • ৩. প্রতিক্রিয়ায় ব্যক্তিগত আক্রমণ গৃহীত হবে না।

দরকারি ঘর গুলো চিহ্নিত করা হয়েছে—